About Us
শুক্রবার, ০৭ মে ২০২১
  • সোশ্যাল প্ল্যাটফর্ম:
Md.Shahidul Islam - (Bandarban)
প্রকাশ ৩০/০৪/২০২১ ০৯:৫৭পি এম

যৌথ অভিযানে অবৈধ পাথর ও মেশিন জব্দ

যৌথ অভিযানে  অবৈধ পাথর ও মেশিন জব্দ Ad Banner

সম্প্রতিক দেশের বিভিন্ন ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া, প্রিন্ট ও অনলাইন গনমাধ্যমে থানচিতে বিভিন্ন ঝিড়ি ঝর্নার পাথর উক্তোলনে পরিবেশ বিপর্যয়, সুপেয় পানির অভাবে স্থানীয়রা, অবৈধ পাথর উত্তোলনে হুমকির মূখে প্রাকৃতিক পরিবেশ,পরিবেশ বিপর্যয়ের আশংঙ্খা করেছে স্থানীয়রা এরুপ বিভিন্ন শিরোনামে সংবাদ প্রকাশিত হলে বৃহস্পতিবার (২৯ শে এপ্রিল) দুপুরে থানচি উপজেলা প্রশাসন, বান্দরবান পরিবেশ অধিদপ্তর যৌথ আয়োজনে অবৈধ পাথর উত্তোলন কারীদের বিরুদ্ধে একটি অভিযান পরিচালনা করেন।

গতকাল বৃহস্পতিবার (২৯ শে এপ্রিল) দুপুরে গোপন সংবাদে ভিক্তিতে অভিযান পরিচালনা করলে থানচি সড়কের কানজৈ পাড়া, ঝিড়ি ঝর্না, দাকছৈ পাড়া, মাংগই ঝিড়ি, মেনরোয়া পাড়া, শিলা ঝিড়িতে বিপুল পরিমান পাথর জব্দ করেন অভিযানকারী দল এ ছাড়াও স্তুপকৃত পাথরের সাথে ২ টি  পাথর ভাঙ্গার মেশিনও জব্দ করা হয়, পরবর্তিতে উপস্থিত সকলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ি পাথর ভাঙ্গার অবৈধ মেশিন গুলো আগুনে পুড়ে নষ্ট করে দেয়া হয়।

অভিযান পরিচালনা কালে অবৈধ পাথর উত্তোলন কারী মালিক পক্ষের কাউকেই খুজে পাওয়া যায় নি তাই জব্ধকৃত পাথর গুলো ৩৬১ নং থাইক্ষ্যং মৌজা হেডম্যান মংপ্রু মারমা নিকট জিম্মায় রাখা হয়েছে।

পরিবেশ অধিদপ্তরে বান্দরবান পাবর্ত্য জেলা পরিদর্শক ও জুনিয়র ক্যামিষ্ট মোঃ আবদুস সালাম বলেন, পাথর খেকোরা ক্ষমতাসীন সরকার দলীয় নাম ভাঙ্গিয়ে একটি সিন্ডিকেট চক্রের মাধ্যমে অবৈধ ভাবে পাথর উত্তোলন করে আসছে, এই সিন্ডিকেট চক্রটি খুবই শক্তিশালী, কাজেই অভিযান পরিচালনায় আইনশৃংঙ্খলা বাহিনীর সদস্য পুলিশ, র‌্যাব বা উর্ধতন কর্তৃপক্ষ ছাড়া এ ধরনের অভিযান পরিচালনা সম্ভব না। অভিযানের ব্যাপারে নিজের বক্তব্য সাংবাদিকদের কাছে এই ভাবেই প্রকাশ করেন বান্দরবান পরিবেশ অধিদপ্তরের পরিদর্শক মোঃ আবদুস সালাম ।

এ অভিযান পরিচালনা করেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও উপজেলা প্রধান মেজিষ্ট্রেট আতাউল গনি ওসমানী, বান্দরবান জেলা পরিবেশ অধিদপ্তরে পরিদর্শক ও জুনিয়র ক্যামিষ্ট মোঃ আবদুস সালাম, থানচি থানার এএসআই মিটন দে, এবং পুলিশ সদস্য ও আনসার সদস্য।উল্লেখ্য যে, বান্দরবানে থানচি উপজেলা এই শক্তিশালী সিন্ডিকেট চক্রটি  থানচি সড়কসহ বিভিন্ন এলাকায় ঝিড়ি-ঝর্না, খাল, নদী থেকে গত নভেম্বর হতে অবৈধ  ভাবে পাথর উক্তোলন ও পাচার করে আসছিল। যার কারনে থানছি উপজেলা ও  আশেপাশের বিভিন্ন গ্রামে বিশুদ্ধ পানির সংকটের মধ্যে জনজীবন অতিষ্ট হয়ে পড়েছে বসবাসকারী স্থানীয়দের।

স্থানীয়রা মনে করে পাথর খেকোরা এখনও প্রশাষনের ধরা ছোয়ার বাইরে থেকে গেছে।তাই অচিরেই এর প্রতিকার করার আহ্বান জানিয়েছেন সচেতন মহলের জনগণ, এবং পরিবেশ বাদি বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ