Feedback

খোলা কলাম, ইতিহাস

নবান্ন: হারানো একটি উৎসব ও ঐতিহ্য

নবান্ন: হারানো একটি উৎসব ও ঐতিহ্য
November 18
10:37pm
2020
Rakib Monasib
Dhaka, Bangladesh:
Eye News BD App PlayStore

নবান্ন বাংলাদেশ ও ভারতের পশ্চিমবঙ্গের ঐতিহ্যবাহী শস্যোৎসব। বাংলার কৃষিজীবী সমাজে শস্য উৎপাদনের বিভিন্ন পর্যায়ে যে সকল আচার-অনুষ্ঠান ও উৎসব পালিত হয়, নবান্ন তার মধ্যে অন্যতম।

ঋতুবৈচিত্র্যে হেমন্ত আসে শীতের আগেই। কার্তিক আর অগ্রহায়ণ মাস নিয়ে হেমন্ত ঋতু। অগ্রহায়ণের নবান্ন নিয়ে আসে খুশির বার্তা। নতুন ধান ঘরে উঠানোর কাজে ব্যস্ত থাকে কৃষাণ কৃষাণীরা। আর ধান ঘরে উঠলে পিঠে পায়েস খাওয়ার ধুম পড়ে যায়। পাড়ায় পাড়ায় চলে নবান্ন উৎসব। গ্রাম বাংলায় নতুন এক আবহের সৃষ্টি হয়। নবান্ন উৎসবের সাথে মিশে আছে বাঙালিয়ানার হাজার বছরের ইতিহাস, ঐতিহ্য আর সংস্কৃতির নানা দিক। প্রাচীনকাল থেকেই বাঙালি জাতি ধর্ম বর্ণকে উপেক্ষা করে নবান্নকে কেন্দ্র করে উৎসবে মেতে ওঠে। একে অন্যের মধ্যে তৈরি হয় এক সামাজিক মেলবন্ধনের।

নবান্ন উৎসব হিন্দুদের একটি প্রাচীন প্রথা। হিন্দুশাস্ত্রে নবান্নের উল্লেখ ও কর্তব্য নির্দিষ্ট করা রয়েছে। হিন্দু বিশ্বাস অনুযায়ী, নতুন ধান উৎপাদনের সময় পিতৃপুরুষ অন্ন প্রার্থনা করে থাকেন। এই কারণে হিন্দুরা পার্বণ বিধি অনুযায়ে নবান্নে শ্রাদ্ধানুষ্ঠান করে থাকেন। শাস্ত্রমতে, নবান্ন শ্রাদ্ধ না করে নতুন অন্ন গ্রহণ করলে পাপের ভাগী হতে হয়। 

অগ্রহায়ণের শুরুতেই আমাদের গ্রাম বাংলায় চলে নানা উৎসব, নানা আয়োজন। নতুন ধান কাটা আর সেই সাথে প্রথম ধানের অন্ন খাওয়াকে কেন্দ্র করে পালিত হয় এই উৎসব। বাঙালির বার মাসে তের পাবর্ণ- এ যেন সত্যি হৃদয়ের বন্ধনকে আরো গাঢ় করার উৎসব। হেমন্ত এলেই দিগন্তজোড়া ফসলের মাঠ ছেয়ে যায় হলুদ রঙে। এই শোভা দেখে কৃষকের মন আনন্দে নেচে ওঠে। নতুন ফসল ঘরে ওঠার আনন্দ। প্রাচীনকাল থেকেই বাঙালির জীবনে অগ্রহায়ণ কৃষকের নতুন বার্তা নিয়ে আগমন ঘটে। নবান্ন হচ্ছে হেমন্তের প্রাণ। নতুন ধানের চাল দিয়ে তৈরি করা হয় পিঠা পায়েস, ক্ষীরসহ হরেক নানা রকম খাবার। সুস্বাদু খাবারের গন্ধে ভরে ওঠে চারপাশ। সোনালি ধানের প্রাচুর্য আর বাঙালির বিশেষ অংশ নবান্ন ঘিরে অনেক কবি-সাহিত্যিকের লেখায় উঠে এসেছে প্রকৃতির চিত্র। কবি জীবনানন্দ দাশ তার কবিতায় লিখেছেন- আবার আসিব ফিরে ধান সিঁড়িটির তীরে, এই বাংলায়/মানুষ নয়- হয়তো বা শঙ্কচিল শালিখের বেশে/ হয়তো ভোরের কাক হয়ে এই কার্তিকের নবান্নের দেশে/কুয়াশার বুকে ভেসে একদিন আসিব এ কাঁঠাল ছায়ায়। কবির কবিতার লাইনের মতোই নবান্নে চিরায়ত বাংলার রূপ।

অগ্রহায়ণ এলেই কৃষকের মাঠজুড়ে ধানকাটার ধুম পড়ে যায়। অত্যন্ত ব্যস্ত সময় কাটান এ সময়ে কৃষাণ-কৃষাণীরা। ধান ভাঙার গান ভেসে বেড়ায় বাতাসে, ঢেঁকির তালে মুখর হয় বাড়ির আঙিনা। অবশ্য যান্ত্রিকতার ছোঁয়ায় এখন আর ঢেঁকিতে ধান ভানার শব্দ খুব একটা শোনা যায় না। অথচ খুব বেশি দিন আগের কথা নয়, ঢেঁকি ছাঁটা চাল দিয়েই হতো ভাত খাওয়া। তার পরও নতুন চালের ভাত নানা ব্যঞ্জনে মুখে দেয়া হয় আনন্দঘন পরিবেশ। তৈরি হয় নতুন চালের পিঠা, ক্ষীর- পায়েসসহ নানা উপাদান। দেশের কোনো কোনো অঞ্চলে নবান্ন উৎসবকে কেন্দ্র করে চলে খাওয়া দাওয়ার ধুম।

নবান্ন আর পিঠেপুলির উৎসবে আনন্দে মাতোয়ারা হয় সবাই। তাই অগ্রহায়ণ এলেই সর্বত্র বেজে ওঠে নতুন ধ্বনি। যেহেতু নবান্ন ঋতুকেন্দ্রিক একটি উৎসব তাই প্রতি বছর ঘুরেফিরে আসে নবান্ন উৎসব। হেমন্তে নতুন ফসল ঘরে তোলার সময় এই উৎসব পালন করা হয়। হাজার বছরের পুরনো এই উৎসবটি যুগ যুগ ধরে একইভাবে পালন হয়ে আসছে। নবান্ন উৎসবে গ্রামগঞ্জে আয়োজন করা হয় গ্রামীণ মেলার। এসব মেলায় শিশু-কিশোর থেকে শুরু করে সব শ্রেণী-পেশার মানুষের ঢল নামে। আনন্দ দেখা যায় ছোটবড় সব বয়সের মানুষের মধ্যে। গ্রামের খেটে খাওয়া মানুষ এই উৎসব ভিন্নভাবে পালন করে। মেলার এককোণে রাতভর চলে গানের উৎসব। এই উৎসবে উপস্থিত থাকেন নবীন প্রবীণ সবাই। হরেক রকমের বাহারি সব খাবারের দোকানের পসরা দিয়ে বসানো হয় গ্রামীণ মেলা।

বর্তমানে বাংলাদেশের সংস্কৃতিতে নবান্ন একটি হারিয়ে যাওয়া উৎসব। নবান্ন উপলক্ষে কিছু অনুষ্ঠানের আয়োজন হলেও আগের সেই জৌলুস এখন বিলীন। আগে নবান্ন ছিল জনসাধারণের উৎসব। কৃষকরা এই উৎসবকে কেন্দ্র করে নতুন ধান ঘরে তুলত, ধান বিক্রি করে ধার-দেনা শোধ করত। এজন্য ব্যবসায়ীরা আয়োজন করত হালখাতা। এই উৎসবকে ঘিরে সবার মধ্যে একটা আমেজ কাজ করত।

অত্যন্ত সাড়ম্বরে নবান্ন উৎসব উদযাপন হত, সকল মানুষের সবচেয়ে অসাম্প্রদায়িক উৎসব হিসেবে নবান্ন উৎসব সমাদৃত ছিলো। কালের বিবর্তনে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী এই নবান্ন উৎসব বিলুপ্তপ্রায়, এখন বর্তমানে এসব বাংলার ইতিহাসে স্মৃতি হিসেবে রয়েছে।

লেখক: রাকিব মোনাসিব; ইমেইল- rakibmonasib@gmail.com

All News Report

Add Rating:

0

সম্পর্কিত সংবাদ

ট্রেন্ডিং

করোনা শেষ না হওয়া পর্যন্ত মেস ভাড়া মওকুফ চায় হাবিপ্রবি শিক্ষার্থীরা

করোনা শেষ না হওয়া পর্যন্ত মেস ভাড়া মওকুফ চায় হাবিপ্রবি শিক্ষার্থীরা

ভাস্কর্য নির্মাণ সম্পর্কে যা বললেন আজহারী

ভাস্কর্য নির্মাণ সম্পর্কে যা বললেন আজহারী

"গৌরির নাম বদলে আয়েশা, পরতে হবে বোরখা"-স্ত্রীকে বললেন শাহরুখ

"গৌরির নাম বদলে আয়েশা, পরতে হবে বোরখা"-স্ত্রীকে বললেন শাহরুখ

বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জের আলোচিত শিশু সানজিদা হত্যার দায় স্বীকার করলো গর্ভধারিনী মা

বাগেরহাটের মোড়েলগঞ্জের আলোচিত শিশু সানজিদা হত্যার দায় স্বীকার করলো গর্ভধারিনী মা

মসজিদের কক্ষে প্রেমিকার সঙ্গে অন্তরঙ্গ মুহূর্তে ধরা ইমাম

মসজিদের কক্ষে প্রেমিকার সঙ্গে অন্তরঙ্গ মুহূর্তে ধরা ইমাম

২৫ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেলেন যারা

২৫ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেলেন যারা

১৪৪ তলা বিল্ডিং গুলিয়ে ফেলা হলো মুহূর্তের মধ্যে

১৪৪ তলা বিল্ডিং গুলিয়ে ফেলা হলো মুহূর্তের মধ্যে

এবার 'বাবু খাইছো' গান গেয়ে আলোচনায় হিরো আলম

এবার 'বাবু খাইছো' গান গেয়ে আলোচনায় হিরো আলম

জয়পুরহাট জেলা আইনজীবী সমিতি নির্বাচনে সভাপতি আ’লীগের, সম্পাদক বিএনপির

জয়পুরহাট জেলা আইনজীবী সমিতি নির্বাচনে সভাপতি আ’লীগের, সম্পাদক বিএনপির

চেতনার ভিসুভিয়াস ! তানিয়া সুলতানা হ্যাপি

চেতনার ভিসুভিয়াস ! তানিয়া সুলতানা হ্যাপি

পানিতে সারা-বরুণের ঠোঁটঠাসা চুমু, "কুলি নম্বর ১"এর ট্রেলার নিয়ে হইচই

পানিতে সারা-বরুণের ঠোঁটঠাসা চুমু, "কুলি নম্বর ১"এর ট্রেলার নিয়ে হইচই

মৃত্যুকে ভয় না করে সেনাদের যুদ্ধ জয়ের প্রস্তুতি নিতে বললেন শি

মৃত্যুকে ভয় না করে সেনাদের যুদ্ধ জয়ের প্রস্তুতি নিতে বললেন শি

সন্তান রেখে উধাও প্রবাসীর স্ত্রী, শ্বশুর-শাশুড়িকে হয়রানি

সন্তান রেখে উধাও প্রবাসীর স্ত্রী, শ্বশুর-শাশুড়িকে হয়রানি

ইরানের শীর্ষ পরমাণু বিজ্ঞানী আততায়ীর হাতে নিহত

ইরানের শীর্ষ পরমাণু বিজ্ঞানী আততায়ীর হাতে নিহত

শীতের সকালেও উষ্ণতা ছড়াচ্ছেন মধুমিতা

শীতের সকালেও উষ্ণতা ছড়াচ্ছেন মধুমিতা

সর্বশেষ

নিজ পুত্রবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে সুন্দরগঞ্জে ধর্ষক শ্বশুর গ্রেফতার

নিজ পুত্রবধূকে ধর্ষণের অভিযোগে সুন্দরগঞ্জে ধর্ষক শ্বশুর গ্রেফতার

কবি ও গীতিকার খন্দকার মোঃ সাইদুর রহমানের মৃত্যুতে ভাওয়াইয়া অঙ্গনের শোক

কবি ও গীতিকার খন্দকার মোঃ সাইদুর রহমানের মৃত্যুতে ভাওয়াইয়া অঙ্গনের শোক

স্বাধীনতাবিরোধী শক্তির কর্মকাণ্ড আজো থেমে নেই: রেজাউল করিম

স্বাধীনতাবিরোধী শক্তির কর্মকাণ্ড আজো থেমে নেই: রেজাউল করিম

বাগেরহাটের তিনটি পৌরসভায় প্রার্থীদের আগাম গনসংযোগ সাজ সাজ রব

বাগেরহাটের তিনটি পৌরসভায় প্রার্থীদের আগাম গনসংযোগ সাজ সাজ রব

মন্ত্রীর ডিনারের আমন্ত্রণে 'না', আটকে গেল নায়িকার শুটিং

মন্ত্রীর ডিনারের আমন্ত্রণে 'না', আটকে গেল নায়িকার শুটিং

বীর মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট শামছুজ্জামানের নাগরিক স্মরণ সভা

বীর মুক্তিযোদ্ধা এডভোকেট শামছুজ্জামানের নাগরিক স্মরণ সভা

রংপুরে বিপুল পরিমান অবৈধ পলিথিন উদ্ধার জরিমানা ৪ লক্ষ টাকা

রংপুরে বিপুল পরিমান অবৈধ পলিথিন উদ্ধার জরিমানা ৪ লক্ষ টাকা

টঙ্গী পশ্চিম থানায় নবাগত ওসি শাহ্ আলমের যোগদান

টঙ্গী পশ্চিম থানায় নবাগত ওসি শাহ্ আলমের যোগদান

কিশোরগঞ্জে স্কুলছাত্র হত্যা মামলায় মেয়ের ফাঁসি ও মায়ের যাবজ্জীবন

কিশোরগঞ্জে স্কুলছাত্র হত্যা মামলায় মেয়ের ফাঁসি ও মায়ের যাবজ্জীবন

ঘুমের সমস্যা কে চিরতরে বিদায় জানান

ঘুমের সমস্যা কে চিরতরে বিদায় জানান

ভিপি নুরের ডিজিটাল আইনের মামলা প্রতিবেদন ৫ জানুয়ারি

ভিপি নুরের ডিজিটাল আইনের মামলা প্রতিবেদন ৫ জানুয়ারি

আবরার হত্যা: সাক্ষ্য দিলেন আবরার মামা

আবরার হত্যা: সাক্ষ্য দিলেন আবরার মামা

ধুনটে নূর-থ্রী স্টার অটো ব্রিকস এর ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করলেন

ধুনটে নূর-থ্রী স্টার অটো ব্রিকস এর ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করলেন

কিশোরগঞ্জে সিএনজিতে আগুন, দুই জন গুরুতর  আহত

কিশোরগঞ্জে সিএনজিতে আগুন, দুই জন গুরুতর আহত

ভারতীয় ওটিটি ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ডে মনোনয়ন পেলেন বাংলাদেশের তন্বী

ভারতীয় ওটিটি ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ডে মনোনয়ন পেলেন বাংলাদেশের তন্বী