About Us
Abdul majid
প্রকাশ ০১/০৫/২০২১ ০২:৩১পি এম

আজ পহেলা মে দিবস

আজ পহেলা মে দিবস Ad Banner

করোনা মহামারির কারণে গত বছরের মতো এবারও তেমন কোনো অনুষ্ঠান নেই।  শ্রমজীবী মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার দিন আজ ১ মে। মহান মে দিবস। তবে গত বছরের মতো এবারও দিবসটি এমন সময় এলো যখন সারা বিশ্বে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণ আবার বেড়ে চলেছে৷  দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী পৃথক বাণী দিয়েছেন। 

সংক্রমণ প্রতিরোধে চলছে কঠোর লকডাউন। ঈদের আগে কড়াকড়ি শিথিল হচ্ছে না। এমন পরিস্থিতিতে সবচেয়ে বেশি কষ্টে আছে দরিদ্র ও শ্রমজীবা মানুষরা।   এই মহামারির প্রভাবে দেশের ১ কোটি ৬৮ লাখ মানুষ নতুন করে দরিদ্র হয়েছে বলে গবেষণা সংস্থা সিপিডি বলছে। সামনে অনেকের চাকরি হারানোর শঙ্কাও রয়েছে। 

 এই পরিপ্রেক্ষিতে শ্রমজীবী মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য শ্রমিকদের আত্মত্যাগের দিন হিসেবে ‘মালিক-শ্রমিকনির্বিশেষ মুজিববর্ষে গড়ব দেশ’ প্রতিপাদ্য সামনে রেখে নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে সারা দেশে আজ পালিত হবে মহান মে দিবস। 

দিনটি শ্রমজীবী মানুষের আন্দোলন-সংগ্রামে অনুপ্রেরণার উৎস। মেহনতি মানুষের চরম আত্মত্যাগে ন্যায্য অধিকার আদায়ের এক অবিস্মরণীয় দিন।   

১৮৮৬ সালের ১ মে আমেরিকার শিকাগো শহরে হে মার্কেটের শ্রমিকরা শ্রমের ন্যায্য মূল্য এবং আট ঘণ্টা কাজের সময় নির্ধারণ করার দাবিতে ধর্মঘট শুরু করেছিলেন। সেই আন্দোলন দমনে শ্রমিকদের ওপর গুলি চালানো হয়। ১০ জন শ্রমিক নিহত হন। এর প্রতিবাদে উত্তাল হয়ে ওঠে বিক্ষোভ। প্রবল জনমতের মুখে যুক্তরাষ্ট্র সরকার শ্রমিকদের আট ঘণ্টা কাজের সময় নির্ধারণ করতে বাধ্য হয়। 

১৮৮৯ সালের ১৪ জুলাই ফ্রান্সের প্যারিসে আন্তর্জাতিক শ্রমিক সম্মেলনে শিকাগোর শ্রমিকদের সংগ্রামী ঐক্যের অর্জনকে স্বীকৃতি দিয়ে ১ মে আন্তর্জাতিক শ্রমিক সংহতি দিবস ঘোষণা করা হয়। ১৮৯০ সাল থেকে সারা বিশ্বে শ্রমিক সংহতির আন্তর্জাতিক দিবস হিসেবে মে মাসের ১ তারিখে ‘মে দিবস’ পালিত হচ্ছে। 

 করোনা মহামারির কারণে গত বছরের মতো এবারও তেমন কোনো অনুষ্ঠান নেই। উন্মুক্ত স্থানে তেমন সভা সমাবেশ না থাকার কারণে বাংলাদেশ উদীচী শিল্পীগোষ্ঠীর আয়োজনে বেলা ১১ টায় ভার্চুয়াল আলোচনা ও সংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হওয়ার কথা রয়েছে। 

শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান বলেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণের আশঙ্কায় আমরা মে দিবসের সব কর্মসূচি স্থগিত করেছি। তবে পরিস্থিতি উন্নত হলে পরে দেখা যাবে। তিনি আরও বলেন, বর্তমান সরকার শ্রমিকবান্ধব সরকার। সরকার শ্রমিকদের অধিকার বাস্তবায়নে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। যার ফলে শ্রমিকরা অতীতের যেকোনও সময়ের তুলনায় এখন ভালো সময় পার করছে। শেখ হাসিনা সরকার অব্যাহত থাকলে শ্রমিকরা আরও উন্নত জীবন পাবে।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ