শুক্রবার, ০৫ মার্চ ২০২১
  • সোশ্যাল প্ল্যাটফর্ম:
M. A. S. ENAMUL MOBIN (SOBUJ)
প্রকাশ ২০/০২/২০২১ ১০:২৮পি এম

ক্ষুদে ক্রীড়াবিদদের স্বপ্নপূরণে (বিকেএসপি)

ক্ষুদে ক্রীড়াবিদদের স্বপ্নপূরণে (বিকেএসপি) Ad Banner

দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা প্রতিভাবান খেলোয়াড়দের খুঁজে বের করতে বাছাই কার্যক্রম শুরু করেছে বাংলাদেশ ক্রীড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান-বিকেএসপি। নীলফামারী থেকে বিকেএসপিতে ভর্তি হতে এসেছেন আসমাউল হুসনা আশা। ইচ্ছাটা ক্রিকেটার হওয়ার। বিশ্বসেরা তামিম, শাকিবদের দারুণ ভক্ত সে। কিন্তু হতে চায় জাতীয় নারী দলের জাহানারা ও জান্নাত আলমের মতো একজন পেইসার খেলোয়াড়।

ছোট বেলা থেকে ক্রিকেট খেলতে ভালোবাসি। বাবা-মাও ক্রিকেট খেলতে উৎসাহ দিয়েছেন। তাই বাবা মা ও আমার স্বপ্ন পূরণ করতে বিকেএসপিতে ভর্তি হতে এসেছি,

গত ১৯ ফেব্রুয়ারি থেকে দিনাজপুর বিকেএসপির আঞ্চলিক প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে শুরু হয়েছে ভর্তি পরীক্ষা। আশার মতো আরো অনেকেই খেলোয়াড় হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে এখানে ভর্তি হতে এসেছেন কয়েক হাজার ক্ষুদে খেলোয়াড়। সবার চোখেই স্বপ্ন সাকিব, তামিম,মুশফিক, কিংবা জান্নাত জাহানারাদের মতো বিশ্বসেরাদের কাতারে নিজেদের দাঁড় করানো।

আশার মতো শফিকুল ইসলাম সজীব ও একজন বড় ক্রিকেটার হতে চায়। স্বপ্ন পূরণের জন্য রংপুর থেকে দিনাজপুর আসা নিজেকে প্রমাণ করা।

‘আমার স্বপ্ন বড় ক্রিকেটার হওয়ার। তাই বিকেএসপিতে ভর্তি হতে এসেছি। চেষ্টা করেছি ভালো পরীক্ষা দেয়ার। এখন বাকিটা স্যারদের,আমার থেকে যতটুকু দেওয়ার চেষ্টা করেছি সম্পূর্ণটা দিতে।

এই বছর দিনাজপুর বিকেএসপিতে ফুটবল, ক্রিকেট, আর্চারি, অ্যাথলেটিক্স, বক্সিং ও বাস্কেটবলসহ মোট ১৮টি ডিসিপ্লিনে প্রায় চার হাজার শিক্ষার্থী নিবন্ধন করেছেন। বিকেএসপি কর্তৃপক্ষ এর থেকে প্রাথমিকভাবে ২০০ জন খেলোয়াড় বাছাই করবেন।গত বছর অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপ জয়ী বাংলাদেশ দলের সদস্যদের উদাহরণ দিয়ে বিকেএসপির কেন্দ্রীয় ক্রিকেট বিভাগের উপদেষ্টা নাজমুল আবেদিন ফাহিম বলেন, অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের যে সাফল্য তার বেশির ভাগ দাবিদার বিকেএসপির। বিকেএসপির একটি বড় অংশ ওই বিশ্বকাপে অংশগ্রহণ করে। তাদের মধ্যে আটজনই ছিল দিনাজপুর বিকেএসপির ছাত্র। এতেই বোঝা যায়, এটা বিকেএসপির জন্য অন্য রকম সাফল্য । তাদের দেখে অনুপ্রাণিত হয়ে এই অঞ্চলের ছেলে-মেয়েরা বিকেএসপিতে ভর্তি হতে আগ্রহ দেখাচ্ছে।

গত বছরের চেয়ে এবারে পরীক্ষার্থীর সংখ্যা বেড়েছে জানিয়েছেন দিনাজপুর বিকেএসপির ভারপ্রাপ্ত উপ-পরিচালক আখিনুজ্জামান তিনি বলেন,‘দিনাজপুর থেকে ভালো মানের খেলোয়াড় তৈরি করার সুযোগ-সুবিধা রয়েছে। দেশের অন্যান্য কেন্দ্রগুলোর মতো দিনাজপুরেও সকল ধরনের সুযোগ-সুবিধা ও পর্যাপ্ত খেলোয়াড়দের জায়গা রয়েছে।

সুবিধাবঞ্চিতদের দিকে নজর আছে বিকেএসপির। প্রতিষ্ঠানটির মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল রাশেদুল হাসান বলেন, তৃণমূল থেকে আরও খেলোয়াড় তৈরীতে বিকেএসপি কাজ করে যাচ্ছে। দিনাজপুর থেকে সারাদেশে ভর্তি কার্যক্রম শুরু করা হয়েছে। এই কার্যক্রমে দেশের গরীব ও সুযোগ সুবিধা বঞ্চিত প্রতিভাবান ছেলে-মেয়েরাও তাদের প্রতিভা বিকাশের সুযোগ পাবে।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ