About Us
Md.Omor Ali Mollah
প্রকাশ ০৫/০৪/২০২১ ১১:০৪পি এম

কালীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের গনবিগপপ্তি

কালীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসনের গনবিগপপ্তি Ad Banner

করোনা ভাইরাস সংক্রমণের বিদ্যমান পরিস্থিতি পর্যালোচনায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় কর্তৃক সারাদেশব্যাপী অতিগুরুত্বপূর্ণ কতিপয় নির্দেশনা প্রদান করা হয়েছে। এরই ধারবাকিতায় গাজীপুরের কালীগঞ্জ উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক লকডাউন ঘোষনা করেছে।   

রোববার (০৪ এপ্রিল) বিকেলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শিবলী সাদিক স্বাক্ষরিত এক গনবিজ্ঞপ্তি এবং স্থানীয়ভাবে মাইকিং করার মাধ্যমে এ ঘেষাণা দেওয়া হয়।   মানুষের স্বাস্থ্যঝুঁকির কথা বিবেচনা করে আগামীকাল সোমবার (০৫ এপ্রিল) ভোর ৬টা থেকে আগামী রোববার (১১ এপ্রিল) ১২টা পর্যন্ত এ আদেশ বলবদ থাকবে বলেও জানান ইউএনও শিবলী সাদিক।   

নিম্নোল্লিখিত নির্দেশনা প্রতিপালনের জন্য তিনি সকলকে বিশেষভাবে অনুরোধ ককরেন।   

(১) সকল প্রকার গণপরিবহন (সড়ক, নৌ, রেল ও অভ্যন্তরীণ ফ্লাইট) বন্ধ থাকবে। তবে, পণ্য পরিবহন, উৎপাদন ব্যবস্থা, জরুরি সেবাদানের ক্ষেত্রে এই আদেশ প্রযোজ্য হবে না। এছাড়া, বিদেশগামী/বিদেশ প্রত্যাগত ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে এই নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে না।

(২) আইন-শৃঙ্খলা এবং জরুরি পরিষেবা, যেমন-ত্রাণ বিতরণ, স্বাস্থ্য সেবা, বিদ্যুৎ, পানি, গ্যাস/জ্বালানি, ফায়ার সার্ভিস, বন্দরসমূহের (স্থলবন্দর, নদীবন্দর ও সমুদ্রবন্দর) কার্যক্রম, টেলিফোন ও ইন্টারনেট, ডাক সেবাসহ অন্যান্য জরুরি ও অত্যাবশ্যকীয় পণ্য ও সেবার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট অফিসসমূহ, তাদের কর্মচারী ও যানবাহন এ নিষেধাজ্ঞার আওতা বহির্ভূত থাকবে। 

(৩) সকল সরকারি/আধাসরকারি/স্বায়ত্তশাসিত অফিস ও আদালত এবং বেসরকারি অফিস কেবল জরুরি কাজ সম্পাদনের জন্য সীমিত পরিসরে প্রয়োজনীয় জনবলকে স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানের নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থাপনায় অফিসে আনা-নেওয়া করতে পারবে। শিল্প-কারখানা ও নির্মাণ কার্যাদি চালু থাকবে। শিল্প-কারখানার শ্রমিকদের স্ব স্ব প্রতিষ্ঠান কর্তৃক নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থাপনায় আনা-নেওয়া করতে হবে। বিজিএমইও ও বিকেএমইএ কর্তৃক শিল্প-কারখানা এলাকায় নিকটবর্তী সুবিধাজনক স্থানে তাদের শ্রমিকদের জন্য ফিল্ড হাসপাতাল/চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে হবে। 

(৪) সন্ধ্যা ৬টা থেকে ভোর ৬টা পর্যন্ত অতি জরুরি প্রয়োজন ব্যতীত (ঔষধ ও নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি ক্রয়, চিকিৎসা সেবা, মৃতদেহ দাফন/সৎকার ইত্যাদি) কোনোভাবেই বাড়ির বাইরে বের হওয়া যাবে না। 

(৫) খাবারের দোকান ও হোটেল-রেস্তোরাঁয় কেবল খাদ্য বিক্রয়/সরবরাহ (Takeaway/Online) করা যাবে। কোনো অবস্থাতেই হোটেল-রেস্তোরাঁয় বসে খাবার গ্রহণ করা যাবে না। 

(৬) শপিংমলসহ অন্যান্য দোকানসমূহ বন্ধ থাকবে। তবে দোনসমূহ পাইকারি ও খুচরা জন্য online-এর মাধ্যমে ক্রয়-বিক্রয় করতে পারবে। সেক্ষেত্রে অবশ্যই সর্বাবস্থায় কর্মচারীদের মধ্যে আবশ্যিক স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে এবং কোনো ক্রেতা স্বশরীরে যেতে পারবে না। 

(৭) কাঁচাবাজারে এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত উন্মুক্ত স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে ক্রয়-বিক্রয় করা যাবে। বাজার কর্তৃপক্ষ/স্থানীয় প্রশাসন বিষয়টি নিশ্চিত করবে। 

(৮) ব্যাংকিং ব্যবস্থা সীমিত পরিসরে চালু রাখার বিষয়ে বাংলাদেশ ব্যাংক প্রয়োজনীয় নির্দেশনা প্রদান করবে।  তবে উপরোক্ত নির্দেশনাসমূহ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানান ইউএনও শিবলী সাদিক। 


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ