About Us
শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১
  • সোশ্যাল প্ল্যাটফর্ম:
Shah alam Talukdar - (Sylhet)
প্রকাশ ০৪/০৫/২০২১ ০১:৪১এ এম

গণমাধ্যম হোক ভয়মুক্ত

গণমাধ্যম হোক ভয়মুক্ত Ad Banner

বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম সূচকে ১৮০ টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ১৫২। এটা শুনে অবাক হবেন না যে, আফগানিস্তানও এই সূচকে আমাদের উপরে। সংবাদপত্রকে বলা হয় সমাজের আয়না।

কিন্তু অনেকেই হয়তো বিভিন্ন ভাবে সাংবাদিকদেরকেই দোষ দিবেন, তবে সঠিক সাংবাদিকতার প্রধান অন্তরায় বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন। বেশিরভাগ মানুষই হয়তো জানেন না, এখানে প্রায় ১৪ টি ধারাই হচ্ছে অ-জামিনযোগ্য। বিচার প্রক্রিয়া শুরুর আগেই যদি আপনি গ্রেফতার হোন এবং পরে নির্দোষ প্রমাণিতও হোন, মাঝখানে হয়তো কয়েকমাস আপনাকে বিনা দোষেই জেল খাটতে হবে।

আপনি ভাবছেন, আপনার আশেপাশে হয়তো অনেক সাংবাদিক! তাইনা? আসলে স্থানীয় পর্যায়ে অসংখ্য সংবাদমাধ্যম বের হলেও, এখানে অনেক ক্ষেত্রেই রয়েছে গুনগত মানের অভাব। বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম নিজেদের কর্মী বাড়াতে নিয়ে নিচ্ছেন অল্প শিক্ষিত, আইডি কার্ড স্বর্বস্ব অথবা কোন ক্ষেত্রে নাম মাত্র শিক্ষিত অনেককেই কিন্তু ফলাফল আপনাদের চারপাশেই রয়েছে, তাই সেটা নিয়ে কিছুই বলবো না।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন মূলত করা হয়েছিলো, সাইবার নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য কিন্তু বাস্তবে দেখা যায়, অনেকে শুধুমাত্র উপরমহলের চোখে পড়ার জন্য মামলা ঠুকে দেন। যার নামে মামলা করা হয়, তাকে অনায়াসে গ্রেফতার করা যায়। আগেই বলেছি এই আইনে প্রায় ১৪ টি ধারাই রয়েছে অজামিনযোগ্য। কিছু জাতীয় গণমাধ্যমে মাঝেমধ্যেই দেখা যায়, খুব ঠুনকো বিষয় সামনে নিয়ে আসে, অনেকেই এর কারণ হিসেবে বলেন ভিউ বাড়ানো বা আলোচনায় থাকা। কিন্তু বেশিরভাগেরই একই বক্তব্য ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের কারণে সবাই মন খুলে প্রকৃত সত্য তুলে ধরতে ভয় পান।

যারা উঠতি সাংবাদিক, তাদের জন্য খুব ছোট একটা অনুরোধ, সাংবাদিকতা করতে হলে উচ্চশিক্ষিত হতেই হবে তা নয়, তবে অবশ্যই যেই বিষয় নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করতে চান সেই বিষয় আপনার প্রচুর পড়াশোনা করা জরুরি, তাতে আপনার বিশ্লেষণ, উপস্থাপন গ্রহণযোগ্য হবে। আর নাহয় আপনার করা লাইভ ভিডিও সবাই দেখবে, তবে আপনার হয়তো সেই অবস্থান তৈরী হবেনা। গণমাধ্যম হবে ভয়মুক্ত, এটাই প্রত্যাশা।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ