Feedback

জাতীয়

করোনায় শ্রমিক বাঁচাতে দশ প্রস্তাবনা

করোনায় শ্রমিক বাঁচাতে দশ প্রস্তাবনা
October 18
11:32pm
2020
Md.Helal Uddin Sarker
Dhunat, Bogra:
Eye News BD App PlayStore

করোনায় শ্রমিক বাঁচাতে দশটি প্রস্তাবনা পেশ করেছে বাংলাদেশ সংযুক্ত গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশন। আজ ১৮ অক্টোবর রোববার দুপুরে সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ বজলুর রহমান বাবলু স্বাক্ষরিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বাংলাদেশ সংযুক্ত গার্মেন্টস শ্রমিক ফেডারেশন জানায়।   

বৈশ্বিক মহামারি নোভেল করোনা ভাইরাস কভিড-১৯ এর দীর্ঘ সময় অতিবাহিত  হতে যাচ্ছে, বিশেষজ্ঞরা মনে করেন ২য় দফায় আরো শক্তিশালী হয়ে এ ভাইরাস জেকে বসতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে আমদের সকলকে স্বাস্থ্যবিধী মেনে অত্যন্ত সচেতন থেকে এই কঠিন দিন পার করতে হবে।   

গত কয়েক মাসে আমরা ঝুকি নিয়ে গার্মেন্টস শিল্প শ্রমিকসহ বিভিন্ন সেক্টরের শ্রমজীবি লোকেরা  কাজ অব্যাহত রেখেছি, পক্ষান্তরে করোনায় ব্যাপক সংখ্যক শ্রমিক চাকুরী হারিয়ে বেকার হয়েছে। দেশের অর্থনীতি গতিশীল রাখতে চাকুরীচ্যুত শ্রমিকদের কাজে ফিরিয়ে আনতে হবে।   কর্মরত শ্রমিকদের ঋনের বোঝা কাঁধে ঝুলছে, আয় কমে গেছে ও সার্বিক ব্যায় বৃদ্ধি পেয়েছে নীতি নির্ধারকদের সিদ্ধান্তগত কারনে সরকার ও মালিকের সিদ্ধান্তে -বন্ধ হয়ে গেছে ছোট বড় অনেক শিল্প কারখানা। বন্ধকৃত কারখানা গুলো খোলার উদ্যোগ গ্রহন করে বেকার শ্রমিকদের কর্মে ফিরিয়ে আনতে হবে।   

দেশের এ মহামারিতে সকলকে মিতব্যায়ী হতে হবে কিন্তু পোশাক শিল্পের শ্রমিকরা, যে পরিমান মজুরী পায় তাতে মিতব্যায় শব্দটা তাদের জীবনে নাই, কারন কোন সময়েই তাদের জীবন যাপনের স্বাভাবিক অবস্থা ছিলনা। বর্তমানে সকল নিত্যপন্যের দাম ব্যাপক বৃদ্ধির ফলে শ্রমজীবি লোকেরা সীমাহীন দূর্ভোগের শিকার হয়ে পড়েছে।   

আমরা মনে করি দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার অর্থযোদ্ধাদের ১০০% শতভাগ আপদকালীন মহার্ঘ্য ভাতা, স্থায়ী রেশনিং ব্যবস্থাকরা সহ ন্যায় সংগত অধিকার বাস্তবায়ন করার জন্য ১০ (দশ)টি প্রস্তাবনা পেশ করছি। 

১। দ্রব্য মূল্য সীমাহীন উর্দ্ধগতির কারণে পোশাক শিল্প শ্রমিকদের অবিলম্বে আপদকালীন ১০০% ( শতভাগ) মহার্ঘ্য ভাতা প্রদান ও নিম্ন আয়ের মানুষের নিত্য পণ্য ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে বাজার মূল্য নিশ্চিত করতে হবে।

২। গার্মেন্টস শ্রমিকগণ চাকুরীতে যোগদানের ৬ মাসের মধ্যে চাকুরী স্থায়ীকরন করতে হবে।

৩। চাকুরীর মেয়াদ ৬ মাস অতিবাহিত হলেই পূর্ন্য সার্ভিস বেনিফিট দিতে হবে।

৪। শ্রমিক ছাঁটাই লিখিত পত্রের মাধ্যমে করতে হবে অন্যথায় কর্তৃপক্ষকে আইনের আওতায় এনে শাস্তির বিধান করতে হবে।

৫। মৌখিক ছাঁটাই এর মামলা খারিজ করা চলবে না।

৬। ২০০/- (দুই শত) টাকার মধ্যে শ্রমিকদের পূর্ন পারিবারিক রেশনিং ব্যবস্থা করতে হবে।

৭। পোশাক শিল্প নিয়ে দেশি-বিদেশী ষড়যন্ত্রকারীদের হাত থেকে শ্রমিক ও শিল্প রক্ষা করে দেশের অর্থনীতির সূচক বৃদ্ধির হার আরো বেগবান করতে হবে।

৮। নারী ও শিশু নির্যাতন, ধর্ষন, রাস্ট্রীয় কোষাগার লুন্ঠন, বিদেশে অর্থ ও মানব পাচার এবং দূর্নীতিবাজদের স্বল্প সময়ের মধ্যে দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে।

৯। আই এল ও (ওখঙ) কনভেনশন কার্যকর করে অবাধ ট্রেড ইউনিয়ন করার সুযোগ দিতে হবে। ট্রেড ইউনিয়নের কর্মী/সদস্যদের উপর হয়রানি বন্ধ করতে হবে।   

১০। অবৈধ সকল বিদেশী শ্রমিকদের বহিস্কার করে দেশীয় বেকার শ্রমিকদের নিয়োগ দিতে হবে। সংশ্লিষ্ট শিল্প কারখানায় আইন-শৃংঙ্খলা বাহিনীর নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করে অবৈধ বিদেশী শ্রমিকদের গ্রেফতার ও বিদেশে অর্থ-পাচার বন্ধ করতে হবে। 

আমাদের সংগঠন বাংলাদেশ সংযুক্ত গার্মেটন্স শ্রমিক ফেডারেশন আশাকরে সকলের সার্বিক সহযোগিতায় এ সমস্ত নিম্ন আয়ের শ্রমজীবি মানুষেরা ন্যায় সংগত অধিকার পাবে। শ্রমজীবিদের হাতেই গড়ে উঠবে উন্নত বাংলাদেশ। এ ভাবে নিম্ন আয়ের শ্রমজীবিরা আর্থিক সংকটে পড়লে বেকারত্ব বেড়ে গেলে তার সাথে বিদেশে কর্মরত শ্রমিকরা দেশে ফেরত আসা অব্যাহত থাকলে সামাজিক নিরাপত্তায় বিঘ্ন ঘটতে পারে।   

সমাজে অন্যায়, অবিচার, যৌন কর্মকান্ড বেড়ে যেতে পারে। আজকে যে যৌন হয়রানি ও ধর্ষন মহামারি রূপ নিয়েছে, এর প্রেক্ষিতে ছিনতাই, চাঁদাবাজী, চুরি, ডাকাতি,নিয়ন্ত্রনের বাইরে যেতে পারে। সবাই এখন সামাজিক যোগাযোগের সাথে যুক্ত থাকায় তারা জানতে পারে রাষ্ট্রের বড় বড় অপরাধ সংগঠিত করে পার পেয়ে যাচ্ছে। আমাদের দেশের জোয়ানরা শান্তি রক্ষা মিশনে গিয়ে গৌরব উজ্জল ভূমিকা রেখে দেশে স্বর্ন আনিয়েছে। প্রবাসী শ্রমিকরা বৈদেশিক মুদ্রা এনেছে। পোশাক শিল্পে ৮০ ভাগ বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করছে আর সেই অর্থ লুপাট করে কতিপয় লোকের দুর্নীতির কারনে আবার সেই অর্থ বিদেশে পাচার করছে।তখন ঐ সকল অর্থ উপার্জন মানুষ গুলো হতাশা গ্রস্থ হয়ে অনেকেই কর্মবিমুখ হয়ে পড়ে।   

সর্বোপরি আমরা  জানতে চাই সকল প্রকার অনিয়ম, দূর্নীতি সরকারী ও বেসরকারী খাতে সেবার স্বচ্ছতা ও জবাব দিহিতা নিশ্চিত করার পাশাপাশি দেশের সকল নাগরিককে সমান তালে দেখে, ধর্ষন, নারী ও শিশু নির্যাতন অন্যায় কাজ থেকে বিরত থাকার সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে  হবে এবং শ্রমজীবিদের উপরে উল্লেখিত অধিকার গুলো বাস্তবায়ন করতে হবে।

All News Report

Add Rating:

0

সম্পর্কিত সংবাদ

ট্রেন্ডিং

বাতিল হতে যাচ্ছে ‘কাফালা বা কপিল প্রথা’: ২০২১ সালের প্রথম ৬ মাসেই বিলুপ্তি কার্যকর হবে

বাতিল হতে যাচ্ছে ‘কাফালা বা কপিল প্রথা’: ২০২১ সালের প্রথম ৬ মাসেই বিলুপ্তি কার্যকর হবে

মোরগের আক্রমণে পুলিশ কর্মকর্তার মৃত্যু

মোরগের আক্রমণে পুলিশ কর্মকর্তার মৃত্যু

সুনামগঞ্জে সন্ত্রাসীদের অস্ত্রের আঘাতে একই পরিবারের ৮ জন আহত

সুনামগঞ্জে সন্ত্রাসীদের অস্ত্রের আঘাতে একই পরিবারের ৮ জন আহত

নাস্তিকরা উগ্রবাদী হয়ে উঠছে- শাহরিয়ার কবির

নাস্তিকরা উগ্রবাদী হয়ে উঠছে- শাহরিয়ার কবির

বাংলা সিনেমার ফিল্ম স্টাইলে দেহরক্ষী নিয়ে চলতেন ইরফান !

বাংলা সিনেমার ফিল্ম স্টাইলে দেহরক্ষী নিয়ে চলতেন ইরফান !

ভয়ে ফরাসি নাগরিকদের সতর্ক থাকার আহবান ফ্রান্সের

ভয়ে ফরাসি নাগরিকদের সতর্ক থাকার আহবান ফ্রান্সের

জয়পুরহাটে এমপি'র নামফলক ভাংচুরের অভিযোগ

জয়পুরহাটে এমপি'র নামফলক ভাংচুরের অভিযোগ

মালয়েশিয়ায় চাকরী হারানো শ্রমিকদের জন্য অনলাইনে চাকরীর আবেদন চালু করা হয়েছে

মালয়েশিয়ায় চাকরী হারানো শ্রমিকদের জন্য অনলাইনে চাকরীর আবেদন চালু করা হয়েছে

রংপুরে ছাত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণে জড়িত এএসআই রাহেনুল

রংপুরে ছাত্রীকে সংঘবদ্ধ ধর্ষণে জড়িত এএসআই রাহেনুল

লালন সাইঁজির তিরোধান দিবস উপলক্ষে রাজিব শাহ'র কণ্ঠে আসছে "ধন্য আশেকি জনা"

লালন সাইঁজির তিরোধান দিবস উপলক্ষে রাজিব শাহ'র কণ্ঠে আসছে "ধন্য আশেকি জনা"

ঢাবির লাইব্রেরির পেছনে পাওয়া গেল নবজাতকের লাশ

ঢাবির লাইব্রেরির পেছনে পাওয়া গেল নবজাতকের লাশ

পটুয়াখালীতে দুই সমকামী নারী গ্রেফতার

পটুয়াখালীতে দুই সমকামী নারী গ্রেফতার

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার সম্ভাব্য তারিখ নির্ধারণ

মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার সম্ভাব্য তারিখ নির্ধারণ

সিনহা হত্যা: আবারো ৫ দিনের রিমান্ডে কনস্টেবল রুবেল শর্মা

সিনহা হত্যা: আবারো ৫ দিনের রিমান্ডে কনস্টেবল রুবেল শর্মা

ইরফান সেলিম ও তার দেহরক্ষী জাহিদের রিমান্ড শুনানি আজ

ইরফান সেলিম ও তার দেহরক্ষী জাহিদের রিমান্ড শুনানি আজ

সর্বশেষ

ধারালো অস্ত্রের আঘাতে বাবার হাতে মা খুন: কী হবে মৌমিতা-মহিমার?

ধারালো অস্ত্রের আঘাতে বাবার হাতে মা খুন: কী হবে মৌমিতা-মহিমার?

মিঠাপুকুরে আমন ধানক্ষেতে কারেন্ট পোকার উপদ্রপে কৃষক জনগোষ্ঠির মাথায় হাত

মিঠাপুকুরে আমন ধানক্ষেতে কারেন্ট পোকার উপদ্রপে কৃষক জনগোষ্ঠির মাথায় হাত

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি আবারো বাড়ছে, বৃহস্পতিবার সিদ্ধান্ত

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি আবারো বাড়ছে, বৃহস্পতিবার সিদ্ধান্ত

শিশু গৃহকর্মীর মরদেহ রেখে পালানোর সময় স্বামী-স্ত্রী আটক

শিশু গৃহকর্মীর মরদেহ রেখে পালানোর সময় স্বামী-স্ত্রী আটক

নয় দিনে ৯ লাখ ৭৭ হাজার টাকা, নূরের গণচাঁদার হিসাব প্রকাশ

নয় দিনে ৯ লাখ ৭৭ হাজার টাকা, নূরের গণচাঁদার হিসাব প্রকাশ

ভুয়া চিকিৎসক ও অনিয়ম রোধে র‍্যাব এর অভিযান

ভুয়া চিকিৎসক ও অনিয়ম রোধে র‍্যাব এর অভিযান

নতুন করে আর সৌমিত্রর অবস্থার অবনতি হয়নি , ডায়ালিসিস শুরু হয়েছে

নতুন করে আর সৌমিত্রর অবস্থার অবনতি হয়নি , ডায়ালিসিস শুরু হয়েছে

গফরগাঁও পৌরসভাকে ডিজিটালভাবে নিমার্ণ করার ঘোষণা

গফরগাঁও পৌরসভাকে ডিজিটালভাবে নিমার্ণ করার ঘোষণা

মিরপুর সেনানিবাসস্থ ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজ (এনডিসি) লাইব্রেরীতে বঙ্গবন্ধু কর্ণার স্থাপন

মিরপুর সেনানিবাসস্থ ন্যাশনাল ডিফেন্স কলেজ (এনডিসি) লাইব্রেরীতে বঙ্গবন্ধু কর্ণার স্থাপন

লোভে পড়ে স্ত্রী সহবাসের লাইভ দেখিয়ে লাখ টাকা আয়! স্ত্রীর মামলায় যুবক কারাগারে

লোভে পড়ে স্ত্রী সহবাসের লাইভ দেখিয়ে লাখ টাকা আয়! স্ত্রীর মামলায় যুবক কারাগারে

ইসলামী ব্যাংক ছাতক শাখায় ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত

ইসলামী ব্যাংক ছাতক শাখায় ওয়ার্কশপ অনুষ্ঠিত

রং নম্বরে পরিচয়, পরকীয়ার টানে ঘরে ছেড়ে মাইক্রোবাসে ধর্ষণের স্বীকার গৃহবধূ

রং নম্বরে পরিচয়, পরকীয়ার টানে ঘরে ছেড়ে মাইক্রোবাসে ধর্ষণের স্বীকার গৃহবধূ

আজমিরীগঞ্জে দরিদ্রের প্রণোদনা বিতরণে কমিশনারের স্বজন প্রীতির অভিযোগ

আজমিরীগঞ্জে দরিদ্রের প্রণোদনা বিতরণে কমিশনারের স্বজন প্রীতির অভিযোগ

বালিয়াডাঙ্গীতে বসতভিটার জমি নিয়ে সংঘর্ষ, আহত-৩

বালিয়াডাঙ্গীতে বসতভিটার জমি নিয়ে সংঘর্ষ, আহত-৩

শার্লি হেবদোর বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা করলেন এরদোয়ান

শার্লি হেবদোর বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা করলেন এরদোয়ান