Feedback

লাইফস্টাইল

জীবন উন্নয়নের অভ্যাসগুলো

জীবন উন্নয়নের অভ্যাসগুলো
July 15
10:27pm
2020
Badhan Kumar Ghosh
SIRAJGANJ SADAR, Sirajganj, প্রতিনিধি:
Eye News BD App PlayStore

১.বড় স্বপ্ন দেখুন

"আপনি যতক্ষণ স্বপ্ন দেখবেন, ততক্ষণ আপনি তা পাওয়ার মধ্যে থাকবেন"পাশ্চাত্যে এমন একটি প্রবাদ খুবই জনপ্রিয়।জীবনে আপনি যেটাই করতে চান না কেন আপনাকে স্বপ্ন দেখতে হবে।আপনি ডাক্তার হতে চান,ইঞ্জিনিয়ার, উকিল,রাজনীতিবিদ থেকে শুরু করে অনেকে অনেক কিছুই হতে চাইবেন কিন্তু সেসবের জন্য প্রথমে আপনাকে স্বপ্ন দেখতে হবে।এই মহাবিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী বস্তুটি হলো মন এবং আপনার একটা মন আছে অর্থাৎ সেই শক্তিশালী বস্তুটির মালিক আপনি নিজে,যদি আপনি সেটাকে সঠিকভাবে ব্যবহার করতে জানেন।কাজেই আগে স্বপ্ন দেখুন,এবং সেটা অবশ্যই যেন বড় স্বপ্ন হয়।আপনি হতে পারেন আপনার পাড়ার বাজারের মাছের দোকানি,রোজ রোজ দরদাম করে মাছ বিক্রি করবেন অথবা হতে পারেন নাসার বিজ্ঞানী।আপনার হাতে যেহেতু সুযোগ আছে, তাহলে মাছের বাজারে গিয়ে বসার ইচ্ছেটা আপনার নেই বলেই ধরে নিচ্ছি।কাজেই স্বপ্ন দেখুন,বড় বড় স্বপ্ন দেখুন।সবচেয়ে বড় কথা এটার জন্য আপনাকে কাউকে অর্থ দিতে হচ্ছে না।

২. পরিকল্পনাকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যান

সবকিছুর জন্যই আপনি পরিকল্পনা করেন সেটা আপনার সচেতন অবস্থায়,অচেতন অবস্থায় বা অবচেতন অবস্থায়।কোন কাজ করার জন্যই আপনার মন অটোমেটিক্যালি ভাবতে থাকে কিভাবে কি করা যায়,একে আপনি পরিকল্পনা বলতে পারেন।তবে আনুষ্ঠানিকভাবে কোন কাজ করতে আপনাকে সচেতনভাবে পরিকল্পনা গ্রহন করতে হয়।বাধা আসে এখানেই,নানা কারণে দেখা যায় শেষ পর্যন্ত পরিকল্পনাটা সফল হয় না।কাজেই এক দিনেই আপনার সমগ্র কাজের পরিকল্পনাটা না করে ছোট একটা সিন্ধান্ত নিন এবং তা শেষ করুন। এতে করে আপনার মধ্যে আত্ম সন্তুষ্টি কাজ করবে।এবং প্রতিদিন সেটা একটু একটু করে হলেও বাড়িয়ে নিয়ে চলুন।



৩. প্রতিদিন ভোরে ঘুম থেকে উঠুন

আপনি শেষ কবে ভোরের সূর্য দেখেছেন?
মনে নেই তাইনা!প্রতিদিন ভোরে ঘুম থেকে ওঠার চেষ্টা করুন।এতে আপনার উপকারীতা কী?প্রতিদিন ভোরে ওঠার ফলে আপনি সুন্দর একটা সকাল দেখতে পাবেন,দূষণমুক্ত বাতাস পাবেন,বুক ভরে অক্সিজেন নিতে পারবেন,প্রকৃতি দেখতে পারবেন এবং সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ যেটা সেটা হলো আপনি আপনার দিনের থেকে ৩/৪ ঘন্টা সময় বেশি পাবেন যাতে করে আপনি সেই সময়টায় আপনার নিজের পছন্দের কাজগুলো করতে পারবেন।মনে রাখবেন পৃথিবীতে সবচেয়ে ব্যস্ত মানুষেরও বিনোদনের জন্য সময় থাকে যদি সে সময়ের কাজ সময়ে করে।

৪. মনোযোগী হোন

বর্তমান সময়ে মাল্টিটাস্কিং তরুন প্রজন্মের অভ্যেসে দাঁড়িয়ে যাচ্ছে।একসাথে অনেকগুলো কাজ করাকে বলা হয় মাল্টিটাস্কিং।কেউ যখন মাল্টিটাস্কিং করর তখন সে পুরোপুরিভাবে কোনটাতেই মনোযোগ দিতে পারে না।ফলে দেখা যায়,আপনার ১০০% মনোযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে চারিদিকে ছড়িয়ে যায়।তাই যা করছেন সেটাই করুন।একটা শেষ করে আরেকটা ধরুন,এতে করে আপনার প্রোডাক্টিভিটি রেট যেমন বাড়বে,আপনার সময়ও সেভ হবে পাশাপাশি কাজগুলো ১০০% সম্পন্ন হবে।

৫. টিভি কম দেখুন

আপনি যদি টেলিভিশনে খুব আসক্ত হয়ে থাকেন তাহলে আপনাকে একটা খারাপ খবর দেই,টেলিভিশনে আপনি যা দেখেন তার ৪০ শতাংশ সময়ে আপনি বিভিন্ন পন্যের বিজ্ঞাপনে ব্যয় করেন। প্রতিদিন তাহলে কতো সময় বিজ্ঞাপন দেখেন এটা বের করা আপনার হোম ওয়ার্ক থাকলো। এবার বলুন আপনার জীবনের এতো গুরুত্বপূর্ণ সময়গুলো কি শুধু বিভিন্ন পন্যের বিজ্ঞাপন দেখে কাটিয়ে দেয়া উচিত?তাছাড়া অতিরিক্ত টিভি দেখা আপনার চোখের ওপর বিরুপ প্রভাব ফেলে যার ফলস্বরূপ অকালেই চোখে সমস্যা।কাজেই এসব থেকে বাঁচতে যতটুকু সম্ভব কম টিভি দেখুন। 


৬. নিজের জন্য সময় বিনিয়োগ করুন

টিভি কম দেখে তো সময় বাঁচালেন অনেকখানিই এবার বলুন সেই সময়টা কি করবেন?আচ্ছা আমি বলে দেই।আপনি সময়টা নিজের জন্য ব্যয় করুন।"নো দাইসেল্ফ" কথাটা হাজারবার মুখ দিয়ে বললেও উপলব্ধি করেছেন কখনো?নিজের সাথে কথা বলেছেন?আপনার পছন্দ, অপছন্দ, ভালোলাগা, খারাপলাগা এসব সময় দেয়ার মতো সময় পেয়েছেন?
সফল হতে গেলে আপনাকে নিজেকে জানতে হবে।আপনার ভালো দিকগুলোর রীতিমতো চর্চা করতে হবে এবং খারাপ দিকগুলো ডাস্টবিনে ছুড়ে ফেলে দিতে হবে।এজন্য নিজেকে উদ্ভাবন করা জরুরি। ঘন্টাখানের নিজের সাথে সময় কাটান না,ওই সময়টুকু শুধু নিজেকেই দিন। আপনার নিজের প্রতি সম্মান,শ্রদ্ধাবোধ,আত্মবিশ্বাস এসব কিছুই দেখবেন বেড়ে যাচ্ছে।

৭. বেশি বেশি বই পড়ুন
বই পড়া যে ভালো তা কে না মানে সকলে মুখে মানলেও কাজে মানে না-প্রমথ চৌধুরী তার বই পড়া প্রবন্ধে বলেছিলেন সুশিক্ষিত লোক মাত্রই স্বশিক্ষিত। আপনাকে মুখে মানার পাশাপাশি কাজেও মানতে হবে।প্রশ্ন হতে পারে বই পড়ে কি লাভ?আচ্ছা বলুন তো আপনি যে আজ ভাত খেলেন এতে আপনার সরাসরি কি লাভ আছে?আপনি ভাত না খেলে কি ১০ কেজি ওজন কমে যেতো?বা খেলেন বলে কি আরো ১০ কেজি বেড়ে গেলো?যায় নি তো!বই পড়াটাও ঠিক সেরকম।আপনি এর সরাসরি কোন ফল দেখতে পাবেন না কিন্তু দীর্ঘমেয়াদে বই আপনাকে প্রতিনিয়ত সমৃদ্ধ করে যাবে।

৮. সময় নষ্ট করে এমন কিছু এড়িয়ে চলুন

টাইম ইজ মানি,পাশ্চাত্যের দেশগুলোতে সময়কে টাকার সাথে তুলনা করা হয়।আচ্ছা আপনি কি কোন কিছুর বিনিময় ছাড়াই আপনার রোজগারকৃত অর্থ ব্যয় করবেন?অবশ্যই না।তাহলে সময় কেন? 
যেখানে সময় টাকার চেয়েও অধিক মূল্যবান। টাকা গেলে টাকা পাবেন,সময় গেলে সময় পাবেন?কাজেই সময়ের উপযুক্ত ব্যবহার করুন,দরকার হলে এই পোস্ট পড়া বাদ দিয়ে হলেও।সময় নষ্ট করে এমন কোন কাজ বা অভ্যেস থাকলে সেসব ঝেড়ে ফেলুন কারণ এসব আপনাকে দীর্ঘমেয়াদে বা স্বপ্নমেয়াদে কোন সুবিধা দেবে না বরং কেড়ে নেবে আপনার সময়।কাজেই সময় নষ্ট করে এমন কিছু এড়িয়ে চলুন।

৯. পরিমাপযোগ্য ঝুঁকি নিন

আমাদের অধিকাংশ সময়েই কোন না কোন কাজে ঝুঁকি নিতে হয় তাইনা?বেশিরভাগ সময়েই আমরা কি করি,অনুমান করে একটা সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলি কিন্তু যার ফলে পরে আমাদের ভোগান্তি পোহাতে হয়।কাজেই ঝুঁকি নেয়ার সময় অবশ্যই পরিমাপযোগ্য ঝুঁকি নিতে হবে এবং বিভিন্ন সম্ভাবনা ও সমস্যা গুলোকে বিশ্লেষণ করে তারপরে ঝুঁকি বিষয়ক সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে হবে।


১০.লক্ষ্যটাকে লিখে রাখুন

আপনার কাজের লক্ষ্যটা মনে মনে না রেখে খাতায় লিখে রাখুন।কেন বলছি বলুন তো?আচ্ছা এটা বলুন,আপনি গত সোমবার দুপুরে কি খেয়েছিলেন?মনে আছে?এরজন্যই আপনার লক্ষ্যটা লিখে রাখা জরুরি।তাছাড়া আপনি যদি লিখে রাখে তাহলে সেটা আপনাকে বার বার রিমাইন্ডার দিবে যে এটা আপনার লক্ষ্য এটা অর্জনের জন্য আপনার কাজ করতে হবে।কাজেই আপনার লক্ষ্যটা লিখে রাখুন,এখনই..।

১১. আয় বুঝে ব্যয় করুন 

ইংরেজিতে প্রবাদটা মনে আছে "কাট ইয়োর কোর্ট একোর্ডিং টু ইয়োর ক্লোথ" অর্থাৎ আয় বুঝে ব্যয় করতে হবে।জীবনে এমন অনেক পরিস্থিতি আসবে যেখানে আপনাকে দক্ষ নাবিকের মতো আপনার জীবনের হাল সামলাতে হবে,পারবেন তো জিতে যাবেন আর না পারবেন তো ডুবে যাবেন।আয় ব্যয়ের হিসেবটাও একই রকম।আপনার আয় বুঝে আপনাকে ব্যয় করতে হবে।যদি তা না করেন আপনাকে খুব উঁচুদরে এর খেসারত দিতে হতে পারে।

১২. নিজের স্বাস্থকে প্রাধান্য দিন

স্বাস্থ্যই সকল সুখের মূল।আচ্ছা এই যে এতোকিছু করা এগুলো কার জন্যে?আপনার নিজের জন্যে তাইনা!ভাবুন তো আপনার দেহ ছাড়া আপনার অস্তিত্ব কি?কিছু পাবেন না।শূন্য।কাজেই সবকিছুর মূলে হচ্ছে আপনার স্বাস্থ্য।নিজের স্বাস্থের যত্ন নিন।মনে রাখবেন অতিরিক্ত সবকিছুই খারাপ,হোক সেটা মোটা বা চিকন।স্বাস্থ্য ঠিক রাখার জন্য প্রতিদিন ব্যায়াম করুন।মেডিটেশন ও ইয়োগা আপনার মানসিক স্বাস্থ্য ও শারীরিক স্বাস্থ্য দুটোই ভালো রাখবে।

১৩. নিজের পছন্দের কিছু করুন

আপনি নিজের জন্য আজ কি করেছেন?
পেলেন কি কিছু?প্রতিদিন নিজের জন্যে কিছু করুন।সেটা হোক অনেক ছোট কিছু তবুও করুন।যেমন ধরুন আপনার বাগান করা পছন্দের, বা গাছ লাগানো।আপনি প্রতিদিন কিছু সময় আপনার সেই ভালো লাগার কাজগুলোর পেছনে ব্যয় করুন।এতে আপনি নিজের মধ্যে একটা স্বতস্ফুর্ততা উপলদ্ধি করতে পারবেন যা আপনাকে প্রফুল্ল আনন্দ প্রদান করবে।

১৪.মানুষের কাছ থেকে শিখুন

"পুউর মাইন্ড টকস এবাউথ পিপল"মনে আছে প্রবাদটা?আপনার চারপাশে অনেক মানুষ রয়েছে।তাদের সমালোচনা না করে তাদের থেকে কিছু শেখার চেষ্টা করুন।মনে রাখবেন একটা নষ্ট ঘড়িও দুইবার সঠিক সময় দেখায়।কাজেই শুধু ভালো গুলো বাচাই করুন,আবর্জনা ঝেড়ে ফেলুন।প্রতিদিন যদি সবার থেকে একটা করে ভালো গুন ও যদি আপনি নিতে থাকেন আপনি হয়ে উঠবেন সুপার হিউম্যান। বিশ্বাস হয় না?এখন থেকে ট্রাই করে দেখুন তাহলে..।


১৫. সম্পর্কগুলোর যত্ন নিন

আপনার সম্পর্কগুলোর যত্ন নিন।উদাসীনতা বা অবজ্ঞতায় অনেক সম্পর্ক নষ্ট হয়ে যায়।কাজেই আপনার সম্পর্কের সেই মানুষগুলোর যত্ন নিন।সপ্তাহন্তে একদিন ফোন করে বা দেখা করে তাদের খোঁজখবর জিজ্ঞাসা করুন।

১৬. অচরণে কৃতজ্ঞতার চর্চা করুন

কাল্টিভেট এন এ্যাটিটিউট অব গ্র‍্যাটিটিউট,জীবনের সকল পর্যায়ে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করুন।ছোট,বড় যেকোনো কাজের জন্য যেকোনো কারো কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে কখনো লজ্জা বা দ্বিধা বোধ করবেন না।এবং এটাকে অভ্যাসে পরিণত করুন।পৃথিবীর সকল সফল মানুষেরা বিনয়ী এবং নম্র,এই উদাহরণ কি আপনার জন্য যথেষ্ট নয়?


১৭. পদক্ষেপ নিন,এটা যদি সবচেয়ে ভয়াবহ ব্যাপার ও হয় তাহলেও

প্রথম পদক্ষেপ সবসময়ই সবচেয়ে কটগিন পদক্ষেপ হয়ে থাকে।বিভিন্ন সময়ে আপনাকে বিভিন্ন কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে হিতে পারে।ভয় না পেয়ে কিছু একটা পদক্ষেপ নিন।ছোট হলেও কিছু একটা করুন এবং ধীরে ধীরে সেটাকে বড় করুন।অনেক বড় বাধা হলেও একসময় তা কেটে যাবেই।


১৮. একটি শক্তিশালী ও অনুপ্রেরণা মূলক 'কেন' হৃদয়ে ধারন করুন

আপনার মধ্যে যদি জানার আগ্রহ থাকে তাহলেই কেবন আপনি জ্ঞানী হতে পারবেন।আর এই জানার আগ্রহ শুরু হয় এই একটি মাত্র শব্দ "কেন" থেকে।আপনার কোন জ্ঞানী মানুষের প্রয়োজন নেই এই আধুনিক যুগে।শুধু সোস্যাল মিডিয়ায় ফানি পোস্টে হাহা রিএক্ট দিয়েই কি যদি জীবন পার করে দিতে চান?এই যে মহাবিশ্ব,সৌরজগৎ,পৃথিবী,মহাদেশ, মহাসাগর,দেশ,নদী,পাহাড় কতোটা আপনি জানেন? এসব শুনলে কি আপনার মনে হয় না এখনো কতো কি জানার বাকি,শুধু এই একটা ছোট ঘর,শহর বা দেশে বসেই কি জীবন কাটাবেন?কখনো ইচ্ছা হয় নি ২০০ দেশ ভ্রমন করা কোন পর্যটকের মতো কখনো হিমালয়ের বরফে পা ফেলা কিংবা আমাজনের গভীর জঙ্গলের এডভেঞ্চার করার? কূপমন্ডুকতা পরিহার করুন।জীবন ও পৃথিবী দুটোই অনেক বড়ো।নিজের মতো করে বাঁচতে শিখুন।অতীতের হতাশা ও ভবিষ্যতের দুশ্চিন্তাকে ঝেড়ে ফেলে যেখানে আছেন সেখান থেকেই শুরু করুন। নিজের মতো এক নিজেকে গড়ে তুলুন।
শুভকামনা রইলো।



All News Report

সম্পর্কিত সংবাদ

ট্রেন্ডিং

কুড়িগ্রামে দুই বছর পর উন্মোচিত হলো আসামী

কুড়িগ্রামে দুই বছর পর উন্মোচিত হলো আসামী

ওসি প্রদীপ কুমার দাশের গোড়া কোথায় ?

ওসি প্রদীপ কুমার দাশের গোড়া কোথায় ?

আমতলীতে ৬’শ টাকার গ্যাস ৮’শ ৫০ টাকা।  লাইব্রেরী, চায়ের দোকান ও কাপরের দোকানসহ যত্রতত্র স্থানে অবৈধভাবে বিক্রি হচ্ছে গ্যাস   সিলিন্ডার

আমতলীতে ৬’শ টাকার গ্যাস ৮’শ ৫০ টাকা। লাইব্রেরী, চায়ের দোকান ও কাপরের দোকানসহ যত্রতত্র স্থানে অবৈধভাবে বিক্রি হচ্ছে গ্যাস সিলিন্ডার

ধর্মপ্রাণ ধর্মপ্রতিমন্ত্রী প্রয়োজন

ধর্মপ্রাণ ধর্মপ্রতিমন্ত্রী প্রয়োজন

১২ অগস্ট আসছে বিশ্বের প্রথম করোনা ভ্যাকসিন

১২ অগস্ট আসছে বিশ্বের প্রথম করোনা ভ্যাকসিন

ধুনটে ইউনিয়ন ক্রিকেট চ্যাম্পিয়নশিপে বিজয়ী অলোয়া রাইর্ডাস

ধুনটে ইউনিয়ন ক্রিকেট চ্যাম্পিয়নশিপে বিজয়ী অলোয়া রাইর্ডাস

আজ থেকে ১২ কেজি গ্যাসের নির্ধারিত খুচরা মূল্য ৬০০ টাকা।দাম বেশি দেখলে ৯৯৯এ কল করুন

আজ থেকে ১২ কেজি গ্যাসের নির্ধারিত খুচরা মূল্য ৬০০ টাকা।দাম বেশি দেখলে ৯৯৯এ কল করুন

বরগুনায় সিফাতের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধনে পুলিশের লাঠিপেটা; আহত ৩ জন!

বরগুনায় সিফাতের মুক্তির দাবিতে মানববন্ধনে পুলিশের লাঠিপেটা; আহত ৩ জন!

মৌলভীবাজারে মানুষের মুখমন্ডলের আকৃতিতে অদ্ভুত এক বাছুরের জন্ম

মৌলভীবাজারে মানুষের মুখমন্ডলের আকৃতিতে অদ্ভুত এক বাছুরের জন্ম

প্রতি ৯ জন মহিলার মধ্যে ১ জন স্তন ক্যান্সারের শিকার, লক্ষণ এবং প্রতিকারগুলি

প্রতি ৯ জন মহিলার মধ্যে ১ জন স্তন ক্যান্সারের শিকার, লক্ষণ এবং প্রতিকারগুলি

বিশ্বের প্রথম ভ্যাকসিন আসতে আর ৪ দিন

বিশ্বের প্রথম ভ্যাকসিন আসতে আর ৪ দিন

যশোরে রাস্তা থেকে তুলে ঘাস ক্ষেতে নিয়ে গৃহবধুকে গণধর্ষণ ধর্ষক; আটক ৪!

যশোরে রাস্তা থেকে তুলে ঘাস ক্ষেতে নিয়ে গৃহবধুকে গণধর্ষণ ধর্ষক; আটক ৪!

সাতক্ষীরার কলারোয়ায় ডাক্তার, ব্যাংকারসহ আরো ৭ ব্যক্তির করোনা পজিটিভ

সাতক্ষীরার কলারোয়ায় ডাক্তার, ব্যাংকারসহ আরো ৭ ব্যক্তির করোনা পজিটিভ

কারাগার থেকে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত সাতক্ষীরার আবু বকরের পলায়ন, বরখাস্ত ৬

কারাগার থেকে যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত সাতক্ষীরার আবু বকরের পলায়ন, বরখাস্ত ৬

স্কুল-কলেজ খোলা ও পরিক্ষার ব্যাপারে বিবৃতি দিয়েছে শিক্ষামন্ত্রণালয়

স্কুল-কলেজ খোলা ও পরিক্ষার ব্যাপারে বিবৃতি দিয়েছে শিক্ষামন্ত্রণালয়

সর্বশেষ

যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত কয়েদি আবু বকর সিদ্দিককে পাওয়া যায়নি

যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত কয়েদি আবু বকর সিদ্দিককে পাওয়া যায়নি

পরিবেশ দূষণ ও তার প্রতিকার

পরিবেশ দূষণ ও তার প্রতিকার

যতো দুর্নীতির   অভিযোগ এসপি মাসুদের বিরুদ্ধে

যতো দুর্নীতির অভিযোগ এসপি মাসুদের বিরুদ্ধে

টাকা আত্মসাৎ করলেন ইউপি চেয়ারম্যান রুমি

টাকা আত্মসাৎ করলেন ইউপি চেয়ারম্যান রুমি

শিবচরে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছার জন্মবার্ষিকী উদযাপন ও দুস্থ নারীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ

শিবচরে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছার জন্মবার্ষিকী উদযাপন ও দুস্থ নারীদের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ

কণ্ঠশিল্পী  “নোবেল ম্যান” নামের ইউটিউব চ্যানেলটি ব্যান

কণ্ঠশিল্পী “নোবেল ম্যান” নামের ইউটিউব চ্যানেলটি ব্যান

শহীদের মর্যাদা

শহীদের মর্যাদা

করোনায় ৩০ বছরের নিচে মৃত্যুর হার কম

করোনায় ৩০ বছরের নিচে মৃত্যুর হার কম

গল্পঃ ইদের আনন্দ ভাগাভাগি

গল্পঃ ইদের আনন্দ ভাগাভাগি

কারাগার থেকে কয়েদি ‘উধাও

কারাগার থেকে কয়েদি ‘উধাও

বঙ্গবন্ধুসহ শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় চাঁপাইনবাবগঞ্জে দোয়া মাহফিল

বঙ্গবন্ধুসহ শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় চাঁপাইনবাবগঞ্জে দোয়া মাহফিল

কুড়িগ্রামের রাজারহাটে এই বাড়িতে নবম শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণ করা হয়

কুড়িগ্রামের রাজারহাটে এই বাড়িতে নবম শ্রেণির এক ছাত্রীকে ধর্ষণ করা হয়

ওষুধেও পাওয়া যাচ্ছে মাদকঃ নিরাপত্তা কোথায়?

ওষুধেও পাওয়া যাচ্ছে মাদকঃ নিরাপত্তা কোথায়?

স্কুল-কলেজ খোলা ও পরিক্ষার ব্যাপারে বিবৃতি দিয়েছে শিক্ষামন্ত্রণালয়

স্কুল-কলেজ খোলা ও পরিক্ষার ব্যাপারে বিবৃতি দিয়েছে শিক্ষামন্ত্রণালয়

তালাকের পর কিভাবে তালাক প্রত্যাহার করবেন

তালাকের পর কিভাবে তালাক প্রত্যাহার করবেন