About Us
Abdul Kadir
প্রকাশ ২৩/০৪/২০২১ ০৮:২৩পি এম

হাইমচরে গৃহবধূকে অপহরণের ঘটনায় আটক এক

হাইমচরে গৃহবধূকে অপহরণের ঘটনায় আটক এক Ad Banner

চাঁদপুরের হাইমচরে এক গৃহবধুকে অপহরন মামলায় অভিযুক্ত এক ব্যক্তিকে আটক করেছে হাইমচর থানা পুলিশ। গত বৃহস্পতিবার (২২ এপ্রিল) রাতে অভিযান পরিচালনা করে তাকে আটক করা হয়।

আটককৃত আসামী ৩নং আলগী দক্ষিন ইউনিয়নের গন্ডামারা গ্রামের বাসু পাটওয়ারীর ছেলে ওমর ফারুক পলাশ। 

মামলাসূত্রে জানাজায়, মামলার বাদি বিলকিছ বেগম ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের একজন সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার প্রার্থী। তার নির্বাচনি কাজে সহযোগিতার সুযোগে আসামী পলাশ তাদের বাড়িতে আসা যাওয়া করতেন। ঐ সময়ে তার মেয়ের সাথে পলাশের পরিচয় হয়। বিলকিস বেগমের মেয়ের জামাই কাতার প্রবাসী হওয়ায় মেয়ে বাপের বাড়িতেই থাকেন। তার ঘরে একটি ৫ বছরের কন্যা সন্তান রয়েছে।

পলাশের সাথে তার মেয়ের পরিচয় হওয়ার পর থেকেই পলাশ তার মেয়েকে বিবাহ করার জন্য প্রস্তাব দেয়। এতে তার মেয়ে রাজি না হওয়ায় গত ২০ এপ্রিল পূর্বচরকৃষ্ণপুর গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে গৃহবধুকে তুলে নিয়ে ওমর ফারুক পলাশ তাকে জোর পূর্বক বিবাহ করার জন্য চাপ সৃষ্টি করে। গৃহবধু তাকে বিয়ে করতে রাজি না হওয়ায় তার উপর নির্যাতন করে। এ ঘটনায় ঐ গৃহবধুর মা বাদি হয়ে ওমর ফারুক পলাশ ও তার বাবা বাসু পাটওয়ারীকে আসামী করে হাইমচর থানায় অপহরন ও হত্যার চেষ্টা মামলা দায়ের করেন। 

হাইমচর থানা অফিসার ইনচার্জ মো. মাহবুবুর রহমান জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অভিযান চালিয়ে অপহরন ও হত্যা চেষ্টা মালার আসামীকে আটক করা হয়। আসামীকে চাঁদপুর কোর্টে প্রেরন করা হয়েছে। 

আসামী ওমর ফারুক পলাশের পারিবারিক সূত্রে জানাজায়, ওমর ফারুক পলাশের স্ত্রী ও ২ সন্তান রয়েছে। সে কিছু দিন যাবত ঐ গৃহবধুর সাথে পরকিয়ায় আশক্ত হয়ে যায়। তার পরকীয়ার কারনে তার স্ত্রী সন্তানদের নিয়ে বাপের বাড়ি চলে যায়।  এ বিষয় নিয়ে ওমর ফারুক পলাশকে নিয়ন্ত্রনে আনতে স্বক্ষম হয়নি তার পরিবার।

পারিবারিক সূত্রে আরো জানাজায়, ঐ মেয়ে স্বামী বিদেশ থাকায় সে পলাশের সাথে পরকীয়ায় লিপ্ত হয়। এ বিষয় নিয়ে ঐ নারী ও তার মাকে কয়েকবার তাদের পারিবারিক ভাবে বিষয়টি জানানো হয়। তার বিরুদ্ধে মামলা ও আটকের বিষয়ে তারা জানান, এটা তার কর্মের ফল। যে মেয়ের জন্য সে তার সংসার ও পরিবারের সাথে সম্পর্ক বিচ্ছিন্ন করেছে সেই মেয়েই তাকে জেলে দিয়েছে। আমরা এ দিনের অপেক্ষায় ছিলাম। সে তার অপরাধের সাজা সে নিজেই ভোগ করতে হবে। আমাদের পক্ষ থেকে তাকে কোন প্রকার সহযোগিতা করা হবে না।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ