About Us
শনিবার, ১৫ মে ২০২১
  • সোশ্যাল প্ল্যাটফর্ম:
Md Jahidul Islam Sumon
প্রকাশ ০২/০৫/২০২১ ০৭:০৫পি এম

‘নো মেক আপ লুক’ দিয়ে নায়কে উত্তমকে চমকে দিয়েছিলেন সত্যজিৎ

‘নো মেক আপ লুক’ দিয়ে নায়কে উত্তমকে চমকে দিয়েছিলেন সত্যজিৎ Ad Banner

বিশ্ববরেণ্য পরিচালক তথা বাঙালির গর্বের এই ব্যক্তিত্বের আজ ১০০তম জন্ম দিবস আজ ২মে। সত্যজিৎ রায়ের ১০০তম জন্মদিন। ভোটের আড়ালে চাওয়া পড়েছে বিশ্ববরেণ্য পরিচালক তথা বাঙালির গর্বের এই ব্যক্তিত্বের ১০০তম জন্ম দিবস। তো ছবি কীভাবে বানালে সেরাটা বেরিয়ে আসবে তার থেকে ভালো কেউ জানবেন না। আজ নো মেক আপ লুক নিয়ে বলিউড টলিউডে বিশাল চর্চা হয়। আজ থেকে ৫৫ বছর আগে সেই জিনিস দেখিয়ে গিয়েছিলেন সত্যজিৎ রায়। সুপারস্টার উত্তম কুমারকে করতে দেয়নি মেক আপ। তাও নায়কের মতো ছবিতে।

১৯৬৬ সালে ৬ই মে মুক্তি পেয়েছিল সত্যজিৎ রায়ের ছবি নায়ক। তো এই ছবিতেই ছবির নায়ক উত্তম কুমারকে একটুও মেক আপ করতেই দেননি সত্যজিৎ রায়। অবাক লাগলেও এটাই বাস্তব। ছবিতে যে অরিন্দমকে দেখে মানুষ পাগল হয়ে গিয়েছিল সেটি ছিল উত্তমের মেক আপ হীন লুক। এ নিয়ে উত্তমও প্রথমে মোটেই খুশি ছিলেন না। পরে অবশ্য সব বিরক্তি উধাও হয়ে গিয়েছিল তাঁর। উত্তম কুমার তখন সত্যিই নায়ক। সুপার স্টার। এগিয়ে চলেছেন মহানায়ক হওয়ার পথে। ১৯৬৬ সালে , মেক আপ ছাড়া ছবি বানানো হচ্ছে। তাও লিড রোলে যিনি তারই মেক আপ হবে না। বাকি সবার মেক আপ আছে। কেন এমন সিদ্ধান্ত? আসলে নায়কের আসল চরিত্রটা ক্যামেরায় তুলে ধরতে চেয়েছিলেন রায়। অরিন্দম নায়ক হতে পারেন কিন্তু দিনের শেষে তিনিও মানুষ। উত্তম এ নিয়ে বিরক্ত ছিলেন। আসলে এই ছবির কিছুদিন আগেই তিনি চিকেন পক্স থেকে সেরে উঠেছিলেন। মুখে তার দাগ স্পষ্ট। এমন অবস্থায় পর্দায় তাঁকে ভালো লাগবে না বলেই ভেবেছিলেন উত্তম।

ঘটনা হল। এইটা যে হবে তা জানতেন না উত্তম। ছবির শুটিং শুরু হতে উত্তম মেক-আপ নিতে যাবেন, তখন তাঁকে সত্যজিৎ রায় বলেন হিরোর কোনো মেক-আপ হবে না। উত্তম তো বেশ বিব্রত। মুখে দাগ। এমন উত্তমকে মানুষ দেখতে চাইবে! সন্দিহান ছিলেন তিনি। সত্যজিৎ রায় তাঁকে বলেছিলেন, ঘাম হলে প্যাড চেপে দেওয়া হবে, এছাড়া কিছু দরকার নেই, প্রয়োজনে রাশ প্রিন্ট দেখানো হবে। তখন যদি উত্তম মনে করেন মেক আপ লাগবেই, তখন ভেবে দেখা যাবে। উত্তম শুটিং করলেন নো মেক আপ লুকে। রাশ প্রিন্ট দেখে উত্তম কুমার উৎফুল্ল। বলেছিলেন, ‘আমি তাহলে মেক-আপ করি কেন?!’ নায়কের গল্প কেমন ছিল? চলচ্চিত্রের ম্যাটিনি আইডল অরিন্দম মুখোপাধ্যায়। তিনি জাতীয় পুরস্কার নেওয়ার জন্য ট্রেনে কলকাতা থেকে দিল্লি যাচ্ছিলেন। সেই ২৪ ঘণ্টার যাত্রাপথে অদিতি নামে এক অল্পবয়সী সাংবাদিকের সঙ্গে তাঁর পরিচয় হয়। নিজের ভুলভ্রান্তি, নিরাপত্তাহীনতা ও অনুতাপ প্রকাশের মধ্যে দিয়ে তিনি যে অভিজ্ঞতা অর্জন করেন, তা এই ছবির মূল বিষয়। অদিতি পূর্বে ম্যাটিনি আইডল জাতীয় খ্যাতনামা ব্যক্তিদের বিশেষ অপছন্দ করতেন। কিন্তু অরিন্দমের কথা শুনে তিনি বুঝতে পারেন, তার খ্যাতির আড়ালে তার মনের মধ্যে কোথাও একটি একাকিত্বের ভাব রয়েছে। অদিতির মনে অরিন্দমের প্রতি সহানুভূতি জাগে। তিনি স্থির করেন, অরিন্দমের কথা তিনি প্রকাশ করবেন না এবং ম্যাটিনি আইডল জনমানসে তার ভাবমূর্তি অক্ষুণ্ণ রাখতে সাহায্য করবেন।

তথ্য সূত্র ডিজিটাল ডেস্ক বিনোদন


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ