Saturday -
  • 0
  • 0
Verified আই নিউজ বিডি ডেস্ক
Posted at 07/01/2021 05:22:pm

ভ্যাকসিন নিয়ে সরকার ‘তেলেসমতি’ খেলা শুরু করেছে: রিজভী

ভ্যাকসিন নিয়ে সরকার ‘তেলেসমতি’ খেলা শুরু করেছে: রিজভী

ভ্যাকসিন নিয়ে সরকার ‘তেলেসমতি’ খেলা শুরু করেছে বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব এডভোকেট রুহুল কবির রিজভী।

আজ বৃহস্পতিবার(৭ জানুয়ারী) দুপুরে সেগুন বাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি কার্যালয়ের মিলনায়তনে সেন্টার ফর ন্যাশনা্রিলজ স্ট্যাডিজ (সিএনএস) এর উদ্যোগে ‘ফেলানী ও সীমান্ত’ শীর্ষক এই আলোচনা সভায় তিনি এই অভিযোগ করেন।

রিজভী বলেন,  আজকে সরকারা করোনার টিকা নিয়ে তেলেসমতি শুরু হয়েছে। স্বাস্থ্য সচিব বলছেন, এটা জি টু জি( গর্ভমেন্ট টু গর্ভমেন্ট) চুক্তি হয়েছে ভারতের সাথে, সরকারের সাথে সরকারের চুক্তি হয়ে্ছে।

বেক্সিমকো বললো যে, না এটা একটি বানিজ্যিক চুক্তি হয়েছে। কোনটা বিশ্বাস করবেন? এর মধ্য দিয়েই বুঝা যাচ্ছে যে, একটা শুভঙ্করের ফাঁকি এবং যেটাকে একেবারে রুঢ়ভাষায় বলা যায় যে, টাকা কামানোর জন্য, অর্থ কামানোর জন্য একটা ফাঁক টাকা হয়েছে। এটা কাভার দেয়ার চেষ্টা করছে সরকার।

স্বাস্থ্য সচিবকে দিয়ে বলানো হচ্ছে যে, এ্টা জি টু জি চুক্তি হয়েছে।

বিএনপির এই শীর্ষনেতা বলেন, আসলেই বেক্সিমকো ভ্যাকসিনের এই চুক্তিটা করেছে। এই টাকাটা অনেক জায়গা যাবে, এই টাকাটা কর্তা ব্যক্তিরাসহ সব জায়গায় যাবে। এই কারণে উপরে একটা প্রলেপ দেয়ার চেষ্টা করা হয়েছে স্বাস্থ্য সচিবকে দিয়ে।

আমার প্রশ্ন হচ্ছে, কেনো বেক্সিমকো? এই লোকটা(সালমান এফ রহমান), এই দরবেশ, সে তো অভিযুক্ত ব্যক্তি।

২০১০ সালে শেয়ার মার্কেটকে ধবংস করার জন্য দায়ী এই ব্যক্তি। আওয়ামী মনস্ক একজন সন্মান্বিত ব্যক্তি ইব্রাহিম খালেদের নাম শুনেছেন যিনি বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গর্ভনর ছিলেন। তার নেতৃত্বে যে তদন্ত কমিটি হয়েছিলো সেই তদন্ত কমিটিতে অভিযুক্ত ব্যক্তি হচ্ছেন এই দরবেশ।

সেই দরবেশের ঔষধ কোম্পানি বেক্সিমকো ভারতের সাথে বানিজ্য চুক্তি করছেন। এখানে জনগনের কোনো স্বার্থ নেই, এখানে করোনা মোকাবিলার জন্য অথবা করোনা আক্রান্ত মানুষের সেবা দেয়ার জন্য যে টিকা দেয়া দরকার এটার কোনো কিছুই থাকবে না।

এখানে থাকবেশুধু টাকা চুরির একটা ভয়ংকর ষড়যন্ত্র।

তিনি বলেন,  ভ্যাকসিনের সংগ্রহের জন্য একনেকে ৬ হাজার কোটি টাকা পাস হয়েছে। আমরা বলে দিচ্ছি- এই টাকার পুরোটাই লোপাট হবে। এটা বেক্সিমকোর মতো যারা শেখ হাসিনার উপদেষ্টা রয়েছেন সেই উপদেষ্টাদের কাছে এই টাকাগুলো মূলত টাকাগুলো ভাগ বাটোয়ারা হয়ে যা্বে, এই টাকার একটা বড় অংক চলে যাবে সরকারের কর্তা ব্যক্তিদের কাছে বেআইনিভাবে।

যে সরকার নিজের জনগনকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিতে পারে, যে সরকার দেশের জনগনকে মহামারীর মধ্যে ঠেলে দিতে পারে। আর নিজেরা প্রধানমন্ত্রী ও ওবায়দুল কাদের একেবারে এমন এক বৃত্তের মধ্যে আছেন সেখানে মশা-মাছি দূরে থাক, ভাইরাসও ঢুকতে পারবে না। এই ধরনের স্বার্থপরতা নিয়ে যারা দেশ শাসন করে তারা কখনোই জনগনের বন্ধু হতে পারে না।

সীমান্তে মানুষ হত্যার ঘটনার জন্য নতজানু পররাষ্ট্র নীতিকেই দায়ী করে সরকারের কঠোর সমালোচনা করেন রিজভী।

আজকে ভোটারবিহীন, জনসমর্থনহীন, ম্যান্ডেটহীন, নিশিরাতের সরকার সে তার আত্মা সমর্পণ করে দিয়েছে ভারতের কাছে বলেই তারা তাদেরকে টিকি্য়ে রেখেছে তাদেরই মোসায়েবী করছে, তাদের এই গোলামী করছে।

দ্রব্যমূল্যের অস্বাভাবিক বৃদ্ধির পরিসংখ্যান তুলে ধরে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন,  আজকে বিএনপি দ্রব্যমূলের উর্ধবগতির প্রতিবাদে ও বানিজ্যমন্ত্রীর পদত্যাগের দাবিতে সারাদেশে থানা পর্যায়ে মানববন্ধন কর্মসূচি হচ্ছে।

এই মুর্হুর্তে জনগনের দাবি যে, নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম কমাতে হবে।প্রতিদিন মানুষের বেকারত্ব বাড়ছে। অনেক প্রতিষ্ঠানে বেতন কমিয়ে দেয়া হয়েছে। কিন্তু মানুষের বেঁচে থাকার জিনিসপত্রের দাম কমেনি, শুধু বেড়েই চলেছে। ঢাকায় বাড়ি ভাড়াও বাড়ছে।

আমরা আছি কোথায়? আজকে সকলকে মানুষের পক্ষে দাঁড়াতে হবে। নইলে জনগন মাটির সাথে মিশে যাবে।

তিনি বলেন,  আপনারা জানেন, স্বল্প মানুষ যাদের খাবারের অভাব নেই,  মেদ বেশি হয়ে গেছে, তারা মেদ কমানোর জন্য ডায়টিং করেন। আর আজকে বাংলাদেশের নিম্ন আয়ের মানুষ, স্বল্প আয়ের মানুষ, নিম্ন-মধ্যবিত্ত মানুষ, এমনকি মধ্যবিত্ত মানুষ অটো ডায়টিং করছেন জিনিসপত্র কিনতে না পেরে, না থেয়ে তাদের অটো ডায়টিং করছেন।

এই পরিস্থিতির মধ্যে কিসের স্বাধীনতা, কিসের সার্বভৌমত্ব। মানুষ মরুক, মানুষ ধ্বংস হয়ে যাক, আমার কিছু যায় আসে না। সরকারের হচ্ছে এটাই ভাবনা, প্রধানমন্ত্রীর এটাই ভাবনা। তিনি একেবারে পাহারার মধ্যে।

বর্তমান অবস্থা থেকে উত্তরণে জাতীয়তাবাদী শক্তির নতুন প্রজন্মকে আরো সংগঠিত হওয়ার আহবানও জানান রিজভী।

সংগঠনের ট্রাস্টি ব্যারিষ্টার মীর হেলারের সভাপতিত্বে সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কবি আব্দুল হাই শিকদার,যুগ্ম-মহাসচিব অ্যাডভোকেট সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল,বিএনপি নেতা ব্যারিষ্টার সারোয়ার হোসেন,ডিইউজের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম প্রমুখ।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ