About Us
prodip kumar goshwami - (Rangpur)
প্রকাশ ১৯/০৬/২০২১ ০৯:৩৩পি এম

আজ থেকে রংপুরের বাজারে মিলবে হাড়িভাঙ্গা আম

আজ থেকে রংপুরের বাজারে মিলবে হাড়িভাঙ্গা আম Ad Banner

জেলা প্রশাসন ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের দিক নির্দেশনা অনুযায়ী আজ রোববার (২০ জুন) থেকে হাড়িভাঙ্গা আম বেচাকেনা শুরু হবে।

গত ৭ জুন মিঠাপুকুর উপজেলার খোড়াগাছ ইউনিয়নের পদাগঞ্জ স্কুল ও কলেজ মাঠে উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে অনুষ্ঠিত এক মতবিনিময় সভায় রংপুরের জেলা প্রশাসক আসিব আহসান ২০ জুন থেকে হাড়িভাঙ্গা আম বাজারজাত করার ঘোষণা দিয়েছিলেন। 

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য মোতাবেক রংপুর জেলায় ১ হাজার ৮৬৫ হেক্টর জমিতে হাড়িভাঙ্গা আমের চাষ হয়েছে। সর্বাধিক চাষ হয়েছে মিঠাপুকুর উপজেলায়।

এ বছর ১ হাজার ৫০ হেক্টর জমিতে হাড়িভাঙ্গা আমের বাগান রয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন। বাগান ছাড়াও বাড়ির উঠান,পুকুর পাড় ও বসত বাড়ির আশপাশের পরিত্যক্ত জমিতেও হাড়িভাঙ্গা আমের গাছ রয়েছে।

ছোট ছোট গাছের আমে দোল খাচ্ছে কৃষকের স্বপ্ন।  এই আমের জন্মভুমি মিঠাপুকুর উপজেলার খোড়াগাছ ইউনিয়নের তেকানি গ্রামে। তবে লাভ জনক হওয়ায় অনান্য ইউনিয়ন এমন কি আশপাশের উপজেলাতেও গড়ে উঠছে হাড়িভাঙ্গা আম বাগান। ।

কৃষি কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন জানান চলতি মৌসুমে জেলায় ২৫ হাজার থেকে ২৭ হাজার মেঃ টন হাড়িভাঙ্গা আম উৎপাদনের লক্ষ্য মাত্রা ধার্য্য করা হয়েছে।

প্রতি কেজি ৪০ টাকা থেকে ৩০০ টাকা পর্যন্ত বেচাকেনা হবে।খোড়াগাছ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান জানান হাড়িভাঙ্গা আম কে কেন্দ্র করে বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা হয়। 

আম চাষি আব্দুস সালাম সরকার জানান জেলা প্রশাসনের নির্দেশনা ২০ জুন থেকে আম পাড়া শুরু হবে। তবে ৩০ জুন থেকে পুরোদমে শুরু হবে হাড়িভাঙ্গা আমের বেচাকেনা।

তার দুটি বাগান ১২ লাখ টাকায় বিক্রি করেছেন।ময়েনপুর ইউনিয়নের চক দুর্গাপুর গ্রামের আনোয়ারুল ইসলাম ১ লাখ ৪০ হাজার টাকায় দুটি বাগান কিনেছেন। দাম ও চাহিদা ভাল থাকলে ৮০ হাজার থেকে ১ লাখ টাকা আয় হওয়ার আশা করছেন ওই ব্যবসায়ী। 

ব্যবসায়ী খাদেমুল ইসলাম জানান, এক সপ্তাহের মধ্যেই ব্যবসায়ীরা পদাগঞ্জ থেকে সরাসরি ট্রাক যোগে এই আম ঢাকা সহ দেশের সর্বত্র পাঠানো শুরু করবেন। এজন্য কম খরচে পরিবহন ব্যবস্হার দাবি করেন ব্যবসায়ীরা।

মন্জুরুল হক ও আব্দুল হাই সহ অনেকে নির্দিষ্ট সময়ের দুদিন আগেই আম বিক্রি শুরু করেছেন। মিঠাপুকুর উপজেলার খোড়াগাছ ইউনিয়নের পদাগঞ্জ, আখিরা হাট,পাইকারের হাট, মাঠের হাট ও ময়েনপুর ইউনিয়নের শুকুরের হাটে এই আমের পাইকারি বাজার বসে।খোলা আকাশের নীচেই বয়বসায়ীদের বেচাকেনা করতে হয়।

ক্রেতা বিক্রেতাদের জন্য কোন ছাউনি নির্মান করা হয়নি। তবে চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান আমের ভাস্কর্য তৈরি করে আম চত্বর নাম করন করেছেন। এছাড়াও রংপুর বাস টার্মিনাল সংলগ্ন পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারের সামনেও হাড়িভাঙ্গা আমের বাজার বসে।

সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত চলে বেচাকেনা। গত বছর বিআরটিসির ট্রাকে কমদরে আম পরিবহনের ব্যবস্হা করা হয়েছিল। এ বছরও পরিবহন সুবিধা আশা করছেন ব্যবসায়ীরা।





শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ