About Us
Masrukur Masuk - (Khulna)
প্রকাশ ০৭/০৬/২০২১ ০৭:৪৪পি এম

খুলনায় চলছে করোনার রাজত্ব

খুলনায় চলছে করোনার রাজত্ব Ad Banner

ঠাই নেই করোনা হাসপাতালে। অন্যদিকে সন্ধ্যা পর উধাও বিধিনিষেধ।  করোনা ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে ৪ই জুন থেকে ১০ই জুন প্রর্যন্ত খুলনা সদর,সোনাডাঙা, খালিশপুর এবং রুপসা উপজেলায় ঘোষিত  ১ সপ্তাহের লকডাউন এবং বিধিনিষেধ চলমান।

এক সপ্তাহের লকডাউন ও বিধিনিষেধের আজ সোমবার চতুর্থতম দিন।সড়কে যানবহন চলাচল, মানুষের আনাগোনা দেখে বোঝার উপায় নেই যে বিধিনিষেধ ও লকডাউন চলছে। 

বিধিনিষেধে বলা হয়েছে কাচামাল, নিত্য প্রয়োজনীয় মুদি দোকান বিকেল পাচঁটা প্রর্যন্ত খোলা থাকবে। নির্ধারিত সময়ের পর আর দোকান খোলা রাখা যাবে না।

সকালে বাড়ছে প্রচুর মানুষের আনাগোনা আর সন্ধ্যা হলেই নগরীর বিভিন্ন মহলের দোকানগুলোতে চায়ের দোকানগুলোতেও  চার -পাচঁজন কি তার অধিক জড় হয়ে একসাথে আড্ডা এবং ধুমপানের দৃশ্য চোখে পড়ার মত।নেই কারো মুখে সেইভটি মাকস।কোনো ভাবেই স্ব্যাস্থবিধি এবং সামাজিক দুরত্ব মানা হচ্ছে না। 

এদিকে ১০০ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালে  ভর্তি করোনা রোগীর সংখ্যা ১১৯  জন।  এরই মধ্যে দেখা দিয়েছে অক্সিজেন ও জনবল সংকট। যা এখনো কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হয়নি। 

হাসপাতাল সুত্রে জানা যায়, ১০০ শয্যাবিশিষ্ট করোনা হাসপাতালে রোগি ভর্তি হয় ১১৯ জন।এর মধ্য পজেটিভ আসে ৯৪ জনের। উপসর্গ নিয়ে ভর্তি আছেন আরো ২৫ জন।   

খুলনা সিভিল সার্জনের কার্যালয় থেকে জানা যায়,খুলনা জেলায় কোভিড রোগির সংখ্যা দাড়িয়েছে ১০ হাজার ৭৫১ জন। এর মধ্যে নগরে শনাক্ত ৮ হাজার ৭৪০জন।জেলায় মারা গেছে ১৮৪ জন এবং নগরে মারা গেছে ১৪৪ জন।গত ২৪ ঘন্টায় খুলনা জেলায় পিসিআর ল্যাবে ৩০৩ জনের নমুনা পরীক্ষায় ৭৯ জনের করোনা পজেটিভ শনাক্ত হয়েছে।

শনাক্তের হার ২৬.০৭ শতাংশ।  হাসপাতালের ফোকাল পারসন সুহাস রঞ্জন হালদার জানান,  করোনা হাসপাতাল ১০০ শয্যাবিশিষ্ট হলে ও এর চেয়ে বেশি রোগি ভর্তি থাকছেন।

যার কারনে নির্ধারিত জনবল নিয়ে তাদের চিকিৎসা সেবা দিতে হিমশিম খেতে হচ্ছে।ফলে বাড়তি শয্যার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। আইসিইউ ও এইচডিইউ শয্যা আগের চেয়ে দ্বিগুন করা হয়েছে। তারপর সেগুলো পূর্ণ থাকছে।

এরই মাঝে আমাদের করোনা ইউনিট ২ চালু করার প্রস্তুতি আছে।এছাড়া ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের কাছে চিকিৎসক,নার্স ও পরিচ্ছন্ন কর্মীসহ জনবল চেয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ