জাহাঙ্গীর আলম কবীর - (Satkhira)
প্রকাশ ১৩/০২/২০২১ ১১:৫৫পি এম

শ্যামনগরে অধ্যক্ষ পদে জামায়াত নেতাকে নিয়োগের অভিযোগ

শ্যামনগরে অধ্যক্ষ পদে জামায়াত নেতাকে নিয়োগের অভিযোগ Ad Banner

শ্যামনগরের ঐতিহ্যবাহী নারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শ্যামনগর আতরজান মহিলা মহাবিদ্যালয়ে অধ্যক্ষ পদে নিয়োগে বিজ্ঞ আদালতে আপিল মামলা উপেক্ষা করে শ্যামনগর আতরজান মহিলা মহাবিদ্যালয়ে অধ্যক্ষ পদে নাশকতার মামলার আসামী জামায়াত নেতা উপাধ্যক্ষ আমীর হোসেনকে নিয়োগ দেওয়ার পাঁয়তারা চলছে।

২০১৬ সালে প্রতিষ্ঠানটির অধ্যক্ষ আশেক-ই-এলাহী অবসরে যাওয়ায় অধ্যক্ষ পদটি শূন্য হয়। বেসরকারী কলেজের অধ্যক্ষ নিয়োগের সফল বিধিবিধান অনুসরণ করে কলেজের গভর্নিং বডি ২০১৬ সালে এ কে এম মিজানুর রহমান কে নিয়োগ প্রদানের সুপারিশ করেন।

অধ্যক্ষ নিয়োগের জন্য চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি বরাবর আবেদন করা হয়। কলেজ কর্তৃপক্ষ মহামান্য সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগে ১৬৩৪৪/২০১৬নং রীট পিটিশন করেন। রীট পিটিশনটি প্রত্যাহার হওয়ায় এ কে এম মিজানুর রহমানের অধ্যক্ষ পদে নিয়োগ বহাল দাবী করেন।

অথচ অধ্যক্ষ পদটি শূন্য দেখিয়ে নিয়োগ প্রক্রিয়ায় বিরুদ্ধে বিজ্ঞ শ্যামনগর সহকারী জজ আদালত সাতক্ষীরা দপ্তরে প্রতিষ্ঠানটির অভিভাবক সদস্য বজলুর রশিদ বাদী হয়ে দেং-১৫৩/২০২০নং মামলা করেন।

মামলার রায়ে বাদীপক্ষ বজলুর রশিদের অনুকূলে না হওয়ায় পুনরায় বিজ্ঞ জেলা জজ আদালত সাতক্ষীরা মিস্ আপীল ০৪/২০২১নং মামলা করেন। বিজ্ঞ আদালত বিবাদী পক্ষকে নোটিশ প্রদান করেন । অথচ নোটিশটি অদৃশ্য কারণে গোপন রেখে বিজ্ঞ আদালতের নির্দেশনা অমান্য করে অর্থের বিনিময়ে নিয়োগ প্রক্রিয়া করা হচ্ছে মর্মে অভিযোগ উঠেছে।

আপীল কেসটির পরবর্তী ধার্য তারিখ ২৮/০২/২০২১ অথচ অধ্যক্ষ পদটিতে বিভিন্ন কৌশলে আজ শুক্রবার নিয়োগ বোর্ড বসিয়ে নিয়োগের অপচেষ্টা করা হচ্ছে। কলেজের উপাধ্যক্ষ আমীর হোসেনের বিরুদ্ধে জামায়াতের সক্রিয় অংশ গ্রহনের সম্পৃক্ততা থাকা সত্ত্বেও তাকে অধ্যক্ষ পদে নিয়োগ দিতে এখন শুধু আনুষ্ঠানিকতার অপেক্ষায়।

পূর্ব পরিকল্পিত ভাবে জামায়াত নেতা আমীর হোসেন কে অবৈধভাবে নিয়োগ দিতে অপচেষ্টা করা হচ্ছে মর্মে একাধিক ব্যক্তিরা জানিয়েছেন। অথচ আমীর হোসেন উপাধ্যক্ষ পদে নিয়োগে কলেজ নিয়োগ বিধি উপেক্ষা করে নিয়োগ করা হলে তার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েও পরে রফাদফায় নিষ্পত্তি হয়।

তার উপাধ্যক্ষ নিয়োগটি যথাযথ ছিলনা। তার বিরুদ্ধে ২০১৩ সালে শ্যামনগর থানার এস.আই আকরাম হোসেন বাদী হয়ে নাশকতার মামলার আসামী করেন। মামলা নং ০৬। অধ্যক্ষ এ.কে.এম মিজানুর রহমান বিদেশে অবস্থান করায় মহামারী করোনার কারণে দেশে ফেরৎ আসতে পারছেন না।

তার অনুপস্থিতি দেখিয়ে বিভিন্ন অপকৌশলে উপাধ্যক্ষ আমীর হোসেন কে নিয়োগ করার অপচেষ্টা করা হচ্ছে। গভনিং বড়ির সভাপতি আফজালুল হক জানান, নিয়োগ বোর্ডের ডিজি মহোদয়ের প্রতিনিধি বা নিয়োগ বোর্ডে মামলার বিষয়টি জেনে তারাই নিয়োগ পরীক্ষা সম্পন্ন বা বাতিল করার সিদ্ধান্ত নেবেন।

উপাধ্যক্ষ আমীর হোসেন জানান, পত্রিকার বিজ্ঞপ্তি মোতাবেক অধ্যক্ষ পদে আবেদন করেছি। এ ব্যাপারে বিজ্ঞ আদালতের নোটিশের প্রেক্ষিতে এবং আপিল মামলা নং ০৪/২০২১ নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত অধ্যক্ষ পদে পুনরায় নিয়োগ না দেওয়ার জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করা হয়েছে।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ