Feedback

স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা, নারী ও শিশু

গর্ভবর্তী মায়ের করণীয়

গর্ভবর্তী মায়ের করণীয়
October 18
10:23pm
2020
রায়হান আহম্মেদ
শাহজাহানপুর, ঢাকা:
Eye News BD App PlayStore

প্রসূতি নারীদের বিশেষ যত্নের প্রয়োজন। কিন্তু আমরা অনেকেই জানি না কখন, কি করতে হবে। অতিরিক্ত আবেগ, মানসিক চাপ, দুশ্চিন্তা, ভয়, রোগ-শোক ইত্যাদি গর্ভবতী মায়ের স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকর, তাই এসব এড়িয়ে ভালো চিন্তা করতে হবে। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ওষুধ সেবন করা যাবে না। পানিশূন্যতা রোধে স্বাভাবিকের চেয়ে অধিক পরিমাণে পানি পান করতে হবে। সব ধরনের ঝুঁকি এড়াতে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নেয়া আবশ্যক।  

চিকিৎসকের শরণাপন্ন হওয়া: অনেক দম্পতি প্রেগন্যান্সির পরিকল্পনাকাল থেকে চিকিৎসকের সাথে মাসে একবার দেখা করেন। আপনি যখন নিশ্চিত হবেন আপনি গর্ভবতী তখন থেকে নিয়মিত ডাক্তারের সান্নিধ্যে থাকুন। এই সময়ে অনেক সাবধানে চলাফেরা করতে হয়। খাওয়া দাওয়ার ব্যাপারে সতর্ক হতে হয়। চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে চললে আপনার এবং আপনার সন্তানের কোনো ক্ষতি হবে না। নয়তো কোনো একটি ভুলের কারণে আপনি অথবা আপনার সন্তান কিংবা উভয়েরই ক্ষতি হতে পারে। এই সময় প্রতিমাসে ভালো গাইনোকোলোজিস্ট দেখানো দরকার। এই ব্যাপারে অবহেলা করা উচিত নয়।

পারিবারিক চিকিৎসার ইতিহাস জানা: আপনার গর্ভকালীন অবস্থায় পারিবারিক চিকিৎসার ইতিহাস জানা জরুরী। আপনার ফুপু, দাদীদের সময়ে গর্ভবতী হলে কোনো সমস্যা হতো কিনা, কোনো সমস্যার সমাধান কীভাবে করতে হবে ইত্যাদি সম্পর্কে জেনে নেওয়া ভালো। পারিবারিক বা বংশীয় কোনো সমস্যা থাকলে তা আগে থেকে চিকিৎসকের সাথে আলোচনা করলে রোধ করা যাবে।

টিকা খুব গুরুত্বপূর্ণ: গর্ভাবস্থায় ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী টিকা গ্রহণ করতে হবে। টিকা দিলে শিশুকে ধনুষ্টংকার, ফ্লুসহ বিভিন্ন রোগের হাত থেকে রক্ষা করা যাবে। এমনকি গর্ভাবস্থায় আপনারও কোনো সমস্যা হবে না। এই টিকাগুলো দিলে সহজে আপনি দুর্বল হবেন না, শারীরিক ও মানসিকভাবে উপকৃত হবেন। তাই গর্ভাবস্থায় চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী টিকা দিন। নতুবা শিশু শারীরিক অসুস্থতা নিয়েই জন্মাবে। কারণ গর্ভাবস্থায় মায়ের স্বাস্থ্যের প্রভাব শিশুর উপর পড়ে।

গর্ভাবস্থার দিন হিসাব করুন: গর্ভকালীন দিনগুলোর হিসাব রাখা জরুরী। গর্ভাবস্থা ৩টি ভাগে বিভক্ত যেমন ৩+৩+৩=৯ মাস। প্রথম তিন মাসে হরমোনগত পরিবর্তন, বিপাকীয় পরিবর্তন, রক্তাচাপ জনিত সমস্যা ইত্যাদি হতে পারে। গর্ভাবস্থার দিনগুলোর হিসাব করা এবং কবে ডেলিভারি হবে তা জানা জরুরী। বিশেষ করে ঋতুস্রাব চক্রের শেষ চক্রে ডেলিভারির তারিখ পড়ে। ৩৭-৪০ সপ্তাহের মধ্যে সাধারণত ডেলিভারি করানো যায়।

গর্ভাবস্থায় রক্তপাত ঘটতে পারে: কখনো কখনো গর্ভাবস্থায় রক্তপাত ঘটতে পারে। এই ধরনের রক্তপাতে শঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করলে সমাধান পাওয়া যাবে।

গর্ভাবস্থায় স্বাভাবিকভাবে ওজন যত হওয়া দরকার: গর্ভাবস্থায় ওজন কত হওয়া দরকার তা নির্ভর করে আপনার বর্তমান ওজনের উপর। আপনার ওজন যদি প্রয়োজনের অতিরিক্ত হয় তাহলে অল্প পরিমাণে ক্যালরি ও অন্যান্য পুষ্টি উপাদান গ্রহণ করুন। আপনার ওজন যদি অল্প হয়, দেহে ভিটামিন, ক্যালরি, ক্যালসিয়ামের ঘাটতি থাকে তাহলে অধিক পরিমাণে খাবার খান। সঠিক পরিমাণের খাবার খেলে আপনার গর্ভের শিশু পুষ্টি পাবে। প্রয়োজনের অতিরিক্ত খাবার খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। অতিরিক্ত খাবার কখনো কখনো ক্ষতির কারণ হয়।

যেসব খাবার খাওয়া যাবে, যেসব খাওয়া যাবে না: ভিটামিন ও পরিপূরক খাবারের পাশাপাশি আপনাকে খেতে হবে সুষম খাবার, পুষ্টিকর খাবার এবং প্রয়োজনীয় পথ্য। সাধারণত চিকিৎসক আপনাকে আপনার শারীরিক প্রয়োজন অনুযায়ী ডায়েট চার্ট দিয়ে দিবে। ক্যাফেইন, অ্যালকোহল ইত্যাদি থেকে বিরত থাকতে হবে। অ্যালকোহল ও ক্যাফেইন পান করলে বাচ্চার জন্মগত অক্ষমতা, সঠিক সময়ের পূর্বে ডেলিভারি হবে এবং বাচ্চা কম ওজনের হবে।

শারীরিক কাজ করতে হবে: সন্তান জন্ম দেয়া নিঃসন্দেহে একটি বড় কাজ। সন্তান জন্ম দিলে শরীরের উপর বড় ধরণের প্রভাব পড়ে। গর্ভাবস্থায় শারীরিক ব্যায়াম, হাঁটাচলা প্রয়োজন। সারাদিন শুয়ে বসে না থেকে ছোট ছোট কাজ করা যেতে পারে। শারীরিক ব্যায়াম, হাঁটাচলা করলে অস্বস্তি থেকে মুক্তি পাবেন এবং গর্ভকালীন ব্যথা থেকে মুক্তি পাবেন। আপনি সঠিক উপায়ে চললে আপনার গর্ভের শিশুর উন্নয়ন হবে। ছোট ছোট কাজ করলে ক্ষতি হবেনা। তবে ভারী কোনো কাজ করা যাবে না।

All News Report

Add Rating:

0

সম্পর্কিত সংবাদ

ট্রেন্ডিং

কুলাউড়ার রবিরবাজারে ট্রাকের ধাক্কায় প্রাণ হারালো শিশু

কুলাউড়ার রবিরবাজারে ট্রাকের ধাক্কায় প্রাণ হারালো শিশু

প্রেম করে  বিয়ে,পরকীয়া করে সন্তানসহ টাকা নিয়ে উধাও প্রবাসীর স্ত্রী

প্রেম করে বিয়ে,পরকীয়া করে সন্তানসহ টাকা নিয়ে উধাও প্রবাসীর স্ত্রী

কবরস্থানে নড়ে  ওঠা সেই শিশু মারা গেছে

কবরস্থানে নড়ে ওঠা সেই শিশু মারা গেছে

স্ত্রীর কাছ থেকে তালাকের নোটিশ পেয়ে  দুধ দিয়ে গোসল করলেন স্বামী

স্ত্রীর কাছ থেকে তালাকের নোটিশ পেয়ে দুধ দিয়ে গোসল করলেন স্বামী

তাড়াইলে জাতীয় পার্টির নেতা ইয়াবাসহ আটক

তাড়াইলে জাতীয় পার্টির নেতা ইয়াবাসহ আটক

বরিশালে অচেতন অবস্থায় নারী কর্মকর্তাকে নদী থেকে উদ্ধার

বরিশালে অচেতন অবস্থায় নারী কর্মকর্তাকে নদী থেকে উদ্ধার

নবাবগঞ্জে প্রেমিকের বাড়িতে টিভি দেখতে গিয়ে একাধিক বার ধর্ষণের শিকার কলেজ ছাত্রী

নবাবগঞ্জে প্রেমিকের বাড়িতে টিভি দেখতে গিয়ে একাধিক বার ধর্ষণের শিকার কলেজ ছাত্রী

পত্রিকায় হারানো বিজ্ঞপ্তি দেখে এগিয়ে যেতেন ভুয়া ওসি

পত্রিকায় হারানো বিজ্ঞপ্তি দেখে এগিয়ে যেতেন ভুয়া ওসি

ভোতা অস্ত্রের আঘাতে রায়হানের  মৃত্যু হয়েছে

ভোতা অস্ত্রের আঘাতে রায়হানের মৃত্যু হয়েছে

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপ আরও ঘণীভূত নিম্নচাপে রূপ নেওয়ার আশঙ্কা

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপ আরও ঘণীভূত নিম্নচাপে রূপ নেওয়ার আশঙ্কা

ঢাকা থেকে রোম সরাসরি একটি ফ্লাইট পরিচালনা করবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স

ঢাকা থেকে রোম সরাসরি একটি ফ্লাইট পরিচালনা করবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স

মিঠাপুকুরে স্বাক্ষর জালিয়াতির মাধ্যমে ৩লক্ষাধিক টাকার বিল উত্তোলনের অভিযোগ

মিঠাপুকুরে স্বাক্ষর জালিয়াতির মাধ্যমে ৩লক্ষাধিক টাকার বিল উত্তোলনের অভিযোগ

যুব অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক তারেক রহমানকে ডিবি পরিচয়ে  তুলে নেওয়ার অভিযোগ

যুব অধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক তারেক রহমানকে ডিবি পরিচয়ে তুলে নেওয়ার অভিযোগ

নোয়াখালীতে অস্ত্রেরমুখে প্রবাসীর স্ত্রী ধর্ষণ, যুবলীগ নেতা বহিষ্কার, অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার

নোয়াখালীতে অস্ত্রেরমুখে প্রবাসীর স্ত্রী ধর্ষণ, যুবলীগ নেতা বহিষ্কার, অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার

আমতলীতে অতিবর্ষনে জনজীবন বিপর্যস্থ, জলাবদ্ধতায় তলিয়ে গেলে আমন ধানের ক্ষেত

আমতলীতে অতিবর্ষনে জনজীবন বিপর্যস্থ, জলাবদ্ধতায় তলিয়ে গেলে আমন ধানের ক্ষেত

সর্বশেষ

সারদেশে বৃষ্টি চলবে, জলোচ্ছ্বাসের সতর্কতা

সারদেশে বৃষ্টি চলবে, জলোচ্ছ্বাসের সতর্কতা

বৈরী আবহাওয়া : বরিশালের অভ্যন্তরীণ রুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ

বৈরী আবহাওয়া : বরিশালের অভ্যন্তরীণ রুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ

ইরান কি সত্যিই মার্কিন নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করছে?

ইরান কি সত্যিই মার্কিন নির্বাচনে হস্তক্ষেপ করছে?

বগুড়ায় সাবেক স্ত্রীকে হত্যা, স্বামীর যাবজ্জীবন

বগুড়ায় সাবেক স্ত্রীকে হত্যা, স্বামীর যাবজ্জীবন

নোয়াখালীর দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার সাথে সব ধরনের নৌ-যোগাযোগ বন্ধ

নোয়াখালীর দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার সাথে সব ধরনের নৌ-যোগাযোগ বন্ধ

শেরপুরে পূজা মন্ডপে ভ্রাম্যমাণ টহলে আনসার সদস্যরা

শেরপুরে পূজা মন্ডপে ভ্রাম্যমাণ টহলে আনসার সদস্যরা

বন কিনে দেয়ার লোভ দেখিয়ে পাঁচ বছরের শিশুকে ধর্ষণ

বন কিনে দেয়ার লোভ দেখিয়ে পাঁচ বছরের শিশুকে ধর্ষণ

চুনারুঘাটে রাতে গাছ কর্তন, থানায় ডায়েরী

চুনারুঘাটে রাতে গাছ কর্তন, থানায় ডায়েরী

কি অবাক কান্ড! গাছেই ঝুলছে স্মার্টফোন

কি অবাক কান্ড! গাছেই ঝুলছে স্মার্টফোন

শিল্পী আকবরের কিডনি দ্রুত নষ্ট হয়ে যাচ্ছে, আর তাই দোয়া চাইল তার পরিবার

শিল্পী আকবরের কিডনি দ্রুত নষ্ট হয়ে যাচ্ছে, আর তাই দোয়া চাইল তার পরিবার

নামাজ পড়তে অসুবিধা হওয়ায় অভিনয় ছেড়ে দিয়েছেন অভিনেত্রী মুক্তি

নামাজ পড়তে অসুবিধা হওয়ায় অভিনয় ছেড়ে দিয়েছেন অভিনেত্রী মুক্তি

রাজধানীর ঝুলন্ত তারের সমস্যা, অপসারণ সমাধানে নেয়া হচ্ছে সমন্বিত উদ্যোগ

রাজধানীর ঝুলন্ত তারের সমস্যা, অপসারণ সমাধানে নেয়া হচ্ছে সমন্বিত উদ্যোগ

শীত আসন্ন, আগাম সবজির চারা উৎপাদন, বিক্রিও প্রায় শেষ

শীত আসন্ন, আগাম সবজির চারা উৎপাদন, বিক্রিও প্রায় শেষ

সুখবর দিলেন মিথিলা!

সুখবর দিলেন মিথিলা!

রাজস্থানকে ৮ উইকেটে হারিয়ে প্লে-অফের আশা জিইয়ে রাখল হায়দরাবাদ

রাজস্থানকে ৮ উইকেটে হারিয়ে প্লে-অফের আশা জিইয়ে রাখল হায়দরাবাদ