About Us
Shovon - (Dhaka)
প্রকাশ ২২/০৬/২০২১ ০৮:১৫পি এম

দ্রুত মাসিক হওয়ার প্রাকৃতিক উপায়

দ্রুত মাসিক হওয়ার প্রাকৃতিক উপায় Ad Banner

অনেকেই আছেন দ্রুত মাসিক হওয়ার উপায় খুঁজতে গিয়ে অস্বাস্থ্যকর ওষুধ খেয়ে অসুস্থ হয়ে পরেন। কিন্তু আপনি জানেন কি, ঔষধ নয় বরং প্রাকৃতিকভাবেই এ সমস্যার প্রতিকার পেতে পারেন?

 নারীস্বাস্থ্য
দ্রুত মাসিক হওয়ার প্রাকৃতিক উপায় | দেখুন কি কি খাবেন

অনেকেই আছেন দ্রুত মাসিক হওয়ার উপায় খুঁজতে গিয়ে অস্বাস্থ্যকর ওষুধ খেয়ে অসুস্থ হয়ে পরেন। কিন্তু আপনি জানেন কি, ঔষধ নয় বরং প্রাকৃতিকভাবেই এ সমস্যার প্রতিকার পেতে পারেন?

দ্রুত মাসিক হওয়ার উপায় | মাসিক দেরিতে হওয়া বা অনিয়মিত হওয়া চিকিৎসা বিজ্ঞানে “Oligomenorrhea” নামে পরিচিত, যা নারীদের সাধারণ একটি সমস্যা হিসেবে বিবেচিত হয়। ওজন কমা, শারীরিক পরিস্থিতী এবং জীবনযাত্রার মতো বিভিন্ন কারণে এই সাধারণ সমস্যাটি হয়ে থাকে। নারীরা প্রায়ই এটি নিয়ে উদ্বিগ্ন থাকে। যদিও এটি খুব ভয়ঙ্কর কিছু না।

মাসিক দেরিতে হওয়ার প্রতিকার হিসেবে অনেকেই ঔষধ বা আধুনিক প্রতিষেধকের দ্বারস্থ হন। দ্রুত মাসিক হওয়ার উপায় খুঁজতে গিয়ে অস্বাস্থ্যকর ওষুধ খেয়ে অনেকেই অসুস্থ হয়ে পরেন। কিন্তু আপনি জানেন কি, ঔষধ নয় বরং প্রাকৃতিকভাবেই এ সমস্যার প্রতিকার পেতে পারেন? প্রকৃতি আমাদের এমন কিছু সুবিধা দিয়ে রেখেছে, যেগুলো গ্রহণ করলে আমরা এ সব ছোট-খাটো সমস্যা থেকে মুক্তি লাভ করতে পারি।

আজ কোর্সটিকায় আমরা এমনই কিছু প্রাকৃতিক খাবার এবং এর প্রয়োগ সম্পর্কে জানবো, যা আপনাকে মাসিক দেরিতে হওয়ার দুশ্চিন্তা থেকে মুক্তি দিতে সক্ষম। আর এই খাবারগুলো একেবারেই ঘরোয়া হওয়ায় আপনি উপকরণগুলো হাতের কাছে খুব সহজেই পেয়ে যাবেন।

মাসিক দেরিতে হলে ঘরোয়া উপায়ে করণীয় কি?

১. পার্সলে
পার্সলে (Parsley) বহু শতাব্দী ধরে নারীদের মাসিক সমস্যা নিরোধে প্রাকৃতিক এবং ঐতিহ্যগতভাবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। অনেকটা ধনে পাতার মতো দেখতে এই মসলা জাতীয় উদ্ভিদটিতে থাকা দুটি পদার্থ জরায়ুর সংকোচনকে উদ্দীপিত করে, যা আপনার মাসিক চক্রের ওপর প্রভাব বিস্তার করতে পারে।

কীভাবে ব্যবহার করবেন: আপনি প্রতিদিন ৬ গ্রাম করে শুকনো পার্সলে খেতে পারেন যা প্রতি ডোজে ২ গ্রাম করে ভাগ করে নেয়া যেতে পারে। অর্থাৎ একজন প্রাপ্তবয়স্ক নারীর জন্য দিনে ৩ ডোজ শুকনো পার্সলে যথেষ্ট। আপনি এটি ১৫০ মিলি পানিতে সেদ্ধ করে খেতে পারেন। অথবা চাইলে দিনে দুবার পার্সলে চা পান করতে পারেন।

২. পেঁপে
সঠিক সময়ে মাসিকের জন্য পেঁপে সবচেয়ে কার্যকরী ঘরোয়া প্রতিষেধক। পেঁপে আপনার শরীরের উপস্থিত ক্যারোটিন ইস্ট্রোজেন হরমোনকে উদ্দীপিত করে। যার ফলে মাসিকেরপ্রারম্ভিক সময়কে প্রভাবিত করা সক্ষম হয়। Parsley এর মতো কাঁচা পেঁপেও জরায়ুতে সংকোচনের উদ্দীপনা সৃষ্টি করে এবং পিরিয়ড প্ররোচিত করতে সহায়তা করতে পারে।

কীভাবে ব্যবহার করবেন: কাঁচা পেঁপে বা পেঁপের রস দিনে দুইবার খাওয়া যেতে পারে। আকারে এক কাপ পেঁপের রস (প্রায় ২০০ মিলিলিটার) বা এক বাটি তাজা পাকা পেঁপে কার্যকরভাবে চক্রের মাঝখানে খাওয়া যেতে পারে।

৩. আদা চা
আদা চা হ’ল অন্যতম শক্তিশালী ইমেনাগোগ যা শরীরকে ঋতুস্রাবে উৎসাহিত করে। আদা জরায়ুর চারপাশে উত্তাপ বাড়িয়ে তোলে, এইভাবে সংকোচনের প্রচার করে। কিন্তু একটা বিষয় খেয়াল রাখতে হবে, কেবলমাত্র যাদের অতিরিক্ত দেরিতে মাসিক হয় তাদেরই আদা চা পানের পরামর্শ দেয়া হয়। কারণ, আদা চা শরীরে অম্লত্বের মতো কিছু পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি করে।

কীভাবে ব্যবহার করবেন: চা বা টাটকা আদার রস আকারে কিছু মধু বা মধুর পাশাপাশি কাঁচা আদা খাওয়া যেতে পারে। নিয়মিত তারিখের কয়েক দিন আগে খালি পেটে প্রতিদিন সকালে এক কাপ তাজা আদার রস পান করুন।

৪. ধনে বীজ
ধনিয়া বীজ অনিয়মিত মাসিকের জন্য কার্যকর ঘরোয়া সমাধান বলে মনে করা হয়। কারণ এর রয়েছে Emmenagogue বৈশিষ্ট্য। ধনিয়া বীজে অ্যান্টি হিস্টামিন উপাদান থাকায় এরা অ্যালার্জি বা এর ক্ষতিকারক প্রভাব থেকে দূরে রাখে।

কীভাবে ব্যবহার করবেন: ১ চা চামচ ধনিয়ার গুড়া দিয়ে ২ কাপ পানি দিয়ে গরম করুন এবং অপেক্ষা করুন যতক্ষণ না পানি কমে যায়। এটি আপনার মাসিকের সম্ভাব্য তারিখের কয়েক দিন আগে থেকে দিনে তিনবার পান করুন।

৫. ঘৃতকুমারী
ঘৃতকুমারী (Aloe Vera) রস সাধারণত অস্থির পেটে প্রশমিত করতে ব্যবহৃত হয়, তবে এটি দেরিতে মাসিক হওয়ার প্রতিষেধক হিসেবেও ব্যবহার করা যেতে পারে। ঘৃতকুমারী দেহের অভ্যন্তরীণ পদ্ধতির সঙ্গে মিশে গিয়ে প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে আরও সক্রিয় করে তোলে এবং দেহের ভারসাম্য রক্ষা করে।

কীভাবে ব্যবহার করবেন: অ্যালোভেরার ছুটি দুটি কেটে জেলটি বের করে নিন। জেলের সাথে ১ চামচ মধু মিশ্রণ করুন এবং প্রাতঃরাশের আগে এটি গ্রহণ করুন। কয়েক মাস ধরে ভাল ফলাফল পেতে প্রক্রিয়াটি চালিয়ে যান।

৬. Vitamin C জাতীয় খাবার
উচ্চ মাত্রায় Vitamin C দেহে ইস্ট্রোজেনের মাত্রা বাড়িয়ে মাসিককে প্ররোচিত করতে পারে। এই হরমোনের বর্ধিত মাত্রা জরায়ু সংকোচনে উদ্দীপনা জাগায়। যার ফলস্বরূপ রক্তপাতকে উদ্দীপিত করে। Vitamin C প্রজেস্টেরনের মাত্রাও হ্রাস করতে পারে। যা জরায়ুর দেয়ালগুলি ভেঙে দেয়ার কাজ করে এবং দ্রুত মাসিকের পথে নিয়ে যায়।

ভিটামিন সি সমৃদ্ধ খাবার যেমন সাইট্রাস ফল, কিউইস এবং শাকসব্জী যেমন টমেটো, ব্রকলি এবং বেল মরিচকে আপনি আপনার প্রতিদিনের খাবারে অন্তর্ভুক্ত করতে পারেন। নিচে কিছু Vitamin C জাতীয় খাবারের তালিকা দেয়া হলো যা আপনার দেরিতে মাসিক হওয়ার ঘরোয়া প্রতিষেধক হিসেবে কাজ করবে।

গাজর: গাজর ক্যারোটিন সমৃদ্ধ একটি খাবার। গাজর একদিনে ৩ বার হিসাবে স্বাভাবিক বা রস আকারে খাওয়া যেতে পারে।

গুড়: গুড় আদা, তিল এবং ক্যারাম বীজের সাথে মিশ্রিত হয়ে পিরিয়ডগুলির প্রাকৃতিক ঘরোয়া প্রতিকার।

হলুদ: এক গ্লাস পানিতে এক চামচ হলুদ সিদ্ধ করুন এবং দিনে দুবার এটি খাবেন। তবে এটি অবশ্যই আপনার প্রত্যাশিত তারিখের ১০ দিন আগে।

খেজুর: খেজুর শরীরে তাপ তৈরির জন্য পরিচিত। নির্ধারিত তারিখের পূর্বে মাসিক করতে একটি পুরোপুরি পরিমাপ পরিমাণে সারা দিন খেজুর খান।

কুমড়া: কুমড়োতে উপস্থিত ক্যারোটিন মাসিককে উত্সাহিত করার একটি দুর্দান্ত প্রক্রিয়া।

স্যামন মাছ: স্যামন (Salmon) আপনার হরমোনগুলো উন্নত এবং স্থিতিশীল করতে কাজ করে এবং এর ফলে ঋতুস্রাবের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। আপনার পিরিয়ড নিয়ন্ত্রণে অন্যান্য ধরণের মাছ এবং ফিশ অয়েলও কার্যকর।

কাজুবাদাম: এই স্বাস্থ্যকর এবং পুষ্টিকর বাদামগুলোতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার এবং প্রোটিন রয়েছে যা আপনার হরমোনের ভারসাম্য বজায় রাখতে এবং নিয়মিত পিরিয়ড পেতে সহায়তা করে।

আনারস: আকারে তাপ উৎপাদনকারী বৈশিষ্ট্য ধারণ করে। মাসিক সমস্যা সমাধানে আপনি প্রচুর পরিমাণে আনারস খেতে পারেন।

আঙ্গুর: প্রতিদিন সকালে এক গ্লাস তাজা আঙ্গুর রস আপনাকে অনিয়মিত সময় থেকে মুক্তি দিতে সহায়তা করতে পারে।

দই: যদিও দই আপনার শরীরে শীতল প্রভাব ফেলে, এটি আপনার পিরিয়ড নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা করে।


শেষ কথা
আমাদের এ তালিকায় দেয়া উপাদানগুলো সম্পূর্ণরূপে ঘরোয়া এবং প্রাকৃতিক। তবে এগুলো ব্যবহারের আগে আপনি আপনার শারীরিক অবস্থা সবার পূর্বে বিবেচনায় আনবেন। সবথেকে ভালো হয়, আপনি যদি একজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের শরণাপন্ন হন। আপনার সর্বাঙ্গীণ সুস্থ্যতা কামনায় আজ এ পর্যন্তই। ভালো থাকুন।



শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ