ধর্ম ও শিক্ষা

ইমাম সাহেবের ডাক...

ইমাম সাহেবের ডাক...
February 10
01:32pm 2020

আমি নোয়াখালী জেলার কোন একটা থানার গ্রামের মসজিদের ইমাম। বহুদিন আগে ফেসবুকে একটা পোষ্ট পড়েছিলাম বাচ্চাদের মসজিদে নিয়ে আসার বিষয়ে। সেই পোস্ট পড়ার পর আমিও চিন্তা করেছিলাম বাচ্চাদের মসজিদে নিয়ে আসার জন্য কিছু একটা করার। তারপর আমি মসজিদে জুমার নামাজে ঘোষণা করলাম, ১২ বছরের নীচে যত বাচ্চারা মসজিদে আসবে প্রত্যেক ওয়াক্তে আমার পক্ষ থেকে ২ পিচ করে চকলেট পাবে। আর আমি চকলেট দেয়ার সময় লিখে রাখবো, যে যত বেশি চকলেট পাবে সপ্তাহের শেষ দিন বৃহস্পতিবার এশার নামাজের পরে তাকে বিশেষভাবে পুরস্কৃত করা হবে।
আমি যখন এই ঘোষণা দিয়েছিলাম, তখন ভেবেছি এতে ওতো একটা আহামরি সাড়া পাবো না। কিন্তু আল্লাহতালার ইচ্ছা অপরিসীম। এক সপ্তাহ দুই সপ্তাহ যেতে না যেতেই গড়ে ১০ থেকে ২০ জন বাচ্চা প্রতিনিয়ত মসজিদে আসা শুরু করলো। প্রথম সপ্তাহে সবচেয়ে বেশি ৫৮টি চকলেট পেয়েছিল ৮ বছরের সালেহ নামে একটা ছেলে, তাকে পুরস্কৃত করেছিলাম শুধুমাত্র একটা জ্যামিতি বক্স দিয়ে। আমি বাচ্চাদের বলে দিয়েছিলাম বাচ্চারা শুধু মসজিদে নামাজ পড়তে আসবে না, তারা মসজিদে আসবে খেলবে, দৌড়াদৌড়ি করবে, হাসাহাসি করবে। আর এতেই কিছু মুরুব্বীদের গা জ্বালা শুরু হয়ে গেল। তারা যেমন বাচ্চাগুলোর উপর ক্ষিপ্ত হল, তেমনি ক্ষিপ্ত হল আমার উপরেও। আমি সোজাসুজি বলে দিলাম দরকার হলে আমি শুধু বাচ্চাদের ইমামতি করবো, আপনারা অন্য মসজিদ দেখতে পারেন। কারণ আমি এই এলাকারই সন্তান। আমি জানি, পরবর্তী প্রজন্ম নামাজি না হলে কি ভয়ঙ্কর হবে এলাকার পরিস্থিতি! আমার বড় শক্তি ছিল আমার কমিটির অধিকাংশ লোকজন আমার এই আয়োজনে সঙ্গী ছিল। কিন্তু দায় সাধলো এত চকলেট দেয়ার সাধ্য আমার ছিলনা, প্রতিদিন প্রায় ৬০ থেকে ৭০ পিস চকলেট গড়ে লাগতো। আমার মসজিদের কমিটিতে কিছু যুবক ভাইয়েরা ছিল। আমি তাদের সাথে আলোচনা করলাম। দুজন ভাই আমার সাথে একাত্মতা পোষণ করল এবং তারা চকলেটের সম্পূর্ণ খরচ বহন করবে বলে আমাকে আশ্বস্ত করল। পরের সপ্তাহে সবচেয়ে বেশি চকলেট পেয়েছিল ৬ বছরের একটা মেয়ে, অবাক করার মত বিষয়! তার বাবা সব সময় তাকে নিয়ে আসতেন মসজিদে। তাকে পুরস্কৃত করা হয়েছিল একটা ভালোমানের অ্যালার্ম ঘড়ি দিয়ে। বোন আমার, মসজিদে এখন গড়ে প্রতিদিন ২০ থেকে ৩০ জন বাচ্চা উপস্থিত হয়। আমার সামনের কাতারের অধিকাংশ মুসুল্লি বাচ্চারা থাকে, প্রথমদিকে যেরকম হাসাহাসি দৌড়াদৌড়ি হতো এখন আর ওরকম হয় না। তারা এখন চুপচাপ দাঁড়িয়ে নামাজ আদায় করে। বাচ্চাদের এখন শুধু চকলেট দেয়া হয়না, আমার কমিটির লোকজনরা অনেক ভাল কিছু দেয়ার চেষ্টা করে। মাঝে মাঝে বিস্কুট দেয়া হচ্ছে, মাঝে মাঝে কলম দেয়া হচ্ছে, বিভিন্ন জিনিস বিভিন্ন জায়গা থেকে বিভিন্ন লোকজন দিচ্ছেন। সবশেষে সউদী প্রবাসী এক ভাই ফোন করে জানিয়েছেন, পরের সপ্তাহে সবচেয়ে বেশি যে চকলেট পাবে তাকে একটা বাইসাইকেল দেয়া হবে!! আমার মসজিদে এখন বাচ্চাদের অভাব নেই, যদি পিছনে বাচ্চারা হাসাহাসিও করে তাহলে এখন আর আমার মসজিদে কোন মুরুব্বী মুসল্লি বাচ্চাদের সাথে দুর্ব্যবহার করে না। তাদের মসজিদ থেকে তাড়িয়ে দেয়া হয় না। আমার মসজিদের অধিকাংশ মুসল্লী বাচ্চাদের প্রচন্ড ভালোবাসে, আসলে তাদের সাথে সুন্দর আচরণ করে। আপনিও শুরু করতে পারেন আপনার এলাকার মসজিদে এমন একটি সুন্দর উদ্যোগ...

সম্পর্কিত সংবাদ

সর্বাধিক পঠিত

৬৫ মণের ‘বাংলার বস’র দাম ৫০ লাখ টাকা!

৬৫ মণের ‘বাংলার বস’র দাম ৫০ লাখ টাকা!

ধর্ষককে বাঁচাতে গুজরাট নারী পুলিশ অফিসারের কাণ্ড

ধর্ষককে বাঁচাতে গুজরাট নারী পুলিশ অফিসারের কাণ্ড

সৌদি আরবে একদিনে করোনায় রেকর্ডসংখ্যক মৃত্যু

সৌদি আরবে একদিনে করোনায় রেকর্ডসংখ্যক মৃত্যু

চাকরি হারাচ্ছেন বিমান ও কাস্টমসের ১০ কর্মকর্তা

চাকরি হারাচ্ছেন বিমান ও কাস্টমসের ১০ কর্মকর্তা

প্রবাসীদের জন্য সুখবর: বিনামূল্যে ভিসার মেয়াদ বাড়ানোর ঘোষণা সৌদির

প্রবাসীদের জন্য সুখবর: বিনামূল্যে ভিসার মেয়াদ বাড়ানোর ঘোষণা সৌদির

করোনায় ১ দিনে আক্রান্তের নতুন রেকর্ড

করোনায় ১ দিনে আক্রান্তের নতুন রেকর্ড

বিদায় নেবে না করোনা, আক্রান্ত হবে ৬০ কোটি ও মৃত্যু ৩৭ লাখ!

বিদায় নেবে না করোনা, আক্রান্ত হবে ৬০ কোটি ও মৃত্যু ৩৭ লাখ!

করোনার মধ্যেই আমেরিকায় ভয়ঙ্কর ‘মগজ খেকো’ অ্যামিবার সন্ধান, চরম আতঙ্ক

করোনার মধ্যেই আমেরিকায় ভয়ঙ্কর ‘মগজ খেকো’ অ্যামিবার সন্ধান, চরম আতঙ্ক

সংগীতশিল্পী এন্ড্রু কিশোরের শারীরিক অবস্থার অবনতি

সংগীতশিল্পী এন্ড্রু কিশোরের শারীরিক অবস্থার অবনতি

করোনায় দেশে ফেরা ২ লাখ অভিবাসী শ্রমিকের জীবন অনিশ্চয়তায়

করোনায় দেশে ফেরা ২ লাখ অভিবাসী শ্রমিকের জীবন অনিশ্চয়তায়

বিদ্যুৎ বিল কমানোর কার্যকর উপায়

বিদ্যুৎ বিল কমানোর কার্যকর উপায়

ভালুকায় ৫ বছরের ভাগনিকে হত্যার পর ঘরে তালা মামার

ভালুকায় ৫ বছরের ভাগনিকে হত্যার পর ঘরে তালা মামার

চীনের সঙ্গে লড়তে প্রস্তুত ভারত, সীমান্তে হাজির করল সমস্ত যুদ্ধবিমান

চীনের সঙ্গে লড়তে প্রস্তুত ভারত, সীমান্তে হাজির করল সমস্ত যুদ্ধবিমান

বিএনপির ৫৯২ সদস্যের কেন্দ্রীয় কমিটির কোন নেতা জেলে: ফখরুলকে কাদের

বিএনপির ৫৯২ সদস্যের কেন্দ্রীয় কমিটির কোন নেতা জেলে: ফখরুলকে কাদের

অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন কয়েক বছর করোনা প্রতিরোধ করবে, দাবি প্রধান গবেষকের

অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন কয়েক বছর করোনা প্রতিরোধ করবে, দাবি প্রধান গবেষকের

সর্বশেষ

ফরিদপুরের চরভদ্রাসনে বন্যা কবলিত ২৭৫ পরিবার পেল জরুরী ত্রাণ

ফরিদপুরের চরভদ্রাসনে বন্যা কবলিত ২৭৫ পরিবার পেল জরুরী ত্রাণ

প্রবাসীদের তিন মাস ভিসার মেয়াদ বাড়ালো সৌদি সরকার

প্রবাসীদের তিন মাস ভিসার মেয়াদ বাড়ালো সৌদি সরকার

লন্ডন ব্যতীত সব আন্তর্জাতিক রুটে ফ্লাইট বাতিল বিমানের

লন্ডন ব্যতীত সব আন্তর্জাতিক রুটে ফ্লাইট বাতিল বিমানের

সিলেট অঞ্চলের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ঝুকিপূর্ণ সিলেট জেলা

সিলেট অঞ্চলের মধ্যে সবচেয়ে বেশি ঝুকিপূর্ণ সিলেট জেলা

সাতক্ষীরা সদর উপজেলা পরিষদের মাসিক সভা অনুষ্ঠিত

সাতক্ষীরা সদর উপজেলা পরিষদের মাসিক সভা অনুষ্ঠিত

হিলিতে বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে চেক হস্তান্তর

হিলিতে বিভিন্ন ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে চেক হস্তান্তর

করোনা ভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার জন্য সাতক্ষীরায় পিসিআর ল্যাব স্থাপানের দাবিতে মানববন্ধন

করোনা ভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার জন্য সাতক্ষীরায় পিসিআর ল্যাব স্থাপানের দাবিতে মানববন্ধন

বাঘায় বিশ্রাম নিতে গিয়ে মারা গেলেন ব্যবসায়ী

বাঘায় বিশ্রাম নিতে গিয়ে মারা গেলেন ব্যবসায়ী

এবার পাকিস্তানের স্বাস্থ্যমন্ত্রী করোনায় আক্রান্ত

এবার পাকিস্তানের স্বাস্থ্যমন্ত্রী করোনায় আক্রান্ত

কানাডায় বাংলাদেশি শিক্ষার্থী নয়নের রহস্যজনক মৃত্যু

কানাডায় বাংলাদেশি শিক্ষার্থী নয়নের রহস্যজনক মৃত্যু

সিলেটে করোনায় আক্রান্ত নার্সের মৃত্যু

সিলেটে করোনায় আক্রান্ত নার্সের মৃত্যু

ইংল্যান্ড সফরে অন্য এক সমস্যায় পড়ল পাকিস্তান

ইংল্যান্ড সফরে অন্য এক সমস্যায় পড়ল পাকিস্তান

করোনায় একদিনে আরও ৪৪ মৃত্যু, আক্রান্ত ৩২০১

করোনায় একদিনে আরও ৪৪ মৃত্যু, আক্রান্ত ৩২০১

রাজনীতিবিদের সঙ্গে প্রেমের গুঞ্জনে যা বললেন জয়া

রাজনীতিবিদের সঙ্গে প্রেমের গুঞ্জনে যা বললেন জয়া

সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্কসংকেত

সমুদ্রবন্দরে ৩ নম্বর সতর্কসংকেত