About Us
Sajib Rajbhar
প্রকাশ ১৬/১১/২০২০ ০৩:২২পি এম

দাঁতের যত্নে ১০টি গো’পন রহস্য প্রকাশ করলেন ডেন্টিস্টরা !

দাঁতের যত্নে ১০টি গো’পন রহস্য প্রকাশ করলেন ডেন্টিস্টরা ! Ad Banner

আমরা এই টিপসগুলো সংগ্রহ করেছি দন্ত-ক্ষয় প্রতিরোধ করে আপনার মুক্তঝরা হাসি ধরে রাখার জন্য। দয়া করে দাঁতের ক্ষয়পূরণ নিয়ে লেখা শেষের অসাধারণ বোনস টিপসটি পড়তে ভুলবেন না কিন্তু। কীভাবে ক্ষতির হাত থেকে দাঁতকে রক্ষা করা যায় তার কৌশল জানিয়ে দিলেন ডেন্টিস্টরা। কৌশল গুলো পানির মত সোজা কিন্তু আপনার দাঁতকে র’ক্ষার জন্য অত্যন্ত কা’র্যকরী। তাই এদের র’ক্ষা করার জন্য আমাদের উচিৎ সঠিক যত্ন নেওয়া। 

১. বছরে ২ বার দাঁতের ডাক্তার দেখান: ডেন্টিস্টরা আপনার মুখ পরীক্ষা করে আগাম সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারবেন। ফলে গুরুতর কোনো সমস্যা হওয়ার আগেই তা প্রতিরোধের ব্যবস্থা নিতে আপনার কোনো অসুবিধা হবে না। 

২. তেল লাগান: অয়েল ড্রয়িং বা অয়েল পুলিং কৌশলটি ব্যবহার করে দাঁতের ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়াগুলো বের করে আনা যায়, এসব ব্যাকটেরিয়া দাঁতের ক্ষয় হওয়ার জন্য দায়ী। এর জন্য প্রয়োজন অ্যান্টিসেপটিক এবং অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল উপাদান সমৃদ্ধ তেল। যেমন তিলের তেল বা নারিকেল তেল। এর যেকোনো একটি তেল মুখে নিয়ে ২০মিনিট মাউথওয়াশের মত কুলকুচি করতে হবে। এরপর পানি দিয়ে কুলি করে মুখ ধুয়ে ফেলতে হবে। 

৩. ফ্লস ব্যবহার করতে ভুলবেন না: শুধু দাঁত ব্রাশ করাই যথেষ্ট না। দাঁতের ফাঁকে ফাঁকে জমে থাকা খাদ্যকণা এবং ব্যাকটেরিয়ার হাত থেকে রক্ষা পাওয়ার একমাত্র সমাধান হলো ফ্লসিং। ফ্লসিং করা কোনো জটিল বিষয় না। এই সামান্য কাজটুকু করতে পারলে আপনার দাঁত র’ক্ষা পাবে খুব বড় কোনো ক্ষতির হাত থেকে। 

৪. চিনি এড়িয়ে চলুন: অতিরিক্ত চিনি খেলে আপনার দাঁত ক্ষতিগ্রস্ত হবে নিশ্চিত। শুধু মিষ্টি বা চকলেটের চিনি নয়, এড়িয়ে যেতে হবে মিষ্টি স্বাদের যেকোনো খাবার। বিশেষ করে কোমল পানীয় এবং চুইংগাম খাওয়ার অভ্যাস ত্যা’গ ক’রতে হবে। 

৫. দাঁতের জন্য উপকারী খাবার খান: কিছু খাবার আছে যা দাঁতের ক্ষয় রো’ধ করে। দুগ্ধজাত খাবার বিশেষ করে পনির দাঁতের পাথর দূ’র ক’রতে সক্ষম এবং এনামেলকেও মজবুত করে তুলতে পারে। আবার ফলের মধ্যে আপেলের কথা উল্লেখ করা যায়। যদিও আপেল সামান্য অ্যাসিডিক এবং মিষ্টি, তবুও এটি লালা উৎপাদনে সাহায্য করার মাধ্যমে ক্ষ’তিকর ব্যাকটেরিয়ার পরিমাণ হ্রাস করে। 

৬. প্রতিদিন ২ বার দাঁত মাজুন: প্রতিদিন সকালে আপনি হয়তো নিয়ম করে দাঁত ব্রাশ করেন। কিন্তু এটাই যথেষ্ট বলে ধ’রে নিলে ভুল করবেন। রাতের খাবার খেয়ে অবশ্যই আরও একবার দাঁত ব্রাশ করার অভ্যা’স করুন। কারণ রাতের খাওয়া শেষে খাদ্যকণাগুলো দাঁতের ফাকে ফাকে গিয়ে জমা হয় এবং সারা রাত ধরে এগুলো মুখের ভেতরের পরিবেশকে অস্বাস্থ্যকর করে রাখে।  ৭. সামান্য পরিবর্তনেও নজর দিন: যখন আপনার দাঁতের স্বা’স্থ্যের বিষয়, তখন ছোট খাটো কোনো পরিবর্তনকেও গ্রাহ্য করুন। মাড়ি কি সামান্য লাল দেখাচ্ছে? লালা কি সামান্য লালচে রংয়ের? নাকি দাঁতে হালকা ব্যথা অনুভব হচ্ছে? ডেন্টিস্টের কাছে ছুটুন এখনি। অবহেলা করলে এই সামান্য পরিবর্তনগুলোই বিশাল রূপ ধারণ করবে। এসব উ’পসর্গই জা’নান দেয় বড়সড় কিছু হতে যাচ্ছে। 

৮. জিহ্বা ব্রাশ করুন: ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়ার আশ্রয়স্থল শুধু দাঁত আর মাড়ি নয়। আপনার জিহ্বাও এদের বড় একটি আস্তানা। প্রতিবার দাঁত ব্রাশ করার সময় তাই জিহ্বাও নিয়ম করে ব্রাশ ক’রতে হবে। টাং ক্লিনার নামে বাজারে একধরনের চাঁছনি পাওয়া যায় অল্প টাকায়। দাঁত র’ক্ষার জন্য এইটুুকু বিনিয়োগ তো করতেই পারেন, তাই না। 

৯. অতিরিক্ত ব্রাশ করবেন না: অতিরিক্ত কোনো কিছুই ভালো না। এমনকি অতিরিক্ত দাঁত ব্রাশও। দিনে দুই বারের বেশি ব্রাশ করলে দাঁতের উপরে যে শক্ত আবরণ থাকে সেই এনামেল ক্ষয় হতে শুরু করে। জোরে ব্রাশ করলেও একই সমস্যা হতে পারে। 

১০. গ্রিন টি বা রং চা খান: গ্রিন টি এবং রং চা আপনার দাঁত সুস্থ রাখতে ভূমিকা রাখে। চায়ের ক্যামেলিয়া সিনেনসিস দাঁতের ক্ষয় রোধে কার্যকর ভূমিকা পালন করে বলে প্রমাণিত হয়েছে। 


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ