Feedback

গল্পসল্প

ভুতুড়ে সব বাড়ির গল্প

ভুতুড়ে সব বাড়ির গল্প
September 14
04:44pm
2020
Md.Sahel
Dokkin Surma, Sylhet:
Eye News BD App PlayStore

ভূত! কেউ বলবে এসব ছাইপাঁশ আবার কেউ বলবে সত্যি। এইসব নিজে না দেখলে কখনও বিশ্বাস করা যায় না। ভূত প্রেত নিয়ে বিজ্ঞানেও রয়েছে কড়া যুক্তি তর্ক। বিজ্ঞানীরা ভূতের অস্তিত্ব মানতে নারাজ হলেও সাধারণ মানুষ কিন্তু তার উল্টো। আগে মনে হতো গ্রামগঞ্জের মানুষ এইসব বেশি মানে কিন্তু না! এখন যেন ঢাকার ঠিকানা পেয়েছে রাজ্যের যত ভূতরা। আছে এমন কিছু ভূতের বাড়ির গল্প যেগুলো শুনে ভয় পেতে পারেন আপনিও। গল্প শুনে আপনার মনে হতেই পারে আপনার ঘরেও আছে নাকি ভূত প্রেত? এমন ভূতের ভয় কিন্তু সত্যি আছে কিছু এলাকায়। যেখানে নাকি ভূতের বাড়ি ভেবে ছাড়ছে বাসা আবার কেউ কেউ ছাড়ছে বিল্ডিং। চলুন তাহলে আর দেরি না করে শুরু করা যাক, ঢাকার শহরের সারা জাগানো কয়েকটি ভূতের বাড়ির গল্প। 

ধানমন্ডি ২৭ নং 

অন্ধকার ঘর
গা ছমছমে সময়

শহরের অন্যতম জনপ্রিয় আবাসিক এলাকা ধানমন্ডি। যেখানে কিনা অ্যাপার্টমেন্ট খালি পাওয়া যায় না। এত মানুষের আনাগোনার মধ্যে একটি অ্যাপার্টমেন্ট এমন আছে যেখানে সব চেয়ে কম ভাড়ায় টুলেট ঝুলিয়েও নাকি ভাড়াটিয়া খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। লোখমুখে জানা যায়, একজন মহিলার আত্মহত্যার পর থেকে কোন ভাড়াটিয়া সেখানে উঠলেই ঘটতে থাকে বিচিত্র সব ঘটনা। একটি ঘটনা এমনও ছিল যা নাকি এতটাই ভয়ংকর ছিল, রাতারাতি বাসা বদল করতে বাধ্য হয়েছিল সেই ভাড়াটিয়ার। 

আহমেদ পরিবার (ছদ্দনাম) ৫ মাসের বাচ্চা নিয়ে উঠেছিলেন ধানমন্ডি ২৭ নম্বরের দিকে অক্সফোর্ড স্কুলটির কাছাকাছি তিন তলার একটি খালি অ্যাপার্টমেন্টে। এই এলাকায় বাসা ভাড়ায় যেখানে ৫০০ টাকার ছাড় পাওয়া যায় না কিন্তু, অর্ধেক ভাড়ায় এত সুন্দর খোলামেলা অ্যাপার্টমেন্ট পেয়ে, অল্প সময়ের ভেতরেই সপরিবারে উঠে পরেন এই বাসায়। এমন নয় যে এই বাড়ি সম্বন্ধে  তিনি জানতেন না। তিনি ভেবেছেন এগুলো কেবলই গুজব।  

অ্যাপার্টমেন্টে  উঠার বেশ কিছুদিন পর থেকেই শুরু হতে থাকে অদ্ভুত সব ঘটনা। কালো ছায়া দেখা কিংবা এক জায়গায় জিনিস অন্য জায়গায় খুঁজে পাওয়ার মত ছোট ঘটনাগুলো ছিল নিত্যদিনের। কিন্তু একদিন এমন কিছু ঘটে গেল যা আসলেই মেনে নেওয়ার মত নয়। 

পুরো বাসায় থাকতেন মোটে তিন জন মানুষ। আহমেদ সাহেব, তার স্ত্রী আর তাদের ৫ মাসের বাচ্চা। আহমেদ সাহেব নামাজ কালাম পড়তেন নিয়মিত। দেরি করে আসায় প্রায়ই ইশার নামাজ  কাজা হয়ে যায়। এমনই একদিন রাত ১১ টার দিকে নামাজ পড়বেন বলে শোবার ঘরের পাশের ঘরে গিয়েছিলেন আহমেদ সাহেব। নিরিবিলি নামাজ পড়বেন বলে ঘরের বাতি নিভিয়ে ঘরের মাঝখানে জায়নামাজ বিছিয়ে বসলেন। অন্যঘরের আলো যতটুকু দেখা যাচ্ছে তাতে সুন্দরভাবে নামাজ  আদায় করা যাবে। 

ঘরে হালকা অন্ধকার। পাশের ঘরেই স্ত্রী আর বাচ্চা খেলছে, সেই শব্দ হালকা ভেসে আসছে। শান্ত মনে চোখ বন্ধ করে শুরু করলেন নামাজ । নামাজের শেষে তিনি যখন সিজদাহ থেকে উঠে দুয়া পড়বেন বলে বসলেন কিছু একটা অনুভব করতে লাগলেন! তিনি আর ঘরে একা নন। তার পিঠ ঠেকেছিল দেয়ালে কিন্তু সে তো ঘরের মাঝে নামাজ পরছিলেন! তার পিঠ কেন দেয়ালে ঠেকবে। এমনটা ভাবতেই তিনি চোখ খুলে ফেললেন আর অনুভব করলেন তার কানের কাছে কেউ যেন বিড়বিড় করে কি বলছে! পেছন ফেরে নাকি তাকাবার শক্তি ছিল না তার! এরপর আর কিছু জানা যায়নি…  

মিরপুর ভূতের বাড়ি 

অন্ধকারে একজন মানুষ
কি এমন হয়েছিল সেদিন ?

দশ বারো বছর আগে সারা দেশে আলোড়ন সৃষ্টি করেছিল যে ঘটনাটি সেটি হল দুই বোন রিতা আর মিতার গৃহবন্দী হয়ে থাকার। শুধুই কি তারা বাসা থেকে বের হতেন না? নাকি ছিল আরও অন্যকিছু? কি এমন হয়েছিল সে বাসায় যার কারণে ভূতের বাড়ির তকমা লেগেছিল?

মিরপুর ছয় নম্বর সেকশনের সি ব্লকের নয় নম্বর রোডের এক নম্বর বাড়ি। দুই পাশে রাস্তা। আর দুই পাশে বহুতল অ্যাপার্টমেন্ট। ওই বাড়ি থেকে উদ্ধার হয়েছিলেন প্রকৌশলী মিতা ও তার চিকিৎসক বোন রীতা। এখন আর ওই বাড়িতে থাকে না তারা। জঙ্গলাকীর্ণ হয়ে পরিত্যক্ত পড়ে আছে কোটি টাকার বাড়িটি। কিন্তু এক সময় এই বাড়িতেই নাকি ঘটত নানা ভুতুড়ে ঘটনা। বাবা মারা যাওয়ার পর থেকেই নাকি বৃদ্ধ মাকে নিয়েই এই বাসায় দিন রাত পার করতেন রিতা আর মিতা। বাসা থেকে নাকি বের হতেন না তারা। 

একদিন অদ্ভুত কিছু নজরে পরে প্রতিবেশীদের। তারা বলেন, একদিন মাঝরাতের দিকে নাকি এই দুই বোনকে মাটি খুঁড়তে দেখা যায়। দেখে যেন মনে হয়েছিল কোন কবর খুঁড়ছেন তারা। এলাকাবাসী সাথে সাথে পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ আসার পর জানা গেল, তাদের মা মারা গিয়েছেন এবং বৃদ্ধ মাকে তারা নিজেই কবর দিতে চেয়েছিলেন বলে মাটি খুঁড়ছিলেন। অনেকে বলেন সেই থেকে নাকি তাদের বাড়িতে ঘটতে শুরু করে নানাবিধ ভুতুড়ে ঘটনা। রিতা মিতা অলৌকিক উপায়ে তাদের মাকে ফিরে পেতে নাকি করে যাচ্ছিল নানা জাদু আর তপস্যা।   অনেকে এটাও বলে মাঝরাতে নাকি রিতা-মিতার মাকেও হেটে বেড়াতে দেখা যায়। যে কবরটা খোঁড়া হচ্ছিল সে কবরের আশেপাশে নাকি তাকে দেখাও গিয়েছে অনেক। 

রিতা-মিতাও নাকি কখনও অস্বীকার করেনি তাদের মায়ের উপস্থিতি। একবার এমন ঘটেছিল, এই ভুতুড়ে বাড়ির পাশের বিল্ডিং এ থাকা এক বাসিন্দা এমন কিছু দেখেছিলেন যা সারা এলাকায় সৃষ্টি করেছিল ভূতের আতঙ্ক। রাত ছিল নাকি ৩ টা, তিনি বারান্দায় গিয়েছিলেন বাতাস খেতে, তখনই দেখতে পারেন কবরের জন্য করে রাখা গর্তে কি যেন বসে আছে কালো কাপড় জড়ানো… 

লালবাগ কেল্লা

দুটি ঘোড়া
সেই ভয় এখনো কাটেনি

এটাও কোন ভূতের বাড়ির থেকে কম কিছু নয়। মুঘল শাসক আওরঙ্গজেবের ছেলে সুবাহদার মোহাম্মদ আজম তার মেয়ে পরী বিবির মৃত্যুর পর এই কেল্লা ছেড়ে চলে যান। আর পেছনে ফেলে যান ছোট্ট মেয়েটির আত্মা বা ভূতকে। এখনো নিঝুম রাতে পূর্ণ চাঁদ উঠলে কেল্লায় পরী বিবির হাসি আর ছোটাছুটির আওয়াজ পাওয়া যায়। কেবল তাই নয়, প্রায়ই রাত তিনটার দিকে কিছু মানুষকে কেল্লার ভেতরে নামাজ পড়তে শোনা যায়। যদিও আজ অব্দি কাউকে দেখা যায়নি। কিন্তু এলাকার মুরব্বীরা বলেছেন তারা প্রায়ই কেল্লার ভেতরে মানুষ নামাজ পড়ছেন এমন কিছু অনুভব করতে পারতেন। কিন্তু কেউই সাহস করে ঘর থেকে বেড় হয়ে দেখতে যাননি। এমনটা ভয় ছিল সবার ভেতর। ব্যাপারটা কেবল এখানেই শেষ নয়। 

লালবাগ কেল্লার আশে পাশে থাকেন এমন অনেকেই পাওয়া যাবে যারা এমন কিছু ঘটনা জানেন যা শুনলে আপনার গায়ে কাটা দিয়ে উঠবে। এলাকার পুরানো বাসিন্দা মোবারক সাহেব (ছদ্দনাম) নাকি একদিন এমন একজনকে দেখেছেন যে কিনা মাথা কাটা অবস্থায় ঘোড়ার পিঠে চড়ে ঘুরছিলেন। এমন শ্বাসরুদ্ধকর দৃশ্য অনেকেই দেখেছে। এমন গল্পের যেন কোন শেষ নেই । 

ভূতের বাড়ির গল্প সত্য-মিথ্যা তা যাচাই করতে যাওয়াও যেন আর এক গল্পের জন্ম দেওয়া। সময়ের সাথে এই গল্পগুলো এতটাই ভীতি তৈরি করেছে মানুষের হৃদয়ে তা সত্যি অবিশ্বাস্য। আপনার কি এমন কিছু গল্প আছে? যা আমদের সাথে শেয়ার করতে চাচ্ছেন তাহলে এখনই কমেন্ট করুন। কিংবা এখানের কোন গল্প কি মিলে গেছে আপনার শোনা গল্পের সাথে সেটাও জানাতে ভুলবেন না যেন! 

All News Report

সম্পর্কিত সংবাদ

ট্রেন্ডিং

বরগুনার রিফাত হত্যাঃ স্ত্রী মিন্নিসহ ৬ জনের মৃত্যুদণ্ড

বরগুনার রিফাত হত্যাঃ স্ত্রী মিন্নিসহ ৬ জনের মৃত্যুদণ্ড

সীমান্তে নিখোঁজ হওয়ার ১১ দিন পর মৃতদেহ উদ্ধার

সীমান্তে নিখোঁজ হওয়ার ১১ দিন পর মৃতদেহ উদ্ধার

যাদের ভিসার মেয়াদ শেষ তাদের বিষয়ে কিছু করার নেই: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

যাদের ভিসার মেয়াদ শেষ তাদের বিষয়ে কিছু করার নেই: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

মাধ্যমিকে ফেল করা মাহাবুব এখন সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র

মাধ্যমিকে ফেল করা মাহাবুব এখন সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র

মিন্নিসহ সব আসামীদের সাজা চাইলেন রিফাতের বোন

মিন্নিসহ সব আসামীদের সাজা চাইলেন রিফাতের বোন

রিফাত হত্যার মাস্টারমাইন্ড মিন্নি: রাষ্ট্রপক্ষ

রিফাত হত্যার মাস্টারমাইন্ড মিন্নি: রাষ্ট্রপক্ষ

ইউএনও ওয়াহিদা খানম হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাচ্ছেন

ইউএনও ওয়াহিদা খানম হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাচ্ছেন

মাজহারের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে মুখ খুললেন শাওন

মাজহারের সঙ্গে সম্পর্ক নিয়ে মুখ খুললেন শাওন

৩০ দিনের মধ্যে জাহালমকে ১৫ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেবে ব্র্যাক ব্যাংক

৩০ দিনের মধ্যে জাহালমকে ১৫ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেবে ব্র্যাক ব্যাংক

মিনিকেট চালের দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে খাদ্য মন্ত্রণালয়

মিনিকেট চালের দাম নির্ধারণ করে দিয়েছে খাদ্য মন্ত্রণালয়

বিএনপির সাবেক সভাপতি লৎফর রহমান মিন্টুর ইন্তিকাল

বিএনপির সাবেক সভাপতি লৎফর রহমান মিন্টুর ইন্তিকাল

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটি বৃদ্ধি নিয়ে যা বললেন মন্ত্রী

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ছুটি বৃদ্ধি নিয়ে যা বললেন মন্ত্রী

খাদ্যনালী কেটে ফেললেন নার্স, সংকটাপন্ন রুগি

খাদ্যনালী কেটে ফেললেন নার্স, সংকটাপন্ন রুগি

স্পর্শকাতর স্থানে হাত ডান্স গুরুর, যা বললেন নোরা

স্পর্শকাতর স্থানে হাত ডান্স গুরুর, যা বললেন নোরা

রাজশাহীতে কিশোরী ধর্ষণ মামলায় বরখাস্ত ফাদার গ্রেপ্তার

রাজশাহীতে কিশোরী ধর্ষণ মামলায় বরখাস্ত ফাদার গ্রেপ্তার

সর্বশেষ

গল্প

গল্প

ভারতের স্থলবন্দর খুলে দেয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

ভারতের স্থলবন্দর খুলে দেয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

স্টপেজ

স্টপেজ

দেশের মানুষ ধর্ষণ, দূর্নীতি ও টাকা পাচারের ভোগান্তির স্বীকার হচ্ছেঃ ভিপি নুর

দেশের মানুষ ধর্ষণ, দূর্নীতি ও টাকা পাচারের ভোগান্তির স্বীকার হচ্ছেঃ ভিপি নুর

মাদ্রাসায় কর্মচারী নিয়োগ: ৬পদে ৪জন চেয়ারম্যান পরিবারের লোক!

মাদ্রাসায় কর্মচারী নিয়োগ: ৬পদে ৪জন চেয়ারম্যান পরিবারের লোক!

ফুসফুস ভালো রেখে জীবনযাপন করার জন্য এই ৭টি খাবার খাওয়া উচিৎ

ফুসফুস ভালো রেখে জীবনযাপন করার জন্য এই ৭টি খাবার খাওয়া উচিৎ

সজিনা পাতার গুণাগুণ

সজিনা পাতার গুণাগুণ

ডিমলায় ঢাকা সেচ্ছাসেবী সংগঠনের সমন্বয় বৃক্ষ ও টিউবওয়েল বিতরণ

ডিমলায় ঢাকা সেচ্ছাসেবী সংগঠনের সমন্বয় বৃক্ষ ও টিউবওয়েল বিতরণ

ঠাকুরগাঁওয়ে নিজের বলার মতো গল্প ফাউন্ডেশনের হাজার তম দিন উদযাপন

ঠাকুরগাঁওয়ে নিজের বলার মতো গল্প ফাউন্ডেশনের হাজার তম দিন উদযাপন

হবিগঞ্জের জি কে গউছের নাকে অস্ত্রোপাচার

হবিগঞ্জের জি কে গউছের নাকে অস্ত্রোপাচার

পদ্মায় নৌকাডুবি থামবে কবে?

পদ্মায় নৌকাডুবি থামবে কবে?

আজমিরীগঞ্জে ভেঙ্গে যাওয়া রাস্তা মেরামতের উদ্যোগ নিলো উপজেলা প্রশাসন

আজমিরীগঞ্জে ভেঙ্গে যাওয়া রাস্তা মেরামতের উদ্যোগ নিলো উপজেলা প্রশাসন

দুর্নীতি ও দুঃশাসন ছাড়া এই সরকারের বড় অর্জন কিছুই নেই : ডা: শাহাদাত

দুর্নীতি ও দুঃশাসন ছাড়া এই সরকারের বড় অর্জন কিছুই নেই : ডা: শাহাদাত

কুমিল্লার নগর উদ্যান থেকে গরীব শিশুরা বঞ্চিত, রাইডে চরলে গুনতে হবে টাকা

কুমিল্লার নগর উদ্যান থেকে গরীব শিশুরা বঞ্চিত, রাইডে চরলে গুনতে হবে টাকা

সাভারে আবারও এক নারী শ্রমিক গণধর্ষণের শিকার

সাভারে আবারও এক নারী শ্রমিক গণধর্ষণের শিকার