আরও...

পস্নাজমা থেরাপিতে ঝোঁক বাড়ছে, সতর্কতা জরুরি বিশেষজ্ঞদের অভিমত

পস্নাজমা থেরাপিতে ঝোঁক বাড়ছে, সতর্কতা জরুরি বিশেষজ্ঞদের অভিমত
June 20
06:39am 2020
Shahadat Hossain
Tejgoan, Dhaka, প্রতিনিধি:

আই নিউজ বিডি ডেস্ককোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসায় এই ভাইরাস সংক্রমণ থেকে সেরে ওঠা ব্যক্তিদের রক্তরস নিয়ে প্রয়োগে 'ভালো' ফল আসায় দিন দিন পস্নাজমা থেরাপির প্রতি ঝোঁক বাড়ছে; তবে কোন প্রক্রিয়া অনুসরণ করে তা দেওয়া হবে, সে বিষয়ে এখনও কোনো নীতিমালা তৈরি করতে পারেনি স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। কোভিড-১৯ মোকাবেলায় গঠিত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি 'ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল' ছাড়া পস্নাজমা থেরাপি দিতে বারণ করলেও হরদম তা প্রয়োগ করা হচ্ছে। কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসায় ডেডিকেটেড হাসপাতালগুলোতে নিয়মিত এই চিকিৎসা পদ্ধতির শরণ নেওয়া হচ্ছে। এদিকে দাতাদের কাছে পস্নাজমা চেয়ে রোগীর স্বজনদের আবেদন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রায়ই দেখা যাচ্ছে। নানা নামে গড়ে তোলা হয়েছে পস্নাজমা ব্যাংক।

বিভিন্ন হাসপাতালও পস্নাজমা সংগ্রহ ও রোগীদের উপর তা ব্যবহার করছে। চিকিৎসকদের ভাষ্য মতে, অনেক ক্ষেত্রেই পস্নাজমায় অ্যান্টিবডির পরিমাণ মাপা হচ্ছে না। পস্নাজমায় অ্যান্টিবডির পরিমাণ না জেনে এটি প্রয়োগ করলে ভালো ফল নাও আসতে পারে বলে সতর্ক করেছেন বিশেষজ্ঞরা। এই পরিস্থিতিতে পস্নাজমা ঘিরে নতুন অসাধু চক্রের উত্থান নিয়ে শঙ্কিত ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের হেমাটোলজি বিভাগের অধ্যাপক ডা. এম এ খান যত দ্রম্নত সম্ভব একে একটি নিয়ম-নীতির আওতায় আনা জরুরি বলে মনে করছেন। কোভিড-১৯ চিকিৎসায় পস্নাজমা থেরাপি যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশে প্রয়োগ হচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্রে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের পাশাপাশি সংকটাপন্ন রোগীদের উপর প্রয়োগের অনুমতিও দেওয়া হয়েছে।

তবে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের ফলাফলের উপর ভিত্তি করেই পস্নাজমা থেরাপির ব্যবহার হবে কিনা, সে সিদ্ধান্ত নেওয়ার পক্ষে বাংলাদেশে কোভিড-১৯ মোকাবেলায় গঠিত জাতীয় কারিগরি কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ শহীদ উলস্নাহ। তিনি বলেন, এর আগে এটা ব্যবহারের পরামর্শ দিচ্ছেন না তারা। তাদের বক্তব্য পরিষ্কার, পস্নাজমা থেরাপি এবং আরও কয়েকটা ওষুধের ব্যাপারে যারা দাবি করছে যতক্ষণ পর্যন্ত এটা গবেষণার মাধ্যমে প্রমাণিত না হবে, ততক্ষণ এগুলো প্রয়োগের বিষয়ে তাদের কোনো সুপারিশ নেই। তবে ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের বাইরে সীমিত আকারে এর প্রয়োগে কোনো সমস্যা দেখছেন না তিনি। অধ্যাপক শহীদ উলস্নাহ বলেন, 'যেহেতু একটা মহামারির সময়, এ কারণে অনেকে দিয়ে দেখতে চায়। আমেরিকার মতো দেশেও এটি ব্যবহার করে দেখছে হাইপোথেটিক্যালি।' তবে এখনও পস্নাজমা থেরাপি নিয়ে গাইডলাইন না থাকায় বিষয়টি নিয়ে অনেকে অনৈতিক সুযোগ নিতে পারেন বলে মনে করছেন ঢাকা মেডিকেলের অধ্যাপক ডা. এম এ খান। তিনি বুধবার বলেন, 'চাহিদা বেশি থাকবে, ডোনার কম থাকবে তখন তো সমস্যা হবেই। মানুষ টাকা দিয়ে কিনবে। এই সুযোগ নিতে চাইবে একটা পক্ষ।' ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের যে চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধানে পস্নাজমা থেরাপির ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল চলছে, তার নেতৃত্বে আছেন ডা. এম এ খান। তিনি বলেন, পরীক্ষামূলক প্রয়োগের বাইরে সীমিত আকারে পস্নাজমা থেরাপি প্রয়োগের জন্য গত ২০ মে 'এক্সপ্যান্ডেড অ্যাকসেস প্রোগ্রাম' শুরু করতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মাধ্যমে মন্ত্রণালয়ে সুপারিশ করেছিলেন তারা। তিনি আরও বলেন, 'ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের বাইরে এই প্রোগ্রামের আওতায় কিছু রোগীকে পস্নাজমা দেওয়া যায়। যেটা আমেরিকায় শুরু করেছে। এটা রোগীদের মধ্যে ব্যাপক আকারে দেওয়া হবে, কিন্তু নিয়ম-কানুন থাকবে, যারা দেবে তাদের একটা ডকুমেন্ট রাখতে হবে। কাকে দেওয়া যাবে সেটা ঠিক করে দেবেন চিকিৎসকরা।

' অধ্যাপক ডা. এম এ খান বলেন, পস্নাজমা প্রয়োগের আগে তাতে অ্যান্টিবডি কী পরিমাণ আছে তা জানা জরুরি। কিন্তু পরীক্ষাটি না করেই পস্নাজমা প্রয়োগ করছেন অনেকে। তিনি আরও বলেন, 'পস্নাজমায় অ্যান্টিবডির নূ্যনতম অনুপাত ১:১৬০। পস্নাজমায় এর বেশি অ্যান্টিবডি থাকলে সেটা দেওয়া যায়। কিন্তু অনেক ক্ষেত্রে অ্যান্টিবডি পরীক্ষাই করা হচ্ছে না। ব্যাপারটা ফার্মেসি থেকে ওষুধ দেওয়ার মতো হয়ে গেছে।' যেভাবে চলছে পস্নাজমা থেরাপি অনেক ক্ষেত্রেই বিনামূল্যে পস্নাজমা দান করছেন কোভিড-১৯ থেকে সেরে ওঠা ব্যক্তি। আবার কেউ কেউ টাকার বিনিময়ে পস্নাজমা দিচ্ছেন। কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন একজন রোগীর জন্য ৪০০ মিলিলিটার পস্নাজমা সংগ্রহ করেছেন তার স্বজনরা। তাদের একজন বলেন, একজন দাতা পস্নাজমা দিতে রাজি হওয়ার পর শ্যামলীর বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে পস্নাজমা সংগ্রহ করা হয়েছে। পরে কুর্মিটোলা হাসপাতালে এনে রোগীকে পস্নাজমা দেওয়া হয়েছে। আনোয়ার খান মডার্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আরেক রোগীর স্বজন জানান, তারা একজন দাতার কাছ থেকে এক ব্যাগ নেগেটিভ গ্রম্নপের রক্তের পস্নাজমা সংগ্রহ করেছেন। এজন্য দাতাকে 'কিছু টাকা' দিতে হয়েছে। তবে কত টাকা দিতে হয়েছে, তা বলতে রাজি হননি তিনি। বাংলাদেশ স্পেশালাইজড হাসপাতালে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এক ব্যাগ পস্নাজমা সংগ্রহ করে দিতে ওই হাসপাতালে ৩০ হাজার টাকা খরচ হয়। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগী ছাড়াও বাইরের রোগীদের জন্যও পস্নাজমা সংগ্রহ করে দেন তারা।

আল আমিন নামে সেখানকার একজন কর্মী বলেন, 'আপনি যদি বাইরে থেকে ডোনার আনেন সে ক্ষেত্রে আমরা পস্নাজমাটা করে দেব। বিল আসবে ৩৩ হাজার টাকার মতো।' পস্নাজমা সংগ্রহ করে দিলেও সেখানে পস্নাজমার অ্যান্টিবডি পরীক্ষার কোনো সুযোগ নেই বলে জানান তিনি। ইউনাইটেড হাসপাতালে শুধু ভর্তি রোগীদের পস্নাজমা থেরাপি দেওয়ার ব্যবস্থা আছে। হাসপাতালের হটলাইনে যোগাযোগ করলে বলা হয়, এক্ষেত্রে পস্নাজমা দাতাকে নিয়ে আসতে হবে।

৪০০ এমএল পস্নাজমা সংগ্রহ করে দিতে খরচ হবে ২৫ হাজার টাকা। পস্নাজমা দেওয়ার আগে অ্যান্টিবডি টেস্ট করা হয় না। এখন পর্যন্ত ২০টার মতো পস্নাজমা দেওয়া হয়েছে। রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন কোভিড-১৯ রোগীদেরও পস্নাজমা দেওয়া হচ্ছে। ওই হাসপাতালের পরিচালক ড. হাসান উল হায়দার বলেন, তারা সব ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেই পস্নাজমা সংগ্রহ ও প্রয়োগ করছেন। পুলিশ সদস্যদের বাইরেও অনেকের অনুরোধে পস্নাজমা সরবরাহ করা হচ্ছে। গাইডলাইন না থাকার পরও পস্নাজমা কেন দিচ্ছেন- এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে পস্নাজমা থেরাপি দেওয়া হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, 'বিভিন্ন স্টাডিতে আমরা দেখেছি যে, যদি ক্ষতি না হয় রোগীর কিছুটা উপকার হয় তাহলে এটি দিতে সমস্যা নেই। গাইডলাইনে এখন অনেক চিকিৎসার কথাই বলা নেই। কিন্তু রোগীকে তো ফেলে রাখা যাবে না।

বাংলাদেশে যেহেতু এর প্রয়োগ হচ্ছে এ কারণে অবশ্যই একটা নীতিমালা করা উচিত।' গাইডলাইন হচ্ছে কিনা- জানতে চাইলে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (বদলির আগে) হাবিবুর রহমান খান বুধবার জানান, এ ধরনের একটি প্রস্তাব মন্ত্রণালয়ে এসেছিল। এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে তারা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরকে বলেছেন। এটা একটা কারিগরি ব্যাপার। এখানে মন্ত্রণালয়ের কিছু করার নেই। এটা অনুমোদন বা যা-ই হোক স্বাস্থ্য অধিদপ্তরই করতে পারে। এজন্য তারা প্রপোজালটা সেখানে পাঠিয়ে দিয়েছেন। এ বিষয়ে জানতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (হাসপাতাল) আমিনুল হাসানের মোবাইলে একাধিকবার ফোন করলেও তিনি ধরেননি। বিষয়টি নিয়ে কথা বলার জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদের মোবাইলে ফোন করেও তার সাড়া পাওয়া যায়নি।

Report this news

সম্পর্কিত সংবাদ

ট্রেন্ডিং

মদনে স্ত্রীর পরকীয়ায় স্বামীর আত্মহত্যা, আটক- ৩

মদনে স্ত্রীর পরকীয়ায় স্বামীর আত্মহত্যা, আটক- ৩

নৌকায় সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে পালাচ্ছিল সাহেদ

নৌকায় সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে পালাচ্ছিল সাহেদ

পটুয়াখালী জেলা প্রশাসকের প্রস্তাব : বিচ্ছিন্ন রাঙ্গাবালী নৌ-রুটে ফেরীর সার্ভিস প্রদান

পটুয়াখালী জেলা প্রশাসকের প্রস্তাব : বিচ্ছিন্ন রাঙ্গাবালী নৌ-রুটে ফেরীর সার্ভিস প্রদান

গ্রেফতারের পর পাবলিকের গণধোলাই থেকে বেচে যান সাহেদ!

গ্রেফতারের পর পাবলিকের গণধোলাই থেকে বেচে যান সাহেদ!

দ্বিতীয় দিনের রিমান্ড শেষে যা বললেন সাবরিনা

দ্বিতীয় দিনের রিমান্ড শেষে যা বললেন সাবরিনা

কালীগঞ্জে ইউনিলিভার ডিপোতে আবারো চুরি!

কালীগঞ্জে ইউনিলিভার ডিপোতে আবারো চুরি!

যা পাওয়া গেলো শাহেদের উত্তরার বাসায়!

যা পাওয়া গেলো শাহেদের উত্তরার বাসায়!

বগুড়া-১ উপনির্বাচনে সাহাদারা মান্নান বেসরকারিভাবে নির্বাচিত

বগুড়া-১ উপনির্বাচনে সাহাদারা মান্নান বেসরকারিভাবে নির্বাচিত

যশোরে নৌকার বিপুল ভোটে জয়

যশোরে নৌকার বিপুল ভোটে জয়

মৌলভীবাজারে বিয়ের ৫ দিনের মাথায় এক পুলিশ সদস্যের মৃত্যু!

মৌলভীবাজারে বিয়ের ৫ দিনের মাথায় এক পুলিশ সদস্যের মৃত্যু!

অবশেষে বহুলালোচিত রিজেন্ট শাহেদকে সাতক্ষীরার সীমান্ত থেকে অস্ত্রসহ আটক করেছে র‍্যাব

অবশেষে বহুলালোচিত রিজেন্ট শাহেদকে সাতক্ষীরার সীমান্ত থেকে অস্ত্রসহ আটক করেছে র‍্যাব

বাংলাদেশ র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যটালিয়ন (র‌্যাব) এর জালে শেষ মূহুর্তে আটকা পড়লেন  শাহেদ

বাংলাদেশ র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যটালিয়ন (র‌্যাব) এর জালে শেষ মূহুর্তে আটকা পড়লেন শাহেদ

চট্টগ্রামে এক হাফেজ স্বর্ণের পাতিল পাইয়ে দিবে বলে এক নারীর কাছ থেকে ৬৫ লাখ টাকা আত্মসাত

চট্টগ্রামে এক হাফেজ স্বর্ণের পাতিল পাইয়ে দিবে বলে এক নারীর কাছ থেকে ৬৫ লাখ টাকা আত্মসাত

তিনটি বাদে সব আন্তর্জাতিক রুটে ৩১ জুলাই পর্যন্ত বিমানের ফ্লাইট বন্ধ

তিনটি বাদে সব আন্তর্জাতিক রুটে ৩১ জুলাই পর্যন্ত বিমানের ফ্লাইট বন্ধ

নেত্রকোণা বঙ্গবন্ধু ছাত্র-একতা পরিষদ কমিটি অনুমোদন

নেত্রকোণা বঙ্গবন্ধু ছাত্র-একতা পরিষদ কমিটি অনুমোদন

সর্বশেষ

পশুর চামড়া নিয়ে চাঁদাবাজি বরদাশত করা হবে না : আইজিপি

পশুর চামড়া নিয়ে চাঁদাবাজি বরদাশত করা হবে না : আইজিপি

যেসব অভিযোগে জায়েদ খানকে বয়কট করা হলো

যেসব অভিযোগে জায়েদ খানকে বয়কট করা হলো

জাতির উন্নয়নের জন্য প্রয়োজন আদর্শবান রাজনীতিবিদ

জাতির উন্নয়নের জন্য প্রয়োজন আদর্শবান রাজনীতিবিদ

রুপালী ইলিশ নিয়ে কিছু কথা

রুপালী ইলিশ নিয়ে কিছু কথা

সিসিমপুরের গল্প নিয়ে রঙবেরঙের গল্প

সিসিমপুরের গল্প নিয়ে রঙবেরঙের গল্প

করোনায় চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদকের মৃত্যু

করোনায় চুয়াডাঙ্গা জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদকের মৃত্যু

সিএমপির ৩ থানার ওসি রদবদল

সিএমপির ৩ থানার ওসি রদবদল

করোনায় আক্রান্ত চলচ্চিত্র নির্মাতা মাসুদ হাসান উজ্জ্বল

করোনায় আক্রান্ত চলচ্চিত্র নির্মাতা মাসুদ হাসান উজ্জ্বল

রামগঞ্জ পৌরসভার এরশাদ হোসেন সড়ক রাস্তার বেহাল দশা, দুর্ভোগ স্থানীয়দের

রামগঞ্জ পৌরসভার এরশাদ হোসেন সড়ক রাস্তার বেহাল দশা, দুর্ভোগ স্থানীয়দের

'গরু দিতে না পারায় আমার সদস্যপদ বাতিল করেছে জায়েদ খান'

'গরু দিতে না পারায় আমার সদস্যপদ বাতিল করেছে জায়েদ খান'

চট্টগ্রাম বন্দরের ৩ নম্বর শেডে আগুন তদন্তে কমিটি

চট্টগ্রাম বন্দরের ৩ নম্বর শেডে আগুন তদন্তে কমিটি

গুইমারায় মোটর সাইকেল দূর্ঘটনায় এক যুবকের মৃত্যু ,আহত আরো দুজন

গুইমারায় মোটর সাইকেল দূর্ঘটনায় এক যুবকের মৃত্যু ,আহত আরো দুজন

চট্টগ্রামের বাঁশখালী বাহারছড়ায় বৃক্ষরোপন কর্মসুচী পালন

চট্টগ্রামের বাঁশখালী বাহারছড়ায় বৃক্ষরোপন কর্মসুচী পালন

সাহেদরা হয়তো গ্যাংস্টার নয় কিন্তু রক্তচোষা

সাহেদরা হয়তো গ্যাংস্টার নয় কিন্তু রক্তচোষা

জীবন উন্নয়নের অভ্যাসগুলো

জীবন উন্নয়নের অভ্যাসগুলো