Thursday -
  • 0
  • 0
Asaduzzaman Jewel
Posted at 24/11/2020 12:35:pm

ভাল ঋণ-মন্দ ঋণ, ব্যাংকার ও আইনজীবীর দায়

ভাল ঋণ-মন্দ ঋণ, ব্যাংকার ও আইনজীবীর দায়

ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের প্রধান পণ্য হলো ঋণ। আপনি, আমি বিশ্বাসের সাথে টাকা জমা রাখি ব্যাংকে বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানে। আমাদের জমানো সেই আমানতের বিনিময়ে সুদ বা মুনাফা যে নামেই ডাকি না কেন পেয়ে থাকি। সেই সুদ বা মুনাফাটা দেওয়া হয় কোথা থেকে? আমাদের আমানতের টাকা ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিনিয়োগ করে। বিনিয়োগ থেকে আসা লভ্যাংশ বা সুদ বা মুনাফার একটা অংশ আমাদের দেওয়া হয়। আর বাকিটা ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান তাদের বিভিন্ন প্রয়োজন মেটায়। যেহেতু আমানতের টাকা বিনিয়োগ করে মানে ঋণ দেওয়া হয় সেক্ষেত্রে ব্যাংক ঝুঁকি নেয়।

এই ঝুঁকির প্রক্রিয়ায় কে কে জড়িত, কার কতটুকু দায় সেটাই বিবেচ্য বিষয়। ঋণের সাথে জড়িত জামানত, জামানত হিসাবে সবচেয়ে ভালো বস্তু জমি, জমির সঠিকতা যাচাইয়ে দরকার আইন জানা লোক মানে আইনজীবী, আর সেই কাজটা করেন ব্যাংকের মনোনীত প্যানেল আইনজীবী বা আইন উপদেষ্টা। আমি যেহেতু একজন আইনজীবী, সাথে বিভিন্ন ব্যাংকের মনোনীত প্যানেল আইনজীবী বা আইন উপদেষ্টা, তাই ভালো ঋণ-মন্দ ঋণের বিষয়ে আমার নিজস্ব কিছু মতামত সকলের সাথে শেয়ার করতে চাই।

ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের পণ্য ঋণ বা লোন। আর ঋণ বিক্রি অন্য সকল পণ্য বিক্রির মতো নয়। অন্য সকল পণ্য ক্রেতাকে দিতে বা গছিয়ে দিতে পারলেই বিক্রেতার দায়িত্ব অনেকাংশে শেষ। কিন্তু ঋণ এমন পণ্য যা বিক্রয়ের পরে বিক্রয়োত্তর সেবা-শুশ্রষা করতে হয়।

ঋণ গ্রহীতা বা লোনের ক্রেতা ভালো থাকলে ঋণ ভালো। ঋণের ক্রেতা যদি ভাল না থাকে তবে ঋণ ভালো থাকবে না মন্দ ঋণে বা ক্লাসিফাইড লোন হয়ে যাবে। একটি ঋণ বা লোন বিক্রয় করার পূর্বে ক্রেতা সম্পর্কে অর্থাৎ ঋণগ্রহীতা সম্পর্কে ব্যাংকের ভালো ধারণা থাকতে হবে। ব্যাংক অত্যন্ত সতর্কতার সাথে ঋণ গ্রহণে আগ্রহী ব্যক্তি সম্পর্কে ভালোভাবে খোঁজ নিয়ে একটা সুন্দর মধুর সম্পর্ক তৈরি করে। ঋণ নিতে আগ্রহী ব্যক্তির একটি হিসাব খুলে লেনদেন করতে বলা বা পূর্বের খোলা হিসাবের হিসাব বিবরণী (স্টেটমেন্ট) বা লেনদেন প্রতিবেদন পর্যালোচনা করা। আমার বন্ধু বিশিষ্ট ব্যাংকার মোঃ কামরুজ্জামান মিন্টু সবসময় বলতেন, একটি ভালো ঋণ হলো সুখী মানুষের জামার মতো। সারা রাজ্য ঘুরে যেমন সহজে সুখী মানুষের জামা মেলে না। তেমনি ভালো ঋণ গ্রহীতাও মেলা ভার।

বন্ধু সবসময় বলতো, লেনদেন প্রতিবেদন দেখে ব্যাংক সন্তুষ্ট হলে ঋণ গ্রহণে আগ্রহী ব্যক্তির (৫ সি) (1) Character, (2) Capital, (3) Condition, (4) Collateral ও (5) Capacity অর্থাৎ ১) চরিত্র, ২) মূলধন, ৩) অবস্থা, ৪) জামানত ও ৫) সক্ষমতা এই বিষয়গুলো পর্যালোচনা করা খুবই জরুরি। একটা মানুষ চরিত্রবান না হলে তার বাকি পাঁচটি গুণ থেকেও লাভ নেই। আর ঋণগ্রহীতার মূলধন কেমন আছে, তার বর্তমান অবস্থা কেমন, ঋণ গ্রহণ করে সে তা সুদাসলে ফেরত দিতে পারবে কিনা, তার জামানত কেমন, তার সক্ষমতা আছে কিনা এই বিষয়গুলো পর্যালোচনা শেষে যদি মনে হয় ভালো হবে তবেই ঋণগ্রহীতার কাছ থেকে জামানত হিসাবে বন্ধক রাখার জন্য মূল্যবান জমির কাগজপত্র সংগ্রহ করে ব্যাংক মনোনীত একজন প্যানেল আইনজীবীকে দেন। প্যানেল আইনজীবী কাগজপত্র ভালোভাবে দেখে চেইন ডকুমেন্টস (জেনোলজি) মিলিয়ে জমির মালিকানা স্বত্ব নির্ধারণ করে একটি আইনগত মতামত প্রস্তুত করে ব্যাংক বরাবর প্রেরণ করেন।

এ পর্যায়ে আইনজীবী সাহেবের প্রাথমিক কাজ শেষ। এরপর ব্যাংক আইনজীবী সাহেবের দেওয়া মতামতের কাগজ নিয়ে নিজেরা এবং থার্ড পার্টি (কোনো সার্ভে প্রতিষ্ঠান) দিয়ে জমির মূল্যায়ন (ভ্যালুয়েশন) করেন। অনেক ব্যাংক একজন প্রকৌশলী দ্বারা মূল্যায়ন করে থাকেন। জমির মূল্য নির্ধারণ করে দুই ভাবে। একটি হলো জমির বাজার মূল্য ও জমির তাৎক্ষণিক বিক্রয় মূল্যমান (ফোর্স সেল ভ্যালু) নির্ধারণ করা। অর্থাৎ জমির স্বাভাবিক বাজার মূল্য কত এবং তৎক্ষণাৎ ভাবে বিক্রি করতে চাইলে কত টাকা বিক্রি করা যাবে তা নির্ধারণ করা। তক্ষণাৎ বিক্রয় মূল্যমান (ফোর্স সেল ভ্যালু) যা নির্ধারণ করা হয় তা থেকে অনেক কম অর্থাৎ নিরাপদ দূরত্বে থেকে ঋণ গ্রহণে আগ্রহী ব্যক্তিকে ব্যাংক ঋণ দিয়ে থাকেন।

গ্রাহক-এর নিকট থেকে সংগৃহীত কাগজপত্র ব্যাংক আইনজীবীর কাছে সরবরাহ করে, সেই সরবরাহকৃত কাগজপত্র পর্যালোচনা করেই একজন আইনজীবী তার আইনগত মতামত দিয়ে থাকেন। গ্রাহক যে কাগজপত্র সরবরাহ করল (যেমন-বিভিন্ন খতিয়ানের পর্চা, মূল দলিল, মূল দলিল না থাকলে সইমোহরকৃত দলিল, খাজনার দাখিলা, ডিসিআর এর কপি, নির্দায় সনদ, ট্রেড লাইসেন্স, আয়কর সনদ, জাতীয় পরিচয়পত্র, ওয়ারিশ সনদ ইত্যাদি) সেই কাগজপত্র সঠিক আছে কিনা বা জাল কিনা তা যাচাই-বাছাই করার জন্য ব্যাংকের লোনস এন্ড এডভান্স এর অফিসার ভেটিং ও সার্চিং এর কাজ সম্পন্ন করে। ভেটিং ও সার্চিংয়ের কাজ ব্যাংক নিজেই তার অফিসার দিয়ে বা কোনো থার্ড পার্টি দিয়ে বা আইনজীবীর মাধ্যমে বা অন্য কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠান দিয়ে করতে পারেন বা করেন।

সার্চিংয়ের কাজটি করার জন্য জেলা রেকর্ড শাখা, জেলা রেজিষ্ট্রার অফিস, সাব-রেজিষ্ট্রার অফিস, সহকারী কমিশনার (ভূমি) অফিস, স্থানীয় ভূমি অফিস, ইউনিয়ন বা পৌরসভা, আয়কর অফিস, নির্বাচন অফিসসহ সংশ্লিষ্ট অফিস সমূহে যোগাযোগ করে তল্লাশির মাধ্যমে নিজ চোখে দেখে মূল্যায়ন ও দলিলপত্রের সঠিকতা যাচাই করে থাকেন। ব্যাংকে অনেকেই জাল টাকা নিয়ে আসেন, ব্যাংকাররা সেই জাল নোট অনেক সময় ধরতে পারেন না, দিন শেষে হয় টাকা বান্ডিলে ঢুকে গ্রাহকের কাছে চলে যায় আর ধরা পরলে জমা দিতে আসা ব্যক্তির কাঁধে বা পরে ধরা পরলে দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তার ঘাড়ে দায় চাপে। ঠিক তেমনি, দলিল সঠিক না জাল, মিউটেশন ঠিক আছে কী নাই, খতিয়ানের পর্চা সঠিক না টেম্পারিং করা, খাজনা দাখিলা, ডিসিআর কপি, নির্দায় সনদ, ওয়ারিশ সনদ ইত্যাদি ইত্যাদি কাগজপত্র যাচাই করার জন্য বেশিরভাগ সময়ই আইনজীবীর পক্ষে তহশিল অফিস, এসিল্যান্ড অফিস, জেলা রেজিষ্ট্রার অফিস বা সাব-রেজিষ্ট্রার অফিস, ইউনিয়ন বা পৌরসভা কোথাও যাওয়া সম্ভব হয়না এবং যাওয়ার কথাও না। একটা আইনগত মতামতের জন্য আইনজীবীকে ব্যাংক (লোন গ্রহীতার কাছ থেকে নিয়ে) দুইশত টাকা থেকে তিন হাজার টাকা পর্যন্ত দিয়ে থাকে। এই সামান্য টাকার বিনিময়ে আইনজীবীকে পাঁচ থেকে দশ পাতার (ক্ষেত্র বিশেষ আরো বেশি) একটি আইনগত মতামত দিতে হয়।

এই সামান্য পারিশ্রমিকের বিনিময়ে আইনগত মতামতের সাথে সার্চিং ও ভেটিং কেউ আশা করে না এবং কেউ দেয়ও না। সার্চিং ও ভেটিং-এর কাজ আইনগত মতামতের সাথে সংযুক্ত নয়।

এটা সম্পূর্ণ ভিন্ন বিষয়। একটা ঋণের ক্ষেত্রে একজন গ্রাহক ব্যাংকে এলেন, কাগজপত্র দিলেন, আইনজীবী আইনগত মতামত দিয়ে দিলেন আর ব্যাংক গ্রাহককে শত কোটি টাকা ঋণ দিয়ে দিল এমনটা নয়। ঋণ গ্রহণে আগ্রহী ব্যক্তি ঐ ব্যাংকে হিসাব খোলেন, লেনদেন করেন, লেনদেনের মাধ্যমে তার বিভিন্ন বিষয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে ব্যাংক। তার নৈতিক চরিত্র, তার ব্যবহার, তার ব্যবসা, তার প্রয়োজন, তার লেনদেন তার ঋণ ধারণ ও পরিশোধের ক্ষমতা ইত্যাদি নানান বিষয় ব্যাংক পরীক্ষা করে তাকে ঋণ দেওয়ার কথা চিন্তা করে গ্রাহকের নিকট থেকে কাগজপত্র সংগ্রহ করেন। দীর্ঘ লেনদেন করার পরেও যে ব্যাংকার প্রতারক গ্রাহককে চিনতে পারলো না সেই গ্রাহককে কয়েকটি কাগজ দিয়ে কীভাবে চিনবে আইনজীবী? একটি নকল দলিল তো আসল ষ্ট্যাম্পে তৈরি করে, একটা নকল মিউটেশন তো আসল সিল মোহর দিয়েই তৈরি করে। হাজার হাজার কর্মকর্তার স্বাক্ষর কি আইনজীবী সাহেবের চেনা? আর কাগজ জাল হোক আর আসল হোক উকিলের কাজ চেইন ডকুমেন্টস মিলিয়ে দেখা। কাগজের সঠিকতা প্রমাণ করবে যার উপর সার্চিং ও ভেটিং-এর দায়িত্ব সেই কর্মকর্তার বা ব্যক্তির। এবার বলি ঋণ কীভাবে খারাপ হয় সে বিষয়ে আমার ধারনা।

আমার সামান্য অভিজ্ঞতায় দেখেছি গ্রহীতাকে ঋণ দিয়ে অনেক ব্যাংক আর কোনো খবর রাখে না। ঋণ পাশ হওয়ার পর সেই ঋণ ব্যবহার করার ক্ষেত্রে সে নিয়মিত লেনদেন করবে, কিন্তু অর্থঋণ মামলা করার সময় ব্যাংক স্টেটমেন্ট দেখেছি ঋণ পাশ হওয়ার পর চেকের এক পাতা খরচ করে পুরো টাকা তুলে নিয়ে আর কোনো যোগাযোগ করেনি এবং লেনদেনও করেনি।

ঋণ দেওয়ার পর ঋণের কোনো পরিচর্যা করেনি। পরিচর্যা ছাড়া কোনো কিছু কি ভাল হয়? পরিচর্যা ছাড়া কি কোনো ভালো ফল পাওয়া যায়? পরিচর্যা ছাড়া বাগানে তো আগাছাই জন্মাবে তাই না? গ্রাহক কেন ব্যাংকে আসছে না, কেন লেনদেন করছে না, সেকি নিঃশেষ হয়ে গেছে? গেলে তাকে কীভাবে সহযোগীতা করে আবার দাঁড় করিয়ে টাকাটা আদায় করা যায়? সেই বিষয়ে ব্যাংকের অনেক দায়িত্ব আছে যা ব্যাংকারগণ করেন না। তারাতো অনেক ক্ষেত্রে ঋণ দিয়েই খালাস! ফলে ঋণ আর আদায় হয় না, ব্যাংকের গুনতে হয় শতকোটি টাকার লোকসান। অনেকে ব্যাংকের সেই লোকসানের দায় দিতে চান আইনজীবীর উপর যে কিনা মাত্র দুইশত পঞ্চাশ টাকা থেকে তিন হাজার টাকার বিনিময়ে আইনগত মতামত দিয়েছেন।

মাসে লক্ষ লক্ষ টাকার বিনিময়ে যে ব্যাংকারদের রাখা হয়েছে তদারকির জন্য তারা কি দায়ী নয় এই লোকসানের জন্য? কেন একজন বাজে লোককে ঋণ দেওয়া হলো? কেন ঋণ দেওয়ার পর তদারকি করা হলো না? ঋণের বন্ধকি দলিলে ও অপ্রত্যাহারযোগ্য পাওয়ার অব অ্যাটর্নী দলিলে তো লিখে নিলেন আইনজীবীর মাধ্যমে যে, যে কোনো সময় তদারকির জন্য ব্যাংককে তার ব্যবসা বাণিজ্য, গোডাউন, প্রকল্প পরিদর্শন করতে দিতে বাধ্য থাকিবেন। আইনজীবী শত টাকার পারিশ্রমিক নিয়ে শত কোটি টাকার দায় কীভাবে নেবে? আসলে অন্যের ঘাড়ে দায় চাপানোটা আমাদের অভ্যাসে পরিণত হয়ে গেছে। আবার অনাদায়ী ঋণ আদায়ের জন্য ব্যাংক অর্থঋণ আদালতে মামলার মাধ্যমে পদক্ষেপ নেয়। অনেকে মনে করেন, আইনজীবী মামলায় সময় নিয়ে ঘুরায় এবং সময় ক্ষেপণ করেন। আসলে কথাটা সত্যি নয়। আমি বেশ কিছু মামলা পরিচালনা করেছি এবং এখনও করছি। আমার যে ক্ষুদ্র অভিজ্ঞতা হয়েছে তা থেকে বলছি, প্রত্যেক ব্যাংকই আইনজীবীকে ব্যাংকের নির্ধারিত সিডিউল দেখে বিল প্রদান করেন। একটা মামলার জন্য বিভিন্ন বিষয় মিলে একটা বিল হয়। উদাহরণ হিসাবে বলি, একটা মামলা পরিচালনার জন্য একশত টাকা বিল হলো। পঁচিশ টাকা মামলাটা দায়ের করার পর আইনজীবীকে দেওয়া হবে। এর পর চূড়ান্ত শুনানির আগে আরো পঁচিশ টাকা দিবে। বাকি পঞ্চাশ টাকা দিবে রায় পাওয়ার পর। এই মামলাটা যদি দশটা তারিখ ঘুরে নিষ্পত্তি হয় তাতে আইনজীবীকে ঐ একশত টাকাই দেবে দশটা টাকাও বেশি দেওয়া হবে না আর যদি একশতটা তারিখ ঘুরে মামলাটি নিষ্পত্তি হয় তাতেও দশটা টাকা বাড়াবে বা কমাবে না। টাইম পিটিশন বা হাজিরার জন্য কোনো ফি ধার্য নাই। মামলা দায়েরের সময়ই বিলের ভাগ্য নির্ধারণ হয়ে যায়। দশ দিনে মামলা শেষ হলে ঐ একশত টাকা আবার দশ বছর ঘুরে নিস্পত্তি হলেও ঐ একশত টাকা। তাই মামলাটা ঘুরিয়ে আইনজীবীর কোনো লাভ নাই বরং লস, দ্রুত নিস্পত্তি করতে পারলে পকেটে অবশিষ্ট টাকাটা আসবে, নিস্পত্তি যত দেরিতে বিল তত দেরিতে। আর নিষ্পত্তি হলে বরং জারি মোকদ্দমার উদ্ভব হবে, আইনজীবী আবার নির্ধারিত ফি পাবে, নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত জারি মোকদ্দমার উদ্ভব হবে না।

এবার বুঝুন এখানে আইনজীবীর কি কোনো লাভ আছে? তাই অহেতুক দোষারোপ করে আইনজীবীকে হেয় করে কী লাভ? আমি কিছু ব্যাংকের ঋণের বিষয় জানি। ব্যাংকিং ব্যবসায় প্রধান প্রোডাক্ট কী, সবাই জানে ঋণ বা লোন, যা আগেও আলোচনা করেছি। ব্যাংক লোন সেল করে। এক সময় কিছু ব্যাংকের লোন সেল করতো ব্যাংকটির একটি ব্রাঞ্চের সামনের কয়েকজন দোকানদার। কারো দুই লাখ টাকা ঋণ চাই, দোকানদার বলল, দুই লাখ নিবি কিরে! তোকে দশ লাখ তুলে দেই!! ব্যবসায়ী দুই লাখ খরচ করে দশ লাখ টাকা ব্যাংকের কাছ থেকে কিনে নিল! সেই যে গেল আর ফিরে এলো না! ব্যবসায়ীর কথা, কে টাকা ফেরত দেব? আমিতো লোন কিনছি? কিন্তু তার ঐ অনৈতিক কথা কি আইন শুনবে? পরবর্তীতে কী হলো, সেই বিক্রয়কৃত ঋণের গ্রহীতাদের বিরুদ্ধে মামলা হলো। অতঃপর জমি বিক্রয় করে, জেল খেটে বিভিন্ন ভাবে ঋণ পরিশোধ করলো, আবারও সহযোগীতা করলো সেই আইনজীবী!! আইনজীবীদের কাজের উপর মহামান্য হাইকোর্ট বাস্তব সম্মত সিদ্ধান্ত দিয়েছেন।

আইনজীবীগণ যেহেতু প্রদত্ত কাগজের উপর মূল্যায়ন করেন তাই একজন আইন উপদেষ্টা তার আইনগত অভিমতের জন্য দায়ী নয়। এ প্রসঙ্গে মহামান্য সুপ্রিম কোর্টের হাই কোর্ট বিভাগের বিচারপতি মোঃ মোজাম্মেল হক এবং বিচারপতি মোঃ নুরুল ইসলাম কর্তৃক আব্দুস সামাদ বনাম রাষ্ট মামলার [BLC (1996) page 63] জাজমেন্টে বলেছেন, “A Legal Adviser cannot be made liable for the offence of forgery and criminal breach of trust for giving his legal opinion.” অনেক তো বললাম, এবার বাস্তবতায় আসি। বাস্তবকে অস্বীকার করার ক্ষমতা কারো নেই, আমারতো নেই-ই। বাস্তব ঘটনা হলো ভালো মন্দ সব জায়গায়ই আছে। ভালো ব্যাংকার যেমন আছে তেমনি ভালো আইনজীবীও আছে। খারাপ ব্যাংকার যেমন আছে তেমনি খারাপ আইনজীবীও আছে।

ভালো ঋণগ্রহীতা যেমন আছে, তেমনি ঋণগ্রহীতা খারাপও আছে। সবাই সমান নয়, ভালো-মন্দ সবজায়গায়ই বিরাজমান। আইনগত মতামত দেওয়ার ক্ষেত্রে, বন্ধকনামা দলিল, অপ্রত্যাহারযোগ্য পাওয়ার অব অ্যাটর্নী দলিলসহ বিভিন্ন দলিল পত্র মুসাবিদা ও প্রস্তুতের ক্ষেত্রে আইনজীবীকে সততার তপ্ত কড়াইয়ের উপর বসে বরফ শীতল ঠান্ডা মাথায় যেমন কাজগুলো করা উচিত তেমনি ব্যাংকারদের উচিত সঠিক গ্রাহক বাছাই করা, গ্রাহককে যথাযথ পরিচর্যা করা, গ্রাহক কর্তৃক সরবরাহকৃত তথ্য, উপাত্ত, দলিল দস্তাবেজ ভালোভাবে যাচাই বাছাই করা এবং সত্যিকারের ব্যবসায়ী-গ্রাহককে ঋণ দিয়ে অর্থনীতির চাকা সচল রাখা ও দেশের অর্থনীতিকে সবল রাখা।

আমার এই লেখা কোনো সাফাই গাওয়ার জন্য নয়। ব্যাংকার ও গ্রাহকদের মনে কষ্ট দেওয়ার জন্যও নয়। বাস্তবতার আলোকে আমার পর্যবেক্ষণ পাঠকের সাথে শেয়ার করলাম মাত্র। আমার লেখায় কেউ মনে কষ্ট পেলে আমি আন্তরিক ভাবে দুঃখিত।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ