About Us
রাব্বি ইসলাম - (Tangail)
প্রকাশ ০৯/০৬/২০২১ ০৮:২৬পি এম

তারা ৬জনই নারী ছিনতাইকারী!

তারা ৬জনই নারী ছিনতাইকারী! Ad Banner

পুলিশ সুত্র জানায়, বুধবার সকালে মির্জাপুর উপজেলার গোড়াই ক্যাডেট কলেজ এলাকার বাসিন্দা সিবার উদ্দিন ও রেজিয়া আক্তার নামের এক দম্পতি আম-কাঠাল নিয়ে একই উপজেলার বহুরিয়া ইউনিয়নের মেয়ের বাড়িতে বেড়াতে যাওয়ার উদ্দেশে ক্যাডেট কলেজ বাসস্ট্যান্ড থেকে দেওহাটা নামক স্থানে পৌছানোর জন্য লেগুনাতে চড়েন। ক্যাডেট কলেজের পরের বাসস্ট্যান্ড হাটুভাঙ্গা এলাকা থেকে সেই লেগুনাতেই যাত্রী বেশে চড়ে বসে আরো ৬ নারী। লেগুনাতে বসার পর থেকেই গা ঘেষাঘেষি থেকে শুরু করে চাপাচাপি করতে থাকে ওই ছিনতাইকারীরা। পরে দেওহাটা আন্ডারপাসের পূর্ব পার্শ্বে লেগুনাটি থামানো হলে সেখানে ওই দম্পতির সাথে ৬ নারী ছিনতাইকারী নেমেই রেজিয়া আক্তারকে অতর্কিতভাবে ধাক্কা দিতে থাকে। পরে রেজিয়া আক্তারের স্বামী তাদের ফেরানোর চেষ্টাকালে সুজিনা বেগম নামের এক ছিনতাইকারী সুকৌশলে রেজিনার গলা থেকে একটি স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নেয়। পরে ডাক-চিৎকারে আশপাশের লোকজনসহ পাশেই দেওহাটা ফাঁড়ির পুলিশকে খবর দেয়া হলে সন্দেহভাজন ৬ নারীকে ঘটনাস্থল থেকে আটক করে ফাঁড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে তাদের দেহ তল্লাশি করে সুজিনা নামের ওই ছিনতাইকারীর কাছ থেকে চেইনটি উদ্ধার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত প্রত্যেকেই দেশের বিভিন্ন থানার একাধিক মামলার আসামী বলে নিশ্চিত করেছে পুলিশ। তারা জামিনে বের হয়ে এইসব কর্মকান্ড করে বেড়ায় বলে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে বেরিয়ে এসেছে। ঘটনাটি বুধবার (৯জুন) সকাল ০৯টার দিকে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার দেওহাটা নামক এলাকায় ঘটেছে।

গ্রেপ্তারকৃত ছিনতাইকারী নারীরা হলো, ব্রাহ্মণবাড়িয়া উপজেলার নাসিরনগর উপজেলার ধরমন্ডল গ্রামের আসকার আলীর মেয়ে সুজিনা বেগম (৪৪), একই গ্রামের সুজন মিয়ার স্ত্রী হাফিজা আক্তার (২৪), রহিম আলীর মেয়ে জয়তারা বেগম (৪৭), আব্দুল কাইয়ুম মিয়ার স্ত্রী খাদিজা (২০), একই উপজেলার আগলাবাড়ি গ্রামের মাহফুজ মিয়ার মেয়ে হাফিজা আক্তার (২১) ও দেওরথ গ্রামের শের আলীর স্ত্রী সুমি আক্তার (৩০)।

দেওহাটা ফাঁড়ির ইনচার্জ ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস.আই মো. আইয়ুব খান বলেন, সংবাদ পেয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছিয়ে ৬জনকে গ্রেপ্তার করে ফাঁড়িতে নিয়ে তাদের দেহ তল্লাশি করে একজনের কাছ থেকে চেইনটি উদ্ধার করি। এ ঘটনায় জড়িত থাকার দায়ে ওই ৬ জনের নামে মির্জাপুর থানায় মামলা দায়েরের পর দুপুরেই তাদের কোর্টের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ