About Us
Khokon Ahmed Hera
প্রকাশ ১৮/১১/২০২০ ০৯:০০এ এম

প্রধানমন্ত্রীর নামে জমি লিখে দিয়ে প্রশংসায় ভাসছেন সুখরঞ্জন

প্রধানমন্ত্রীর নামে জমি লিখে  দিয়ে প্রশংসায় ভাসছেন সুখরঞ্জন Ad Banner

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ভালোবাসার নিদর্শনস্বরূপ নিজ সম্পত্তি থেকে পাঁচ শতক জমি লিখে দিয়েছেন বরিশালের বানারীপাড়া উপজেলার প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা সুখরঞ্জন ঘরামী।

পরিবার পরিজন নিয়ে নিজে শত কষ্টে থাকা সত্বেও প্রধানমন্ত্রীর নামে জমি লিখে দিতে পারার মধ্যদিয়েই সুখ খুঁজে পেয়েছেন বৃদ্ধ সুখরঞ্জন। বিষয়টি সর্বত্র ছড়িয়ে পরলে গত দুইদিন থেকে প্রশংসায় ভাসছেন আইনজীবী সহকারী সুখরঞ্জন ঘরামী।

জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও দুইবারের সাবেক সংসদ সদস্য এ্যাডভোকেট তালুকদার মোঃ ইউনুস বলেন, অর্থ ও সম্পত্তি অনেকের রয়েছে কিন্তু সুখরঞ্জন ঘরামীর মতো মনমানসিকতা সবার নেই। কতোটুকু ভালোবাসলেই নিজের পরিবারের কষ্টকে ভুলে এধরনের ত্যাগ স্বীকার করা যায় সুখরঞ্জন ঘরামী তার বড় এক দৃষ্টান্ত।

ওই আসনের সাবেক সাংসদ তালুকদার মোঃ ইউনুস আরও বলেন, উন্নয়নের নেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ভালোবাসার প্রতিদান হিসেবে গত ১৫ নভেম্বর দুপুরে বানারীপাড়া উপজেলার চাখার সাব রেজিস্ট্রি অফিসে গিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে গ্রহীতা করে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহসভাপতি সুখরঞ্জন ঘরামী তার পাঁচ শতক সম্পত্তি লিখে দিয়েছেন।

তার এ দলিলের পরিচিত হয়েছেন বানারীপাড়া প্রেসক্লাবের সভাপতি রাহাদ সুমন।

সূত্রমতে, সম্প্রতি বানারীপাড়া উপজেলা পরিষদের অর্থায়নে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিকৃতি ভাস্কর্য নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়। এসময় সুখরঞ্জন স্ব-ইচ্ছায় বানারীপাড়া সদর ইউনিয়নের কাজলাহার বাজার সংলগ্ন মহাসড়কের পাশে নিজ সম্পত্তিতে তার ‘প্রাণপুরুষ বঙ্গবন্ধু’ ও ‘প্রিয়নেত্রী শেখ হাসিনার’ ভাস্কর্য নির্মাণের অনুরোধ করেন। ফলশ্রুতিতে তার সম্পত্তিতেই এ ভাস্কর্য নির্মাণ করা হয়। 

এরপরই তিনি (সুখরঞ্জন) তার নিজের সম্পত্তি থেকে নির্মান করা ভাস্কর্য’র স্থানের পাঁচ শতক জমি প্রধানমন্ত্রীর নামে লিখে দেওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।

সুখরঞ্জন ঘরামী বলেন, আমার নিজ সম্পত্তিতে বঙ্গবন্ধু ও তার সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনার প্রতিকৃতি ভাস্কর্য নির্মাণ করায় আমি আনন্দিত ও গৌরবান্বিত বলে মনে করছি। তিনি আরও বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে মহান স্বাধীনতা অর্জিত হয়ে বাঙালী জাতি একটি লাল-সবুজ পতাকা ও স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ পেয়েছে এবং তার সুযোগ্য কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেলে পৌঁছেছে। 

তাই তাদের প্রতি অশেষ কৃতজ্ঞতা ও অকৃত্রিম ভালোবাসার নির্দশন উপহার হিসেবে আমি এ সম্পত্তি লিখে দিয়েছি।

সুখরঞ্জন ঘরামী বলেন, আমার দীর্ঘদিনের মনবাসনা জীবনে একবার হলেও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে দেখা করে সম্পত্তির দলিল আমি নিজেই প্রধানমন্ত্রীর হাতে তুলে দিতে চাই। মনবাসনা পূরন হলে আমি মরেও শান্তি পাবো।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সুখরঞ্জন ঘরামীর তিন পুত্র ও এক পুত্রবধূ ইঞ্জিনিয়ারিং পাস করেও তারা বেকার রয়েছেন। ফলে পাঁচ সন্তানের জনক সুখরঞ্জন ঘরামীকে এখনও বরিশাল আদালতে গিয়ে আইনজীবীর সহকারী হিসেবে কাজ করে ১২ সদস্যর পরিবারের ভরণপোষণের দায়িত্ব পালন করতে হচ্ছে।


শেয়ার করুন

সম্পর্কিত সংবাদ