আরও...

শেখ হাসিনা কি বেশি ঝুঁকি নিলেন?

শেখ হাসিনা কি বেশি ঝুঁকি নিলেন?
May 28
09:01pm 2020

আই নিউজ বিডি ডেস্ক

আই নিউজ বিডি ডেস্ককরোনার সঙ্গে বসবাস এবং করোনাকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে বেঁচে থাকার সিদ্ধান্তটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনারই। প্রধানমন্ত্রী একজন দুরদর্শী রাজনীতিবিদ। তিনি শুধু দেশের নেতা নন, বিশ্বনেতাও বটে। কাজেই তিনি নিশ্চয়ই সবকিছু ভেবেচিন্তে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছেন এবং জীবন-জীবিকার দোটানার মধ্যে তিনি জীবিকাকেই বেঁছে নিয়েছেন।অবশ্য প্রধানমন্ত্রী যে, করোনাকে অস্বীকার করে সবকিছু স্বাভাবিক করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন ব্যাপারটি তেমন নয়। বরং তিনি ‘আপনার সুরক্ষা আপনার হাতে’- এই নীতিতে জনগণকে কিছু দায়িত্ব দিয়েছেন। জনগণের বেঁচে থাকার জন্য যেমন তাঁর অর্থনৈতিক গতি দরকার, কাজ দরকার, দিনের পর দিন যেমন তাঁর ঘরে বসে থাকা সম্ভব নয়, তেমনি তাঁর নিজের সুরক্ষাও তাঁর নিজের। আর এজন্য শেখ হাসিনা সবকিছু খুলে দেওয়ার একটি নতুন মডেল উপস্থাপন করেছেন জাতির সামনে। আর এই মডেল সফল করার ক্ষেত্রে শুধুমাত্র সরকারের ভূমিকা নয়, জনগণের ভূমিকাও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আমরা জানি যে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একটি শান্তির দর্শন রয়েছে যেটা জনগণের ক্ষমতায়ন। এই জনগণের ক্ষমতায়ন সর্বসম্মতিক্রমে জাতির সামনে গৃহীত হয়েছিল।

আমরা যদি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জীবন বিশ্লেষণ করি তাহলে দেখা যাবে যে, তিনি জনগণকে সঙ্গে নিয়েই সবকিছু করেছেন। এবারও যে সবকিছু খুলে দেওয়ার সিদ্ধান্ত তাতে একটি বড় অনুষঙ্গ জনগণ। কারণ জনগণ যদি সচেতন থাকে, জনগণ যদি সঠিকভাবে তাঁদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলে, নিজেদের সুরক্ষার বিষয়টা যদি প্রতিপালন করে তাহলে হয়তো বাংলাদেশে করোনা যে তাণ্ডব, সেই তাণ্ডব থেকে আমরা ঘুরে দাঁড়াতে পারবো এবং স্বাভাবিক জীবনে থেকেও করোনা আমাদের জন্য বড় ধরণের কোন হুমকি তৈরি করতে পারবে না। আর যদি আমরা স্বাস্থ্যবিধি না মানি, আমরা যদি নিজেদের সুরক্ষার ব্যবস্থা নিজেরাই না করি, আমরা যদি সচেতন না থাকি তাহলে বাংলাদেশের জন্য বড় সঙ্কট অপেক্ষা করছে। কাজেই শেখ হাসিনা এই সিদ্ধান্তের মাধ্যমে কার্যত জনগণের হাতেই ক্ষমতা তুলে দিলেন এবং জনগণকেই তাঁর সিদ্ধান্ত গ্রহণের কেন্দ্রবিন্দুতে আনলেন এবং এর ফলে প্রশ্ন উঠেছে যে, শেখ হাসিনা কি বেশি ঝুঁকি নিলেন? সরকারের পক্ষ থেকে আজ যে প্রজ্ঞাপনটি জারি করা হয়েছে, তাতে স্বাস্থ্যবিধি মানার করণীয় ব্যাপারগুলো উল্লেখ করা হয়েছে। প্রশ্ন হলো যে, এই কাজগুলো করতে হবে জনগণকে। জনগণ এই কাজগুলো করার জন্য কতটা প্রস্তুত, কতটা দায়িত্ববান, কতটা সচেতন? আমরা এর আগেও দেখেছি যে গত ২৬শে মার্চ যখন সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হলো তখন আমরা দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেইনি, আমরা সচেতনতার পরিচয় দেইনি। বরং এই ছুটিকে আমরা এক ধরণের বিনোদন হিসেবে গ্রহণ করেছি। আমরা বাজারে গেছি, কেনাকাটা করেছি, ব্যাংকে গিয়েছি, এখানে-সেখানে ঘোরাঘুরি করেছি। এখন আমরা যখন দ্বিতীয় পর্যায়ে গেলাম, যখন সরকার সবকিছু খুলে দিল, তখন আমরা কতটুকু দায়িত্বশীলতার পরিচয় দিতে পারবো সেটাই দেখার বিষয়।

সরকার জনগণের উপর এতবড় দায়িত্ব দিয়ে কি বেশি ঝুঁকি নিয়ে ফেললো? কারণ জনগন যদি দায়িত্বশীল- সচেতন না হয়, স্বাস্থ্যবিধি না মানে তাহলে মন্ত্রীপরিষদ বিভাগের যে প্রজ্ঞাপন তা ব্যার্থ হেতে বাধ্য। সামাজিক সংক্রমণ দ্রুত বেড়ে যেতে বাধ্য। আর আমরা যদি সচেতন থাকি, দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেই, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলি তাহলে করোনা আমাদের খুব বড় ধরণের সমস্যা তৈরী করবে না বলেই মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। সেই জন্যই শেখ হাসিনা প্রত্যেকটি মানুষকে দায়িত্ববান করলেন, প্রত্যেকটি মানুষের হাতে দেশের সুরক্ষার দায়িত্ব তুলে দিলেন, এটি কি তিনি ঝুঁকি নিয়ে ফেললেন? বিশেষ করে বাংলাদেশের মতো দেশে, যেখানে মানুষ এখনো সচেতন নয়, যে দেশের মানুষ এখনো করোনার মহামারি কতটা ভয়ঙ্কর সে সম্পর্কে জানে না।

আমরা লক্ষ্য করেছি যে, এই করোনার শুরু থেকেই শেখ হাসিনা কঠিন কঠোর পথে যাননি। তিনি অন্যান্য দেশগুলোর মতো কারফিউ-লক ডাউন করেননি, তিনি পুলিশ দিয়ে পিটিয়ে মানুষকে ঘরে তোলার পদ্বতি গ্রহণ করেননি। তার প্রতিটি পদক্ষেপের দুটি দিক ছিলো; একটি হলো, জনগন নিজেরা বুঝে কাজটি করুক। দ্বিতীয়, মানুষের যেন রুটি রুজির পথ বন্ধ না হয়ে যায় সেদিকে খেয়াল রাখা। এটি করতে গিয়ে সম্ভবত শেখ হাসিনা এই ঝুঁকিটি নিয়েছেন।

শেখ হাসিনা যে সিদ্ধান্তটা নিয়েছেন সেটা সফল করা একা সরকারের কাজ না। একা সরকারের পক্ষে সম্ভবও না। এই সিদ্ধান্তটি একটি পার্টনারশিপ। যেখানে জনগন এবং সরকারের যৌথ অংশগ্রহণ প্রয়োজন। সরকার তার কাজ করলেও জনগণ যদি তার কাজটুকু না করে, স্বাস্থ্যবিধি না মানে, মাস্ক ব্যবহার না করে নিজের সুরক্ষা না করে- তাহলে যে কোন অঘটন ঘটতে পারে। কাজেই জনগনের সঙ্গে যৌথভাবে দায়িত্ব বন্টনের যে সিদ্ধান্তটি নেওয়া হলো, তা কি বেশি ঝুঁকি হলো না? শেখ হাসিনা কি বেশি ঝুঁকি নিয়ে ফেললেন না? এই প্রশ্ন উঠতেই পারে।

সম্পর্কিত সংবাদ

ট্রেন্ডিং

লোহাগাড়ায় মাদ্রাসা ছাত্রী অপহৃত নাকি নিখোঁজ? থানায় অভিযোগ

লোহাগাড়ায় মাদ্রাসা ছাত্রী অপহৃত নাকি নিখোঁজ? থানায় অভিযোগ

হাজতে সাবরিনার রাত কাটে যেভাবে

হাজতে সাবরিনার রাত কাটে যেভাবে

কেন্দুয়া পুকুর থেকে বৃদ্ধের মারাদেহ উদ্ধার

কেন্দুয়া পুকুর থেকে বৃদ্ধের মারাদেহ উদ্ধার

আরিফের চতুর্থ স্ত্রী সাবরিনা, রূপকথার মতো তাদের দাম্পত্য জীবন

আরিফের চতুর্থ স্ত্রী সাবরিনা, রূপকথার মতো তাদের দাম্পত্য জীবন

প্রতারক সাহেদের সিলেট কানেকশন

প্রতারক সাহেদের সিলেট কানেকশন

মাষ্টার্স শেষ করে মাল্টা চাষে রবিউল সফল

মাষ্টার্স শেষ করে মাল্টা চাষে রবিউল সফল

তিস্তার পানিপ্রবাহ সর্বকালের রেকড ভেঙ্গে বিপদসীমার ৫২ সে.মি. ওপরে

তিস্তার পানিপ্রবাহ সর্বকালের রেকড ভেঙ্গে বিপদসীমার ৫২ সে.মি. ওপরে

যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান আর নেই।

যমুনা গ্রুপের চেয়ারম্যান আর নেই।

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে ফরম জমা দিলেন ফরহাদ

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি পদে ফরম জমা দিলেন ফরহাদ

যশোর রাজ্যের প্রতিষ্ঠা ও  নামকরণের ইতিহাস

যশোর রাজ্যের প্রতিষ্ঠা ও নামকরণের ইতিহাস

শিশু নির্যাতনকারীদের বিচারের দাবিতে মেহেরপুরসহ সারাদেশে  একযোগে প্রধানমন্ত্রীর কাছে এনসিটিএফ'র স্মারকলিপি প্রদান

শিশু নির্যাতনকারীদের বিচারের দাবিতে মেহেরপুরসহ সারাদেশে একযোগে প্রধানমন্ত্রীর কাছে এনসিটিএফ'র স্মারকলিপি প্রদান

ডা. সাবরিনা তিন দিনের রিমান্ডে

ডা. সাবরিনা তিন দিনের রিমান্ডে

ঈদুল আজহার নামাজও মসজিদে

ঈদুল আজহার নামাজও মসজিদে

কুড়িগ্রামে দ্বিতীয় দফা বন্যায় ঝড়ছে বানভাসীদের চোখের জল

কুড়িগ্রামে দ্বিতীয় দফা বন্যায় ঝড়ছে বানভাসীদের চোখের জল

কুড়িগ্রামে ফের বন্যার হানা পানিবন্দী লক্ষাধিক মানুষ

কুড়িগ্রামে ফের বন্যার হানা পানিবন্দী লক্ষাধিক মানুষ

সর্বশেষ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও অসাম্প্রদায়িকতার লড়াই

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও অসাম্প্রদায়িকতার লড়াই

কুয়েতে বাংলাদেশের নতুন রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল মো. আশিকুজ্জামান

কুয়েতে বাংলাদেশের নতুন রাষ্ট্রদূত মেজর জেনারেল মো. আশিকুজ্জামান

আপিল বিভাগে ভার্চুয়ালি শুনানী শুরু

আপিল বিভাগে ভার্চুয়ালি শুনানী শুরু

চলতি সপ্তাহের মধ্যে সংবাদকর্মীদের বকেয়া বেতন ও উৎসব ভাতা পরিশোধের আহবান ডিইউজের

চলতি সপ্তাহের মধ্যে সংবাদকর্মীদের বকেয়া বেতন ও উৎসব ভাতা পরিশোধের আহবান ডিইউজের

জেকেজি ও রিজেন্টের দুর্নীতি সরকারই উদঘাটন করে ব্যবস্থা নিয়েছে : তথ্যমন্ত্রী

জেকেজি ও রিজেন্টের দুর্নীতি সরকারই উদঘাটন করে ব্যবস্থা নিয়েছে : তথ্যমন্ত্রী

যশোর-৬ ও বগুড়া-১ আসনের উপনির্বাচনের ভোট কাল

যশোর-৬ ও বগুড়া-১ আসনের উপনির্বাচনের ভোট কাল

৭ মার্চ জাতীয় ঐতিহাসিক দিবস হিসেবে উদযাপনের সিদ্ধান্ত

৭ মার্চ জাতীয় ঐতিহাসিক দিবস হিসেবে উদযাপনের সিদ্ধান্ত

চার সূচকেই পিছিয়ে বাংলাদেশ

চার সূচকেই পিছিয়ে বাংলাদেশ

কুষ্টিয়ায় এলজিএসপি-৩ এর আওতায় ইউপি চেয়ারম্যান ও সচিবগণের পরিবেশ ও সামাজিক সুরক্ষা বিষয়ে বিশেষ প্রশিক্ষণ

কুষ্টিয়ায় এলজিএসপি-৩ এর আওতায় ইউপি চেয়ারম্যান ও সচিবগণের পরিবেশ ও সামাজিক সুরক্ষা বিষয়ে বিশেষ প্রশিক্ষণ

আগামীকাল বগুড়া ও যশোরে উপনির্বাচন হতে যাচ্ছে।

আগামীকাল বগুড়া ও যশোরে উপনির্বাচন হতে যাচ্ছে।

নীতি কে না বলুন

নীতি কে না বলুন

সরকারি কাজ পাওয়ার পেছনে রাজনৈতিক প্রভাব কতটা

সরকারি কাজ পাওয়ার পেছনে রাজনৈতিক প্রভাব কতটা

কুুড়িগ্রামে শিশুর প্রতি সহিংসতা এবং নির্যাতনের ঘটনায় উৎকন্ঠা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বরাবর এনসিটিএফ’র স্মারকলিপি প্রদান

কুুড়িগ্রামে শিশুর প্রতি সহিংসতা এবং নির্যাতনের ঘটনায় উৎকন্ঠা জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বরাবর এনসিটিএফ’র স্মারকলিপি প্রদান

শিক্ষার প্রসারে বর্তমান সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন

শিক্ষার প্রসারে বর্তমান সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন

বাংলাদেশ অর্থনীতি অঞ্চলের গভর্নিং বোর্ডের সদস্য  হলেন  মৌলভীবাজারের মোঃ কামাল হোসেন

বাংলাদেশ অর্থনীতি অঞ্চলের গভর্নিং বোর্ডের সদস্য হলেন মৌলভীবাজারের মোঃ কামাল হোসেন