• 0
  • 0
Verified আই নিউজ বিডি ডেস্ক
Posted at 03/01/2021 01:57:pm

পেঁয়াজ আমদানিতে শুল্ক আরোপ করতে যাচ্ছে সরকার

পেঁয়াজ আমদানিতে শুল্ক আরোপ করতে যাচ্ছে সরকার

ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির কারণে দেশের কৃষকরা যাতে ক্ষতির মুখে না পড়ে সেদিকটা বিবেচনায় রেখে সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে সরকার।   

ভারত রপ্তানি বন্ধ করে দিলে পেঁয়াজ সংকটে পড়ে দেশ। তখন অন্য দেশ থেকে আমদানি সহজ করতে পেয়াজের ওপর ধার্য্য ৫ শতাংশ শুল্ক মুক্ত করে সরকার। তবে সেটি আবারও আরোপ করা হবে।   

দুপুরে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপ কালে একথা জানান বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশী।   

এ বিষয়ে আজ বিকেলে কৃষি মন্ত্রণালয়, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সঙ্গে বৈঠক করবে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। সেখানে শুল্ক আরোপের পরামর্শ দেয়া হবে বলে জানান বাণিজ্যমন্ত্রী।   

তিনি বলেন, ভারত তার স্বার্থের কথা ভেবে কখনো কখনো খুলে দিচ্ছে, কখনো বন্ধ করে দিচ্ছে। এখন আবার তারা খুলে দিয়েছে। মার্চের মাঝামাঝি তারা বন্ধ করে দিয়েছে। তবে আমরা আমাদের কৃষকদের স্বার্থ রক্ষা করবো।'   

তবে ভোক্তারা যাতে কোনো সংকটে না পড়ে সেটাকেও গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানান মন্ত্রী। 

ভোক্তাদের টাও দেখব কৃষকদের স্বার্থ দেখব। তিন বছরের মধ্যে স্বয়ং সম্পূর্ন হতে চাই। সেক্ষেত্রে গ্রোয়ার দের দাম পেতে হবে।'   

ভারতের পেয়াজ বাজারে এলেও আমাদের পেঁয়াজের দামের কোনো প্রভাব পড়বে না বলেও জানালেন মন্ত্রী। 

তিনি বলেন ভারতের পেয়াঁজ যদি ৩৯ টাকা করে বাজারে আসে, তাহলে ঢাকার বাজারে পাইকারি দাম পড়বে ৪৫ টাকার মতো। আর খুচরা বাজারে ৫০ থেকে ৫৫ টাকা।   

দেশী পেয়াজের দাম এর মধ্যে আছে বলে কৃষকরাও ক্ষতির মুখে পড়বে না বলে দাবি মন্ত্রীর।   

আজ বিকেলে কৃষি মন্ত্রণালয়, বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও এনবিআরের বৈঠকের প্রসঙ্গটি উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, 'আমার যেটা সাজেশন উনাদের প্রতি এবং আপনাদেরও জানাতে চাই, ভারতের পেঁয়াজ আমরা নেব কি নেব না, কি পরিমান ডিউটি আরোপ করবো যেন আমাদের উৎপাদকদের কথা বিবেচনা করে এবং ভোক্তাদের কথা বিবেচনা করে যেন স্যাটেল ডাউন করেন।'   

মন্ত্রী জানান, মার্চের শেষের দিকে দেশে নতুন পেঁয়াজ উঠবে। সেসময় আমরা দেখবো, আমদানির প্রয়োজন পড়বে কী না। 

ভারত থেকে আমদানি কারণ জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, এর কারণ হলো কম দামে পেঁয়াজ পাওয়া যায়। 

পেঁয়াজের ক্রাইসিস নিয়ে চিন্তার কিছু নেই বলেও উল্লেখ করেন তিনি।   

মন্ত্রী জানান, আন্তর্জাতিক বাজারে ভোজ্য তেলের দাম বেড়ে গেছে। তবে এই সুযোগ নিয়ে যাতে বাজারে অসাধু ব্যবসায়ীরা যাতে অতিরিক্ত মুনাফা করতে না পারে সেদিকটা সরকার সতর্ক অবস্থানে আছে।   

চালের দাম বেড়ে যাওয়ার বিষয়টি তার নজরে আবা হলে মন্ত্রী বলেন, সরকারের কাছে মজুদ কম থাকায় দাম বেড়েছে। তাই আমদানি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার।   

তিনি জানান, বাজারে দাম সাশ্রয়ী মূল্যে রাখার জন্য ডিউটি ৬২ থেকে ২৫ শতাংশ করে দেয়া হয়েছে। সরকার প্রো অ্যাক্টিভ অবস্থান নিয়েছেন। সব দিক থেকে চেষ্টা করা হচ্ছে, সমস্যা যেন দুর করা যায়।   

অসাধু ব্যবসায়ীরা যাতে সুযোগ না পায় সেজন্যে মন্ত্রণালয় কঠোর অবস্থানে আছে বলেও জানান তিনি।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ