About Us
Abdullah-al-Jaber - (Bagerhat)
প্রকাশ ১৯/০৬/২০২১ ১১:২৬এ এম

বাগেরহাট এ অক্সিজেন সিলিন্ডার হাতে মানুষের পাশে একদল তরুন

বাগেরহাট এ অক্সিজেন সিলিন্ডার হাতে মানুষের পাশে একদল তরুন Ad Banner
বাগেরহাট সদর উপজেলার চুলকাঠি ও এর আশেপাশের এলাকার করোনা রোগী এবং শ্বাসকষ্টজনিত রোগীর বাসায় বিনামূল্যে অক্সিজেন গ্যাস সিলিন্ডার পৌঁছে দিচ্ছে চুলকাঠি অক্সিজেন ব্যাংক। চুলকাঠি ইয়ুথ সোসাইটি নামের একটি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন এটি পরিচালনা করছে। চুলকাঠি ও এর আশে পাশের করোনা আক্রান্ত বা শ্বাসকষ্টের রোগী তাদের নির্ধারিত নম্বরে ফোন করলে দ্রুত পৌঁছে দেওয়া হয় অক্সিজেন। এ কাজে সমন্বয়ক আছেন জাকারিয়া হোসাইন শাওন নামের একজন স্বেচ্ছাসেবক এবং এলাকার কিছু তরুন এই কাজে তাকে সার্বিক সহযোগিতা করছে। গত ১লা মে “বিনা অক্সিজেনে ঝড়ে পড়বে না কোনো প্রাণ’ এই শ্লোগানকে সামনে রেখে চুলকাঠিতে চালু হয়েছিল চুলকাঠি ইয়ুথ সোসাইটি”র চুলকাঠি অক্সিজেন ব্যাংক।চুলকাঠি অক্সিজেন ব্যাংকের ফেসবুক গ্রুপ ও পেজে সহযোগিতা পোস্ট অথবা হেল্প লাইন নাম্বারে যোগাযোগ করলে নির্ধারিত ঠিকানায় অক্সিজেন সিলিন্ডার পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে।
গত ১৬/০৬/২০২১ বুধবার চুলকাঠি বাজারের ডা. উৎপল দেবনাথ এর চেম্বার থেকে ফোন আসে দ্রুত অক্সিজেন প্রয়োজন,তাৎক্ষনিক অক্সিজেন নিয়ে ছুটে যান তারা।শাকিল মাহমুদ নামের স্থানীয় একজনের স্ট্রোক জনিত কারণে শ্বাসনালীতে সমস্যা হয় যার কারনে জরুরীভাবে অক্সিজেন দেওয়ার প্রয়োজন হয়।আলহামদুলিল্লাহ্ শাকিল এখন সম্পূর্ণ সুস্থ। রামপাল এলজিইডি তে কর্মরত শাকিল মাহমুদ জানান “আলহামদুলিল্লাহ্ আল্লাহ্ আমাকে বাঁচিয়ে রেখেছেন এবং এখন আল্লাহর অশেষ রহমতে আমি অনেকটা সুস্থতা অনুভব করছি। ঐ দিন (বুধবার) আল্লাহ ওসিলা হিসেবে আমার কিছু শুভাকাঙ্ক্ষী পাঠিয়েছিলেন যাদের তাৎক্ষণিক প্রচেষ্টায় আমি আজ সুস্থ,সেদিন অতি অল্প সময়ের মধ্যে অক্সিজেন সাপোর্ট না পেলে কি যে হত আল্লাহ ই ভাল জানেন।”

এর আগে ভট্রবালিয়াঘাটা এলাকা থেকে রাত ১১ টার দিকে কল আসে অক্সিজেন এর জন্য। সেখানকার মহাসীন মোড়লের স্ত্রী ঝরনা বেগম (৩৫) কে শ্বাসকষ্ট জনিত কারনে অক্সিজেন দিয়ে রোগিকে বাগেরহাট সদর হাসপাতাল এ নেওয়া হয়।
এমন আরো অনেক রোগী কেই অক্সিজেন সাপোর্ট দেওয়া হচ্ছে।
মোড়েলগঞ্জ এর ঢুলিগাতি র রোগী সৈয়দ রিজভী আহমেদ শিপনের আত্মীয় লালীমা আহসান বলেন,”অনেক অনেক কৃতজ্ঞতা চুলকাঠি অক্সিজেন ব্যাংক কে।

সত্যি এদের সেবা প্রশংশনীয়! এতো তাড়াতাড়ি এতো কঠিন কাজটা সহজে হয়ে যাবে সেটা এদের সেবা না দেখলে বুঝতে পারতাম না।কৃতজ্ঞতা আপনাদের সংগঠনের প্রতি।কৃতজ্ঞতা আপনাদের সেই সেচ্ছাসেবীদের প্রতি যারা নিজেদের জীবনের কথা না ভেবে নিজেকে মহাৎ কাজে উৎসর্গ করেছেন।আমার বাড়িতে যে দুজন ছোট ভাই সিলিন্ডার নিয়ে এসেছিল আমরা তাদের আন্তরিকতায় সত্যিই মুগ্ধ। তোমাদের জন্য শুভ কামনা।

স্বেচ্ছাসেবক কাজী রেজোয়ান বলেন,করোনা রোগীদের শ্বাসকষ্ট শুরু হলে অতিপ্রয়োজনীয় হয়ে পড়ে অক্সিজেন। করোনা আক্রান্ত হয়ে বেশিরভাগ রোগীই মারা যায় শ্বাসকষ্টে অক্সিজেনের অভাবে। এই সংকট থেকে চুলকাঠিবাসীকে সুরক্ষা দিতে এই অক্সিজেন ব্যাংক সেবা দিয়ে যাচ্ছে।
চুলকাঠি অক্সিজেন ব্যাংক এর প্রতিষ্ঠাতা ও সমন্বয়ক জাকারিয়া হোসাইন শাওন বলেন,,মুক্ত বাতাসের অক্সিজেনের অর্থমূল্য নির্ধারণের মাপকাঠি নেই।

তবে সেই অক্সিজেন যখন সিলিন্ডারবন্দী হয়, তখন তার আর্থিক মূল্য ধরা হয়।আমরা চেস্টা করছি সমাজের হৃদয়বান মানুষের আর্থিক সহায়তায় বিনামূল্যে এই অক্সিজেন এর সেবা দিতে।
এ ব্যাপারে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সরদার নাসির উদ্দিন জানান, দেশের এ ক্লান্তিলগ্নে বিভিন্ন ব্যক্তি ও সংগঠন সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছে। চুলকাঠি অক্সিজেন ব্যাংক এর উদ্যোগ আত্মমানবতা সেবার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত। তিনি সংগঠনের এ সেবা কার্যক্রমের উদ্যোগকে স্বাগত জানান এবং স্বেচ্ছাসেবকদের সার্বিক সহযোগীতার আশ্বাস দেন।।।।

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ