About Us
rafiqul islam - (Shariatpur)
প্রকাশ ২১/০৪/২০২১ ০৫:৪৬এ এম

হয়রানির শিকার হচ্ছে পুরুষ

হয়রানির শিকার হচ্ছে পুরুষ Ad Banner

একই প্রতিষ্ঠানে কাজের সূত্রে পরিচয় পবন গুপ্ত ও রিয়া সেনের। প্রথম দিকে এক সঙ্গে কফি খেতে যেতেন। এক পর্যায়ে নিজেদের বন্ধুদের সঙ্গে পরিচয় করে দেয়া শুরু হয় তাদের। পরে সম্পর্কের ঘনিষ্ঠতা বাড়তে থাকে। ভালো লাগা থেকে ভালোবাসা। এক পর্যায়ে একসঙ্গে বসবাস শুরু করেন তারা। তবে শুরু থেকেই পবন গুপ্ত রিয়া সেন কে বলে আসছিলেন, তার বাবা-মায়ের আর কোন সন্তান নেই। সেক্ষেত্রে বাবা-মা যদি ওকে পছন্দ করেন এবং সেক্ষেত্রে তাদের বিয়ে হবে অন্যথায় সম্পর্কের ইতি টেনে নিতে হবে। এভাবে এক বছর পার হয়ে গেছে তাদের। একবার বাড়ি ফেরার পর পবন জানান, তার পরিবার থেকে বিয়ে ঠিক করা হয়েছে। সপ্তাহ খানেকের মধ্যে বিয়ে।

অন্যদিকে রিয়া সোজা দিল্লি পুলিশের কাছে গিয়ে পবনের নামে অভিযোগ করেন। অভিযোগে বলা হয় বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে পবন তাকে গত এক বছর ধরে ধর্ষণ করেছেন। পবন বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ছিল বলেই তিনি পবনের সঙ্গে বিছানায় গেছেন অন্যথায় যেতেন না। তবে পবনের দাবি আমি এ ধরনের কোনো প্রতিশ্রুতি কখনো দেইনি। আর সম্মতির ভিত্তিতে লিভ টুগেদার করলে ধর্ষণ হয় কিভাবে সেটাও আবার এক বছর ধরে।

উল্লেখ্য, গত মাসে ভারতের সুপ্রিম কোর্ট রুল জারি করে মে, কোন নারীর সম্মতির ভিত্তিতে একসঙ্গে বসবাসের পর ওই পুরুষের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ করতে পারবেন না। এমনকি ওই পুরুষ যদি তাকে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানায় সে ক্ষেত্রেও এ ধরনের অভিযোগ করার কোনো সুযোগ নেই।

ভারতের অপরাধ তদন্ত বিভাগ ইতোমধ্যে জানিয়েছে, ২০১৬ সালে ৩৮ হাজার ৯ শত ৪৭টি ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে। তার মধ্যে ১০ হাজারেরও বেশি অভিযোগ বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের। -সূত্র : দ্য গার্ডিয়ান

বাংলাদেশের আইনে এ ধরনের যুগান্তকারী পরিবর্তন আনার খুবই প্রয়োজন। কেননা সম্পর্ক ঠিক থাকলে নারীদের বিছানায় যেতে কোন সমস্যা নেই। আর যদি সম্পর্ক ভেঙে যায় তাহলেই ধর্ষণের অভিযোগ করে নারীরা। অনেক ক্ষেত্রে নারীরা সম্পর্ক ভেঙ্গে দিলে পুরুষেরা অভিযোগ করতে পারেন না।তাহলে আইন কি শুধু নারীর জন্য পুরুষের জন্য নয়?

অতএব এ ধরনের অসামঞ্জস্যপূর্ণ আইন এখনই পরিবর্তনের সঠিক সময়।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ