কাওসার জামিল
প্রকাশ ২৪/০১/২০২১ ০৭:৪৬পি এম

বগুড়ায় ‘ধুম থ্রি’ সিনেমা দেখে কৌশিকের রূপালী ব‌্যাংক ডাকাতি

বগুড়ায় ‘ধুম থ্রি’ সিনেমা দেখে কৌশিকের রূপালী ব‌্যাংক ডাকাতি Ad Banner

বলিউডের মুভি ‘ধুম-৩’ ১৫৪ বার দেখে উদ্বুদ্ধ হয়ে বগুড়ার গাবতলীতে রূপালী ব‌্যাংকে ডাকাতির পরিকল্পনা করে ১৬ বছর বয়সী স্কুলছাত্র কৌশিক। পরে ডাকাতিকালে দুই অনসার সদস্যকে চুরিকাঘাত করেও তা বাস্তবায়নে ব্যর্থ হয় সে।

গত ২২ জানুয়ারি ভোরে গাজীপুরের টঙ্গীর নিশাতনগর থেকে ওই ছাত্রকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তাকে গাবতলীর জুডিশিয়াল ম‌্যাজিস্ট্রেট আদালতে নেওয়া হয়। সেখানে সে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দিতে এমন চাঞ্চল্যকর তথ্য দিয়েছে বলে জানা গেছে।

২০১৯ সালে প্রেসিডেন্ট অ্যাওয়ার্ডসহ রাজশাহী বিভাগের সেরা স্কাউটের খেতাব পায় কৌশিক। তার বাবা বগুড়া শহরের নিউ মার্কেট এলাকার ব্যবসায়ী। বাড়ি শহরতলীর মাটিডালি এলাকায়। তার বড় বোনের বিয়ে হয়েছে বগুড়ার গাবতলীতে।

বোনের বাড়িতে থাকায় অবস্থায় ব্যাংকে ডাকাতির চিন্তা মাথায় আসে তার।পুলিশ জানিয়েছে, ‘ধুম-৩’ থ্রিলার ছবিতে সর্বাধুনিক ভিএফএক্সের মাধ্যমে দুঃসাহসিক সব ঝুঁকিপূর্ণ দৃশ্যে অভিনয় করেন বলিউড কিং আমির খান।

সেখানে ই-বাইক (যা মাটি ও পানিতে সমানভাবে চলে) ব্যবহার করে ডাকাতির দুঃসাহসিক দৃশ্য তুলে ধরা হয়। মূলত এই ছবি দেখে এবং সাইবার অপরাধে বিচরণ করে বেড়ানো ওই ছাত্রের সাধ জাগে ব্যাংক ডাকাতির ঝুঁকিপূর্ণ অ্যাডভেঞ্চারের।জানা গেছে, ডার্ক ওয়েবে অবাধ বিচরণ ছিল কৌশিকের। ওই ওয়েবে হোয়াইট ডেভিল নামে একটি হ্যাকিং গ্রুপের মাধ্যমে কৌশিকের ইচ্ছা ছিল বিশ্বের শীর্ষ অপরাধীদের খাতায় নাম লেখানো।

এ কারণে সে একটি আন্তর্জাতিক অনলাইন প্ল্যাটফর্ম ব্যবহার করে রাশিয়া থেকে চাহিদা দিয়ে এনেছিল পারক্লোরিক এসিড, ক্লোরোফম, এডিনল ইথানল ও পটাশিয়াম ডাইক্লোরেট নামের বিভিন্ন ভীতিকর রাসায়নিক পদার্থ। নিজের বাড়িতে বসে সে তার ব্যক্তিগত ল্যাবে এসব নিয়ে গবেষণা চালাতো।

কৌশিক পুলিশকে জানায়, সে সেনা কমান্ডোর মতোই নিজেকে রক্ষা করতে সক্ষম। মাত্র ৩০ মিনিটের মধ্যে বিপজ্জনক দোনলা বন্দুক তৈরি করতে পারে। একই সঙ্গে চেতনানাশক গ্যাসও তৈরি করতে পারে। এটি স্প্রে করলে যে কেউ নির্দিষ্ট সময়ের জন্য চেতনা হারাবে।

গত ৫ জানুয়ারি বগুড়ার গাবতলীতে ছুরিকাঘাত ও দাহ্য পদার্থ ছুড়ে দুই নিরাপত্তারক্ষীকে আহত করে রূপালী ব্যাংকের একটি শাখায় ডাকাতির চেষ্টা করে। মুখোশ পরা অবস্থায় তার নিক্ষিপ্ত দাহ্য পদার্থ ও ছুরিকাঘাতে দুই আনসার সদস্য আহত হয়েছে।

ওই দিন ভোরে সে মুখোশ এবং হাতে বিশেষ রুফটপ গ্লাভস পরে প্রথমে ছাদে ওঠে। এরপর কাটার দিয়ে ছাদের সিঁড়িঘরের তালা কেটে ভেতরে ঢোকে কৌশিক। শেষে ব্যাংকের ভেতরের ভল্ট ভাঙার চেষ্টা করেও সে ব্যর্থ হয়।

ঘটনার ১৮ দিন পর গাজীপুরের টঙ্গীর চাচার বাড়ি থেকে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

বগুড়ার এসপি আলী আশরাফ ভূঞা বলেন, ছেলেটির কীর্তিতে সত্যিই আমরা অবাক! এই বয়সে এত বড় বড় অপরাধ পরিকল্পনা, ভাবাই যায় না!তিনি বলেন, তাকে ধরতে বগুড়া পুলিশের বিশেষ দলকে রীতিমতো ঘাম ছড়াতে হয়েছে। তিনি জানান, সে ইনফরমেশন টেকনোলজিতে ভালো দক্ষতা রাখে।

তাকে কারাগারে রাখা হয়েছে। যশোরের কিশোর শোধনাগারে পাঠানো হবে।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ