• 0
  • 0
Verified MD. MIRAZUL-AL- MISHKAT
Posted at 02/12/2020 07:04:pm

অত্যাধুনিক সকল সুযোগ সুবিধা থাকছে হাবিপ্রবির নির্মাণাধীন একাডেমিক ভবনে

অত্যাধুনিক সকল সুযোগ সুবিধা থাকছে হাবিপ্রবির নির্মাণাধীন একাডেমিক ভবনে

আধুনিকতার এই প্রতিযোগিতামূলক বিশ্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের উচ্চ শিক্ষা হচ্ছে গবেষণা এবং বাস্তবমুখী ব্যবহারিক কর্মক্ষেত্রের ফসল। এরই ধারাবাহিকতায় দেশ তথা বিশ্বের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে তাল মিলিয়ে চলতে এবং শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ব্যবহারিক ভাবে প্রয়োগমূলক গবেষণার জন্য প্রায় শতকোটি টাকা ব্যয়ে প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের লীলাভূমি ও উত্তরবঙ্গের শ্রেষ্ঠ বিদ্যাপীঠ দিনাজপুর হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে(হাবিপ্রবি ) নির্মিত হচ্ছে (নির্মাণাধীন) ১০ (দশ) তলা বিশিষ্ট একাডেমি ভবন। তবে ভবনটির নাম কি হবে তা এখন নিশ্চিত করতে পারেনি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।  


দশ (১০) তলা বিশিষ্ট এই একাডেমিক ভবনটি প্রতিটি তলা ৪ হাজার স্কয়ার মিটার নিয়ে মোট ৪০ হাজার স্কয়ার মিটার জায়গায় নিয়ে নির্মাণ করা হচ্ছে। প্রতিটি তলায় যাতায়াতের জন্য উন্নতমানের লিফট থাকছে ৭টি। 


গবেষণা ও ক্লাসরুম সংকট সমাধানে ১০ তলা বিশিষ্ট এই একাডেমিক ভবনে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের জন্য থাকছে বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা। ক্লাসরুম সংকটের কারণে অনেক সময় শিক্ষার্থীরা সময় মতো ক্লাস করতে পারে না। দশ (১০) তলা এই একাডেমিক ভবনের নির্মান কাজ সম্পন্ন হলে ক্লাস রুম সংকটের সমস্যা থেকে অনেকটাই লাঘব পাবে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। প্রতিটি তলায় থাকবে ক্লাস রুম ও ল্যাব।ডীন,চেয়ারম্যান ও অন্যান্য শিক্ষকদের জন্য থাকবে নিজস্ব চেম্বার। শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের গবেষণার জন্য নিচ তলায় থাকছে অত্যাধুনিক সেন্ট্রাল ল্যাবরেটরি সুবিধা। এছাড়াও নিচতলায় শিক্ষার্থীদের জন্য থাকছে উন্নতমানের ক্যাফেটেরিয়া ও শিক্ষার্থীরা ক্লাস শেষে পড়াশোনা সম্পর্কে বিভিন্ন আলোচনা ও ক্লাসের অবসর সময়ে বিনোদনের জন্য থাকছে স্টুডেন্ট গেদারিং পয়েন্ট।ছেলে ও মেয়ে শিক্ষার্থীদের জন্য থাকছে পৃথক পৃথক নামাজ ঘর ও ওজুখানার ব্যবস্থা এবং ছাত্র ও ছাত্রীদের জন্য থাকছে আলাদা কমনরুমেরও ব্যবস্থা। এছাড়াও থাকছে শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের জন্য সেমিনার রুম এবং কনফারেন্স রুম।


অনলাইন নির্ভর এই প্রযুক্তির যুগে এই একাডেমিক ভবনে থাকছে নন-স্টপ ওয়াইফাই সুবিধা। শিক্ষার্থীদের পড়াশোনা ও জ্ঞান বৃদ্ধির জন্য থাকছে অনুষদভিত্তিক গ্রন্থাগার। এছাড়াও অগ্নি নির্বাপণের জন্য থাকছে উন্নতমানের ব্যবস্থা এবং সাব স্টেশন। 


একাডেমিক ভবনটি কি ভাবে সজ্জিত করা হবে এবং কোন কোন অনুষদকে এই ভবনে স্থানান্তর করা ও সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হবে-এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে পরিকল্পনা, উন্নয়ন ও ওয়ার্কস শাখার পরিচালক প্রফেসর ড. মোঃ মোস্তাফিজার রহমান বলেন," নির্মণাধীন ১০ তলা একাডেমিক ভবনের বিভিন্ন তলায় কি ভাবে সাজানো হবে বা কোন অনুষদের জন্য নির্ধারিত করা হবে তা এখনো এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয় নি। নির্মনাধীন এই একাডেমিক ভবনে ক্লাসরুম সহ বিভিন্ন গবেষণার জন্য কৃষি অনুষদ, ভেটেনারি অ্যান্ড এনিমেল সায়েন্স অনুষদ ও ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদ সহ বিভিন্ন অনুষদ তাদের বিভিন্ন সমস্যাসহ আবেদন করেছে, আমরা সেগুলো নোট করে রেখেছি। নির্মাণকাজ সম্পন্ন হওয়ার আগে অথবা পরে সব অনুষদের সাথে মিটিং করে এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। তবে ৪র্থ তলা ডিজাইনিং সহ বিভিন্ন সুবিধার জন্য আর্কিটেকচার ডিপার্টমেন্টের জন্য নির্ধারিত করা হয়েছে। কারন ডিজাইনিং ক্লাসরুমের জন্য আগে থেকে পরিকল্পনা করে নির্মাণ করতে হয়। সেজন্য আপাতত ৪র্থ তলা নির্ধারিত করা হয়েছে। এছাড়াও প্রাধান্যের দিক দিয়ে ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের জন্য ইঞ্জিনিয়ারিং হল রুম হওয়ার কথা রয়েছে।"


নির্মাণ কাজের বর্তমান অবস্থা ও অগ্রগতিসহ সার্বিক বিষয় নিয়ে জানতে চাওয়া হলে ইঞ্জিনিয়ারিং শাখার পরিচালক ইঞ্জিনিয়ার মোঃ তারিকুল ইসলাম বলেন," নির্মণাধীন দশ তলা বিশিষ্ট এই একাডেমিক ভবনের কাজ একটি দীর্ঘ মেয়াদি বা সময় সাপেক্ষ ব্যাপার।তবে ইতোমধ্যে ১০ তলা পর্যন্ত নির্মাণ ও ঢালাইয়ের কাজ সম্পন্ন হয়েছে।এছাড়াও কিছু কিছু অংশে রংয়েরও কাজ হয়ে গেছে। বর্তমানে টাইলস,স্যানিটারি ও দরজা-জানালার কাজ চলছে। সব কিছু ঠিক থাকলে আগামী বছরের মাঝামাঝি সময়ে নির্মাণাধীন এই একাডেমিক ভবনের কাজ সম্পন্ন হওয়ার কথা রয়েছে। "


উল্লেখ্য,  ভবনটির সম্পূর্ণ নির্মাণ কাজ শেষ হতে আগামী বছরের জুন মাস পর্যন্ত লাগতে পারে বলে জানা যায়। 


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ