About Us
শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১
  • সোশ্যাল প্ল্যাটফর্ম:
মাসুম বিল্লাহ্ - (Bagerhat)
প্রকাশ ০৫/০৫/২০২১ ০৯:১৬এ এম

দু’দিন ধরে পুড়ছে সুন্দরবন

দু’দিন ধরে পুড়ছে সুন্দরবন Ad Banner

পুর্ব-সুন্দরবনের শরনখোলা রেঞ্জের ২৪নং কমর্পামেন্টের আওতাধীন দাসের ভাড়ানী টহল ফাঁড়ির মাঝেরচর এলাকায় গহীন সুন্দরবনে সংঘঠিত আগুন  দু’দিনেও পুরোপুরি নিয়ন্ত্রনে আনা সম্ভব হয়নি।

তবে, বনবিভাগের দাবী হঠাৎ বৃষ্টি ও ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ইউনিটের প্রানপন চেষ্টায় আগুন ইতিমধ্যে নিয়ন্ত্রনে এসেছে।  এছাড়া গহীন সুন্দরবনে অগ্নিকান্ডের রহস্য জানতে, শরনখোলা রেঞ্জের এসিএফ মো. জয়নাল আবেদীনকে প্রধান এবং চাঁদপাই রেঞ্জের এসিএফ মো. এনামুল হক ও ধানসাগর ষ্টেশন কর্মকর্তা (এসও) মো. ফরিদুল ইসলাম সহ তিন সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বনবিভাগ। ওই কমিটিকে আগামী সাত কার্য দিবসের মধ্যে আগুন লাগার মুল কারন জানাতে বলা হয়েছে।   

আগুন নিয়ন্ত্রনের বিষয়ে জানতে চাইলে বিভাগীয় বনকর্মকর্তা ডিএফও মোহম্মদ বেলায়েত হোসেন জানান, বনের আগুন ইতিমধ্যে নিয়ন্ত্রনে এসেছে। তবে, কিছু কিছু স্থান থেকে এখনো ধোঁয়া উড়তে দেখা যাওয়ার কারনে ফায়ার সার্ভিসের ৩টি ইউনিটের সদস্যরা পানি সরবারহের কাজ অব্যাহত রেখেছেন।  ফায়ার সার্ভিসের শরনখোলা ইউনিটের ইনচার্জ মো. আ. ছাত্তার হোসেন অগ্নিকান্ড এলাকা থেকে (মঙ্গলবার) বিকাল চারটায় মুঠোফোনে জানান, এখনো আগুন নিয়ন্ত্রনে আসেনি। আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি এবং কখন নাগাদ পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ হবে তা নিশ্চিত করে বলা যাচ্ছে না।   

উল্লেখ্য, ৩মে সোমবার সকাল অনুমান দশটার দিকে শরনখোলা ও চাঁদপাই রেঞ্জের মধ্যবর্তী দাসের ভাড়ানী এলাকায় ধোয়ার কুন্ডালী উড়তে দেখে বনরক্ষীদের খবর দেন স্থানীয়রা। খবর পেয়ে শরনখোলা রেঞ্জের ষ্টেশন কর্মকর্তা আ. মান্নানের নেতৃত্বে দাসের ভাড়ানী, ভোলা ও নাংলী টহল ফাড়ির একদল বনরক্ষী সহ স্থানীয় সিপিজির সদস্যরা ঘটনাস্থলে এলাকায় যান এবং ফায়ার সার্ভিসের একটি ইউনিট একই দিন দুপুরে ওই এলাকায় পৌছালেও লোকালায় হতে অগ্নিকান্ডের এলাকা দুর্গম হওয়ায় বিকাল পাঁচটা পর্যন্ত তারা ঘটনাস্থলে পানি সরবারহ করতে পারেননি। 


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ