• 0
  • 0
Rakib Monasib
Posted at 25/11/2020 01:06:am

প্রথম শ্রেণীর শিক্ষার্থীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ

প্রথম শ্রেণীর শিক্ষার্থীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় প্রথম শ্রেণীর এক শিক্ষার্থীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনায় মঙ্গলবার (২৪ নভেম্বর) সন্ধ্যায় ওই শিশুর বাবা চারজনকে আসামি করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানায় অভিযোগ দায়ের করেন।     

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ওই শিশু পরিবারের সঙ্গে জেলা শহরের একটি মহল্লায় ভাড়া থাকেন। ধর্ষণের চেষ্টাকারী ওই ব্যক্তির নাম কানু মিয়া। পেশায় তিনি একজন রিকশাচালক। তিনিও একই মহল্লায় বিল্লাল মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থাকেন।     

শিশুর পরিবার ও অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, শনিবার দুপুরে শিশুটি বাড়ির সামনে সঙ্গীদের সঙ্গে খেলাধুলা করছিল। এ সময় পাশের বিল্লাল মিয়ার বাড়ির ভাড়াটিয়া রিকশাচালক কানু মিয়া (৪৮) চিপস খাওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে শিশুটি নিজ বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে শিশুটিকে ধর্ষণের চেষ্টা করে কানু।   

এক পর্যায়ে চিৎকার শুরু করলে প্রতিবেশীরা এগিয়ে গিয়ে শিশুটিকে উদ্ধার করে। সে সময় শিশুটির বাড়ির মালিক মিজান মিয়া ও রিকশা চালক কানু মিয়ার বাড়ির মালিক বিল্লাল মিয়া বিষয়টি সালিশের মাধ্যমে সমাধান করার আশ্বাস দেন। কিন্তু শিশুটির পরিবার এতে রাজি হয়নি।   

পরে সোমবার দুপুরে উভয় বাড়ির মালিক মিজান মিয়া ও বিল্লাল মিয়া বিষয়টি স্থানীয়ভাবে সমাধান করতে শিশুটির পরিবারকে চাপ প্রয়োগ করেন। এতে রাজী না হওয়ায় মিজান মিয়া শিশুটির ঘরে তালা দিয়ে দেন। পরে সোমবার রাতে এক আত্মীয়ের বাড়িতে শিশুটির মা, স্বামী, দুই ছেলে ও ওই শিশুকে নিয়ে রাত কাটান। কোনো উপায় না পেয়ে আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় শিশুটিকে নিয়ে সদর থানায় উপস্থিত হন পরিবারের লোকজন। সদর থানা পুলিশ স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য শিশুটিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে পাঠান।       

শিশুটির মা বলেন, রিকশা চালক কানু মিয়া পরিবার নিয়ে বিল্লাল মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থাকেন। বিল্লাল মিয়া ও আমার বাড়ির মালিক মিজান মিয়া, তার স্ত্রী বিষয়টি সালিশের মাধ্যমে সমাধানের জন্য চাপ প্রয়োগ করেন। এ অবস্থায় আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় থানায় উপস্থিত হয়ে অভিযোগ দায়ের করি। অভিযোগে রিকশা চালক কানু, আমার বাড়ির মালিক মিজান, মিজানের স্ত্রী ইতি বেগম ও রিনা বেগম সহ চারজনকে আসামী করা হয়।     

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) আব্দুর রহিম জানান, শিশুর পরিবার থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছে। আর স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য ওই শিশুকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। অভিযোগের ভিত্তিতে আমরা পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করছি।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ