সোমবার, ০৮ মার্চ ২০২১
Belal Uddin - (Dhaka)
প্রকাশ ২১/০২/২০২১ ০২:৩১পি এম

কাউকে জীবনসঙ্গী হিসেবে পাওয়ার জন্য দোয়া করা

কাউকে জীবনসঙ্গী হিসেবে পাওয়ার জন্য দোয়া করা Ad Banner

কোন ছেলে অথবা মেয়ে একে অন্যকে পছন্দ করে, ভালো লাগে এবং তারা কোন রকম হারাম সম্পর্কে জড়ানো ছাড়া শুধুমাত্র আল্লাহর কাছে দোয়া করেন সেই কাঙ্ক্ষিত ও পছন্দ হওয়া মানুষটিকে জীবনসঙ্গী হিসেবে পাওয়ার জন্য। তার সঙ্গে বিবাহ যেনো আল্লাহ রব্বুল আলামীন সহজ করে দেন, ব্যবস্হা করে দেন। এরকম দোয়া করা তাদের জন্য জায়েজ আছে কিনা?  

এই প্রশ্নের উত্তরে আমরা সহীহ মুসলিমের একটা হাদিস উল্লেখ করতে পারি যেখানে রসূল (ﷺ) বলেছেন, “ বান্দার দোয়া আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ'লা ততক্ষণ পর্যন্ত কবুল করতে থাকেন যতক্ষণ না —   

• বান্দা পাপ কাজের জন্য দোয়া করে,   

• তাড়াহুড়া না করে, 

• আত্নীয়তার সম্পর্ক ছিন্ন না করে।   

তাহলে এখান থেকে বুঝা গেল এই তিনটি বিষয় ছাড়া আল্লাহর কাছে যেকোন দোয়া করা যেতে পারে। এই হাদিসের আলোকে আমরা বলতে পারি সুনির্দিষ্ট করে কাউকে জীবনসঙ্গী হিসেবে পাওয়ার জন্য আল্লাহর কাছে দোয়া করায় ইসলামি শরীয়তে মৌলিকভাবে কোন নিষেধাজ্ঞা নেই। এভাবে দোয়া করা যেতে পারে।     

তবে সেক্ষেত্রে ইসলামি শরীয়াহ একজন মুসলিমকে পরামর্শ দেয় তিনি যেনো আল্লাহর কাছে কিছুটা শর্ত জুড়ে দিয়ে কোন নির্দিষ্ট ব্যক্তিকে জীবনসঙ্গী হিসেবে পাওয়ার দোয়া করেন। অর্থাৎ আল্লাহ ওমুক ব্যক্তিকে আমার জীবনসঙ্গী হিসেবে পাওয়াটা যদি সার্বিকভাবে কল্যাণকর হয় তাহলে তাঁকে পাওয়াটা সহজ করে দিন। এভাবে দোয়া করাটা তাঁর নিজের জন্য সার্বিকভাবে ভালো এবং উপকারী।     

আল্লাহ সুবহানাহু ওয়াতাআ'লা বলেন - “ আর হতে পারে কোন বিষয় তোমরা পছন্দ করছ অথচ তা তোমাদের জন্য অকল্যাণকর। আর আল্লাহ জানেন এবং তোমরা জান না ”। [সূরা বাকারা : ২১৬]     সহীহ বুখারীর একটি হাদিসে আল্লাহর রসূল (ﷺ) ইস্তিখারা করার শিক্ষা দিয়েছেন যার অর্থ দুনিয়াবি যেকোন কাজে আল্লাহর কাছে মঙ্গল ও কল্যাণ কামনা করা।

সেই দোয়াটির একটি অংশ হল - “ দুনিয়ায় আমার বর্তমান ও ভবিষ্যতের দিক দিয়ে আপনি আমার জন্য অমঙ্গলজনক মনে করেন, তবে আপনি তা আমা হতে ফিরিয়ে নিন। আমাকেও তা হতে ফিরিয়ে রাখুন। আর যেখানেই হোক, আমার জন্য মঙ্গলজনক কাজ নির্ধারিত করে দিন। তারপর আমাকে আপনার নির্ধারিত কাজের প্রতি তৃপ্ত রাখুন ”। [বুখারী : ৬৩৮২]   

অতএব নির্দিষ্ট কোন ব্যক্তিকে জীবনসঙ্গী হিসেবে পাওয়ার জন্য দোয়া করাতে ইসলামি শরীয়তে কোন বাঁধা নেই। তবে শর্ত জুড়ে দিয়ে এভাবে দোয়া করা হয় আল্লাহ তার সাথে বিবাহে যদি আমার কল্যাণ লিখা থাকে তাহলে তা সহজ করে দিন, অন্যথায় আমার মন থেকে তাঁকে মুছে দিন। এরকম দোয়া করাটা বেশি উপকারী ও কল্যাণকর। আর কোন অবস্থাতেই তার সাথে হারাম সম্পর্কে জড়ানোর জন্য দোয়া করা যাবে না। তাহলে সেটি গুনাহের কারণ হবে।     

[বি.দ্র : কাউকে পছন্দ হলে তার বাসায় দ্রুত বিয়ের প্রস্তাব পাঠানোটাই কল্যাণকর, না হয় সেখানে ফিতনার দ্বার উন্মোচিত হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল ] 

মূল : শায়খ আহমাদুল্লাহ  শ্রুতিলিখন : জি.এম.নেওয়াজ আরিফ


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ