About Us
মঙ্গলবার, ২২ জুন ২০২১
md babul
প্রকাশ ০৬/০৬/২০২১ ০৭:০৫পি এম

নবীনগর আহমেদ হাসপাতাল থেকে ওবায়েদ নামক ৪৭ দিনের শিশু চুরি!

নবীনগর আহমেদ হাসপাতাল থেকে ওবায়েদ নামক  ৪৭ দিনের শিশু চুরি! Ad Banner

ব্রাহ্মণবাড়িয়া নবীনগর পৌর এলাকার মাঝিকাড়া গ্রামের মিঠু মিয়ার ৪৭ দিনের ওবায়েদ নামক এক ছেলে শিশু আহমেদ হাসপাতাল থেকে চুরি হওয়া ঘটনা ঘটেছে।  সরজমিনে গিয়ে জানা যায়,রবিবার (০৬/০৬) দুপুর ২ টায় সরকারী অনুদানের প্রলোভন দেখিয়ে ঐ শিশুর মা সাবিনা আক্তারকে জনৈক এক মহিলা বাড়ি থেকে পৌর শহরের  আহমেদ হাসপাতালে নিয়ে আসেন আলট্রা করানোর জন্য। এক পর্যায়ে আলট্রার করানোর খরচের টাকা রিসিপশনের জমা করে  চুরি হওয়া শিশুর মাকে আলট্রা রুমে পাঠায়। শিশুটি মা তাকে ঐ জনৈক মহিলার কোলে  আহমেদ হাসপাতালের রোগীদের অপেক্ষার রুমে রেখে আলট্রা রুমে প্রবেশ করেন, আলট্রা শেষে বের হয়ে দেখেন তার ছেলে শিশু ও ঐ জনৈক মহিলা রেখে যাওয়া স্থানে নেই। ঘটনাটি সন্দেহজনক হলে সে হাও মাও করে কান্নাকাটি করে সুর চিৎকার করে তার ছেলে শিশু চুরি হয়েছে বলে লোকজন জড়ো করতে থাকেন।

 আহমেদ হাসপাতালের রিসিপশনের থাকা আমির হোসেন বলেন,আমার কাছ থেকে সাবিনা আক্তার নামক এক মহিলা আলট্রা করার জন্য রশিদ কাটলে তার সাথে থাকা জনৈক মহিলা বিল পরিশোধ করে তাকে আলট্রা রুমে পাঠায় এবং তার বাচ্চা ঐ মহিলার কোলে নিয়ে হাসপাতালের টিনসেডে বসে থাকতে দেখি।পরোক্ষনে সাবিনা আক্তার আলট্রা শেষে বের হয়ে তার শিশুটি চুরি হয়েছে বলে চিৎকার করতে থাকেন।

এবিষয়ে শিশু ওবায়েদ মা সাবিনা আক্তার বলেন,গতকাল এক মহিলা আমার বাড়িতে গিয়ে বলেন যাদের বাচ্চার বয়স ৩ মাসের কম তাদের সরকারের পক্ষ থেকে সেমাই, চিনি,কাপড়চোপড় দেয়া হবে তারজন্য আহমেদ হাসপাতালে গিয়ে কার্ড করতে হবে মর্মে আজ আমাকে ফোন করে দুপুরে আসতে বলায় আমি আহমেদ হাসপাতাল আসি।সে আমাকে আলট্রা করানোর কথা বলে আমার বাচ্চাকে তার কাছে রেখে আলট্রা রুমে পাঠায়।আলট্রা শেষে এসে দেখি ঐ মহিলা আমার সন্তানকে নিয়ে পালিয়ে গেছে। সরকারের কাছে আমি অনুরোধ জানায় যেভাবে হোক আমার সন্তানকে ফিরে পেতে সহযোগিতা করার।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসা নবীনগর থানার অফিসার ইনচার্জ আমিনুর রশিদ বলেন, আমরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে চুরি হওয়া শিশুর মা সাবিনা আক্তারের সাথে কথা বলেছি,আহমেদ হাসপাতালের সিসি ফুটেছে দেখা গেছে একজন মহিলা একটি শিশুকে কোলে নিয়ে দ্রুত হাসপাতাল থেকে প্রস্থান করেছে ,চুরি হওয়া ঘটনা সত্য।শিশুটিকে উদ্ধারের জন্য উপজেলার বিভিন্ন জায়গায় চেকপোস্ট বসিয়েছি,মোবাইল ফোনে বিভিন্ন জায়গায় যোগাযোগ করে উদ্ধার তৎপরতা জোরদার করা হয়েছে।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ