Feedback

খোলা কলাম, ইতিহাস

কারবালার চেতনা-ছৈয়দ গোলাম কিবরিয়া আজহারি

কারবালার চেতনা-ছৈয়দ গোলাম কিবরিয়া আজহারি
October 17
03:19pm
2020
রায়হান আহম্মেদ
শাহজাহানপুর, ঢাকা:
Eye News BD App PlayStore

কারবালার অন্যতম প্রধান শিক্ষা হচ্ছে, জালিমের বিপক্ষে বুক চিতিয়ে দাঁড়ানো, প্রতিবাদ করা, তাদের কাজগুলোকে অন্তর থেকে ঘৃণা করা। ইমাম হোসাইন রা. চাইলেই পাপাত্মা ইয়াজিদের সকল কাজে নিরব থাকতে পারতেন। আরাম আয়েশের জীবন যাপন করতে পারতেন। কিন্তু ইমাম হোসাইন রা. জুলুমের প্রতিবিধানকল্পে মক্কা শরীফ থেকে কুফার অভিমুখে যাত্রা করেন পরিবার পরিজনসহ। অগ্রজ ইমাম হাসান রা. এঁর সাথে হওয়া সেই সন্ধির শর্তগুলোর অন্যতম প্রধান শর্ত ছিল, "শুরা কাউন্সিল বা পরামর্শক কমিটির কাছে খলিফা নির্বাচনের প্রক্রিয়া"কে ফিরিয়ে দেয়া হবে। তা না করে এই মদপানকারী, হারাম হালালকারী, মদিনাতে আক্রমণকারী, মক্কা শরীফে আক্রমণকারী, নামাজ তরককারী, বিভিন্ন বর্ণনামতে (যদি সত্য হয়ে থাকে) নবী করিম ﷺর রিসালাত-নবুয়াত অবমাননাকারী অবিশ্বাসী, নারী নিয়ে মেতে থাকা খবিস লাইন এই ইয়াজিদের পক্ষে খেলাফাতের বায়াত নেয়া হয়৷ অনেক সাহাবাকে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে হুমকি প্রদান করে বায়াত নেয়া হয় এজিদের পক্ষে, যা গ্রহণযোগ্য বর্ণনাতে এসেছে। তাকে খলিফা মনোনীত করার সাথে সাথে সমালোচনার ঝড় ওঠে সাহাবা ও তাবিইনদের মাঝে। কিন্তু জুলুমের আশংকায় এবং বৃহৎ ফিতনা হবে মনে করে বেশিরভাগই নিরব থাকেন।   

তবে নবীজির দৌহিত্র ও মাওলা আলি মা ফাতেমার নয়নমণি ইমাম হোসাইন রা. সিনা টান করে দাঁড়িয়ে যান ইয়াজিদের (লানাতুল্লাহি আলাইহির) বিরুদ্ধে৷     দেখুন, ইয়াজিদ তখনো কিন্তু মক্কা শরিফ ও মদিনা শরিফে আক্রমণ করে নাই, এগুলো কারবালার হৃদয়বিদারক ঘটনার আরো বছর দুয়েক পরের কথা। কিন্তু ইমাম হোসাইন রা. আশংকা করেছিলেন এই কমবখত এমন কিছু করবে যাতে সারা মুসলিম জগৎ কেঁপে ওঠবে। হ্যাঁ, তাই হয়েছে। তার নির্দেশে প্রিয় নবীর ﷺ খান্দান উজাড় করে দেয়া হল কারবালার জমিনে, সে মক্কা শরিফে আক্রমণ করল হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে জুবায়ের রা. কে উৎখাত করতে, মদিনা শরিফে আক্রমণ করল তার সেনাপতি মুসলিম ইবনে উকবাহ এবং হাররার যুদ্ধে অমানবিক ঘটনা হল সাহাবা ও তাবিইনদের সাথে এবং তাঁদের পরিবারের সাথে। মদিনার তাবিইন মহিলাদেরকে ধর্ষণ করল তারা৷ অনেকেই গর্ভবতী হয়ে গেলেন, মায়াজাল্লাহ, আস্তাগফিরুল্লাহ। মদিনা শরিফে তিনদিন পর্যন্ত আজান ও ইকামাত হল না।     

কাজেই কারবালার শিক্ষা হচ্ছে জুলুমের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে যাওয়া, জুলুমকে অন্তর দিয়ে ঘৃণা করা। কারো উপরে কোন অবস্থাতেই জুলুম না করা। আল্লাহ পাক জালিমদেরকে মোটেও পছন্দ করেন না। জালিমদের তোষামোদি না করা। যা আমাদের সমাজে আজ অহরহ হচ্ছে। দুর্নীতিবাজ ও ফাসিকদের আমরা তোষামোদ করি, প্রতিবাদ করব দূরে থাক। তাই প্রতিবাদ করতে না পারলেও তোষামোদ না করি এবং এই কাজগুলোকে ঘৃণা করি।     

২. ত্যাগ বা কুরবানী। আরবি বর্ষ বা হিজরী বছর শেষ হয় কুরবানী দিয়ে, আবার শুরুও হয় কুরবানী দিয়ে। আরবী বছরের শেষ মাস জিলহজ্জের ১০ তারিখে ইবরাহিম আ. তাঁর প্রিয়পুত্র ইসমাইল আ. কে কুরবানী করতে মীনা ময়দানে নিয়ে যান। আর কারবালার ময়দানে ইমাম হোসাইন রা. সহ প্রিয়নবীর পরিবারের ২৩-৩৭ জন সদস্য দ্বীনের জন্য আল্লাহর রাস্তায় কুরবান হয়ে যান বছরের প্রথম মাস মুহাররমের দশ তারিখে। কাজেই দ্বীনের জন্য ত্যাগ প্রয়োজন। আমরা অনেক ভাগ্যবান যে, আমাদের জন্য বাংলাদেশ পাকিস্তানের মত মুসলিম দেশগুলোতে প্রাণ কুরবানী দেয়ার প্রয়োজনও নেই। বরং শুধু সময় ও ধন দওলত ত্যাগ করতে পারলেই দ্বীন কায়েম হয়ে যায়। কিন্তু তাতেও আমাদের চরম অনীহা। সম্পূর্ণ উদাসীন আমরা এসব বিষয়ে।     

৩. সবচাইতে বড় ত্যাগ হচ্ছে ইয়াজিদি চরিত্র ত্যাগ করা। এটা কারবালার অন্যতম শিক্ষা। সে ছিল উগ্র পুজীবাদ ও ভোগবাদের জ্বলন্ত নমুনা। আমাকে ক্ষমতায় থাকতেই হবে, যেকোন মূল্যের বিনিময়ে। এজন্য সারা মুসলিম জাহানেও আগুন লাগিয়ে দিতে পারি। এটাই ছিল এজিদের মনোভাব। স্বৈরাচারীতার শেষ দরজা। আমাদেরকে রাষ্ট্র, সমাজ, পরিবার ও ব্যক্তিজীবন থেকে এই স্বৈরাচারী মনোভাবকে দূর করতে হবে এবং কুরআন মাজিদের সূরা শুরাতে আসা সেই পরামর্শের ভিত্তিতে কাজ করার যেই অনুপম নির্দেশনা, ওয়া আমরুহুম শুরা বাইনাহুম (তারা যখন কোন কাজ করবে তা পরামর্শের ভিত্তিতে করবে), "ওয়া শাভিরহুম ফিল আমর" অন্য সূরাতে এসেছে। "(হে আমার হাবিবﷺ)! আপনি তাঁদের সাথে পরামর্শ করে কাজ করুন।" এটাই ইসলামী গনতন্ত্রের ভিত্তি। মেজরিটির মতামত নিয়ে কাজ করতে হবে। রাষ্ট্রে, সমাজে, পরিবারে সর্বত্র এই গনতান্ত্রিক মনোভাবকে জাগ্রত করতে হবে৷ দুনিয়ার লালসা অর্থ্যাৎ সূদ, ঘুষ, দুর্নীতি, অন্যের সম্পদ জবর দখল এগুলো কারবালার চেতনার সম্পূর্ণ বিপরীতে ইয়াজিদী চরিত্র। এগুলো ত্যাগ করতে হবে। অহংকার, হিংসা-বিদ্বেষ ত্যাগ করতে হবে।     

৪. কোন অবস্থাতেই আদল-ইনসাফ ত্যাগ না করা৷ কারবালার যুদ্ধের আগের রাতে জ্বীনদের নেতা এসে দেখা করে ইমাম হোসাইন রা. এঁর সাথে। নেতা বলে, হে ইমাম। আমরা আপনার নানাজীর হাতে ইসলাম গ্রহণ করেছি। আপনি হুকুম দিন কাল ইয়াজিদের তখতকে উল্টে দিই। ইমাম হোসাইন রা. বললেন, "না, তোমরা ফিরে যাও। এটা অসম লড়াই হবে। তোমরা জ্বীনদেরকে ইয়াজিদ বাহিনী চোখে দেখবে না, কিন্তু তোমরা তাদেরকে ঠিকই দেখবে। এটা যুদ্ধের ময়দানের আদল ইনসাফ নয়।" সুবহানাল্লাহ। এটাই কারবালার শিক্ষা।     

৫. কোন অবস্থাতেই নামাজ ত্যাগ না করা৷ যত কষ্টের মাঝেই থাকি না কেন আল্লাহ পাককে ভুলে না যাওয়া। কারবালার এই যুদ্ধের মাঝেও ইমাম হোসাইন রা. নামাজের জন্য বিরতি চেয়েছেন বার বার এজিদ বাহিনীর কাছে।   

৬. অপচয় ত্যাগ করা৷ দেখুন, আমরা এটা তো বলি না যে, ইমাম হোসাইন রা. পানির অভাবে শহীদ হয়েছিলেন কারবালার জমিনে৷ যেমনটা খাজা মুইনুদ্দিন চিশতি রাহ. বলে গেছেন যে, "নাদানেরা মনে করে ইমাম হোসাইন রা. পানির অভাবে শহীদ হয়েছেন। আরে না। তিনি শহীদ হয়েছেন হক বাতিলের ভাগটাকে সুস্পষ্ট করে দিয়ে যাওয়ার জন্য। খোদার কসম আমি মুইনুদ্দিন যদি কারবালার জমিনে পা দিয়ে আঘাত করতাম তবে ঝর্নাধারা বয়ে যেত আর তিনি তো ছিলেন প্রিয়নবীরﷺকলিজার টুকরো দৌহিত্র ইমাম হোসাইন রা!" শিশু অবস্থায় হজরত ইসমাইল আ. এঁর পায়ের আঘাতেই তো জমজম কুপের উৎপত্তি হয়েছিল। এখানেও ইমাম হোসাইন রা. হাত তুলে দোয়া করলে আল্লাহ পাক বৃষ্টি বর্ষন করতেন কারবালার জমিনে, ফোরাত নদী অবরুদ্ধ করে রেখেছিল ইয়াজিদ বাহিনী তাতে কী হয়েছে। কিন্তু এটা মানতে হবে যে, পানির অভাব একটা বাহ্যিক কারণ ছিল কারবালার শাহাদাতের পেছনে। শিশুপুত্র হজরত আলি আসগরকে কোলে করে ইমাম হোসাইন রা. ফোরাতের তীরে গেলেন পানি পান করাতে। কিন্তু পাপিষ্ঠ ইয়াজিদ বাহিনী তীর মেরে ইমামে আলি আসগরকে শহীদ করে দিল।   

কাজেই এখান থেকে আমরা শিক্ষা পাই যে, প্রাকৃতিক সম্পদগুলো অনেক দামী। এগুলোর অপচয় কোনভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়৷ পাতালের পানি উপরে তুলতে তুলতে আমরা পানির স্তরকে নিচে নামিয়ে দিচ্ছি৷ আমরা পানির যাচ্ছে তাই ব্যবহার করি। নবী করিম এবং সাহাবায়ে কেরাম যতটুকু পানি দিয়ে গোসল করতেন আমরা সেই পরিমাণ পানি দিয়ে এখন ওজু করি। আমরা একজন মানুষ গোসলে যে পরিমাণ পানি ব্যবহার করি সেই পরিমাণ পানি দিয়ে  নবী করিম ﷺ ৬-৭ বার গোসল করতেন। গ্রহণযোগ্য বর্ণনাতে এসেছে নবী করিম লিটার পানি দিয়ে ওজু করতেন। ৬-৭ লিটার পানি দিয়ে গোসল করতেন৷ উনার ওজু ও গোসলের পাত্রগুলো মেপে তা বের করেছেন উলামায়ে কেরাম।   

আর আমরা পানির টেপ ছেড়ে যাচ্ছেতাইভাবে ওজু করতেই থাকি। গোসলে আমাদের একেকজনের ৪০-৫০ লিটার পানি লাগে। অথচ হুজুর রাসূলুল্লাহ সাদ ইবনু আবি ওয়াক্কাস রা. কে বলছেন, "তোমরা প্রবাহমান নদীর সামনে দাঁড়িয়েও পানির অপচয় করোনা!" (ইবনে মাজাহ, হাদিস নং-৪১৯, মুসনাদ আহমদ, হাদিস নং-৬৭৬৮) আধুনিক যুগে পানির অপচয় শুধু পানির অপচয় নয়। এই পানি আপনার বাথরুম অথবা কিচেন পর্যন্ত পৌঁছাতে প্রচুর বিদ্যুৎ, গ্যাস, কয়লা, ইউরেনিয়াম ব্যবহার করতে হয়। চেইন রিএকশন। কাজেই আমরা পানি অপচয় না করি। অতিরিক্ত বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য পরিবেশেরও বারটা বাজছে।     

কারবালার জমিনের সবচাইতে বড় শিক্ষা হচ্ছে, প্রিয় নবিজির ﷺআহলে বায়ত পাক পাঞ্জাতন আমাদের সবচাইতে বড় আপন। উম্মতের কল্যাণের তরে তারা জীবন কুরবানী করতেও দ্বিধা করেন নাই। এটা প্রমাণিত। কাজেই আহলে বায়ত পাক পাঞ্জাতনকে প্রাণের চাইতে অধিক ভালোবাসুন। তাঁদের গুণগান সমাজের মানুষের কাছে তুলে ধরুন। কারবালার চেতনাকে ঘরে ঘরে পৌঁছে দিন। আল্লাহ পাক আমাদেরকে তওফিক দান করুন আমরা যেন কারবালার শিক্ষাকে সকলে জীবনে সত্যিকারভাবে ধারণ কর‍তে পারি। আমিন।

All News Report

Add Rating:

0

সম্পর্কিত সংবাদ

ট্রেন্ডিং

ময়মনসিংহ-৩ আসনের সংসদ সদস্য নাজিম উদ্দিনের ধর্ষণের ভিডিও ক্লিপ ভাইরাল

ময়মনসিংহ-৩ আসনের সংসদ সদস্য নাজিম উদ্দিনের ধর্ষণের ভিডিও ক্লিপ ভাইরাল

নভেম্বরেই প্রাতিষ্ঠানিক ই-মেইল পাচ্ছেন হাবিপ্রবি শিক্ষার্থীরা

নভেম্বরেই প্রাতিষ্ঠানিক ই-মেইল পাচ্ছেন হাবিপ্রবি শিক্ষার্থীরা

দক্ষিণ আফ্রিকায় ২২ দেশের নাগরিক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা

দক্ষিণ আফ্রিকায় ২২ দেশের নাগরিক প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা

কলারোয়ায় একই পরিবারের ৪ সদস্য খুনের রহস্য উন্মোচন, হত্যায় ব্যবহৃত চাপাতি উদ্ধার

কলারোয়ায় একই পরিবারের ৪ সদস্য খুনের রহস্য উন্মোচন, হত্যায় ব্যবহৃত চাপাতি উদ্ধার

ওরা তো খুব ছোট স্যার, তাই আমি চেষ্টা করি বেশি ব্যথা যেন না পায়, মাদ্রাসার শিক্ষক!

ওরা তো খুব ছোট স্যার, তাই আমি চেষ্টা করি বেশি ব্যথা যেন না পায়, মাদ্রাসার শিক্ষক!

আসসালামু আলাইকুম ও আল্লাহ হাফেজ বলাটা জামাত ও জঙ্গীবাদের শিক্ষা

আসসালামু আলাইকুম ও আল্লাহ হাফেজ বলাটা জামাত ও জঙ্গীবাদের শিক্ষা

সৌদি 'ফ্রি ভিসা'র ভয়াবহ ফাঁদ

সৌদি 'ফ্রি ভিসা'র ভয়াবহ ফাঁদ

এসআই আকবরকে পালাতে সহায়তাকারী এসআই হাসান বরখাস্ত

এসআই আকবরকে পালাতে সহায়তাকারী এসআই হাসান বরখাস্ত

জিয়ার সালাম নিয়ে কুটুক্তি সালাম দিয়েই জবাব সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল

জিয়ার সালাম নিয়ে কুটুক্তি সালাম দিয়েই জবাব সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল

রাজকে কতটা ভালোবাসেন ছবি পোস্ট করে জানালেন শুভশ্রী

রাজকে কতটা ভালোবাসেন ছবি পোস্ট করে জানালেন শুভশ্রী

পোল্যান্ডে নতুন রাষ্ট্রদূত সুলতানা লায়লা

পোল্যান্ডে নতুন রাষ্ট্রদূত সুলতানা লায়লা

চাটখিলে চাচিকে ধর্ষণ ও নগ্ন ভিডিও ধারণের অভিযোগে যুবলীগ নেতা গ্রেফতার

চাটখিলে চাচিকে ধর্ষণ ও নগ্ন ভিডিও ধারণের অভিযোগে যুবলীগ নেতা গ্রেফতার

কাতার থেকে ভিসা জটিলতায় দেশে ফিরতে হলো ৪৭ ইতালি প্রবাসীকে

কাতার থেকে ভিসা জটিলতায় দেশে ফিরতে হলো ৪৭ ইতালি প্রবাসীকে

সরিষাবাড়ীতে খাদ্য বান্ধব কর্মসূচীর ৩শ ৫০ বস্তা চাল আটক

সরিষাবাড়ীতে খাদ্য বান্ধব কর্মসূচীর ৩শ ৫০ বস্তা চাল আটক

একাত্তর টিভির পথেই হাটছে ডিবিসি নিউজ: ইসলাম ও আলেম ওলামারাই যেন টার্গেট

একাত্তর টিভির পথেই হাটছে ডিবিসি নিউজ: ইসলাম ও আলেম ওলামারাই যেন টার্গেট

সর্বশেষ

সঞ্জয় দত্ত ক্যানসারকে হার মানিয়ে কেমন আছেন এখন

সঞ্জয় দত্ত ক্যানসারকে হার মানিয়ে কেমন আছেন এখন

মিঠাপুকুরে ইয়াবা ট্যাবলেট বিক্রির সময় মা-ছেলে আটক

মিঠাপুকুরে ইয়াবা ট্যাবলেট বিক্রির সময় মা-ছেলে আটক

অধ্যাপক ড. গোলাম রহমান-এর লেখা সম্পাদনা গ্রন্থ 'কৃষি সাংবাদিকতা'

অধ্যাপক ড. গোলাম রহমান-এর লেখা সম্পাদনা গ্রন্থ 'কৃষি সাংবাদিকতা'

তাসকিনের বোলিং তোপে ফাইনালে শান্ত একাদশ: বিসিবি প্রেসিডেন্ট’স কাপ

তাসকিনের বোলিং তোপে ফাইনালে শান্ত একাদশ: বিসিবি প্রেসিডেন্ট’স কাপ

তাড়াইলে জাতীয় পার্টির নেতা ইয়াবাসহ আটক

তাড়াইলে জাতীয় পার্টির নেতা ইয়াবাসহ আটক

সিলেটে ২৫ বছর পর ভূমির মালিকানা ফিরে পেলেন তারা

সিলেটে ২৫ বছর পর ভূমির মালিকানা ফিরে পেলেন তারা

পুলিশ সদস্যকে মারধরের অভিযোগে ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার

পুলিশ সদস্যকে মারধরের অভিযোগে ছাত্রলীগ নেতা গ্রেফতার

এক সাংবাদিকের সহায়তায় সিসিটিভি ফুটেজ পাল্টে দেন এসআই হাসান!

এক সাংবাদিকের সহায়তায় সিসিটিভি ফুটেজ পাল্টে দেন এসআই হাসান!

ইচ্ছে ছিল

ইচ্ছে ছিল

জাতীয় সঙ্গীতের সুরে হামদ গাওয়ায়,  বন্ধ করা মাদ্রাসাটি আগামীকাল খুলছে

জাতীয় সঙ্গীতের সুরে হামদ গাওয়ায়, বন্ধ করা মাদ্রাসাটি আগামীকাল খুলছে

দূর্গাপূজা শুরু হওয়ার আগেই প্রতিমা ভাঙচুর

দূর্গাপূজা শুরু হওয়ার আগেই প্রতিমা ভাঙচুর

ঢাকা থেকে রোম সরাসরি একটি ফ্লাইট পরিচালনা করবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স

ঢাকা থেকে রোম সরাসরি একটি ফ্লাইট পরিচালনা করবে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স

পোল্যান্ডে নতুন রাষ্ট্রদূত সুলতানা লায়লা

পোল্যান্ডে নতুন রাষ্ট্রদূত সুলতানা লায়লা

মিঠাপুকুরে আসন্ন ইউপি নির্বাচনে আলোচনায় শীর্ষে মোদাচ্ছির হোসেন

মিঠাপুকুরে আসন্ন ইউপি নির্বাচনে আলোচনায় শীর্ষে মোদাচ্ছির হোসেন

সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসনের সুধী সমাবেশ ও সাংস্কৃতিক সন্ধ্যায় সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ

সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসনের সুধী সমাবেশ ও সাংস্কৃতিক সন্ধ্যায় সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ