About Us
Rakib Monasib
প্রকাশ ১৯/০৬/২০২১ ১০:১১এ এম

আজ দেশে সিনোফার্মের টিকা প্রয়োগ শুরু হবে

আজ দেশে সিনোফার্মের টিকা প্রয়োগ শুরু হবে Ad Banner
নভেল করোনাভাইরাস প্রতিরোধে দেশব্যাপী টিকাদান কর্মসূচিতে আজ থেকে যুক্ত হচ্ছে চীনের সিনোফার্মের টিকা। রাজধানীর চারটি হাসপাতালসহ দেশের সব জেলায় একটি কেন্দ্রে এ টিকা প্রয়োগের কার্যক্রম শুরু হচ্ছে। তবে কোভ্যাক্স থেকে পাওয়া ফাইজারের টিকা প্রয়োগের কথা থাকলেও তা এখনই শুরু হচ্ছে না বলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়।


জানা যায়, চীন সরকারের উপহার দেয়া ১১ লাখ সিনোফার্মের টিকা নিয়ে এ কার্যক্রম শুরু হচ্ছে। এর মধ্যে ৩০ হাজার ডোজ এ দেশে কর্মরত নিজেদের কর্মীদের জন্য নিয়েছে চীন। বাকি ১০ লাখ ৭০ হাজার ডোজ টিকা দেশের ৫ লাখ ৩৫ হাজার মানুষকে দেয়া যাবে। এরই মধ্যে দেশের সব জেলায় নির্দিষ্ট সংখ্যক ডোজ টিকা পাঠানো হয়েছে। একই সঙ্গে অগ্রাধিকারের ১০ শ্রেণীভুক্ত জনগোষ্ঠীকে এ টিকা দেয়ার জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশনাও দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।


সরকারের সম্প্রসারিত টিকাদান কার্মসূচি (ইপিআই) সূত্রে জানা যায়, ঢাকা জেলায় চারটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মাধ্যমে দেয়া হবে সিনোফার্মের টিকা। এ চার হাসপাতাল হচ্ছে ঢাকা মেডিক্যাল, স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল, শহীদ সোহরাওয়ার্দী ও মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। এসব হাসপাতালে একটি করে টিকা কেন্দ্র হবে এবং প্রতিটি কেন্দ্রে দুটি করে বুথ থাকবে। তাছাড়া ঢাকা জেলা বাদে প্রতি জেলায় একটি করে কেন্দ্র হবে এবং প্রতিটি কেন্দ্রে দুটি করে বুথ থাকবে। তবে বুথ চালু করতে হবে টিকাগ্রহীতার সংখ্যার ওপর নির্ভর করে।


যেসব জেলায় মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল নেই সেসব জেলায় কভিড-১৯ ভ্যাকসিনেশন কমিটির সঙ্গে আলোচনা করে জেলা সদর হাসপাতাল অথবা ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালের যেকোনো একটিকে টিকা কেন্দ্র হিসেবে ঘোষণা দেবেন সিভিল সার্জন। ওই কেন্দ্রে দুটি বুথ থাকবে। টিকা কেন্দ্র শুক্রবার ও সরকারি ছুটির দিন ছাড়া প্রতিদিন সকাল ৮টা থেকে বেলা ৩টা পর্যন্ত খোলা রাখার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। সিনোফার্মের টিকার প্রথম ডোজের সঙ্গে দ্বিতীয় ডোজের ব্যবধান নির্ধারণ করা হয়েছে চার সপ্তাহ বা ২৮ দিন।


১০ শ্রেণী-পেশার ব্যক্তিদের এ টিকা দেয়ার জন্য নির্ধারণ করা হয়েছে। এর মধ্যে টিকার জন্য নির্ধারিত কেন্দ্রে এরই মধ্যে যারা রেজিস্ট্রেশন করেছেন, কিন্তু এখন পর্যন্ত কোনো টিকা পাননি তাদের অগ্রাধিকার দেয়া হবে।


এদিকে পরিকল্পনা থাকলেও আজ থেকে ফাইজারের টিকা প্রয়োগ শুরু হচ্ছে না বলে জানিয়েছেন করোনা টিকা কার্যক্রম ও ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য সচিব ডা. শাসমুল হক। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্যানুযায়ী ফাইজারের টিকা সংরক্ষণ ও পরিবহনের জটিলতার কারণে রাজধানীর বাইরে প্রয়োগ করা হবে না। রাজধানীর চারটি কেন্দ্রে এ টিকা প্রয়োগের জন্য প্রস্তুতি চলছে। এগুলো হলো বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়, কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল, শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল এবং জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইনস্টিটিউটে দেয়ার প্রস্তাব করা হয়েছে।


স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম বলেন, ফাইজারের টিকা প্রয়োগের আগে পরীক্ষামূলক প্রয়োগ করা হবে। পরীক্ষামূলক প্রয়োগ করে পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া বিবেচনা করা হবে। চলতি সপ্তাহের মাঝামাঝি সময়ে পরীক্ষামূলক প্রয়োগ করা হবে। এরপর এক সপ্তাহ পর্যবেক্ষণ করে পরে গণপরিসরে প্রয়োগ করা হবে।

শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ