Feedback

খোলা কলাম, গল্পসল্প

একজন মুক্তিযোদ্ধার গল্প

একজন মুক্তিযোদ্ধার গল্প
October 10
09:06pm
2020
ফখরুদ্দীনআহমাদ
Tarail, Kishorganj:
Eye News BD App PlayStore

ডক্টর-মাসুদুল-কাদের। কিশোরগন্জ জেলার তাড়াইল উপজেলার মাগুরি গ্রামে তাঁর নানার বাড়ি,  বাবা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অনুষদের শিক্ষক ছিলেন, শেরে বাংলা নগর ক্যাম্পাসে তিনি থাকতেন সেখানেই তার জন্ম  ১৯৪৮ সাল। 


তিনি ছিলেন বাবা-মার পঞ্চম সন্তান। ১৯৭১ এর মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় তিনি ময়মনসিংহ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্সের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র। যেহেতু অসহযোগ চলছিল তাই তিন ঢাকায় চলে এসেছিলেন। ৭ মার্চ রেকোর্স ময়দানে বঙ্গবন্ধুর ভাষণের সময় তিনি সেখানে উপস্থিত ছিলেন। অন্য দশজনের মতো তিনি সেদিন বুঝতে পেরেছিলেন যুদ্ধ করা ছাড়া বাঙালির হাতে ‌ ক্ষমতা আসবে না । ২৫- ৩১ মার্চ পর্যন্ত তিনি ঢাকায়  ছিলেন।ঢাকার ছাত্র জনতা,  পুলিশ ও ইপিআরের প্রথম প্রতিরোধ ভেঙ্গে পাকসেনার গনহত্যা শুরু করে । ঐ সময় তিনি পরিবারের সবাইকে নিয়ে অনেক কষ্টে নানার বাড়ি মাগুরি গ্রামে চলে আসেন । 


পাকিস্তানের তেইশ বছরের শাসনামলে পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের জীবনমানের বৈষম্য ছিল চরম অসম্মানজনক। পাকিস্তান রাষ্ট্র গড়ে ওঠার সূচনালগ্ন থেকেই পশ্চিমা শাসকগোষ্ঠী পূর্ববাংলাকে তাদের উপনিবেশ হিসেবে বিবেচনা করে এ অঞ্চলের মানুষকে রাজনৈতিক, সামরিক, প্রশাসনিক, সামাজিক, শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে ন্যায্য অধিকার থেকে বঞ্চিত করার কৌশল অনুসরণ করতে থাকে। বাঙালি তাদের  ওপর নির্যাতন ও নিপীড়নকে কখনো সহজে মেনে নেয়নি। অবশেষে চরম ত্যাগ স্বীকারের মাধ্যমে  পাকিস্তানের শোষণ ও নির্যাতনের কবল থেকে আত্মরক্ষা করতে, তথা পশ্চিম পাকিস্তানের বৈষম্যমূলক আগ্রাসন থেকে মুক্তির অভিপ্রায়ে ’৬৬-র ছয় দফা থেকে শুরু করে ক্রমান্বয়ে ’৬৯-এর এগারো দফা, গণঅভ্যুত্থান, ’৭০-এর নির্বাচন এবং নির্বাচনে জয়লাভের পর শাসনক্ষমতা ফিরিয়ে দিতে অস্বীকৃতি, যার পরিণতিতে বাংলাদেশের দল-মত-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সব মানুষ মুক্তিসংগ্রামে ঝাপিয়ে পড়েন।

 

আমাদের আজকের আলোকিত মানুষ ও জাতির সূর্যসন্তান বীর মুক্তিযোদ্ধা ডক্টর মাসুদুল কাদের। তিনি ১৯৬৪ সালে টেকনিক্যাল স্কুল (বর্তমানে বিজ্ঞান কলেজ) ঢাকা থেকে এসএসসি পাশ করেন। ১৯৬৬ সালে নটরডেম কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে এইচ.এস.সি পাশ করেন। অতপর তিনি ময়মনসিংহ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে বিএসসি (এজি) তে ভর্তি হন। ১৯৬৯ সালের আয়ূব বিরোধী আন্দোলনে তখন তিনি ছিলেন একজন সক্রিয় সদস্য। তিনি অনার্স তৃতীয় বর্ষে থাকাকালীন সময় দেশে এক অস্থীতিশীল অবস্থা সৃষ্টি হয়। যখন দেশে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলো, তখন তিনি গ্রামের বাড়ি তাড়াইল উপজেলার মাগুরি গ্রামে চলে আসেন। দেশের এই পরিস্থিতিতে তিনি মনে মনে সিদ্ধান্ত নিলেন দেশ ও জাতিকে হানাদার বাহিনীর হাত থেকে মুক্ত করতে হলে যুদ্ধে যেতেই হবে।যেই কথা সেই কাজ।  ঐ সময়ের তাড়াইল থানা   আওয়ামী লীগের ত্যাগি নেতা বানাইল গ্রামের বাসিন্দা মরহুম আব্দুল হামিদ সাহেবের সহযোগিতায় তিনি মহেশখলা যান। সেখান থেকে পাহাড়ের উপর দিয়ে ঝোপঝাড় পেরিয়ে সিলেটের টেকেরঘাট সীমান্ত দিয়ে ভারত চলে যান। ভারতে ট্রেনিং নিয়ে দেশে ফিরে তিনি সুনামগঞ্জ ও কিশোরগঞ্জের বিভিন্ন থানায়  যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন । ১৬ ডিসেম্বর ১৯৭১ বিশ্বের বুকে লাল-সবুজ পতাকার ‘বাংলাদেশ’ নামক একটি স্বাধীন রাষ্ট্রের আত্মপ্রকাশ ঘটে।


 দেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭৪ সালে তিনি বিএসসি এজি (অনার্স) পাশ করেন। এর পর তিনি তাড়াইল চলে আসেন উদ্দেশ্য দরিদ্র মানুষের পাশে দাঁড়ানো।  তিনি এই উপজেলার পাচিহা গ্রামের কমরেড রাজ্জাক ভূঞা, দামিহা গ্রামের কমরেড শ্রী গঙ্গেশ সরকারকে সাথে নিয়ে ঐ বছর দুর্ভিক্ষ পীড়িত মানুষের পাশে দাঁড়ান । নিজ বাড়ির গোলা হতে ধান নিয়ে দরিদ্র মানুষের মধ্যে বিতরণ করেন। 


১৯৭৫ সালের  তিনি বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। এর পর তিনি চাকুরিতে যোগদান করেন এবং এম.এস. সি ডিগ্রি সম্পন্ন করেন। স্বধীন  দেশের প্রয়োজনে সরকারি স্কলারসিপ নিয়ে ইন্ডিয়া থেকে উদ্ভিদ ও কৌলি তত্ত্বে ডক্টরেট (পিএইচড) ডিগ্রি অর্জন করেন। 


কর্মজীবনে তিনি তৎকালীন শেরে -ই- বাংলা কৃষি ইনিস্টিউট (বর্তমান শেরে -ই-বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, আগারগাঁও) এর একজন শিক্ষক ছিলেন। এবং তিনি কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট, (জয়দেবপুর,গাজীপুর) এর একজন গবেষক ছিলেন।


 তিনি এক পর্যায়ে সরকারি চাকুরিতে ইস্তফা দিয়ে দরিদ্র মানুষের কল্যাণে একটি বেসরকারি সংস্থা প্রতিষ্ঠান (এনজিও) গড়ে তুলেন একদল আলোকিত মানুষকে  সাথে নিয়ে। এই প্রতিষ্ঠান বর্তমানে ১৭ জেলার আড়াই লক্ষাধিক দরিদ্র মানুষকে স্বাস্থ্য শিক্ষা ও অর্থনৈতিক উন্নয়নে সহযোগিতা প্রদান করেছে। মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে প্রাপ্ত ভাতা তিনি দরিদ্র মানুষের কল্যাণে ব্যায় করেন। তিনি মনে করেন স্বাধীন দেশ পেয়েছি এখন দুর্নীতি, সন্ত্রাস, ধর্ষণ ও দারিদ্র্য মুক্ত বাংলাদেশ গড়ার সংগ্রাম চালিয়ে যেতে হবে। যাকে বঙ্গবন্ধু মুক্তির সংগ্রাম হিসেবে আখ্যায়ীত করেছেন


তাঁর বাবা ড. আব্দুল কাদের ছিলেন তৎকালীন সময়ের বৃহত্তম ময়মনসিংহ জেলার প্রথম দুই জন ডক্টরেট ডিগ্রিধারী একজন (১৯৫০ খৃষ্টাব্দ) ।  ব্যক্তি জীবনে তিনি দুই মেয়ে সন্তানের জনক। তাঁর সাত ভাই দুই বোন। তিনি ভাই-বোনদের মাঝে পঞ্চম। উল্লেখ্য যে, তিনি পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ড এর নির্বাহী পরিচালক মতিজা বেগম এর স্বামী। বর্তমানে তিনি বিভিন্ন সামাজিক ও দরিদ্র জনগোষ্ঠীর কল্যানে কাজ  করে সময় পার করছেন। 

                                                             

প্রিয় পাঠক! 

'আলোকিত মানুষের  গল্প'র উদ্দেশ্যই পাঠকদের প্রতিনিয়ত সাফল্যের পথে অনুপ্রাণিত করা। আমাদের আজকের এই  গল্পটি একটি সংগ্রামী মানুষের গল্প। একটি সাহসী মানুষের গল্প।  মূলত এ গল্পটি একটি দেশ প্রেমের গল্প।এই ধরনের গল্প  আপনাকে জীবন চলার পথে শক্তি সাহস যোগাবে। সাফল্য ও কর্মময়তার দিকে নিয়ে যেতে গতি সঞ্চার করবে ইনশাআল্লাহ। সেই সাথে আলোকিত ভবিষ্যৎ গড়তে সাহায্য করবে। তাই জীবনে সংগ্রাম সাধনার কোনো বিকল্প নেই। জীবনকে সংগ্রাম সাধনায়  বিনিয়োগ করেন। জীবনে চ্যালেঞ্জকে উপভোগ করুন, কষ্টকে সাহস হিসেবে নেন, জীবনে সৎভাবে পরিশ্রম করে যান।জীবনে অন্যের সাথে প্রতিযোগিতা না করে নিজের সাথে নিয়ে প্রতিযোগিতা করুন। তাহলেই সাফল্য আপনাকে হাতছানি দিবে।

All News Report

Add Rating:

0

সম্পর্কিত সংবাদ

ট্রেন্ডিং

ফ্রান্সের আরও ওয়েবসাইট৩৫টি হ্যাক করল Royal Battler BD এবং Bangladesh Civilian Force ।

ফ্রান্সের আরও ওয়েবসাইট৩৫টি হ্যাক করল Royal Battler BD এবং Bangladesh Civilian Force ।

কিশোরগঞ্জে জুয়ার আসরে র‌্যাবের হানা, আটক ১০

কিশোরগঞ্জে জুয়ার আসরে র‌্যাবের হানা, আটক ১০

ধর্ষণের কারন ও উৎস্য মোবাইলে পর্ণো ছবি ও যৌন উত্তেজক ঔষধ

ধর্ষণের কারন ও উৎস্য মোবাইলে পর্ণো ছবি ও যৌন উত্তেজক ঔষধ

‘হু আর ইউ ' অ্যাম আই এ ক্রিমিনাল? র‍্যাবকে মদ্যপ হাজীপুত্র

‘হু আর ইউ ' অ্যাম আই এ ক্রিমিনাল? র‍্যাবকে মদ্যপ হাজীপুত্র

দুই বিদেশি কুকুর ও ১০ দেহরক্ষী নিয়ে এলাকায় চক্কর দিতেন ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইরফান!

দুই বিদেশি কুকুর ও ১০ দেহরক্ষী নিয়ে এলাকায় চক্কর দিতেন ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইরফান!

আবারো দুঃসংবাদ দিলো আবহওয়া অধিদপ্তর

আবারো দুঃসংবাদ দিলো আবহওয়া অধিদপ্তর

ক্রেডিট ফি কমানোর দাবি হাবিপ্রবি শিক্ষার্থীদের

ক্রেডিট ফি কমানোর দাবি হাবিপ্রবি শিক্ষার্থীদের

সুদের টাকা দিতে ব্যর্থ হওয়ায় স্ত্রীকে ঋণদাতার হাতে তুলে দিলেন স্বামী

সুদের টাকা দিতে ব্যর্থ হওয়ায় স্ত্রীকে ঋণদাতার হাতে তুলে দিলেন স্বামী

রিফাত হত্যা: অপ্রাপ্তবয়স্ক ৬ আসামিকে আদালতে হাজির করেছে পুলিশ

রিফাত হত্যা: অপ্রাপ্তবয়স্ক ৬ আসামিকে আদালতে হাজির করেছে পুলিশ

Royal Battler BD এবং Bangladesh Civilian Force এর একত্র আক্রমণ এ ফ্রান্সের আরো ৩০ ওয়েব সাইট দখল

Royal Battler BD এবং Bangladesh Civilian Force এর একত্র আক্রমণ এ ফ্রান্সের আরো ৩০ ওয়েব সাইট দখল

পাকুন্দিয়া পল্লী দারিদ্র্য বিমোচন ফাউন্ডেশনে ঋন জালিয়াতি ও দুর্নীতি

পাকুন্দিয়া পল্লী দারিদ্র্য বিমোচন ফাউন্ডেশনে ঋন জালিয়াতি ও দুর্নীতি

বিশ্ব দরবারে উজ্জ্বল বাংলাদেশ

বিশ্ব দরবারে উজ্জ্বল বাংলাদেশ

রাজীবপুরে ইয়াবাসহ ৩ মাদক কারবারি আটক!

রাজীবপুরে ইয়াবাসহ ৩ মাদক কারবারি আটক!

ভয়ে ফরাসি নাগরিকদের সতর্ক থাকার আহবান ফ্রান্সের

ভয়ে ফরাসি নাগরিকদের সতর্ক থাকার আহবান ফ্রান্সের

বড় ভাইয়ের পরিবর্তে বিয়ে করতে এলো ছোট ভাই, ৬০ হাজার টাকা জরিমানা

বড় ভাইয়ের পরিবর্তে বিয়ে করতে এলো ছোট ভাই, ৬০ হাজার টাকা জরিমানা

সর্বশেষ

আজ থেকে শুরু ভারত-বাংলাদেশ বিমান চলাচল

আজ থেকে শুরু ভারত-বাংলাদেশ বিমান চলাচল

ক্ষমতার দাপটে বেপরোয়া ছিলেন ইরফান, বাড়িতে ছিলো গোপন কক্ষে টর্চার সেল দূর্গ

ক্ষমতার দাপটে বেপরোয়া ছিলেন ইরফান, বাড়িতে ছিলো গোপন কক্ষে টর্চার সেল দূর্গ

আল কোরআনের আলো

আল কোরআনের আলো

আড়াই কোটিতে রাজি হলেন জ্যাকুলিন

আড়াই কোটিতে রাজি হলেন জ্যাকুলিন

আজ নিষেধাজ্ঞামুক্ত হচ্ছেন সাকিব

আজ নিষেধাজ্ঞামুক্ত হচ্ছেন সাকিব

পাখি নিয়ে বিপাকে রাজশাহী বিমানবন্দরের ফ্লাইট

পাখি নিয়ে বিপাকে রাজশাহী বিমানবন্দরের ফ্লাইট

৪টি লক্ষণে বুঝবেন শিশু এডিনয়েড রোগে আক্রান্ত, কী করবেন

৪টি লক্ষণে বুঝবেন শিশু এডিনয়েড রোগে আক্রান্ত, কী করবেন

রংপুরে জাতীয়তাবাদী যুবদলের ৪২তম প্রতিষ্ঠা বাষির্কী পালিত

রংপুরে জাতীয়তাবাদী যুবদলের ৪২তম প্রতিষ্ঠা বাষির্কী পালিত

মেয়েদের পিরিয়ডের সময় যেসব খাবার বিরূপ প্রভাব ফেলে

মেয়েদের পিরিয়ডের সময় যেসব খাবার বিরূপ প্রভাব ফেলে

জেনে নিন সকালে চা-কফি পানের সঠিক সময়

জেনে নিন সকালে চা-কফি পানের সঠিক সময়

প্রয়াত আ’লীগ নেতা সাইফুল ইসলাম মাস্টারের ছেলের জানাজায় এমপি আয়েন উদ্দিন

প্রয়াত আ’লীগ নেতা সাইফুল ইসলাম মাস্টারের ছেলের জানাজায় এমপি আয়েন উদ্দিন

ভয়ে ফরাসি নাগরিকদের সতর্ক থাকার আহবান ফ্রান্সের

ভয়ে ফরাসি নাগরিকদের সতর্ক থাকার আহবান ফ্রান্সের

শহীদ রাসেল দিবসে শ্রীমঙ্গলে ওয়ার্কার্স পার্টির আলোচনাসভা আজ

শহীদ রাসেল দিবসে শ্রীমঙ্গলে ওয়ার্কার্স পার্টির আলোচনাসভা আজ

দক্ষতা উন্নয়নে মুক্তপাঠ

দক্ষতা উন্নয়নে মুক্তপাঠ

যে সবজি ত্বকের বার্ধক্যের ছাপ দূর করবে

যে সবজি ত্বকের বার্ধক্যের ছাপ দূর করবে