Feedback

জেলার খবর, আরও..., ময়মনসিংহ, জামালপুর

রাখবেন মাটির পাতিল-ব্যাংক-ফুলদানি-পশু-পাখি’

রাখবেন মাটির পাতিল-ব্যাংক-ফুলদানি-পশু-পাখি’
September 16
02:56pm
2020
MD. Shakil ahemed
jamalpur, jamalpur, প্রতিনিধি:
Eye News BD App PlayStore

মাটির তৈরি বিভিন্ন নিত্যপ্রয়োজনী সামগ্রী বিক্রি করে সংসারের ঘানি টানছেন জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলার পিংনা ইউনিয়নের বাড়ইপটল পালপাড়া গ্রামের ষাটোর্ধ্ব বৃদ্ধা গৌর চন্দ্র। পেটের দায়ে প্রতিদিনই এ গ্রাম থেকে ওগ্রামের মেঠো পথ ধরে ধরে মাটির তৈরি বিভিন্ন তৈজসপাত বিক্রি করতে হাক ছাড়েন তিনি। শুধু গৌর চন্দ্রই নয়ই- এখানে আদিকাল থেকেই কুমারদের বসবাস রয়েছে। এ কারণে পালপাড়াকে অনেকে কুমারপাড়া নামেও ডাকে। গৌর চন্দ্রের বাপ-দাদার পেশাও ছিল মাটির তৈরি হাড়ি-পাতিল ও গ্রামে গ্রামে ঘুরে বিক্রি করা। আধুনিকতার ছোঁয়ায় মাটির বাসন ও তৈজসপত্রের চাহিদা হারিয়ে যেতে বসেছে। তবু পুর্বপুরুষের পেশা ছাড়তে পারেননি গৌর চন্দ্র। বয়সের ভারে নুব্জ হয়ে আছেন, তবু মাথায় করে ঝাঁকা ভর্তি মাটির তৈরি প্রয়োজনীয় ও সৌখিন জিনিস ফেরি করে বেড়াচ্ছেন তিনি। সম্প্রতি কথা হয় গৌর চন্দ্র সাথে।    গৌর চন্দ্র জানান,“মাটির তৈরি জিনিসপত্র গ্রামের মানুষের কাছে তেমন কোন চাহিদা না থাকায় খেয়ে না খেয়ে অনাহারে অর্ধাহারে জীবন গাড়ি চলছে ধিক ধিক করে।


তিন মেয়ে এক ছেলের সংসারে অনেক কষ্টে দিন আমার। বড় মেয়ের বিয়ে দিয়েছি। ঘরে রয়েছে বিবাহ যোগ্য আরো ২টি মেয়ে। অন্য কোনো কাজ করার সামর্থ্যও নেই । তাই বাধ্য হয়ে এই বয়সেও মাটির পাতিল, খোড়া, কাসা, চালুন, ব্যাংক, কলসি, ফুলদানি, পশু-পাখি, সানকি বিক্রি করছি”। ষাটোর্ধ্ব এ কুমার বলেন, প্রতিদিন কম-বেশি বেচাবিক্রি করতে পারি। যা আয় হয় তা দিয়ে কোনোরকমে চলে। মাঝেমধ্যে কিছু সাহায্য পেয়েছি। কিন্তু স্থায়ী কোনো সুবিধা পাইনি। জীবন সংগ্রামে আমি এক পরাজিত সৈনিক”। একই গ্রামের সুনীল পাল জানান, বাপ-দাদার চৌদ্দ পুরুষের পেশা ছিলো মাটির হাড়ি পাতিল তৈরি করা। আগের দিনে নৌকাযোগে দেশের বিভিন্নস্থানে সরবরাহ করতেন মাটির তৈরি তৈজসপত্র। এককালে এ জিনিসপত্রের চাহিদা ছিল অনেক। কালের পরিবর্তনে আজ আমাদের এ পেশা শূন্যের কোটায়”।   


রাখাল চন্দ্র পাল নামে আরেক ব্যক্তি জানান , “আগের দিনে ট্রেন ঝাঁকা (বাঁশের তৈরি মাটির পাত্র নেওয়ার খাঁচা) ভরে সরিষাবাড়ি নিয়ে বিভিন্ন গ্রামে ঘুরে ঘুরে মাটির তৈরি জিনিস বিক্রি করে আবার ট্রেন দিয়ে বাড়ি চলে আসতাম। এখন আর কেউ মাটির তৈরি জিসিন নিতে চায়। এখন আমাদের সংসার খুব কষ্টে চলছে”।    পিংনা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোতাহার হোসেন জয় জানান, “গ্রামবাংলার ঐতিহ্যবাহী এ পেশা বাঁচিয়ে রাখতে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা প্রয়োজন। দেশে বিভিন্ন স্থানে মেলার আয়োজন করে মাটির তৈজসপত্রের প্রয়োজনীয়তা বোঝাতে হবে। পাশাপাশি কুমারদের জন্য প্রয়োজনীয় সহযোগিতার ব্যবস্থা করতে হবে। তা নাহলে এ শিল্প ইতিহাসে পরিণত হবে।

All News Report

সম্পর্কিত সংবাদ

ট্রেন্ডিং

শাকিল বাড়ি ফিরেছে,তবে মৃত

শাকিল বাড়ি ফিরেছে,তবে মৃত

দেশের বাজারে বর্তমান স্বর্ণের দাম

দেশের বাজারে বর্তমান স্বর্ণের দাম

স্মৃতির পাতায় অমলিন প্রিয় ক্যাম্পাস

স্মৃতির পাতায় অমলিন প্রিয় ক্যাম্পাস

নূরদের বিরুদ্ধে মামলাকারী তরুণীর এবার শাহবাগ থানায় মামলা

নূরদের বিরুদ্ধে মামলাকারী তরুণীর এবার শাহবাগ থানায় মামলা

পাপিয়া দম্পতির যাবজ্জীবন সাজা দাবি রাষ্ট্রপক্ষের

পাপিয়া দম্পতির যাবজ্জীবন সাজা দাবি রাষ্ট্রপক্ষের

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০ লক্ষ টাকার বীমা দাবী প্রদান করেছে প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০ লক্ষ টাকার বীমা দাবী প্রদান করেছে প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স

সুনামগঞ্জ সমাচার

সুনামগঞ্জ সমাচার

রোববার থেকে সৌদির নতুন ভিসা

রোববার থেকে সৌদির নতুন ভিসা

বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ  মামলার তথ্য ও প্রমাণাদী চেয়ে তদন্ত কমিটির জরুরি প্রেস বিজ্ঞপ্তি

বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ মামলার তথ্য ও প্রমাণাদী চেয়ে তদন্ত কমিটির জরুরি প্রেস বিজ্ঞপ্তি

প্রথম ম্যাচে জয় পায় কলকাতা নাইট রাইডার্স

প্রথম ম্যাচে জয় পায় কলকাতা নাইট রাইডার্স

দুর্নীতি দমনে প্রধানমন্ত্রীকে পরামর্শ দিলেন ড. জাফরুল্লাহ

দুর্নীতি দমনে প্রধানমন্ত্রীকে পরামর্শ দিলেন ড. জাফরুল্লাহ

আত্মহত্যা !!

আত্মহত্যা !!

পেটের ব্যাথা সইতে না পেরে স্কুলছাত্রী কীটনাশক পানে আত্মহত্যা

পেটের ব্যাথা সইতে না পেরে স্কুলছাত্রী কীটনাশক পানে আত্মহত্যা

ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণ মামলায় বিবিসির সাংবাদিকের সাক্ষ্য

ঢাবি ছাত্রী ধর্ষণ মামলায় বিবিসির সাংবাদিকের সাক্ষ্য

মোদির বাংলাদেশ নীতির সমালোচনায় রাহুল গান্ধী

মোদির বাংলাদেশ নীতির সমালোচনায় রাহুল গান্ধী

সর্বশেষ

লক্ষ্মীপুরে কলেজ ছাত্রের ঝুলন্ত লাশ উদ্দার!

লক্ষ্মীপুরে কলেজ ছাত্রের ঝুলন্ত লাশ উদ্দার!

রাজশাহী মেয়রের উদ্যোগে নতুন রূপ পাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী সোনাদীঘি

রাজশাহী মেয়রের উদ্যোগে নতুন রূপ পাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী সোনাদীঘি

দীপিকার হাজিরাতে হতে পারে বিশৃঙ্খলা? কঠোর নিরাপত্তায় ঘেরা হচ্ছে NCB-র অফিস!

দীপিকার হাজিরাতে হতে পারে বিশৃঙ্খলা? কঠোর নিরাপত্তায় ঘেরা হচ্ছে NCB-র অফিস!

সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির স্ত্রীর মৃত্যুতে শেখ আব্দুল আজিজের শোক প্রকাশ

সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির স্ত্রীর মৃত্যুতে শেখ আব্দুল আজিজের শোক প্রকাশ

আজমিরীগঞ্জে বিয়ের প্রলোভনে কিশারী ধর্ষণ, আটক ১

আজমিরীগঞ্জে বিয়ের প্রলোভনে কিশারী ধর্ষণ, আটক ১

ভয়ংকর পরিকল্পনা ছিলো ট্রাম্পের

ভয়ংকর পরিকল্পনা ছিলো ট্রাম্পের

সাতক্ষীরায় প্রতারণার অভিযোগে পিতা পুত্রসহ আটক আরও দুইজন

সাতক্ষীরায় প্রতারণার অভিযোগে পিতা পুত্রসহ আটক আরও দুইজন

বয়স্ক ভাতার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে

বয়স্ক ভাতার টাকা আত্মসাতের অভিযোগ ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে

ভারতে নিষিদ্ধ হচ্ছে জাকির নায়েকের পিস টিভি ও ইউটিউব চ্যানেল

ভারতে নিষিদ্ধ হচ্ছে জাকির নায়েকের পিস টিভি ও ইউটিউব চ্যানেল

নবীনগরে পৃথক আদেশে ইউএনও-ওসি বদলী

নবীনগরে পৃথক আদেশে ইউএনও-ওসি বদলী

বগুড়ায় ঘরে ঘরে ভূতুড়ে বিদ্যুৎ বিল, বিদ্যুতের ভেল্কিবাজিতেও হতাশা গ্রাহক

বগুড়ায় ঘরে ঘরে ভূতুড়ে বিদ্যুৎ বিল, বিদ্যুতের ভেল্কিবাজিতেও হতাশা গ্রাহক

অনুরাগ অভব্য আচরণ করলে আদালতে টেনে নিয়ে যেতাম: রিচা চাড্ডা

অনুরাগ অভব্য আচরণ করলে আদালতে টেনে নিয়ে যেতাম: রিচা চাড্ডা

সড়ক দূর্ঘটনায় শিশু  নিহত

সড়ক দূর্ঘটনায় শিশু নিহত

পাইকগাছা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের বহুতল ভবন নির্মাণে মারাত্মক কম্পনের সৃষ্টি; আতঙ্কিত এলাকাবাসী

পাইকগাছা সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের বহুতল ভবন নির্মাণে মারাত্মক কম্পনের সৃষ্টি; আতঙ্কিত এলাকাবাসী

আমেরিকায় শুরু হল করোনা টিকার সব থেকে বড় পরীক্ষা

আমেরিকায় শুরু হল করোনা টিকার সব থেকে বড় পরীক্ষা