Feedback

আইন-আদালত, নারী ও শিশু

যৌতুকের অপরাধে আপোষের বিধান, কমবে মামলা জট

যৌতুকের অপরাধে আপোষের বিধান, কমবে মামলা জট
October 18
12:41pm
2020
রায়হান আহম্মেদ
শাহজাহানপুর, ঢাকা:
Eye News BD App PlayStore

দুটি আইনের মধ্যে বৈপরীত্য থাকায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের যৌতুক সংক্রান্ত একটি ধারা আপোষযোগ্য করে ছয় মাসের মধ্যে সংশোধন করতে সরকারকে উদ্যোগ নিতে বলেছিলেন হাইকোর্ট। চলতি বছরের ১০ এপ্রিল যৌতুকের এক মামলায় আসামির সাজা বাতিল করে বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের হাই কোর্ট বেঞ্চ এই নির্দেশনা দেয়।

গত ১২ অক্টোবর নারী ও শিশু নির্যাতন দমন (সংশোধন) অধ্যাদেশ, ২০২০ মন্ত্রীসভায় চূড়ান্ত অনুমোদন পায়। জাতীয় সংসদের অধিবেশন না থাকায় তা রাষ্ট্রপতির অধ্যাদেশের মাধ্যমে কার্যকর করা হয়। তবে সংসদের পরবর্তী অধিবেশনে এই অধ্যাদেশ উপস্থাপন করতে হবে। আইনটি বলবৎ রাখতে চাইলে পরে বিল আকারে তা আনবে সরকার।

সংশোধনীতে ধর্ষণের সর্বোচ্চ সাজা মৃত্যুদণ্ডের বিধান করার পাশাপাশি আরও কয়েকটি ধারায় পরিবর্তন আনা হয়। এরমধ্যে একটি হলো যৌতুকের ঘটনায় মারধরের ক্ষেত্রে (ধারা ১১-এর গ) সাধারণ জখম হলে তা আপসযোগ্য হবে। এ ছাড়া এই আইনের চিলড্রেন অ্যাক্ট-১৯৭৪-এর (ধারা ২০-এর ৭) পরিবর্তে শিশু আইন ২০১৩ প্রতিস্থাপিত হবে।

দেশের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালসমূহে লক্ষাধিক মামলা বিচারাধীন রয়েছে। এর মধ্যে বহু পরিবার তাদের দম্পত্য কলহ থেকে ফিরে এসে আবারো একত্রে বসবাস করতে চাইলেও আইনে আপসের বিধান না থাকায় সেটি পারতো না। নতুন সংশোধনীর ফলে এ সমস্যার সমাধান হল।

আইন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালসমূহে লক্ষাধিক মামলা বিচারাধীন রয়েছে। সরকার উক্ত আইনের সংশ্লিষ্ট ধারার অপরাধসমূহ আপোষের মাধ্যমে নিষ্পত্তির সুযোগ সৃষ্টি করায় ট্রাইব্যুনালে মামলার জট কমবে। তেমনি বিবদমান ঘরে শান্তি ফিরে আসবে।

উল্লেখ্য, চার লাখ টাকা যৌতুকের দাবিতে স্ত্রী লাভলী আক্তার স্বামী মো. শফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে ২০১২ সালে মামলা করে। দুই জনের বাড়িই কিশোরগঞ্জের কটিয়াদিতে। কিন্তু শফিকুল ইসলামের চাকরির কারণে স্বামী-স্ত্রী দুজনই চট্টগ্রামে থাকতেন। ২০১৪ সালের ১০ জুলাই মামলার আসামি শফিকুলকে তিন বছর সশ্রম কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করে চট্টগ্রামের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল।

কিন্তু দুই বছর পর সাজার রায় বাতিল চেয়ে ২০১৬ সালে হাইকোর্টে আবেদন করেন শফিকুল। হাইকোর্ট তখন তাকে জামিন দেয় এবং সাজা কেন বাতিল করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করে। এর মধ্যে তাদের দু’জনার মিল হয়ে যায়। এর কিছুদিন আগে তাদের একটি সন্তান হয়। সেই সন্তানের বয়স আড়াই মাস। রায় ঘোষণার দিন আড়াই মাসের ঐ সন্তানকে নিয়েই স্বামী-স্ত্রী হাইকোর্টে হাজির হন।

একপর্যায়ে অঙ্গীকারনামায় স্বাক্ষরের পর আদালত শফিকুলকে বলে, ভবিষ্যতে যৌতুকের জন্য স্ত্রীকে নির্যাতন করলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। এরপর তার তিন বছরের সাজা বাতিল করেন হাইকোর্ট।

একই সঙ্গে, রায় হাতে পাওয়ার ছয় মাসের মধ্যে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের ১১ (গ) ধারার অপরাধ আপসযোগ্য করতে সরকারের সংশ্লিষ্টদের প্রতি নির্দেশনা দেন। ওই রায় ঘোষণার পর সম্প্রতি সরকার বিদ্যমান আইনে সংশোধনী এনে ওই ধারার অপরাধ আপসযোগ্য করেছেন।
নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের ১১ ধারায় যৌতুকের অপরাধে শাস্তির কথা উল্লেখ করা হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, যদি কোনো নারীর স্বামী অথবা স্বামীর পিতা, মাতা, অভিভাবক, আত্মীয় বা স্বামীর পক্ষে অন্য কোনো ব্যক্তি (যৌতুকের জন্য উক্ত নারীর মৃত্যু ঘটান বা মৃত্যু ঘটানোর চেষ্টা করেন কিংবা উক্ত নারীকে মারাত্মক জখম করেন বা সাধারণ জখম করেন) তাহলে উক্ত স্বামী, স্বামীর পিতা, মাতা, অভিভাবক, আত্মীয় বা ব্যক্তি—

(ক) মৃত্যু ঘটানোর জন্য মৃত্যুদণ্ডে বা মৃত্যু ঘটানোর চেষ্টার জন্য যাবজ্জীবন কারাদণ্ডে দণ্ডিত হবেন এবং উভয় ক্ষেত্রে উক্ত দণ্ডের অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডিত হবেন।
(খ) মারাত্মক জখম করার জন্য যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ডে অথবা অনধিক বার বছর কিন্তু অন্যূন পাঁচ বছর সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত হবেন এবং উক্ত দণ্ডের অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডিত হবেন।
(গ) সাধারণ জখম করার জন্য অনধিক তিন বছর কিন্তু অন্যূন এক বছর সশ্রম কারাদণ্ডে দণ্ডিত হবেন এবং উক্ত দণ্ডের অতিরিক্ত অর্থদণ্ডেও দণ্ডিত হবেন।
১১ (গ) ধারাটি আপোষযোগ্য করার ক্ষেত্রে হাইকোর্টের বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চের দেয়া রায়ের পর্যবেক্ষণে বলা হয়, যৌতুকের দাবিসহ যে কোনো অজুহাতে স্বামী কর্তৃক স্ত্রীর ওপর শারীরিক নির্যাতন নিঃসন্দেহে নিন্দনীয় ও গর্হিত অপরাধ। একটি সংসার ভেঙে গেলে তার পারিবারিক ও সামাজিক নেতিবাচক দিক সুদূর প্রসারী। এতে শুধু সামাজিক, পারিবারিক ও অর্থনৈতিক বিপর্যয়ই ঘটে না তাদের সন্তান এমনকি স্বজনদের ওপরেও গভীর নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। যা পূরণ করা কঠিন। এ অপরাধের পরেও যদি স্বামী-স্ত্রী নিজেদের ভুল বোঝাবুঝির অবসান ঘটিয়ে দাম্পত্য জীবন অব্যাহত রাকার সিদ্ধান্ত নেয় সেক্ষেত্রে আইনের বিধান যত কঠোর হোক না কেন তা একটি সংসার রক্ষার চাইতে বড় হতে পারে না।

আদালত তার রায়ে আরও বলেছেন, ‘আমাদের আইনগুলো বজ্র আঁটুনি ফস্কা গেরোর মত। নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে আপসের বিধান নেই। অথচ অনেক যৌতুকের মামলায় স্বামী ও স্ত্রী একপর্যায়ে আপস করতে চান। কিন্তু আপসের বিধান না থাকায় আসামির সাজা হয়ে যায়। তাই এ আইনটি সংশোধন হলে বা বিচারকই আদালতের অনেক মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি হয়ে যাবে, সাক্ষ্য-প্রমাণের দরকার পড়বে না। মামলার দীর্ঘসূত্রিতা বা মামলাজট কমবে।’

All News Report

Add Rating:

0

সম্পর্কিত সংবাদ

ট্রেন্ডিং

বিদেশ গমনে ইচ্ছুক সবাইকে নিতে হবে ই-পাসপোর্টঃ বন্ধ হচ্ছে এমআরপি (MRP) কার্যক্রম

বিদেশ গমনে ইচ্ছুক সবাইকে নিতে হবে ই-পাসপোর্টঃ বন্ধ হচ্ছে এমআরপি (MRP) কার্যক্রম

শিক্ষামন্ত্রী বরাবর খোলা চিঠি

শিক্ষামন্ত্রী বরাবর খোলা চিঠি

নৌবাহিনীর কর্মকর্তাকে মারধর: ভিডিও ভাইরাল সেলিমের ছেলের বিরুদ্ধে মামলা

নৌবাহিনীর কর্মকর্তাকে মারধর: ভিডিও ভাইরাল সেলিমের ছেলের বিরুদ্ধে মামলা

ফ্রান্সে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড

ফ্রান্সে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড

প্রেমিকার লাশ ফেলে পালানোর সময় প্রেমিক আটক

প্রেমিকার লাশ ফেলে পালানোর সময় প্রেমিক আটক

ফ্রান্সে নবীকে নিয়ে কটুক্তি, যা বললেন আজহারী

ফ্রান্সে নবীকে নিয়ে কটুক্তি, যা বললেন আজহারী

হযরত মোহাম্মদ (সা.) অবমাননা: ফ্রান্সের ওয়েবসাইট হ্যাক করল বাংলাদেশি হ্যাকারর

হযরত মোহাম্মদ (সা.) অবমাননা: ফ্রান্সের ওয়েবসাইট হ্যাক করল বাংলাদেশি হ্যাকারর

কিশোরগঞ্জে অগ্নিকান্ডে দগ্ধ ৭ জন বার্ন ইউনিটে ভর্তি

কিশোরগঞ্জে অগ্নিকান্ডে দগ্ধ ৭ জন বার্ন ইউনিটে ভর্তি

মিটার ১০হাজার, খুঁটি ৩০হাজার: টাকা না দেওয়ায় গৃহবধূ লাঞ্ছিত

মিটার ১০হাজার, খুঁটি ৩০হাজার: টাকা না দেওয়ায় গৃহবধূ লাঞ্ছিত

ম্যাখোঁর মানসিক চিকিৎসা দরকার, পাল্টা জবাব ফ্রান্সের

ম্যাখোঁর মানসিক চিকিৎসা দরকার, পাল্টা জবাব ফ্রান্সের

৩ বছরে স্বর্ণের হরফে পবিত্র কুরআন লিখলেন ৩৩ বছরের এই নারী!

৩ বছরে স্বর্ণের হরফে পবিত্র কুরআন লিখলেন ৩৩ বছরের এই নারী!

বুকে গুলি করব, পিঠ দিয়ে বের হবে: এসআই আকবরের হুমকি

বুকে গুলি করব, পিঠ দিয়ে বের হবে: এসআই আকবরের হুমকি

এসআই আকবর কে পালাতে সহায়তাকারী কে কে  আজ জানা যাবে

এসআই আকবর কে পালাতে সহায়তাকারী কে কে আজ জানা যাবে

জেনে নিন, দালাল ছাড়াই পাসপোর্ট করার সহজ উপায় !

জেনে নিন, দালাল ছাড়াই পাসপোর্ট করার সহজ উপায় !

'আসসালামু আলাইকুম-আল্লাহ হাফেজ' ভুল ব্যাখ্যার অভিযোগে ঢাবির অধ্যাপক জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা

'আসসালামু আলাইকুম-আল্লাহ হাফেজ' ভুল ব্যাখ্যার অভিযোগে ঢাবির অধ্যাপক জিয়ার বিরুদ্ধে মামলা

সর্বশেষ

মা হচ্ছেন কারিনা

মা হচ্ছেন কারিনা

বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন করোনায় আক্রান্ত

বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন করোনায় আক্রান্ত

র‍্যাবের হেফাজতে এমপির পুত্র এরফান সেলিম

র‍্যাবের হেফাজতে এমপির পুত্র এরফান সেলিম

র‌্যাব ও ডিবি পুলিশের অভিযান শুরু হাজী সেলিমের পৈতৃক বাড়িতে

র‌্যাব ও ডিবি পুলিশের অভিযান শুরু হাজী সেলিমের পৈতৃক বাড়িতে

চার লেনে উন্নীত হচ্ছে কুষ্টিয়া মহাসড়ক, কমবে যানজট

চার লেনে উন্নীত হচ্ছে কুষ্টিয়া মহাসড়ক, কমবে যানজট

নাটোরের লালপুরে বাস উল্টে খাদে, মা-মেয়ে নিহত

নাটোরের লালপুরে বাস উল্টে খাদে, মা-মেয়ে নিহত

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় মৃত্যু  ১৫ এবং  শনাক্ত ১৪৩৬

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় মৃত্যু ১৫ এবং শনাক্ত ১৪৩৬

জয়পুরহাটে প্রতিমা ভাংচুর,  এক যুবক আটক

জয়পুরহাটে প্রতিমা ভাংচুর, এক যুবক আটক

নাগেশ্বরীর প্রধান সড়কের বেহাল দশা

নাগেশ্বরীর প্রধান সড়কের বেহাল দশা

সরিষাবাড়ীতে চা চাষের জমি নির্বাচন ও সম্ভাব্যতার লক্ষে মতবিনিময় সভা

সরিষাবাড়ীতে চা চাষের জমি নির্বাচন ও সম্ভাব্যতার লক্ষে মতবিনিময় সভা

সমাবেশেই অসুস্থ হয়ে পড়েছেন ডা. জাফরুল্লাহ

সমাবেশেই অসুস্থ হয়ে পড়েছেন ডা. জাফরুল্লাহ

নীরব প্রতিবাদে ‘মুহাম্মাদকে ভালোবাসি’ লেখা মাস্ক পরে সংসদে কসোভোর এমপি

নীরব প্রতিবাদে ‘মুহাম্মাদকে ভালোবাসি’ লেখা মাস্ক পরে সংসদে কসোভোর এমপি

শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হকের ১৪৭তম জন্মবার্ষিকী উদযাপিত

শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হকের ১৪৭তম জন্মবার্ষিকী উদযাপিত

সাতক্ষীরা জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সোহেলকে অবাঞ্চিত ঘোষণা

সাতক্ষীরা জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি সোহেলকে অবাঞ্চিত ঘোষণা

কাঠালিয়ায় নদীর পাড় থেকে এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার

কাঠালিয়ায় নদীর পাড় থেকে এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার