Feedback

জেলার খবর, এক্সক্লুসিভ, কৃষি-অর্থ ও বাণিজ্য, ঝিনাইদহ

মাষ্টার্স শেষ করে মাল্টা চাষে রবিউল সফল

মাষ্টার্স শেষ করে মাল্টা চাষে রবিউল সফল
July 13
08:00pm 2020
Shahajhan Ali Bipas
Jhenaidha, Jhenaidah, প্রতিনিধি:

রাষ্ট্র বিজ্ঞানে মাষ্টার্স শেষ করে চাকুরী নামের সোনার হরিণের দেখা পাননি রবিউল ইসলাম রবি। তাই বলে বসে অলস সময় না কাটিয়ে বাড়ির চারপাশের নিজেদের জমিতে বিভিন্ন সবজি,ফলদ ও ঔষধি গাছের চাষ করে সকলের নজর কেড়েছেন। সাথে সাথে নিজে সৃষ্টি করেছেন আত্মকর্মসংস্থান। বসতভিটের পাশ ঘেষা প্রায় ১৬ বিঘা জমিতে বিভিন্ন ধরনের মূল্যবান ফলদ, ঔষধী ও মসলা জাতীয় গাছ লাগালেও বিশেষ নজর কেড়েছে মাল্টার ক্ষেত। তিনি ৬ বিঘা জমিতে মাল্টার চাষ করেছেন। এ বছরই প্রথম মাল্টার ধর এসেছে। এ পর্যন্ত ৭০ হাজার টাকার মাল্টা বিক্রি করেছেন। আশা করছেন বেশ কয়েক বছর ধরে এ ক্ষেত থেকে মাল্টা পাবেন। যে মাল্টার টাকায় হতে পারবেন অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী। রবিউল ইসলাম রবি ঝিনাইদহ কালীগঞ্জের কাকলাশ গ্রামের মৃত ছবেদ আলী মন্ডলের ছেলে।


সরেজমিনে দেখা যায়,কৃষক রবিউল ইসলামের বাড়ির আঙিনার চারপাশে রয়েছে প্রায় সাড়ে ১৬ বিঘা জমি। যে জমিগুলোতে রয়েছে দারুচিনি, তেজপাতা, আশফল, লটকন, কদবেল, চালতা, বেদানা, জলপাই, লিচু, আম, জাফরান, বেল, পেয়ারা, জাম, আমড়া, করমচা,আমড়া, আমলকী, বকুল ফল, লেবু, পাম গাছসহ বিভিন্ন ঔষধী বৃক্ষ। সাথী ফসল হিসেবে রয়েছে নানা ধরনের সবজি। এগুলোর মধ্যে বেশি নজরে এসেছে মাল্টার ক্ষেত। তার সাজানো মাল্টার ক্ষেত ঘুরে দেখা যায় এ বছর প্রায় দেড় শতাধিক গাছে মাল্টা ধরে ঝুলে আছে। সবুজ রঙের মাল্টাগুলো পেকে হালকা হলুদ রঙ এসেছে।


রবিউল ইসলাম রবি জানান, ছোটবেলায় গ্রামের মানুষের ফলের বাগান দেখলে খুব ভালো লাগতো। তখন মনে হতো বড় হয়ে সুযোগ পেলে ফলের বাগান করবেন। যে বাগান দেখে অন্যরাও উদ্বুদ্ধ হবেন। লেখাপড়া শেষ করেছেন কয়েক বছর আগেই। চাকরী জোটেনি। তাই লেগে পড়েছেন তার আশানুরুপ কাজে। দুর-দুরন্ত থেকে বিভিন্ন মুল্যবান ফল,মসলা ও ঔষধি বৃক্ষের চারা এনে লাগিয়েছেন। এরমধ্যে বানিজ্যিকভাবে চাষ করেছেন মাল্টার। প্রতি পিচ মাল্টার কলমের চারা পার্শ্ববর্তী চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা এলাকার দক্ষিণবঙ্গের অভিজ্ঞ মাল্টাচাষী সাখাওয়াত হোসেনের নিকট থেকে ১৮০ টাকা দরে মোট ৮৫০ টি চারা কিনে ৬ বিঘা জমিতে ২০১৭ সালের জুনের মাঝামাঝি রোপন করেন। তিনি জানান, দেশী জাতের এ মাল্টা খেতে কড়া মিষ্টি এবং রসে ভরপুর। ফলে বাজারে এর চাহিদাও বেশি। তিনি বলেন, মাল্টাসহ তার ফলের বাগানে সারাবছরের জন্য কৃষি শ্রমিক রেখেছেন ৪ জন। তারা মাল্টাসহ সকল ফলের ক্ষেতে কাজ করে থাকেন। তিনি বলেন, এ এলাকায় তিনিই প্রথম মাল্টার চাষ করেছেন। তাই প্রথমদিকে এতো বড় ঝুঁকি নিতে ভয় পাচ্ছিলেন। কিন্ত লাগানোর কিছুদিনের মধ্যেই গাছগুলো সতেজ হয়ে উঠেছিল। এরপর থেকে লাভের স্বপ্ন দেখছিলেন। তিনি শুনেছেন গাছ লাগানোর কমপক্ষে ৫ বছর পরে একটি মাল্টাগাছ ফল ধরার জন্য পরিপূর্ণতা লাভ করে। ঠিকমত পরিচর্যা করতে পারলে প্রতিটি গাছ থেকে কমপক্ষে ২০ বছর ভালোভাবে ফল পাওয়া সম্ভব। সঠিক পরিচর্যার মাধ্যমে বাগানটি ২০ ধরে রাখতে পারলে যাবতীয় খরচ বাদে এখান থেকে কোটি টাকা আসবে বলে তিনি আশা করছেন।


শিক্ষিত এই যুবক জানান, অনাবৃষ্টির সময়ে গাছে সেচের ব্যবস্থা করতে হয়। আবার অতিবৃষ্টি হলে পানি নিষ্কাষনে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া লাগে। আবার গাছে অনেক সময় মাকড়সা লেগে গাছের পাতা কুকড়ে দেয়। গাছে ফল আসলে ভোমরা ,মাছিসহ বিভিন্ন পোকামাকড়ের উপদ্রব বেড়ে যায়। যে কারনে সারাক্ষেত ঘুরে সব সময় বাড়তি নজরদারি করতে হয়।


শিক্ষিত যুবক রবি আরো বলেন, একই সাথে লেখাপড়া শেষ করে বন্ধুরা অনেকে চাকরী করছে। আবার অনেকে বেকার বসে আছে। লেখাপড়া শিখে চাকরী জোটেনি বলে কখনও খারাপ লাগেনি। কেন না দেশে যত শিক্ষিত যুবক বেকার আছে ততটা কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা নেই। তাই বলে বসে থাকলে চলবে না। তার দৃষ্টিতে কোন কাজই ছোট নয়। বরং পরিশ্রমে কোন কিছু উৎপাদনের মাধ্যমে আত্মকর্মসংস্থান সৃষ্টি করতে পারলে নিজের মর্যাদা বাড়বে। এমন কি নিজের কাছেও ভালো অনুভব হয়। 


রবির ভাই আতাউর রহমান জানান, রবিউল ছোটবেলা থেকেই লেখাপড়ার পাশাপাশি বাড়িতে বিভিন্ন ধরনের গাছ লাগাতো। এরপর লেখাপড়া শেষ করে চাকরী হয়নি। বসে না থেকে বাড়ির পাশে যে ১৫-১৬ বিঘা জমি আছে সে সব সময় বিভিন্ন ধরনের মসলা, ঔষধি, সবজি ও ফলদবৃক্ষে সবটুকু জমি ছেয়ে ফেলেছে। ফসলী জমিতো তাই ,প্রথম দিকে তাকে পরিবারের পক্ষ থেকে বাধা দেয়া হয়েছে। কিন্ত ভালো করার কারনে এখন পরিবারের পক্ষ থেকে তাকে প্রতিনিয়ত উৎসাহ দেয়া হয়। পরিবারের সদস্যরা তাকে সহযোগীতা করছে।


কোলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান প্রতিবেশি আইয়ূব হোসেন জানান, শিক্ষিত যুবক রবিউল ইসলামের বাড়ি তার গ্রামেই। ছোটবেলা থেকেই সে উৎপাদনমূখী। সবচেয়ে বড় কথা সে পরিশ্রমী। তার ধৈয্য শক্তি অনেক বেশি। সে লেখাপড়া শিখেও চাকরীর পিছু না ঘুরে নিজে ফলদবৃক্ষের ভূবন গড়ে তুলেছেন। তার এমন উদ্যোগ দেখে এলাকার অনেক শিক্ষিত বেকার তাকে অনুসরন করতে শুরু করেছে। উৎপাদনে আত্বনিয়োগ করে যেভাবে সে সফল হয়েছে সে কারনে প্রশংসা পাওয়ারযোগ্য। তিনি বলেন, অন্য বেকার যুবকদের জন্য রবি হয়েছে প্রেরণা। 


কালীগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জাহিদুল করিম জানান, শিক্ষিত যুবক রবিউল ইসলাম রবি স্বকর্মসংস্তান সৃষ্টিতে চেষ্টা করে যাচ্ছেন। তিনি কয়েকবার তার ক্ষেত দেখতে গিয়েছেন। অত্যন্ত সৃজনশীল মনোভাবের মানুষ তিনি। তার বসতভিটের পাশের জমিতে অনেক ধরনের মসলাযুক্ত, ফলদ ও ঔষধী মূল্যবান বৃক্ষ রয়েছে। মাল্টা ক্ষেত থেকে তার লক্ষ্যনীয় লাভ আসবে। ঠিকমত পরিচর্যার করতে পারলে এ মাল্টা ক্ষেত থেকেই তার জীবনের অর্থনৈতিক চাকা ঘুরে যাবে বলে যোগ করেন এ কৃষিকর্মকর্তা।

সম্পর্কিত সংবাদ

ট্রেন্ডিং

মদনে বিয়ের দাবিতে বিষ হাতে নিয়ে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার  অনশন

মদনে বিয়ের দাবিতে বিষ হাতে নিয়ে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন

ঠাকুরগাঁওয়ে বাংলাদেশি যুবককে পিটিয়ে ও পাথর ছুড়ে হত্যা করলো ভারতীয় বিএসএফ!

ঠাকুরগাঁওয়ে বাংলাদেশি যুবককে পিটিয়ে ও পাথর ছুড়ে হত্যা করলো ভারতীয় বিএসএফ!

কুষ্টিয়ায় সাপের ছোবলেই সাপুড়ের মৃত্যু

কুষ্টিয়ায় সাপের ছোবলেই সাপুড়ের মৃত্যু

অবসর বড্ড বেমানান

অবসর বড্ড বেমানান

করোনা উপসর্গ নিয়ে রৌমারী থানা পুলিশ সদস্যের মৃত্যু!

করোনা উপসর্গ নিয়ে রৌমারী থানা পুলিশ সদস্যের মৃত্যু!

করোনায় সাবেক এমপি এটিএম আলমগীরের মৃত্যু

করোনায় সাবেক এমপি এটিএম আলমগীরের মৃত্যু

লাল পাহাড়ের সবুজ ক্যাম্পাস: শেখ শাকিল আহমেদ

লাল পাহাড়ের সবুজ ক্যাম্পাস: শেখ শাকিল আহমেদ

বাঙালি মেয়েদের কটাক্ষ, ক্ষুব্ধ নুসরাত

বাঙালি মেয়েদের কটাক্ষ, ক্ষুব্ধ নুসরাত

হেলিকপ্টারের জন্য রাজধানীতে তৈরি হচ্ছে একটি আলাদা বন্দর

হেলিকপ্টারের জন্য রাজধানীতে তৈরি হচ্ছে একটি আলাদা বন্দর

নিরাপদে পৃথিবীতে ফিরলেন দুই মহাকাশচারী

নিরাপদে পৃথিবীতে ফিরলেন দুই মহাকাশচারী

স্ত্রীকে নিয়ে দুই স্বামীর সংঘর্ষে প্রাণ গেল প্রথম স্বামীর

স্ত্রীকে নিয়ে দুই স্বামীর সংঘর্ষে প্রাণ গেল প্রথম স্বামীর

অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জের ধরে ২ যুবলীগ নেতা খুন

অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জের ধরে ২ যুবলীগ নেতা খুন

করোনায় যেমন কাটল পপির ঈদ

করোনায় যেমন কাটল পপির ঈদ

করোনায় করণীয়- সকল সাধারন মানুষের জেনে রাখা ভালো

করোনায় করণীয়- সকল সাধারন মানুষের জেনে রাখা ভালো

সাহিত্যাঙ্গনের উজ্জ্বল নক্ষত্র কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ

সাহিত্যাঙ্গনের উজ্জ্বল নক্ষত্র কবি মনিরউদ্দীন ইউসুফ

সর্বশেষ

পানিতে ডুবে তিন বোনের মৃত্যু

পানিতে ডুবে তিন বোনের মৃত্যু

কবিতা- খোয়াব

কবিতা- খোয়াব

অসীম ধৈর্য ও প্রজ্ঞাবান রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান

অসীম ধৈর্য ও প্রজ্ঞাবান রাষ্ট্রপতি মো. জিল্লুর রহমান

কুরবানির পশুর চামড়া কমলগঞ্জে অনেকেই মাটিতে পুতে ফেলেছেন

কুরবানির পশুর চামড়া কমলগঞ্জে অনেকেই মাটিতে পুতে ফেলেছেন

মৌলভীবাজারে গাড়ীর চাকায় পৃষ্ট হয়ে নারীর মৃত্যু

মৌলভীবাজারে গাড়ীর চাকায় পৃষ্ট হয়ে নারীর মৃত্যু

আজ কিংবদন্তি শিল্পী কিশোর কুমারের জন্মদিন

আজ কিংবদন্তি শিল্পী কিশোর কুমারের জন্মদিন

ছয় বছর বয়সী এক শিশুকে ধর্ষণ

ছয় বছর বয়সী এক শিশুকে ধর্ষণ

শারীরিক অক্ষমতা,অস্ত্রোপচার করে হাতে স্থাপিত যৌনাঙ্গ

শারীরিক অক্ষমতা,অস্ত্রোপচার করে হাতে স্থাপিত যৌনাঙ্গ

মৃদু তাপ প্রবাহ অব্যাহত থাকবে গরম

মৃদু তাপ প্রবাহ অব্যাহত থাকবে গরম

ব্যবসা না চাকুরী কোনটি চান?

ব্যবসা না চাকুরী কোনটি চান?

স্ত্রীকে নিয়ে দুই স্বামীর সংঘর্ষে প্রাণ গেল প্রথম স্বামীর

স্ত্রীকে নিয়ে দুই স্বামীর সংঘর্ষে প্রাণ গেল প্রথম স্বামীর

করোনায় সাবেক এমপি এটিএম আলমগীরের মৃত্যু

করোনায় সাবেক এমপি এটিএম আলমগীরের মৃত্যু

দৈনিক দেড় লক্ষ টাকা দিয়ে বেড বুক করে রাখছেন ভিআইপিরা

দৈনিক দেড় লক্ষ টাকা দিয়ে বেড বুক করে রাখছেন ভিআইপিরা

বিয়ের দাবিতে প্রমিকের বাড়ীর সামনে বিষ হাতে তরুনীর অনশন!

বিয়ের দাবিতে প্রমিকের বাড়ীর সামনে বিষ হাতে তরুনীর অনশন!

নড়াইলে সাংবাদিকদেরকে সহায়তা প্রদান করলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা

নড়াইলে সাংবাদিকদেরকে সহায়তা প্রদান করলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা