About Us
শনিবার, ১৫ মে ২০২১
  • সোশ্যাল প্ল্যাটফর্ম:
MD Ebrahim ali - (Bogura)
প্রকাশ ০৫/০৫/২০২১ ০৯:০৮এ এম

সমাজে অপরাধ সংঘটিত হওয়ার পেছনে কে দায়ী

সমাজে অপরাধ সংঘটিত হওয়ার পেছনে কে দায়ী Ad Banner

অপরাধ শব্দটির বিস্তৃত ব্যাপক । আর এই অপরাধ শব্দটি শুনলেই কেমন যেন একটা অনুভুতি নাড়া দিয়ে ওঠে। একটুখানি চিন্তা করে দেখুন আপনার সমাজে অপরাধ সংঘটিত হয় কেন? অপরাধ আর অপরাধী পরস্পর শব্দটিকে ভেবে দেখুন।  অপরাধ সংঘটিত হওয়ার পেছনে দায়ী আমাদের সমাজ এবং আমাদের অসচেতনতা। অপরাধ হওয়ার কারণ সমূহ নিম্নরূপঃ

বেকারত্বঃ  অপরাধ সংঘটিত হওয়ার পেছনে বড় ভূমিকা রেখেছে বেকারত্ব। বেকারত্ব অপরাধের একটা প্রধান কারণ । একজন ব্যক্তি পড়াশোনা করে চাকরির খোঁজে বের হয়ে যায়।শত চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়ে পড়ে তখন সে কোনো পথ খুঁজে না পাওয়ায় অপরাধ করতে বাধ্য হয়। আবার অনেকে সমাজের কাছে লাঞ্চিত হয়েও অপরাধ করতে বাধ্য হয়। 

মাদকের সহজলভ্যতাঃ আমাদের সমাজে অপরাধ সংঘটিত হওয়ার পেছনে বড় ভূমিকা রেখেছে মাদকদ্রব্য । আমরা লক্ষ্য করলে দেখতে পাই, যারা কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে পড়াশোনা করছি তারা বিভিন্ন রকম বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিচ্ছে । বিভিন্ন রকম বন্ধুদের সাথে চলছে কেউ কেউ এতে আবার বন্ধুদের সাথে বিভিন্ন নেশায় আসক্ত হয়ে পড়ছে। যারা মাদকের কাছে নিজেকে সোপর্দ করে তারা বারবার মাদক পাওয়ার জন্য বিভিন্ন ধরনের অপরাধ করতে বাধ্য হয়।যেমনঃ চুরি, ডাকাতি, ছিনতাই, মারামারি, ভাঙচুর, হত্যা করতেও দ্বিধা বোধ করে না। 

মাদক এবং মাদক ব্যবসায়ীর প্রলোভনঃ সিগারেট, গাঁজা, মদ, ভাঙ, চুরুট, ফেনসিডিল, ড্যান্ডি আঠা, ইয়াবা, ঘুমের ঔষধ, ড্রাগ, বিভিন্ন ইনজেকশনের মাধ্যমে ড্রাগ, পাউডার ড্রাগ ইত্যাদি।   বিভিন্ন রকম ভাবে প্রলোভন দেখিয়ে মাদকের প্রতি আকৃষ্ট করে। এতে ব্যক্তি নেশার ঘোরে কি করে নিজেও জানে না যে সে অপরাধ সংঘটিত করে ফেলেছে তাও মনে থাকে না। পরবর্তীতে আবার মাদক পাওয়ার জন্য অপরাধ করতেও দ্বিধা বোধ করে না। যা যুব সমাজ ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিচ্ছে। 

পিতা-মাতার অসচেতনতাঃ বর্তমান সময়ে আমাদের সমাজে অপরাধ সংঘটিত হওয়ার পেছনে বড় সমস্যা হলো অসচেতনতা। যারা চাকরিজীবি  সন্তানকে সঠিক সময় দিতে পারে না । স্কুল, কলেজ, বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে পড়াশোনা করছে কিন্তু ভালো পরিচর্যার অভাবে বিভিন্ন রকম নেশায় আসক্ত হয়ে পড়ে। কিন্তু পিতা-মাতা সে দিকে খেয়াল রাখে সন্তান যখন যে পরিমাণ টাকা চাচ্ছে তা তৎক্ষণাৎ দিয়ে দেয় জিজ্ঞেস করে না যে তার সন্তান এত টাকা কোথায় খরচ করছে। কাদের সাথে কোথায় আড্ডা দিচ্ছে সে দিকে খেয়াল না থাকায় একদিন টাকা না পেয়ে উক্ত সন্তান পিতা-মাতাকে খুন পর্যন্ত করে বসে।এমনকি বিভিন্ন রকম অপরাধ করতে বাধ্য হয়।   

সমাজে অবহেলিত জনগোষ্ঠীঃ সমাজে যারা অবহেলিত জনগোষ্ঠী তাঁরা নিজেদের ক্ষুধার জ্বালা মেটাতে বিভিন্ন রকম অপরাধ সংঘটিত করতে বাধ্য হয়। আবার উচ্চ বিত্তরা তাদের স্বার্থ রক্ষায় অবহেলিত জনগোষ্ঠীকে অপরাধ করতে বাধ্য করে।    সুতারাং, সকলের উচিত আপনার সন্তানকে সময় দিন ।সে কখন কার সাথে কোথায় যাচ্ছে কি করছে কাদের সাথে আড্ডা দিচ্ছে সে দিকে খেয়াল রাখুন।এতে বেঁচে যাবে আপনার পরিবার, সমাজ,ও দেশ। তাই আমাদের সচেতন হতে হবে যেন আমার সন্তান মাদকের প্রতি আকৃষ্ট না হয় । গনমাধ্যমের মাধ্যমে মাদকের কুফল সম্পর্কে প্রচার করতে হবে এবং সকলে সচেতন হতে হবে।        


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ