Feedback

ধর্ম ও শিক্ষা, নারী ও শিশু, খোলা কলাম

নারীর পর্দা ও ধর্ষণ

নারীর পর্দা ও ধর্ষণ
October 16
09:35pm
2020
রায়হান আহম্মেদ
শাহজাহানপুর, ঢাকা:
Eye News BD App PlayStore

কুরআন-সুন্নাহ অনুযায়ী প্রাপ্তবয়স্কা মুসলিম নারীকে পর্দা করতে হবে, এটা ফরজ। এটা পবিত্রতার সহায়ক। কিন্তু ধর্ষণের ঘটনা ঘটলেই যারা বলেন, "নারীরা পর্দা করে না বলেই সমাজে ধর্ষণ বেড়ে গেছে" তারা আসলে মানসিক রোগী, অসুস্থ মন-মানসিকতা লালন করে তারা। বুরখা পরিধান করে এমন বহু নারী ধর্ষনের শিকার হয়েছেন। কই বুরখা কি পেরেছে হিংস্র হায়েনাদের থাবা থেকে আমাদের সেই মা বোনদেরকে রক্ষা করতে? ঘরে প্রবেশ করে গণধর্ষণ করছে হায়েনাগুলো।

মেয়েরা কী ঘরের ভেতরেও বুরখা পড়ে বসে থাকবে? বছর খানেক আগে পড়লাম,  ৯ মাস বয়সের মেয়েকে ধর্ষন করল এক নরপশু। ৬-৭ বছর বয়সের মেয়েদেরকে রেইপ করা হয়েছে এমন উদাহরণ অনেক। এরাও কি পর্দা করবে? ছেলে শিশুরা কতিপয় হুজুর নামের নরপশু কর্তৃক মাদ্রাসাতে বলৎকারের শিকার হচ্ছে, এই ছেলেগুলোকেও কী পর্দা করাবেন আপনারা? জঘন্য আপনাদের মন-মানসিকতা যারা বলেন পর্দা না করার কারণেই রেইপ হয়। আপনারা ধর্ষকদের প্রতি সিম্পেথি দেখাচ্ছেন, তাদের এহেন জঘন্য কাজকে জাস্টিফাই করে আপনারাও সমান অপরাধী। সময় ও সুযোগ পেলে হয়ত এসব অজুহাতে আপনারাও ধর্ষকে পরিণত হবেন, এটা তারই ইংগিত৷

এরকম নুংরা মন-মানসিকতা বদলান। দৃষ্টিভংগী বদলান। যদি কোন নারী বেপর্দা চলাফেরা করে তাহলে সূরা নুর ২৪ নং সূরার ৩০ নং আয়াত বলছে মুসলমান পুরুষ হিসেবে আপনি আপনার দৃষ্টি অবনত রেখে চলে যাবেন। সেই বেপর্দা মহিলার দিকে আপনি তাকাবেনও না। এটা কুরআন মাজিদের শিক্ষা।   

এই সংক্রান্ত অসংখ্য হাদিসও আছে।   

আর পারিবারিক শিক্ষা এই ক্ষেত্রে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। আমরা প্রত্যেকেই কোন না কোন নারীর গর্ভ থেকেই জন্মগ্রহণ করেছি। সেই নারী মা হিসেবে আমাদেরকে যদি ছোটবেলা থেকে নারীদের প্রতি সম্মান দিতে শেখান, সকল নারীকে মা-বোন, খালা-ফুফুর দৃষ্টিতে সর্বোপরি একজন সম্মানিত মানুষ হিসেবে দেখার শিক্ষা দেন তবে এই শিক্ষাটা আমরা সকল পুরুষ সারাজীবন বয়ে চলতাম। বেশিরভাগ পরিবারে নারীকে যথাযোগ্য সম্মান করার এই পারিবারিক শিক্ষার অভাবটা নারীদেরকে মানুষ হিসেবে সঠিক সম্মানের জায়গায় আমাদের কাছে রাখতে পারে নাই।   

নীতি-নৈতিকতা ও ধর্মীয় মূল্যবোধ ভেতর থেকে জাগানো দরকার। বক ধার্মীক না হয়ে আসলেই মন থেকে কুরআন সুন্নাহকে ধারণ করা দরকার। মদ-ইয়াবা, কোকেইন, ফেনসিডিলসহ অন্যান্য ড্রাগ কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করা দরকার। এগুলোর কারণেও ধর্ষণ বাড়ছে।     

আর অবশ্যই অবশ্যই কুরআন মাজিদে বর্ণিত ধর্ষক ও শিশু বলৎকারকারীর শাস্তি রাষ্ট্রীয়ভাবে কার্যকর করা প্রয়োজন। ইন শা আল্লাহ কয়েকটি ঘটনায় এই শাস্তি কার্যকর হলে দেখবেন ধর্ষণ ০% এ নেমে আসবে। আল্লাহর দেয়া কুরআন মাজিদের আইনের কোন বিকল্প নেই। মানবসৃষ্ট আইন এই ক্ষেত্রে ব্যর্থ। পাশ্চাত্য দেশগুলোতে পতিতালয়ের পক্ষে সাফাই দেয়া হয় এই বলে যে, এগুলো না থাকলে ধর্ষণ বেড়ে যাবে। অথচ পাশ্চাত্যের দেশগুলোতে অহরহ ধর্ষণের ঘটনা ঘটছে। মানুষের চিন্তার পরিধি খুবই সীমিত। আল্লাহর আইনের কোন বিকল্প নেই। সঠিক আইন প্রণয়ন প্রয়োজন এবং তার যথার্থ প্রয়োগ প্রয়োজন।   

অনেকেই পর্নোগ্রাফি, অবাধ অশ্লীলতা এবং মদ-ড্রাগের অবাধ ছড়াছড়িকে দায়ী করছেন ধর্ষণ বেড়ে যাওয়ার জন্য। হ্যাঁ, এগুলো কিছুটা দায়ী তো অবশ্যই। তবে সমস্যা হচ্ছেঃ সৌদি আরবে কিন্তু পর্নোগ্রাফি নিষিদ্ধ ছিল (বর্তমান কুখ্যাত ক্রাউন প্রিন্স মুহাম্মদ বিন সালমান এসে কি করেছে ইদানীং তা জানি না), বুরখা পড়াও আবশ্যক ছিল রাষ্ট্রীয়ভাবে, শরিয়াহ আইনও ছিল সেখানে কঠোরভাবে, ড্রাগ-মদও কঠোরভাবে নিষিদ্ধ ছিল সেখানে এবং তাদের একেক জনের কয়েকটি করে বউও আছে।

তারপরও যদি আপনি সেখানে নারী অধিকার ও প্রবাসী নারী শ্রমিকদের অধিকার নিয়ে কাজ করা বিভিন্ন সংস্থার দায়িত্বশীলদের সাথে কথা বলেন তাহলে জানতে পারবেন, সৌদিতে স্থানীয়দের কর্তৃক কি পরিমাণ স্থানীয় ও বিদেশী নারী ধর্ষনের শিকার হয়! অসংখ্য, অগুনিত। অল্প কিছু মিডিয়াতে আসে কিংবা আসে না৷ অধিকাংশ ঘটনা তো মিডিয়াতে আসেই না। কে গিয়ে এই কোটিপতি শেখ ও তাদের বিগড়ানো ছেলেগুলোর বিরুদ্ধে রিপোর্ট করবে? কতজনের আছে সেই সাহস? দিনের পর দিন সেগুলো মুখ বুজে সহ্য করে অনেক নারী পেটের তাকিদে।

কাজেই পুরুষদের দৃষ্টিভংগী  বদলানোর কোন বিকল্প নেই৷ সঠিক শিক্ষা দরকার পারিবারিকভাবে এবং প্রাতিষ্ঠানিকভাবে। কুরআন সুন্নাহ এবং আখলাকে নববীকে অন্তর থেকে ধারণ করতে হবে। আর আইন ও আইনের সঠিক প্রয়োগ দরকার৷ ক্ষমতাসীন ও ধনীশ্রেণির জন্য যদি আইন সমানভাবে কার্যকর না হয় তবে  কোনকিছুই আমাদেরকে এই জঘন্য বিষয় থেকে মুক্তি দেবে না।

All News Report

Add Rating:

0

সম্পর্কিত সংবাদ

ট্রেন্ডিং

বিদেশ গমনে ইচ্ছুক সবাইকে নিতে হবে ই-পাসপোর্টঃ বন্ধ হচ্ছে এমআরপি (MRP) কার্যক্রম

বিদেশ গমনে ইচ্ছুক সবাইকে নিতে হবে ই-পাসপোর্টঃ বন্ধ হচ্ছে এমআরপি (MRP) কার্যক্রম

শিক্ষামন্ত্রী বরাবর খোলা চিঠি

শিক্ষামন্ত্রী বরাবর খোলা চিঠি

নৌবাহিনীর কর্মকর্তাকে মারধর: ভিডিও ভাইরাল সেলিমের ছেলের বিরুদ্ধে মামলা

নৌবাহিনীর কর্মকর্তাকে মারধর: ভিডিও ভাইরাল সেলিমের ছেলের বিরুদ্ধে মামলা

ফ্রান্সে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড

ফ্রান্সে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড

প্রেমিকার লাশ ফেলে পালানোর সময় প্রেমিক আটক

প্রেমিকার লাশ ফেলে পালানোর সময় প্রেমিক আটক

ফ্রান্সে নবীকে নিয়ে কটুক্তি, যা বললেন আজহারী

ফ্রান্সে নবীকে নিয়ে কটুক্তি, যা বললেন আজহারী

হযরত মোহাম্মদ (সা.) অবমাননা: ফ্রান্সের ওয়েবসাইট হ্যাক করল বাংলাদেশি হ্যাকারর

হযরত মোহাম্মদ (সা.) অবমাননা: ফ্রান্সের ওয়েবসাইট হ্যাক করল বাংলাদেশি হ্যাকারর

কিশোরগঞ্জে অগ্নিকান্ডে দগ্ধ ৭ জন বার্ন ইউনিটে ভর্তি

কিশোরগঞ্জে অগ্নিকান্ডে দগ্ধ ৭ জন বার্ন ইউনিটে ভর্তি

মিটার ১০হাজার, খুঁটি ৩০হাজার: টাকা না দেওয়ায় গৃহবধূ লাঞ্ছিত

মিটার ১০হাজার, খুঁটি ৩০হাজার: টাকা না দেওয়ায় গৃহবধূ লাঞ্ছিত

ম্যাখোঁর মানসিক চিকিৎসা দরকার, পাল্টা জবাব ফ্রান্সের

ম্যাখোঁর মানসিক চিকিৎসা দরকার, পাল্টা জবাব ফ্রান্সের

৩ বছরে স্বর্ণের হরফে পবিত্র কুরআন লিখলেন ৩৩ বছরের এই নারী!

৩ বছরে স্বর্ণের হরফে পবিত্র কুরআন লিখলেন ৩৩ বছরের এই নারী!

বুকে গুলি করব, পিঠ দিয়ে বের হবে: এসআই আকবরের হুমকি

বুকে গুলি করব, পিঠ দিয়ে বের হবে: এসআই আকবরের হুমকি

এসআই আকবর কে পালাতে সহায়তাকারী কে কে  আজ জানা যাবে

এসআই আকবর কে পালাতে সহায়তাকারী কে কে আজ জানা যাবে

জেনে নিন, দালাল ছাড়াই পাসপোর্ট করার সহজ উপায় !

জেনে নিন, দালাল ছাড়াই পাসপোর্ট করার সহজ উপায় !

'আসসালামু আলাইকুম-আল্লাহ হাফেজ' ভুল ব্যাখ্যার অভিযোগে ঢাবির অধ্যাপক জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা

'আসসালামু আলাইকুম-আল্লাহ হাফেজ' ভুল ব্যাখ্যার অভিযোগে ঢাবির অধ্যাপক জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা

সর্বশেষ

বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন করোনায় আক্রান্ত

বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন করোনায় আক্রান্ত

র‍্যাবের হেফাজতে এমপির পুত্র এরফান সেলিম

র‍্যাবের হেফাজতে এমপির পুত্র এরফান সেলিম

র‌্যাব ও ডিবি পুলিশের অভিযান শুরু হাজী সেলিমের পৈতৃক বাড়িতে

র‌্যাব ও ডিবি পুলিশের অভিযান শুরু হাজী সেলিমের পৈতৃক বাড়িতে

চার লেনে উন্নীত হচ্ছে কুষ্টিয়া মহাসড়ক, কমবে যানজট

চার লেনে উন্নীত হচ্ছে কুষ্টিয়া মহাসড়ক, কমবে যানজট

নাটোরের লালপুরে বাস উল্টে খাদে, মা-মেয়ে নিহত

নাটোরের লালপুরে বাস উল্টে খাদে, মা-মেয়ে নিহত

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় মৃত্যু  ১৫ এবং  শনাক্ত ১৪৩৬

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় মৃত্যু ১৫ এবং শনাক্ত ১৪৩৬

জয়পুরহাটে প্রতিমা ভাংচুর,  এক যুবক আটক

জয়পুরহাটে প্রতিমা ভাংচুর, এক যুবক আটক

নাগেশ্বরীর প্রধান সড়কের বেহাল দশা

নাগেশ্বরীর প্রধান সড়কের বেহাল দশা

সরিষাবাড়ীতে চা চাষের জমি নির্বাচন ও সম্ভাব্যতার লক্ষে মতবিনিময় সভা

সরিষাবাড়ীতে চা চাষের জমি নির্বাচন ও সম্ভাব্যতার লক্ষে মতবিনিময় সভা

সমাবেশেই অসুস্থ হয়ে পড়েছেন ডা. জাফরুল্লাহ

সমাবেশেই অসুস্থ হয়ে পড়েছেন ডা. জাফরুল্লাহ

নীরব প্রতিবাদে ‘মুহাম্মাদকে ভালোবাসি’ লেখা মাস্ক পরে সংসদে কসোভোর এমপি

নীরব প্রতিবাদে ‘মুহাম্মাদকে ভালোবাসি’ লেখা মাস্ক পরে সংসদে কসোভোর এমপি

শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হকের ১৪৭তম জন্মবার্ষিকী উদযাপিত

শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হকের ১৪৭তম জন্মবার্ষিকী উদযাপিত

সাতক্ষীরা জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সোহেলকে অবাঞ্চিত ঘোষণা

সাতক্ষীরা জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সোহেলকে অবাঞ্চিত ঘোষণা

কাঠালিয়ায় নদীর পাড় থেকে এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার

কাঠালিয়ায় নদীর পাড় থেকে এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার

এপিকের অ্যাকাউন্ট বাতিল করলো পেপাল

এপিকের অ্যাকাউন্ট বাতিল করলো পেপাল