About Us
M. R. Sumon
প্রকাশ ০১/০৫/২০২১ ১২:৩৭এ এম

মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, কবি, লেখক ও গবেষক সোহেল মাজহার

মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, কবি, লেখক ও গবেষক সোহেল মাজহার Ad Banner

মুক্তিযোদ্ধার সন্তান, কবি, লেখক ও গবেষক সোহেল মাজহার ১৯৭৬ সালের ১০ ডিসেম্বর ময়মনসিংহের বাগমারায় জন্মগ্রহণ করেন। কবির পৈতৃক নিবাস ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ের পাগলা থানাধীন নিগুয়ারী মধ্যপাড়া গ্রামে।

পিতা মোঃ মফিজুল হক, ১৯৭৭ ও ১৯৯২ সনে গফরগাঁও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ছিলেন এবং ময়মনসিংহ সদর মহকুমা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন ১৯৬৭ ও ১৯৭০ সনে। মুক্তিযুদ্ধকালীন ৩নং সেক্টরের সোনার বাংলা যুব শিবিরের পলিটিক্যাল মটিভেটর ও গফরগাঁও থানা মুক্তিবাহিনীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা হিসাবে রণাঙ্গনে সরাসরি উপস্হিত থেকে মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন। তাঁর সহোদর ছোট ভাই জহিরুল হক (যুদ্ধকালীন গফরগাঁও কলেজের বি এ বর্ষের ছাত্র) ভালুকায় যুদ্ধরত অবস্হায় শহীদ হন। তাঁর আরেক সহোদর বজলুল হকও মুক্তিযোদ্ধা। মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তান তাদের বাহিনী বাড়ি পুড়িয়ে দেয়।

জনাব মোঃ মফিজুল হক বর্তমানে ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য। একজন সফল জনপ্রতিনিধি হিসেবে নিগুয়ারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে চারবার দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। মাতাঃ মরহুমা মেহের সুলতানা (১৯৯১ সালের ২১ মে ইন্তেকাল করেছেন)।

সোহেল মাজহার ৬ ভাই বোনের মধ্যে ৫ম এবং একমাত্র ভাই। সবার বড় বোন মফিদা আকবর : সাহিত্যিক, সাংবাদিক ও উপন্যাসিক। কবি সোহেল মাজহারের শিক্ষা জীবন বড় বৈচিত্র্যময়। খাইরুল্লাহ সরকারি হাইস্কুলে বোনদের সাথে প্রাথমিক স্কুলে গমন, নিগুয়ারী মধ্যপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ১ম শ্রেণি, কাওরাইদ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ২য় ৩য় ও ৪র্থ শ্রেণি, গয়েশপুর ফাজিল মাদরাসা থেকে ৫ম শ্রেণি পাঠ শেষ করেন। তারপর কিছুদিন চরপাড়া জামিয়া ইসলামিয়া মাদরাসায় এক বৎসর লেখা পড়া করেন পরে আবার কাতলাসেন আলিয়া মাদরাসায়  ৬ষ্ঠ শ্রেণি পাঠ, তারপর ত্রিশাল আব্বাসিয়া ফাজিল মাদরাসায় ৭ম ও ৮ম শ্রেণি সম্পন্ন করেন। সর্বশেষ বাদশাহ ফয়সল ইনস্টিটিউট থেকে ১৯৯১ সনে এস. এস. সি. ১ম শ্রেণিতে উত্তীর্ণ হন। গাজীপুর আজিমউদ্দিন কলেজে ভর্তি হন ৯২-৯৩ সেশনে, সেই সময় ছিলেন কলেজ ছাত্রলীগ শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক। রাজনৈতিক কারণে ২ বছরের জন্য বহিষ্কার হন। পরবর্তীতে মাওনা পিয়ার আলি কলেজ থেকে ১৯৯৫ সনে প্রথম শ্রেণিতে উত্তীর্ণ হন। ৯৫-৯৬ সেশনে ব্যবস্হাপনা বিষয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। ২০০০ সনে স্নাতক এবং ২০০২ সনে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন।

লিখতেন স্কুল জীবন থেকেই তবে লেখক হিসেবে আত্মপ্রকাশ '৯৬ এ। প্রকাশিত গ্রন্থসমূহঃ (১)মুক্তিযুদ্ধে গফরগাঁও -২০১০ (গতিধারা) (২)ময়মনসিংহ জেলার মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস -২০১৩ (গতিধারা) (৩)জলের ছোবল তাঁতঘরের নকশা (কবিতাগ্রন্থ)-২০১৩ (বিশ্বসাহিত্য ভবন) (৪)মুক্তিযুদ্ধ: জাতীয় প্রেক্ষাপট ও পাগলা থানা-২০১৮ (বিশ্ব সাহিত্য ভবন) (৫)মন্ত্র বাঁশির বাদক(কবিতাগ্রন্থ) -২০১৮ (স্বপ্ন পরম্পরা)

সোহেল মাজহার ২০০১ সাল থেকে সম্পাদনা করছেন শিল্প সাহিত্যের মননের কাগজ 'কাশপাতা'। যুক্ত ছিলেন বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্র থেকে প্রকাশিত কিশোর তরুণদের উৎকর্ষধর্মী মাসিক 'আসন্ন' এর সহকারী সম্পাদক হিসেবে। 'মন্ত্র বাঁশির বাদক' কাব্যগ্রন্থে কবিতার দুরূহ সাধনায় উত্তীর্ণ হয়েছেন। প্রতি ছত্রে, লাইনে, লাইনের গ্যাপে বঙ্গবন্ধুর শিল্প ঋদ্ধ ইমেজ ও বিমূর্ত ছব্দছবি আঁকেন যার পাঠ উদ্ধার কেবল মগ্ন পাঠকের পক্ষেই সম্ভব।

বর্তমানে সোহেল মাজহার সহকারী অধ্যাপক, ব্যবস্থাপনা বিভাগ, বরমী ডিগ্রী কলেজ, বরমী, গাজীপুর। কবির সামগ্রিক সফলতা কামনা করি।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ