Feedback

সিলেট, জেলার খবর

ঘরে থেকেই সাজা ভোগ করবে ১৪ শিশু, করতে হবে ৮টি কাজ

ঘরে থেকেই সাজা ভোগ করবে ১৪ শিশু, করতে হবে ৮টি কাজ
October 14
07:09pm
2020
Md. Sorif Uddin
Zakiganj, Sylhet:
Eye News BD App PlayStore

অপরাধ করলে শাস্তি পেতে হয় সেটাই আইনের নিয়ম, কিন্তু বিচারের কাঠগড়ায় যখন শিশু তখন আদালতও তাদের ভষিষ্যৎ কথা চিন্তা করে দিলেন ভিন্নধর্মী সাজা। বুধবার বিভিন্ন অপরাধে সুনামগঞ্জে শিশু অপরাধের ১০ টি মামলায় রায় দিয়েছেন আদালত। ওইদিন দুপুুরে নারী শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল ও শিশু আদালতের বিচারক মো. জাকির হোসেন এ রায় প্রদান করেন।

রায়ে ১৪ শিশুকে একজন প্রবেশন কর্মকর্তার তদারকির মধ্যমে বাড়িতে থেকে ৮ টি শর্ত পালনের নির্দেশ দেন আদালত।

মামলায় শিশু আসামিরা হলেন, আহমেদ সালেহ তায়্যিব (পরীক্ষার প্রশ্ন পত্র পাস করে টাকা গ্রহণের অপরাধ), আবু সাইদ, মিজানুর রহমান, রাব্বুল মিয়া, জুনায়েদ আলম  (মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ভিকটিমের ছবির সাথে সংযুক্ত করে ফেইসবুকে ছাড়া ও মানহানি),  মামুন মিয়া (পুলিশকে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা তামিলে বাধা প্রদান ও আসামি পলায়নে সহায়তা করা), রুহুল আমিন (শ্লীলতাহানির অপরাধে অভিযুক্ত), আলী আকবর, মো.মন্তাজ আলী (দলবদ্ধভাবে লাঠি দিয় মারপিঠ করে সাধরণ জখম করার অপরাধ), মো. তারেক (মাদক রাখার অপরাধ), আব্দুল হান্নান (লাঠি দিয়ে মারপিঠ করার অভিযোগ),  রতন বিশ্বাস (বিরুদ্ধে মাদক রাখার অভিযোগ), ফয়জুল ইসলাম (জুয়া খেলার অপরাধ) এবং দ্বীন ইসলাম (দলবদ্ধ ভাবে লাঠি দিয় মারপিঠ করে সাধরণ জখমসহ হত্যার হুমকি প্রদানের অপরাধ)। আদালত তাদের প্রত্যেককে আমাগী ১ বছর প্রবেশনের মাধ্যমে বাড়িতে থেকে করতে হবে বিভিন্ন সংশোধনমূলক কর্মকাণ্ড করার নির্দেশ দেন। প্রবেশনের শর্তনুযায়ীদের তাদের প্রত্যেকেকে ৮টি শর্ত মানতে নির্দেশ দেওয়া হয়। তার মধ্যে প্রত্যেকে বাবা মায়ের আদেশ নির্দেশ মেনে চলতে হবে, বাবা মায়ের সেবা করা,  প্রতিদিন যার যার ধর্মীয় অনুশাসন মেনে চলা, নিয়মিত ধর্মগ্রন্থ পাঠ করা, প্রত্যেকে কম পক্ষে ২০টি গাছ লাগানো ও পরিচর্যা করা, অসৎ সঙ্গ ত্যাগ করতে হবে, মাদক থেকে দূরে থাকতে হবে এবং ভবিষ্যতে কোনও অপরাধারে সাথে নিজেকে না জড়ানোর নির্দেশনা প্রদান করেন আদালত।

এদিকে মামলার রায়ে খুশি হয়েছেন শিশুদের অভিভাবকরা। আদালতের দেওয়া নির্দেশনাগুলো তাদের সন্তানদের পালনে ভবিষ্যতের জন্য ভালো হবে বলে ধারণা তাদের।

শিশু অপরাধে অভিযুক্ত এক শিশুর অভিভাবক নজরুল ইসলাম বলেন, আদালতে  রায়ে  আমরা খুশি হয়েছি। আদালত তার ভবিষ্যতের উন্নয়নের যে ৮টি শর্ত দিয়েছেন তা সে পালন করবে এবং আমরা তার দিকে নজর রাখবো। আমি চাই আমার সন্তান যেন ভবিষ্যতে এই কালো ছায়া থেকে বেড়িয়ে এসে আলোর পথে চলতে পারে।

এ ব্যাপারে আসামি পক্ষের আইনজীবী অ্যাড. রুহুল তুহিন বলেন, আমাদের বিচার অঙ্গনে এই আইনটি এতোদিন প্রয়োগ ছিলনা আজকে আমি মনেকরি যুগান্তকারী দিন। আজকে ১০টি মামলায় ১৪ জন অভিযুক্ত শিশুকে আদালত প্রবেশন কর্মকর্তার অধিনে ১ বছর বাড়িতে থেকে প্রবেশন শর্তগুলো মেনে চলার নির্দেশনা দিয়েছেন সেটি আমাদের বিচার ব্যবস্থাকে আরও বিশ্বস্থ করেছে।      

জেলা সমাজসেবা কার্যালয়ের প্রবেশন কর্মকর্তা শাহ মো.শফিউর রহমান বলেন, আদালত শিশুদের সংশোধনের জন্য বাড়িতে থেকে প্রবেশনের মাধ্যমে ৮টি কাজ করার শর্ত দিয়েছেন এবং তাদের নিয়মিন একটি নোটখাতায় লিপিবদ্ধ করতে হবে, আগামী ১ বছর তাদের বাড়িতে রেখে দেখা যাবে যদি তার  উন্নয়ন না হয় তাহলে তাকে পুনরায় আটক করে টঙ্গি কিশোর সংশোধনাগারে পাঠানো হবে।

All News Report

Add Rating:

0

সম্পর্কিত সংবাদ

ট্রেন্ডিং

স্পিডবোট ডুবে নিখোঁজ, কনস্টেবলসহ ৫ জনের মরদেহ উদ্ধার

স্পিডবোট ডুবে নিখোঁজ, কনস্টেবলসহ ৫ জনের মরদেহ উদ্ধার

ইতালি সিজনাল ভিসার সচেতনার দিকসমূহ, নইলে আপনিও হতে পারেন প্রতারণার শিকার: পর্ব-০৫

ইতালি সিজনাল ভিসার সচেতনার দিকসমূহ, নইলে আপনিও হতে পারেন প্রতারণার শিকার: পর্ব-০৫

মুরগির সাথে যৌনতা, ধরা খেয়ে সাজা খাটছেন যুবক!

মুরগির সাথে যৌনতা, ধরা খেয়ে সাজা খাটছেন যুবক!

প্রধান শিক্ষকদের বকেয়া টাইমস্কেল প্রদান ও সহকারী শিক্ষকদের ১০ম গ্রেডে উন্নীত সহ ১০ দফা দাবীতে ঢাকায় সংবাদ সম্মেলন।

প্রধান শিক্ষকদের বকেয়া টাইমস্কেল প্রদান ও সহকারী শিক্ষকদের ১০ম গ্রেডে উন্নীত সহ ১০ দফা দাবীতে ঢাকায় সংবাদ সম্মেলন।

আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কন্যা পুতুল

আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কন্যা পুতুল

বগুড়ায় লম্পটকে কুপিয়ে ধর্ষণ থেকে রক্ষা পেলেন গৃহবধূ

বগুড়ায় লম্পটকে কুপিয়ে ধর্ষণ থেকে রক্ষা পেলেন গৃহবধূ

ফ্রান্সে মহানবীকে নিয়ে ব্যঙ্গ কার্টুন প্রদর্শন, নবীপ্রেমিকদের ফরাসি পণ্য বর্জনের ডাক

ফ্রান্সে মহানবীকে নিয়ে ব্যঙ্গ কার্টুন প্রদর্শন, নবীপ্রেমিকদের ফরাসি পণ্য বর্জনের ডাক

টাকাভর্তি ব্যাগ নিয়ে ঘুরছে আওয়ামী লীগ নেতার ছেলে!

টাকাভর্তি ব্যাগ নিয়ে ঘুরছে আওয়ামী লীগ নেতার ছেলে!

জামালপুরে ট্রেনে কাটাপড়ে ভাঙারি ব্যবসায়ীর মৃত্যু

জামালপুরে ট্রেনে কাটাপড়ে ভাঙারি ব্যবসায়ীর মৃত্যু

দামি ওষুধ-তেল বা চর্বি লোভে জ্যান্ত ডলফিন কেটে টুকছে গ্রামবাসী

দামি ওষুধ-তেল বা চর্বি লোভে জ্যান্ত ডলফিন কেটে টুকছে গ্রামবাসী

করোনার দ্বিতীয় ধাক্কা, আবারও পূর্ণ হতে যাচ্ছে হাসপাতাল!

করোনার দ্বিতীয় ধাক্কা, আবারও পূর্ণ হতে যাচ্ছে হাসপাতাল!

জয়পুরহাটে সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা

জয়পুরহাটে সড়ক দূর্ঘটনায় নিহত প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা

মারা গেলেন ব্যারিস্টার রফিকুল হক

মারা গেলেন ব্যারিস্টার রফিকুল হক

চুমুতে রাজি নয় ঐশ্বরিয়া

চুমুতে রাজি নয় ঐশ্বরিয়া

স্বামীর সঙ্গে পূজা মণ্ডপে অঞ্জলি দিলেন মিথিলা

স্বামীর সঙ্গে পূজা মণ্ডপে অঞ্জলি দিলেন মিথিলা

সর্বশেষ

প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষন ৮ মাসের অন্তঃসত্ত্বা

প্রবাসীর স্ত্রীকে ধর্ষন ৮ মাসের অন্তঃসত্ত্বা

ফ্রান্সে নবীকে নিয়ে কটুক্তি, যা বললেন আজহারী

ফ্রান্সে নবীকে নিয়ে কটুক্তি, যা বললেন আজহারী

৪ সাংবাদিকের নামে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে শ্রীমঙ্গলে সমাবেশ

৪ সাংবাদিকের নামে দায়েরকৃত মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে শ্রীমঙ্গলে সমাবেশ

মহামারি করোনার মধ্যেও সরকারের উন্নয়ন থেমে নেই- এমপি জ্যাকব

মহামারি করোনার মধ্যেও সরকারের উন্নয়ন থেমে নেই- এমপি জ্যাকব

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের সেমিস্টার ফি মওকুফের দাবি

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের সেমিস্টার ফি মওকুফের দাবি

বঙ্গোপসাগরে জেলে খুন: ২ ডাকাত আটক করলো পুলিশ

বঙ্গোপসাগরে জেলে খুন: ২ ডাকাত আটক করলো পুলিশ

বিয়ে হওয়ার আশ্বাসে, পানি পড়া খাইয়ে যুবতীকে ধর্ষণ করলো কবিরাজ!

বিয়ে হওয়ার আশ্বাসে, পানি পড়া খাইয়ে যুবতীকে ধর্ষণ করলো কবিরাজ!

কলকাতার নাখোদা মসজিদ: স্থাপত্যের এক বিস্ময়কর সৃষ্টি

কলকাতার নাখোদা মসজিদ: স্থাপত্যের এক বিস্ময়কর সৃষ্টি

সামাজিক অবক্ষয় ও অপরাধ সংঘটনের  অন্যতম কারণ যৌন উত্তেজক ওষুধের অবাধ বিক্রি

সামাজিক অবক্ষয় ও অপরাধ সংঘটনের অন্যতম কারণ যৌন উত্তেজক ওষুধের অবাধ বিক্রি

মাটি ও মানুষের সাথে মিশে আছেন এমপি জগলুল হায়দার

মাটি ও মানুষের সাথে মিশে আছেন এমপি জগলুল হায়দার

ব্যাংক কর্মকর্তাকে আগ্নেয়াস্ত্র দিয়ে পেটালো ছাত্রদল নেতা

ব্যাংক কর্মকর্তাকে আগ্নেয়াস্ত্র দিয়ে পেটালো ছাত্রদল নেতা

কবিতাঃ সমুদ্র অতলতা খুঁজি

কবিতাঃ সমুদ্র অতলতা খুঁজি

মিঠাপুকুরে সুপারি বাগান থেকে এক ব্যাক্তির মৃতদেহ উদ্ধার

মিঠাপুকুরে সুপারি বাগান থেকে এক ব্যাক্তির মৃতদেহ উদ্ধার

দামি ওষুধ-তেল বা চর্বি লোভে জ্যান্ত ডলফিন কেটে টুকছে গ্রামবাসী

দামি ওষুধ-তেল বা চর্বি লোভে জ্যান্ত ডলফিন কেটে টুকছে গ্রামবাসী

আশাশুনিতে আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষ কষ্টকর ও বেদনাদায়ক অবস্থায় রয়েছেঃ জার্মান ডেপুটি হাই কমিশনার

আশাশুনিতে আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত মানুষ কষ্টকর ও বেদনাদায়ক অবস্থায় রয়েছেঃ জার্মান ডেপুটি হাই কমিশনার