About Us
mahfuz
প্রকাশ ১৯/১১/২০২০ ০৬:৩৫পি এম

আবার আগুন সন্ত্রাসের পাঁয়তারা করছে

আবার আগুন সন্ত্রাসের পাঁয়তারা করছে Ad Banner

সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা আশরাফ আলী খান খসরু বলেছেন, বিএনপি-জামায়াত দেশে আবার আগুন সন্ত্রাস করার পাঁয়তারা করছে। বিভিন্ন সময়ে তারা অনেক মানুষকে পুড়িয়ে মেরেছে। কয়েক দিন আগেও ঢাকায় বাসে আগুন দিয়ে মানুষ হত্যার চেষ্টা করেছে। এদেরকে কোনোভাবেই প্রশ্রয় দেওয়া যাবে না। কেউ এ ধরনের সন্ত্রাস করতে চাইলে তাদের ধরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর হাতে তুলে দিতে হবে। 

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে নেত্রকোণার বারহাট্টা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স হাসপাতালকে ৩১ থেকে ৫০ শয্যায় উন্নীতকরণ কাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন উপলক্ষে স্বাস্থ্য বিভাগ আয়োজিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এসব কথা বলেন। 

সিভিল সার্জন ডা. সেলিম মিয়ার সভাপতিত্বে এবং জেলা আওয়ামী লীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদক গাজী মোজাম্মেল হোসেন টুকুর সঞ্চালনায় অন্যান্যের মধ্যে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ফখরুজ্জামান জুয়েল, উপজেলা নির্বাহী অফিসার গোলাম মোর্শেদ, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট দীপক ধর গুপ্ত, মাজহারুল ইসলাম, নজরুল ইসলাম, মজিবুল আলম হীরা, গাজী মর্তুজা হোসেন কামাল, উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আজিজুর রহমান, সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শাহ্ মো. আব্দুল কাদের, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক অধীর দত্ত, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ-সভাপতি এস এম সারোয়ার আলম রুকন, আজহারুল ইসলাম অরুণ, বারহাট্টা সদরের ইউপি চেয়ারম্যান কাজী সাখাওয়াত হোসেন প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। বক্তব্যের আগে প্রতিমন্ত্রী ভিত্তিপ্রস্তরের নাম ফলক উন্মোচন করেন।  প্রতিমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের ফিরিস্তি তুলে ধরে বলেন, আমরা জনগণের শাসক নই, সেবক। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও নিজেকে সেবক হিসেবে মনে করেন। তার দক্ষ নেতৃত্বের কারণে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের মহাসড়কে। দেশে যখন সাত কোটি মানুষ ছিল তখন চরম খাদ্যাভাব ছিল, অর্থাভাব ছিল। কিন্তু জনসংখ্যা বেড়ে আজ ষোলো কোটি হওয়া সত্ত্বেও কোনো খাদ্যাভাব নেই। উপরন্তু বাংলাদেশ আজ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। 

তিনি বলেন, করোনা পরিস্থিতির মতো ভয়াবহ দুর্যোগেও একটি মানুষ না খেয়ে থাকেনি। ভবিষ্যতেও কেউ না খেয়ে থাকবে না। বিএনপির আমলে সারের জন্য কৃষক পুলিশের গুলি খেয়ে মরেছে। বর্তমানে এই সারের অভাব নেই। কৃষকদের মাঝে সারের জন্য হাহাকার নেই। আমরা শিশুদের হাতে বিনামূল্যে বই তুলে দেই। সেই বই তারা পুড়িয়ে দেয়ার চেষ্টা করে। 

অনুষ্ঠানে বারহাট্টা উপজেলার সাতটি ইউনিয়নের দলীয় নেতাকর্মী ছাড়াও স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারীগণ উপস্থিত ছিলেন। পরে প্রতিমন্ত্রী উপজেলা হাসপাতাল ব্যবস্থাপনা কমিটির সভায় যোগ দেন। 

জানা যায়, বারহাট্টা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের উন্নয়নে সরকার ব্যাপক প্রকল্প গ্রহণ করেছে। এতে প্রাক্কলিত ব্যয় ধরা হয়েয়ে ১৬ কেটি ২৮ লক্ষ টাকা।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ