MD:ABDUL KADIR - (Chandpur)
প্রকাশ ০১/০৪/২০২১ ০১:৩২এ এম

প্রবাসে নিখোঁজ স্বামী, থাকার স্থান হচ্ছেনা শ্বশুর বাড়িতে

প্রবাসে নিখোঁজ স্বামী, থাকার স্থান হচ্ছেনা শ্বশুর বাড়িতে Ad Banner

চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জে নিখোঁজ প্রবাসী  শ্বামীর খোঁজ পেতে  হর্নিহয়ে দ্বারেদ্বারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন  রুনা বেগম। এমনটি গঠেছে ফরিদগঞ্জ উপজেলার ৭নং পাইকপাড়া ইউনিয়নের  পশ্চিম ভাওয়াল গ্রামে। গঠনার বিবরনের জানা যায় ২৬শে জানুয়ারী ২০০৬ সালে পারিবারিক সম্মতিতে আবুল বাশাের' র কন্য রুনা বেগমের সাথে বিয়ে হয়, পশ্চিম ভাওয়াল পাটওয়ারী বাড়ীর  জামালের  বড় ছেলে ফরিদের সাথে। তাদের কোলজুড়ে আসে নাঈম (১১) আইরিন(১০) নামে দুটি সন্তান। 

ভাগ্যউন্নয়নে  প্রবাসী শ্বশুর আবুল বাসার ও শ্যালক( স্ত্রীর ভাই) সুমনের অর্থায়নে বাহরাইন গমন করে, ভালোই চলছিল তাদের জীবন। হঠাৎ করে স্বামী নিখোঁজের সংবাদে রুনার সব তছনছ করে দেয়।     

স্বামী নিখোঁজ হওয়ার পরেও সন্তানদের আঁকড়ে ধরে বেঁচে থাকতে চাইছেন তিনি। কিন্তু সেক্ষেত্রে বাঁদ বাঁধে শ্বশুর জামাল, তিনি তার ছোট ছেলে সাইফুদ্দিন' র নামে বসতভিটা দলিল করে দেন। শ্বশুর জামালের ইয়াছমিন ও ফারহানা  নামে দুটি কন্যা সন্তান রয়েছে তারা স্বামীর সংসারে থাকে।

শ্বাশুড়ি হাজরা বেগম'র কাছে পুত্রবধু ও নাতি নাতনি সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা নিজেরা খাই অন্যের উপর তাদের দায়িত্ব কিভাবে নিব, ছোট ছেলে সাইফুদ্দিন  আমাদের ঋণ পরিশোধ করেছে বিধায়  আমরা তার নামে সম্পত্তি লিখে দিয়েছি,ছেলে ফেরত আসলে স্ত্রী সন্তানদের দায়িত্ব সেই নিব?   নিখোঁজ ফরিদের চাচা মজিবুর রহমান গঠনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, তারাতো আমাদের কাছে আসেনা। 

মামালা/ অভিযোগ দিলে তখন জানতেপারি। অসহায় স্ত্রী রুনা বেগম উপায়ান্তর না-পেয়ে  চাঁদপুরে আদালতে মামলাও করেন, সেখানে স্বামীর বাড়িতে থাকার নিশ্চয়তা না-পেয়ে ব্র্যাকের আইন বিচার ও সালিশ কেন্দ্রে অভিযোগ করেন,সেখানে ও শ্বশুর বাড়ির লোকজন স্বামীর খোঁজ না থাকায়  তার দায়িত্ব নিতে অস্বীকার করেন।   

একদিকে স্বামী নিখোঁজ অন্যদিকে নাই সন্তানদের মাথা গোছার ঠাঁই। এবিষয়ে উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা  মাকছুদা আক্তা' র  সাথে জানতে চাইলে তিনি বলেন- আমাদের নিকট লিখিত অভিযোগ করলে আমরা দেখব।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ