About Us
Md.Rashedul Islam - (Lalmonirhat)
প্রকাশ ০৮/০৪/২০২১ ০৫:৪৫পি এম

লালমনিরহাটে ধানক্ষেতে পোকার আক্রমণ, বোরো চাষিরা দিশেহারা

লালমনিরহাটে ধানক্ষেতে পোকার আক্রমণ, বোরো চাষিরা দিশেহারা Ad Banner

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় বোরো ধানে মাজরা পোকার আক্রমণে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন চাষিরা। 

হাতীবান্ধা উপজেলার ভেলাগুড়ি, সানিয়াজান, ফকিরপাড়া, নওদাবাস,  ও বড়খাতা ইউনিয়নের বেশকিছু চাষি মাজরা পোকার আক্রমণের কারণে ধানের ফলন কম হওয়ার আশঙ্কা করছেন।

হাতীবান্ধা উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে উপজেলার ১২টি ইউনিয়নে ৭ হাজার ৫ শ' হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষ করা হয়েছে। গত বছর এসব এলাকায় ৭ হাজার ৪শ' হেক্টর জমিতে বোরো ধান চাষ করা হয়েছিল। গত বছরের তুলনায় বোরো চাষের লক্ষ্যমাত্রা ১শ' হেক্টর বেশি রেকর্ড করা হয়েছে। এবছর টংভাঙ্গা, নওদাবাস, ভেলাগুড়ি, ফকিরপাড়া এবং বড়খাতা ইউনিয়নে বোরো চাষ বেড়েছে বলেও জানা গেছে।   

বোরো চাষিদের সাথে কথা হলে তারা জানান, প্রাকৃতিক দুর্যোগ না ঘটলে বিঘা (৩৩ শতক) প্রতি ২২ থেকে ২৮ মণ হারে ফলন পাওয়া যাবে। এর মধ্যে সেচ বাবদ সেচ যন্ত্রের মালিককে বিঘা প্রতি ১৫'শ থেকে ২ হাজার টাকা দিতে হয়। এক বিঘা জমি থেকে প্রায় ৫ হাজার টাকার খড় পাওয়া যায়। নিজের জমি হলে বিঘা প্রতি প্রায় দশ হাজার টাকা লাভ হতে পারে। 

হাতীবান্ধা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো: রফিকুল ইসলাম জানান, বর্তমানে মাঠের অবস্থা ভালো তবে কিছু কিছু জমিতে মাজরা পোকার আক্রমণ লক্ষ করা যাচ্ছে, কৃষকদের মালচিং পদ্ধতি অবলম্বন করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। 

তিনি আরও বলেন, মৌসুম অনুযায়ী এখন আউশের রোপন চলমান আছে। যেহেতু বর্তমান বাজারে ধানের দাম বেশি সেহেতু কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ না ঘটলে কৃষক লাভবান হবেন বলে আশা করা যাচ্ছে।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ