About Us
Md. Ashraful Alam
প্রকাশ ২২/০৭/২০২১ ১২:০৭পি এম

গাইবান্ধায় ৩ হাজার ৩শ ২৫ পরিবারের মাঝে কোরবানী মাংস বিতরণ

গাইবান্ধায়  ৩ হাজার ৩শ ২৫ পরিবারের মাঝে কোরবানী মাংস বিতরণ Ad Banner
নদী ভাঙ্গন, দরিদ্র পীড়িত এবং অসহায় ৩ হাজার ৩শ ২৫পরিবারের সদস্যদের মাঝে ২কেজি করে গরুর মাংস বিতরণ করলেন স্থানীয় বেসরকারী সংগঠন এসকেএস ফাউন্ডেশন। জেলার সাঘাটা এবং ফুলছড়ি উপজেলার ১২টি ইউনিয়নের ৯৫টি গরু কোরবানীর মাংস বিতরনে সহযোগিতা করেন ইসলামিক রিলিফ বাংলাদেশ।

ঈদ-উল-আজহা’র পরের দিন বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) হাট ভরতখালী এসকেএস নূতনকুঁড়ি বিদ্যাপীঠ স্কুল মাঠে সকাল ৭টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত ভিন্ন ভিন্ন সময়ে মাংস বিতরণ করা হয়। সাঘাটা উপজেলার মুক্তিনগর, সাঘাটা, ভরতখালী, পদুমশহর, কামালেরপাড়া, জুমারবাড়ী, ঘুরিদহ, হলদিয়া এবং ফুলছড়ি উপজেলার গজারিয়া, ফুলছড়ি, উদাখালী এবং উড়িয়া ইউনিয়নের মোট ১২টি ইউনিয়নের ৩ হাজার ৩শ ২৫টি পরিবারের সদস্যদের মাঝে প্রতি পরিবারের জন্য ২কেজি করে মাংস বিতরণ করা হয়। জানাগেছে, প্রায় ১০ বছরের অধিক সময় ধরে ইসলামিক রিলিফ বাংলাদেশ এবং এসকেএস ফাউন্ডেশন প্রতিবছর ঈদ-উল-আজহার ২য় দিন এই কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেন।

২২ জুলাই সকাল ৭টায় মাংস বিতরণ অনুষ্ঠানের আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ইসলামিক রিলিফ বাংলাদেশ প্রতিনিধি মো. সেলিম রেজা, এসকেএস ফাউন্ডেশনের সোশ্যাল এন্টার প্রাইজ সমন্বয়কারী-আবু সাঈদ সুমন, ভরতখালী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান শামসুল আজাদ শীতল, সাঘাটা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়াম্যান মোশারফ হোসনে সুইট। প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সাঘাটা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. জাহাঙ্গীর কবির।

তিনি তার বক্তব্যে বলেন- ‘‘প্রতি বছর ইসলামিক রিলিফ বাংলাদেশ এবং এসকেএস এর এমন উদ্যোগকে আমি স্বাগত জানাই। এলাকার দরিদ্র অসহায় মানুষের মাঝে ঈদের সময় মাংস বিতরণ একটি মানবিক উদ্যোগ। আমি অনুরোধ করবো আগামী দিনে আয়োজনকারী দাতা সংস্থাকে আরও বেশি সংখ্যক পরিবারকে এই কর্মসূচিতে অন্তর্ভূক্ত করতে ব্যবস্থা নিবেন। সভাপতির বক্তব্য রাখেন এসকেএস ফাউন্ডেশনের সহকারী পরিচালক ফিল্ড অপারেশন (ডিপি) খন্দকার জাহিদ সরওয়ার।

মাংস নিতে আসা ভরতখালী গ্রামের জামিলা বেগম বলেন, ‘‘হামরা বাবা গরীব মানুষ, গোসতো কিনি খাবার পাইনা, এসকেএস হামাক ২ কেজি গরুর গোসতো দিছে, হামি খুব খুশি! এই গোসতো ছোল পোল গুলাক নিয়া মজা করি আন্দি খামো’’।

কর্মসূচি বাস্তবায়নে সমন্বয়ক আবু সাঈদ সুমন জানান, ‘‘কোরবানী কর্মসূচি প্রায় ১০ বছরের অধিক সময় ধরে এসকেএস ফাউন্ডেশন ইসলামিক রিলিফ বাংলাদেশের সহযোগিতায় এলাকার দরিদ্র, নদী ভাঙ্গন, প্রতিবন্ধী, বয়স্ক, নারী প্রধান পরিবার, মাংস ক্রয়ে অক্ষম অসহায় পরিবারের মাঝে প্রতি পরিবারকে ২কেজি করে মাংস বিতরণ অব্যাহত রেখেছেন। দরিদ্র পীড়িত মানুষের জন্য এমন মানবিক সহায়তার জন্য ইসলামিক রিলিফ বাংলাদেশকে এসকেএস ফাউন্ডেশনের পক্ষে কৃতজ্ঞতার সাথে ধন্যবাদ জানাচ্ছি’’। মাংস বিতরণ অনুষ্ঠানে এসকেএস ফাউন্ডেশনের সকল কর্মীবৃন্দ সার্বিক সহযোগিতা করেন।

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ