Feedback

স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা

বাইপোলার ডিসওর্ডারঃ জটিল মানসিক রোগ

বাইপোলার ডিসওর্ডারঃ জটিল মানসিক রোগ
October 31
10:38am
2020
Shahriar M Shohan
Chandina, Comilla:
Eye News BD App PlayStore

ইংরেজি ‘bipolar’ বা ‘বাইপোলার‘ এর বাংলা প্রতিশব্দ হলো ‘দ্বিমেরু’। এখানে মানুষের মানসিক সমস্যার দুটি মেরু বা পর্যায়কে বোঝানো হয়েছে। বাইপোলার ডিসওর্ডার একটি মারাত্মক মানসিক রোগ যার ফলে ব্যক্তির মন-মেজাজে অস্বাভাবিক পরিবর্তন দেখা যায়। টানা কয়েক দিন বা সপ্তাহ ব্যক্তির মন মানসিকতায় চড়াই (ম্যানিয়া) বা উতরাই (ডিপ্রেশন) দেখা যেতে পারে। এই পরিবর্তনগুলি খুব সুস্পষ্ট থাকে এবং ঘন ঘন দেখা যায়। চলুন বাইপোলার ডিসওর্ডার সম্পর্কে আরো কিছু ধারণা নিয়ে আসি। 

এই ধরনের মানসিক রোগে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মানসিক আচরণ দুটি ভিন্ন সময়ে পুরোপুরি ভিন্ন হয়ে উঠে। যেমন, একসময় মানুষের মন হয়ে ওঠে অসম্ভব প্রাণবন্ত। যেকোনো কাজে সে চরম উৎসাহ-উদ্দীপনা অনুভব করে। চরিত্রে অনেক বেশি কর্মস্পৃহা এবং উন্মাদনা লক্ষ্য করা যায়, ব্যক্তির মন অসম্ভব আত্নবিশ্বাসী হয়ে ওঠে, যার কারণে অনেক ভয়াবহ ও বিপদজনক কাজে বাড়াবাড়ি রকমের সাহস দেখিয়ে ফেলতেও পিছপা হন না। মনোবিজ্ঞানের ভাষায়  মনের এই স্তরকে বলা হয় ‘ম্যানিয়া’। ম্যানিয়ার প্রাথমিক স্তরকে বলা হয় ‘হাইপোম্যানিয়া’।   

অন্যদিকে কিছুদিন পরেই ধীরে ধীরে মনের এই অবস্থার পরিবর্তন ঘটে স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসে। কিন্তু মনের এই উঠা-নামা অবস্থা বেশিদিন থাকে না। কিছুদিন পরই মনের আমূল পরিবর্তন ঘটতে থাকে। নিজের অজান্তেই অকারণে একধরনের অবসাদ অনুভব করতে থাকে। নৈরাশ্য বা হতাশা পেয়ে বসে তার মন জুড়ে।

অনেকের মাঝে থেকেও ব্যক্তি নিজেকে একাকী মনে করতে থাকে। কোনোকিছুতেই মন বসতে চায় না। আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব এবং সামাজিক যোগাযোগ যতটা সম্ভব এড়িয়ে চলতে চান। আক্রান্ত ব্যক্তি এসময় কোনোকিছুই স্বাভাবিকভাবে চিন্তা করতে পারেন না। স্মৃতিশক্তিও ধীরে ধীরে ক্ষীণ হয়ে আসে। রাতে বিভিন্ন ধরনের চিন্তায় ঘুম আসতে চায় না।

ব্যাক্তি নিজের জীবনকে তুচ্ছ, উদ্দেশ্যহীন ভাবতে থাকে। মনের এই অবস্থাকে চিকিৎসাবিজ্ঞানের ভাষায় বলা হয় ‘ডিপ্রেশন’ বা ‘অবসাদগ্রস্থ’ পর্যায়। এই পর্যায়ের সবচাইতে বিপদজনক বা শেষ স্তর হলো আত্মহত্যা করার প্রবণতা। এই অসুখের ফলে দৈনন্দিন জীবনযাত্রা চূড়ান্ত ব্যাহত হয়। এর ফলে ব্যক্তিগত সম্পর্কে অশান্তি, এমনকি কর্মক্ষেত্রেও দুর্নাম রটতে পারে।   


বাইপোলারের উপসর্গ কি? 

বাইপোলারে আক্রান্ত ব্যক্তি অতি মাত্রায় খুশী বা উৎফুল্ল থাকেন, আবার কিছুক্ষণ পর অতি মাত্রায় ডিপ্রেসড বা দুঃখী হন। ফলে ক্ষেত্র বিশেষে ভিন্ন ভিন্ন আচরণ দেখা দেয়। 

অতিরিক্ত খুশীর ক্ষেত্রে নিম্নের আচরণ গুলো দেখা দিতে পারেঃ 

ব্যাক্তি অস্থির আচার আচরণ করেন 

ভবিষ্যতের কথা চিন্তা না করেই ভুল সিদ্ধান্ত নিয়ে বসেন যার ফলে নিজেই বিপদ ডেকে আনেন। 

অস্বাভাবিক আনন্দ যা কোনও কিছুতেই (দুঃসংবাদ বা দুর্ঘটনাতেও না) কমে না। 

হঠাৎ তিরিক্ষি মেজাজ হয়ে যাওয়া বা রেগে যাওয়া। 

নিজের সম্পর্কে অবাস্তব ও ভিত্তিহীন কল্পনা, যেমন নিজেকে ভগবান, তারকা বা ঐতিহাসিক চরিত্র মনে করা। 

অন্যের কর্মক্ষমতা সম্বন্ধে উচ্চাশা। যেমন যে কোনও পরিস্থিতিতে ওপর ব্যক্তি চূড়ান্ত কঠিন কাজ করে ফেলবে ভেবে তাঁকে আরও বেশী কাজ দেওয়া। 

বেহিসাবি চালচলন যেমন ভুলভাল খরচা, উদ্ভট ব্যবসায় লগ্নি, বিপজ্জনক ভাবে গাড়ি চালানো অথবা অতিরিক্ত যৌন আকাঙ্ক্ষা। 

মস্তিষ্কের মধ্যে সর্বদা অনিয়ন্ত্রিত চিন্তা চলতে থাকা। 

ঘুমের সমস্যা। 

মনঃসংযোগে অসুবিধা। 

অনর্গল অসংলগ্ন কথাবার্তা। 

বাস্তব এবং কল্পনার মধ্যে ফারাক না করতে পারা। 

অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাস।   


অতিরিক্ত দুঃখে ব্যক্তির নিম্নলিখিত সমস্যাগুলি দেখা দিতে পারেঃ 

  • মানসিক ভাবে চূড়ান্ত বিপর্যস্ত হয়ে পড়া। 
  • হতাশায় ডুবে যাওয়া।
  • একবার কোনও কাজ করে ফেললে তাতে আগ্রহ হারিয়ে ফেলা। 
  • সব সময় ক্লান্তিতে ডুবে থাকা। 
  • ঘুমাতে না পারা। 
  • ক্ষুধামন্দা। 
  • নিজেকে শেষ করে দেবার চিন্তা ভাবনা।

বাইপোলার ডিসওর্ডারে আক্রান্ত হওয়ার কারণসমূহঃ 

বাইপোলার ডিসঅর্ডারের কোনো সুনির্দিষ্ট কারণ জানা যায় নি। বিভিন্ন মানুষের ক্ষেত্রে বিভিন্ন কারণে এই ধরনের মানসিক সমস্যা হতে পারে। সাধারণত কৈশোরেই এই রোগ নিঃশব্দে থাবা বসায়। অসুখ সম্পর্কে বুঝতে না পারার ফলে ব্যক্তি অনেক দেরি করে চিকিৎসা করাতে আসেন। 

এই রোগের সাধারণ কারণগুলো আলোচনা করা হলঃ 

১। বংশগত বা জিনগত

সাধারণত ধারণা করা হয়ে থাকে পরিবারে যদি কারো এই মানসিক সমস্যা থেকে থাকে তবে পরবর্তী প্রজন্মের কারো মাঝে এই সমস্যা দেখা দিতে পারে। 

২। অতিরিক্ত মানসিক চাপ

অতিরিক্ত মানসিক চাপের ফলেও এই ধরনের সমস্যা দেখা দিতে পারে। যেমন- চাকরিক্ষেত্রে অত্যধিক কাজের চাপ, সংসারে জটিলতা, আর্থিক সমস্যা, ব্যবসায় ক্ষতি, পারিবারিক কলহ অথবা বিভিন্ন আবেগ-অনুভূতির কারণেও এই ধরনের সমস্যা হতে পারে। 

৩। শৈশবের দুঃসহ স্মৃতি

ছোটবেলার এমন কোনো মানসিক বা শারীরিক আঘাতের স্মৃতি যা মনের মধ্যে তীব্র ভাবে দাগ কেটে গেছে, যার কথা কাউকে বলা হয়নি বা বলার যোগ্যও নয়, যা সবসময় নিজের অজান্তে মনকে পীড়া দিয়ে উঠে; এই ধরনের ঘটনা বা স্মৃতি পরবর্তীতে এই ধরনের মানসিক সমস্যার জন্য দায়ী হয়ে উঠে।  এছাড়াও হরমোনের ঘাটতি, মাদকাসক্তি এসব কারণে বাইপোলার ডিসওর্ডার হতে পারে।     


বাইপোলার ডিসওর্ডারের চিকিৎসাঃ 

বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে চিকিৎসা একটি বড় বাঁধা। আক্রান্ত ব্যক্তি কখনোই নিজের সমস্যা বুঝতে পারেন না অথবা বুঝতে পারলেও মানসিক সমস্যার ব্যাপারটি সহজভাবে কিছুতেই মেনে নিতে পারেন না। ফলে রোগীকে উপযুক্ত চিকিৎসার আওতায় আনা মুশকিল হয়ে যায়। সমস্যা খুব তীব্র পর্যায়ে চলে গেলে কোনো অভিজ্ঞ মনোবিশেষজ্ঞ বা চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে। 

এই রোগ থেকে মুক্তি পেতে হলে দীর্ঘস্থায়ী চিকিৎসা প্রয়োজন। সঠিক চিকিৎসার মাধ্যমে রোগীকে স্বাভাবিক জীবনে নিয়ে আসা সম্ভব। কগ্নিটিভ বিহেভিওরাল থেরাপি, কাউন্সেলিং ও ওষুধের সাহায্যে রোগের উপসর্গ ব্যাপক হারে কমিয়ে আনা যায়।

চিকিৎসায় কতটা কার্যকরী হবে তা নির্ভর করে রোগীর সহ্যক্ষমতা, রোগের পর্যায়, পারিবারিক চিকিৎসা এমনকি রোগীর বয়সের ওপর। চিকিৎসা না করানো বা মাঝপথে চিকিৎসা বন্ধ করে দিলে অবস্থা মারাত্মক হতে পারে। এমনকি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যেতে পারে।


বাইপোলারে আক্রান্ত রোগীর চিকিৎসার মূল উদ্দেশ্যগুলো হলঃ 

  • রোগের উপসর্গগুলোকে আয়ত্তে নিয়ে আসা।
  • তাঁকে দৈনন্দিন কাজকর্ম স্বাভাবিক ভাবে করতে দেওয়া।
  • নিজের কোনও ক্ষতি বা আত্মহত্যা আটকানো।

নিয়মিত মেডিটেশন করা, যোগব্যায়াম করা, নিয়মিত চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া, চিকিৎসকের পরামর্শে ওষুধ সেবন এবং এই রোগ সম্পর্কে অনেক বেশি জানার মাধ্যমে এই রোগ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। 

এছাড়াও আরো কিছু কাজ চালিয়ে যেতে হবেঃ

  • নিয়মিত পরীক্ষা করানো
  • স্বাস্থ্যকর রুটিনে চলার চেষ্টা করা
  • কোন পরিস্থিতিতে উপসর্গ বৃদ্ধি পাচ্ছে তা লক্ষ রাখা
  • যে পরিস্থিতি গুলোতে তিনি উত্তেজিত হন সেগুলো এড়িয়ে চলা।
  • বন্ধু-বান্ধব ও পরিবারের সাহায্য উপলব্ধি করা এবং মিশতে চেষ্টা করা
  • অন্যান্য রোগী বা পরিবারের সাথে কথা বলা এবং মতামত আদান-প্রদান করা
  • রোগীর সাথে কথা বলার সময় মাথা ঠাণ্ডা রাখা, এতে তাঁরও মন ভাল থাকবে
  • রোগীকে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী চলতে উৎসাহ দিতে হবে
  • মাথা ঠাণ্ডা হলে পরে রোগীর নিজের চালচলনের জন্য গ্লানি বা অপরাধ বোধ জন্মাতে পারে।
  • তাঁকে বোঝাতে হবে যে এতে তাঁর কোনও দোষ নেই।
  • চিকিৎসায় যে উনি অনেকটাই সুস্থ হয়ে উঠবেন সেই বিষয়ে তাঁকে আশ্বস্ত করতে হবে
  • এমন কিছু বলা বা করা যাবে না যাতে উনি বিপজ্জনক কোনও পদক্ষেপ গ্রহণ করেন।

All News Report

Add Rating:

0

সম্পর্কিত সংবাদ

ট্রেন্ডিং

এখন আরও ফেমাস মিন্নি, মিন্নিকে দেখলে এখন ছবি তুলতে আসে সবাই

এখন আরও ফেমাস মিন্নি, মিন্নিকে দেখলে এখন ছবি তুলতে আসে সবাই

ভারত-পাকিস্তান-বাংলাদেশ মিলে একটি দেশ হওয়া উচিত

ভারত-পাকিস্তান-বাংলাদেশ মিলে একটি দেশ হওয়া উচিত

কিশোরগঞ্জে বাড়ির পরিত্যক্ত স্থান থেকে নবজাতকের লাশ উদ্ধার

কিশোরগঞ্জে বাড়ির পরিত্যক্ত স্থান থেকে নবজাতকের লাশ উদ্ধার

কিশোরগঞ্জে হত্যা মামলায় আ.লীগ নেতা রিমান্ডে

কিশোরগঞ্জে হত্যা মামলায় আ.লীগ নেতা রিমান্ডে

বলিউডে না এসেও ১০০ কোটির মালিক রশ্মিকা

বলিউডে না এসেও ১০০ কোটির মালিক রশ্মিকা

মিঠাপুকুরে নিখোঁজের ৪দিন পর শিশুর লাশ উদ্ধার

মিঠাপুকুরে নিখোঁজের ৪দিন পর শিশুর লাশ উদ্ধার

উত্তরে তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াস, আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘নিভার’

উত্তরে তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াস, আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘নিভার’

শীতে পা ফাটা রোধে যা করবেন

শীতে পা ফাটা রোধে যা করবেন

মিঠাপুকুরে রাব্বি অপহৃরন ও হত্যাকান্ডে ২জন গ্রেফতার

মিঠাপুকুরে রাব্বি অপহৃরন ও হত্যাকান্ডে ২জন গ্রেফতার

মুফতিকে বিয়ে করে তোলপাড় ভারতীয় মিডিয়া, বিয়ের পর নামও বদলালেন সানা খান

মুফতিকে বিয়ে করে তোলপাড় ভারতীয় মিডিয়া, বিয়ের পর নামও বদলালেন সানা খান

হত্যার ১৪ বছর পর ফাঁসির আসামী গ্রেপ্তার

হত্যার ১৪ বছর পর ফাঁসির আসামী গ্রেপ্তার

সিলেট নগরীতে তালাবদ্ধ কক্ষ থেকে নববধূর লাশ উদ্ধার, স্বামী পলাতক

সিলেট নগরীতে তালাবদ্ধ কক্ষ থেকে নববধূর লাশ উদ্ধার, স্বামী পলাতক

বালিয়াডাঙ্গীতে বিনামূল্যে বীজ ও সার পাচ্ছেন ৫৭৮০ জন কৃষক

বালিয়াডাঙ্গীতে বিনামূল্যে বীজ ও সার পাচ্ছেন ৫৭৮০ জন কৃষক

রমিজকে তুলোধুনো করলেন হাফিজ

রমিজকে তুলোধুনো করলেন হাফিজ

প্রতিমন্ত্রী পাচ্ছে ধর্ম মন্ত্রণালয়

প্রতিমন্ত্রী পাচ্ছে ধর্ম মন্ত্রণালয়

সর্বশেষ

সিলেটে রাস্তা দখল করে ব্যবসা : মামলা, জরিমানা

সিলেটে রাস্তা দখল করে ব্যবসা : মামলা, জরিমানা

রংপুরে দুই কার্য দিবসে ধর্ষণ মামলার রায়, আসামি নির্দোষ

রংপুরে দুই কার্য দিবসে ধর্ষণ মামলার রায়, আসামি নির্দোষ

শ্যামনগরে প্রতিবন্ধীদের সরকারি ও বেসরকারী কর্মসূচিতে অর্ন্তভুক্তিকরণ বিষয়ে মতবিনিময়

শ্যামনগরে প্রতিবন্ধীদের সরকারি ও বেসরকারী কর্মসূচিতে অর্ন্তভুক্তিকরণ বিষয়ে মতবিনিময়

কলাপাড়ায় দুইজন ভুয়া ডাক্তার গ্রেপ্তার

কলাপাড়ায় দুইজন ভুয়া ডাক্তার গ্রেপ্তার

শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে বরাদ্দ অব্যাহত রেখেছে : খোরশেদ আলম সুজন

শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে বরাদ্দ অব্যাহত রেখেছে : খোরশেদ আলম সুজন

রংপুরে প্রতিবন্ধী বিষয়ক সচেতনতামুলক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

রংপুরে প্রতিবন্ধী বিষয়ক সচেতনতামুলক কর্মশালা অনুষ্ঠিত

হাইমচরে ৪২তম জাতীয় বিজ্ঞান সপ্তাহ সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান সম্পন্ন

হাইমচরে ৪২তম জাতীয় বিজ্ঞান সপ্তাহ সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠান সম্পন্ন

বাংলাদেশ পুজাঁ উদযাপন পরিষদ রংপুর জেলা শাখার বিশেষ প্রার্থনা সভা অনুষ্ঠিত

বাংলাদেশ পুজাঁ উদযাপন পরিষদ রংপুর জেলা শাখার বিশেষ প্রার্থনা সভা অনুষ্ঠিত

কমলগঞ্জে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন

কমলগঞ্জে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন

বেগমপাড়ার সাহেবদের ধরতে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাঃ ওবায়দুল কাদের

বেগমপাড়ার সাহেবদের ধরতে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাঃ ওবায়দুল কাদের

বয়স্ক জনকল্যাণ প্রকল্পের সুবিধা পাচ্ছেন মুন্সিগঞ্জ ও বুড়িগোয়ালিনীর দুই শতাধিক প্রবীণ

বয়স্ক জনকল্যাণ প্রকল্পের সুবিধা পাচ্ছেন মুন্সিগঞ্জ ও বুড়িগোয়ালিনীর দুই শতাধিক প্রবীণ

সানা খানকে কটাক্ষ করায় চটেছেন সোফিয়া

সানা খানকে কটাক্ষ করায় চটেছেন সোফিয়া

পলাশবাড়ীতে সাংবাদিকদের সাথে স্বতন্ত্র মেয়রপ্রার্থী বিপ্লবের মতবিনিময় সভা

পলাশবাড়ীতে সাংবাদিকদের সাথে স্বতন্ত্র মেয়রপ্রার্থী বিপ্লবের মতবিনিময় সভা

শ্রমিকলীগ সভাপতি মন্টুর আত্মার মাগফিরাত কামনায় রংপুরে দোয়া

শ্রমিকলীগ সভাপতি মন্টুর আত্মার মাগফিরাত কামনায় রংপুরে দোয়া

আধুনিকরণ করার লক্ষে রসিক মেয়র মোস্তফার চিকলী বিল ও পার্ক পরিদর্শণ

আধুনিকরণ করার লক্ষে রসিক মেয়র মোস্তফার চিকলী বিল ও পার্ক পরিদর্শণ