About Us
Mehedi Hasan Pial - (Dhaka)
প্রকাশ ০১/০৪/২০২১ ০৮:৫৮এ এম

‘ন্যায়সঙ্গত ও সম্মানজনক শান্তি চায় ইয়েমেন’

‘ন্যায়সঙ্গত ও সম্মানজনক শান্তি চায় ইয়েমেন’ Ad Banner

ইয়েমেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিশাম শারাফ আব্দুল্লাহ বলেছেন, সৌদি আগ্রাসনের ফলে সৃষ্ট চলমান যুদ্ধ অবসানের লক্ষ্যে তার দেশ একটি ‘সুষ্ঠু ও সম্মানজনক’ শান্তি প্রতিষ্ঠায় প্রস্তুত রয়েছে। ইয়েমেনের বিরুদ্ধে সৌদি আরবের চলমান আগ্রাসন ব্যর্থ হয়েছে বলেও তিনি মন্তব্য করেন।  আব্দুল্লাহ বুধবার লেবাননের আল-মায়াদিন টেলিভিশনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেন, “ইয়েমেনের জন্য একটি ন্যায়সঙ্গত ও সম্মানজনক শান্তি চায় সানা। ”   

তিনি আরও বলেন, “ইয়েমেনের ওপর আগ্রাসনের পেছনে সৌদি আরবের প্রকাশ্য ও গোপন সব উদ্দেশ্য ব্যর্থ হয়েছে।  সৌদি আরবের পক্ষ থেকে সম্প্রতি শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য যে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল ইয়েমেন তা নাকচ করে দেওয়ার কয়েকদিন পর দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এ বক্তব্য প্রকাশিত হল। গত সপ্তাহে ইয়েমেনের হুথি আনসারুল্লাহ আন্দোলন বলেছিল, সৌদি আরবের কথিত শান্তি প্রস্তাবে নতুন কিছু নেই।  সৌদি আরব গত সপ্তাহের সোমবার এক ‘শান্তি প্রস্তাব’ উত্থাপন করে যাতে বলা হয়, জাতিসংঘের নজরদারিতে ইয়েমেন জুড়ে যুদ্ধবিরতি পালিত হবে এবং দেশটির বিমান ও সমুদ্রবন্দরগুলো খুলে দেওয়া হবে। প্রস্তাবে সানা বিমানবন্দর খুলে দেওয়ার পাশাপাশি জ্বালানি ও খাদ্য আমদানির জন্য হুদায়দা সমুদ্রবন্দর খুলে দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। এই দু’টি বন্দরই আনসারুল্লাহ যোদ্ধাদের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। 

তবে এ প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে হুথি নেতারা বলছেন, একটি-দু’টি বন্দর খুলে দেওয়া যথেষ্ট নয় বরং ইয়েমেনের ওপর থেকে জলপথ ও আকাশপথের সমস্ত অবরোধ তুলে নিতে হবে। গত ছয় বছর ধরে চলা ওই অবরোধের কারণে ইয়েমেনে এ যাবতকালের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ মানবিক সংকট দেখা দিয়েছে।  ২০১৫ সালের মার্চ থেকে ইয়েমেনে আগ্রাসন চালিয়ে আসছে সৌদি আরব ও তার কয়েকটি মিত্র দেশ।  এছাড়া দেশটির বিরুদ্ধে জল, স্থল ও আকাশ পথে অবরোধ আরোপ করে রেখেছে আগ্রাসী জোট। এর ফলে দেশটিতে খাদ্য ও পানি সংকট দেখা দিয়েছে। এ পর্যন্ত সামরিক হামলা ও অবরোধের কারণে বহু মানুষ নিহত হয়েছে।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ