About Us
শুক্রবার, ১৪ মে ২০২১
  • সোশ্যাল প্ল্যাটফর্ম:
Md. Ibrahim - (Bhola)
প্রকাশ ২৭/০৪/২০২১ ০৮:২৩পি এম

তরমুজ সিন্ডিকেটের নজিরবিহীন জালিয়াতি

তরমুজ সিন্ডিকেটের নজিরবিহীন জালিয়াতি Ad Banner

মৌসুীম ফল হিসেবে তরমুজের বেশ ভালো চাহিদা সব সময়ই। গরম আবহাওয়া ও রোজার মাসে ক্রেতাদের পছন্দের তালিকায় শীর্ষে থাকে এটি। এবার বাজারে গিয়ে অনেকের মাথায় হাত অনেকে আবার কেনার আশা ছেড়ে হতাশ হয়েই ফিরেন। তাঁরা জানান, অন্যান্য বছর আকারভেদে প্রতিটির দাম ধরা হলেও এবার তরমুজ বিক্রি হচ্ছে কেজি দরে। রোজার আগে সহনীয় থাকলেও দিনে দিনে নাগালের বাইরে চলে যাচ্ছে দাম।     

কৃষকের কাছ থেকে জমিতে থাকা অবস্থায় পাইকারি ক্রেতারা কিনে নেন। ন্যায্যমূল্য না পাওয়ার অভিযোগ তাদের।   

বাজার  বিশ্লেষকরা বলছেন, প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে শুরু করে রাজধানীর বাজার সর্বত্র চলছে এই কারসাজি। চাহিদার সুযোগে দাম বাড়ানোর কৌশল কে প্রতারণা হিসেবে দেখছেন তারা।   

বাজার বিশ্লেষক অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক ড. এম আবু ইউসুফ বলেন, একটি একটি মধ্যস্বত্বভোগী তাঁরা কিন্তু এখান থেকে মূল বেনিফিটটা নিয়ে যাচ্ছে। এই জায়গাটার কিন্তু আমার মনে হয় বাজার তদারকি করা দরকার। এবং এই কেজিতে কত হওয়া উচিত সেটিও আমি মনে করি যে সরকারের পক্ষ থেকে একটুও নির্ধারণ করে দেয়া উচিত। যে অন্তত বাজারে চাহিদা এবং যোগানের সাথে সামঞ্জস্য রেখে একটা সহনীয় দাম নির্ধারণ করা উচিত। যাতে এই সিজনাল ফলটি সবাই অন্তত ধনী-গরিব নির্বিশেষে সবারি যাতে ক্রয় সাধ্যের মধ্যে থাকে।     

এর আগে কৃত্রিম রং ও ক্ষতিকর রাসায়নিক দিয়ে পাকানো সংরক্ষণের অভিযোগ উঠেছিল বিভিন্ন জায়গায়। বাজার তদারকি করলে দাম নিয়ন্ত্রণে ও নিরাপদ খাদ্য সরবরাহ সম্ভব হবে বলে মনে করেন বিশ্লেষকরা।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ